Logo
শিরোনাম
শবে বরাত পালন মুসলিম জাতিকে একতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে। ৫৭ তম খোশরোজ শরীফ ও মইনীয়া যুব ফোরামের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন বাঙালি সাংস্কৃতিতে মাইজভাণ্ডারী ত্বরীকার সাথে সম্পর্ক রয়েছে সীমান্তে হত্যা বন্ধের দাবীতে প্রতীকী লাশ নিয়ে হানিফ বাংলাদেশীর মিছিল লক্ষ্মীপুরে কৃষক কাশেম হত্যা: স্ত্রী, শ্বশুরসহ গ্রেপ্তার ৫ কুমিল্লা সিটি’র উপনির্বাচন: মেয়র পদে প্রতীক বরাদ্দ অবৈধ মজুদকারীরা দেশের শত্রু : খাদ্যমন্ত্রী ফতুল্লায় সিগারেট খাওয়ার প্রতিবাদ করায় কিশোরকে পিটিয়ে হত্যা বকশীগঞ্জে মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা নোবিপ্রবিতে সিএসটিই এলামনাই এসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন

১০ ডিসেম্বর সমাবেশ করবে না আওয়ামী লীগ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, গণতন্ত্র ত্রুটিমুক্ত করতে কাজ করছে আওয়ামী লীগ। যারা নির্বাচন বানচাল করতে হরতাল-অবরোধ করছে তারা গণতান্ত্রিক শক্তি নয়। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ৬০তম মৃত্যুবার্ষিকীতে তার সমাধিতে শ্রদ্ধা জানিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গণতন্ত্রের লড়াই চালিয়ে যাওয়ার অঙ্গীকার ব্যক্ত করে ওবায়দুল কাদের বলেন, গণতন্ত্রের জন্যই আজীবন সাধনা করেছেন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। আমরা তার প্রদর্শিত পথ ধরে আমাদের গণতন্ত্রের সংগ্রাম এগিয়ে নিয়ে যাব। গণতন্ত্রকে ত্রুটিমুক্ত করে পারফেক্ট ডেমোক্রেসি প্রতিষ্ঠার জন্য নিরলসভাবে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গণতন্ত্রের লড়াই চালিয়ে যাব। আজকের দিনে এটাই আমাদের অঙ্গীকার।

এসময় তিনি বলেন, যারা নির্বাচন বানচাল করতে হরতাল-অবরোধ করছে তারা গণতান্ত্রিক শক্তি নয়।

এসময় ওবায়দুল কাদের বলেন, আগামী ১০ ডিসেম্বর মানবাধিকার দিবস। এই মানবাধিকার দিবসে আমরা বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেটে একটি বড় সমাবেশ করব, এরকম একটা কর্মসূচি আমাদের ছিল। আমরা নির্বাচন কমিশনের কাছে আবেদন করেছিলাম। সে আবেদন তারা গ্রহণ করেননি। বাইরে সমাবেশের নামের শোডাউন হবে সে আশঙ্কা করছে। যে কারণে দশ তারিখে আমাদের মানবাধিকার দিবসের আনুষ্ঠানিকতা ভেতরেই পালন করব। বাইরে যে সমাবেশ করার কথা, করলে ভালো হতো কিন্তু নির্বাচনী বিধির বাইরে আমরা যেতে চাই না।

সকালে সুপ্রিম কোর্ট সংলগ্ন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করে আওয়ামী লীগ।

দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার চাপা, কৃষি ও শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, উপ-প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক আব্দুল আউয়াল শামীম, উপ-দপ্তর সায়েম খান, কার্যনির্বাহী সদস্য সাহাবুদ্দিন ফরাজী প্রমুখ সোহরাওয়ার্দীর সমাধিতে শ্রদ্ধা জানান।

 

 


আরও খবর

কাদের-চুন্নুকে পদ থেকে সরানো হয়েছে

শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪

তিন মাস পর কারামুক্ত মির্জা আব্বাস

সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




লালমনিরহাটে পৃথক অভিযানে ৯ মাদক কারবারি আটক

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ |

Image

নিজস্ব প্রতিনিধি,লালমনিরহাট: 

জেলা সদর লালমনিরহাট থানা পুলিশের পৃথক পৃথক তিনটি অভিযানে ৩৫ বোতল মাদকদ্রব্য ফেন্সিডিল সহ ০২ জন, ১০ বোতল মাদকদ্রব্য ফেন্সিডিলসহ ০২ জন, এবং ০২ কেজি মাদকদ্রব্য গাঁজাসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার, মাদকদ্রব্য পরিবহনে ব্যবহৃত ০১টি ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা জব্দ।

পুলিশ সুপার লালমনিরহাট এর দিক নির্দেশনায় লালমনিরহাট থানার অফিসার ইনচার্জ  মোঃ ওমর ফারুক এর নের্তৃত্বে মাদকবিরোধী অভিযানে লালমনিরহাট থানা পুলিশের অভিযান টিম এর এসআই দীপ্ত কুমার সিং সঙ্গীয় ফোর্সসহ ১নং মোগলহাট ইউনিয়নের দুরাকুটি মৌজাস্থ বিষবাড়ী এলাকার সামনে মোগলহাট টু লালমনিরহাট গামী পাকা রাস্তার ওপর হইতে আসামী মিস্টার আলী(৩৮), পিতা-মৃত-জহুরুল হক, সাং- দুর্গাপুর, থানা- আদিতমারী, জেলা -লালমনিরহাট,মোঃ সাজ্জাদ কবির @ রতন (৪১), পিতা-মোঃ ফারুক হোসেন, সাং- মিয়াপাড়া দোয়ানীটারী, থানা- হারাগাছ, জেলা -রংপুরদ্বয়কে হাতে নাতে গ্রেফতার করেন। 

এছাড়াও থানা পুলিশের অপর অভিযানে এসআই মোঃ আশরাফুল ইসলাম ফোর্সসহ লালমনিরহাট থানাধীন ০৮ নং গোকুন্ডা ইউনিয়নের তিস্তা এলাকা হইতে আসামী মোঃ আব্দুর রহিম(২৮), পিতা-মোঃ আজিজার রহমান, গ্রাম- দুলালী, ইউপি-গোরল ০৬নং ওয়ার্ড , থানা- কালীগঞ্জ, জেলা -লালমনিরহাট, মোঃ মামুন শেখ (২২), পিতা-তছির উদ্দিন, মাতা-মোছাঃ মাছুদা বেগম, গ্রাম- বেড়াভাঙ্গা, থানা- পলাশবাড়ী, জেলা -গাইবান্ধাদ্বয়কে হাতে নাতে গ্রেফতার করেন।


একই এলাকায় আরেকটি অভিযানে এসআই মোঃ রুহুল ইসলাম ০২ কেজি মাদকদ্রব্য গাঁজাসহ আসামী মোঃ আনিছুর রহমান, পিতা- মোঃ আলেফ উদ্দিন, সাং-রতিপুর বাতানটারী, থানা ও জেলা- লালমনিরহাটকে হাতে নাতে গ্রেফতার করেন। এসময় মাদকদ্রব্য গাঁজা পরিবহনে ব্যবহৃত একটি ব্যাটারী চালিত পুরাতন অটো রিক্সা জব্দ করে।

 মাদকদ্রব্যসহ গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে পৃথক পৃথক মাদক মামলা রুজু করে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন লালমনিরহাট সদর থানার অফিসার ও ওমর ফারুক।


আরও খবর



নওগাঁর এক কেন্দ্রের ৫৯ পরীক্ষার্থীই ভুয়া

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

নওগাঁর সাপাহার উপজেলার একটি কেন্দ্রে থেকে চলমান এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় ৫৯ জন ভুয়া পরীক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে।

আটক পরীক্ষার্থীদের প্রবেশপত্র জমা নিয়ে ভুয়া পরীক্ষার্থী হিসেবে অংশ নেয়ার অভিযোগ এনে বহিষ্কার করা হয়।

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বেলা সড়ে ১১টার দিকে সাপাহার উপজেলা সদরের সরফতুল্লাহ ফাজিল মাদরাসা কেন্দ্রে অভিযান চালিয়ে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ৫৯ জন ভুয়া পরীক্ষার্থীকে আটক করে উপজেলা প্রশাসন।

অভিযানের নেতৃত্ব দেন সাপাহার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাসুদ হোসেন। ওই কেন্দ্রে ১০টি প্রতিষ্ঠানের মোট ৭৭৭ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষার্থী ছিল।

জানতে চাইলে ইউএনও মাসুদ হোসেন বলেন, আজ সকাল ১০টা থেকে দাখিল পরীক্ষার আরবি প্রথম পত্রের পরীক্ষা শুরু হয়। পরীক্ষা শুরুর দিকে কিছু গোপন সূত্রে আমাদের কাছে খবর আসে সরফতুল্লাহ ফাজিল মাদরাসা কেন্দ্রে ভুয়া পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দিচ্ছে।

খবর পেয়ে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও কেন্দ্র সচিবকে সাথে নিয়ে ওই কেন্দ্রে গিয়ে যাচাই-বাছাই করে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ৫৯ জন ভুয়া পরীক্ষার্থী পাওয়া গেছে।

তিনি আরো বলেন, ওই কেন্দ্রের সব পরীক্ষার্থীর প্রত্যেকের প্রবেশপত্রসহ অন্যান্য কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। ছবিসহ প্রয়োজনীয় অন্যান্য কাগজপত্র যাচাই শেষে প্রকৃত ভুয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা জানা যাবে।

ইউএনও বলেন, এই অনিয়মের সাথে কেন্দ্র সচিব, সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকেরা জড়িত থাকার প্রমাণ পেলে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানানো হবে।


আরও খবর



আবার 'সেঞ্চুরি' হাঁকিয়েছে পেঁয়াজ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

হঠাৎ পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। সপ্তাহজুড়ে বাজারে নতুন পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৭০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হলেও গতকাল সোমবার থেকে নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যের দামের ঊর্ধ্বগতি দেখা গেছে। খুচরা বাজারে দাম বেড়ে আবারও সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছে পেঁয়াজ। গত বছর এ সময় নতুন পেঁয়াজ বাজারে বিক্রি হয়েছে প্রতি কেজি ৩৫ থেকে ৪০ টাকায়। ভরা মৌসুমে এ পণ্যের দাম কেন বেড়েছে- এ প্রশ্ন ভোক্তাদের। সরকার প্রায় এক মাস আগে বিভিন্ন জেলায় অভিযান পরিচালনা করলেও পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেনি। উল্টো অভিযান বন্ধ করে দেওয়া হয়।

গতকাল সোমবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে দাম বাড়ার এমন চিত্র দেখা গেছে। বাজারের বেশিরভাগ দোকানেই নতুন পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা কেজিদরে। ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) তথ্যানুযায়ী, রবিবার রাজধানীতে প্রতি কেজি নতুন পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৯০ থেকে ১০০ টাকায়। টিসিবির সহকারী পরিচালক (বাজার তথ্য) নাসির উদ্দিন তালুকদার জানান, রবিবার নতুন পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৯০ থেকে ১০০ টাকায়, ঠিক এক দিন আগে এটার দাম ছিল ৬৫ থেকে ৭০ টাকা। গত মাসে পেঁয়াজের দাম হঠাৎ বেড়ে গেছিল। তাই ওই সময়ও নতুন পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৯০ থেকে ১০০ টাকায়।

রাজধানীর মিরপুর শেওড়াপাড়া বাজারে কথা হয় বেসরকারি চাকরিজীবী আবদুল্লাহ আল মামুনের সঙ্গে। তিনি বলেন, গত ৪-৫ দিন আগে পেঁয়াজ কিনলাম ৮০ টাকায়, আজ (সোমবার) কিনতে এসে দেখি দাম হয়ে গেছে ১০০ টাকা। ২-১ দিনের মধ্যে হঠাৎ কীভাবে দাম ২০ টাকা বেড়ে যায়? দেশে বাজার মনিটরিং বলে কী কিছু আছে? যারা অসাধু ব্যবসায়ী তারা হঠাৎ সবকিছুর দাম বাড়িয়ে দিয়ে সাধারণ ক্রেতাদের জিম্মি করে ফেলে। গুলশানসংলগ্ন লেকপাড় বাজারে দীর্ঘদিন ধরে পেঁয়াজ বিক্রি করছেন সিরাজুল ইসলাম।

হঠাৎ পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির কারণ সম্পর্কে তিনি বলেন, আমি মূলত পাবনা থেকে পেঁয়াজ কিনে এনে এখানে খুচরা বিক্রি করি। এছাড়া মাঝে মাঝে ঢাকার কারওয়ানবাজারসহ বিভিন্ন পাইকারি বাজার থেকে পেঁয়াজ কিনি। পাবনায় এখন পেঁয়াজ কিনতে হচ্ছে প্রতি কেজি ৮০ থেকে ৮৫ টাকায়। পরিবহনসহ সব খরচ মিলিয়ে ঢাকার খুচরা বাজারে সেই পেঁয়াজ সোমবার বিক্রি হয়েছে ১০০ টাকা কেজি দরে। পাবনায় প্রতি মণ পেঁয়াজ ৩ হাজার ২০০ থেকে ৩ হাজার ৪০০ টাকায় কিনতে হচ্ছে। মূলত রবিবার থেকেই এমন দাম বেড়েছে।

সিরাজুল ইসলাম বলেন, মূলত নতুন বা মুড়িকাটা পেঁয়াজ তোলা শেষের দিকে। প্রায় দেড় মাস আগে এ পেঁয়াজ বাজারে আসতে শুরু করে, এখন কৃষকের সেই পেঁয়াজ শেষের দিকে। ফলে সরবরাহ কমতে শুরু করেছে। চাহিদার তুলনায় সরবরাহ না থাকায় হঠাৎ করে পেঁয়াজের দাম বেড়ে গেছে। এখন কৃষকের মূল পেঁয়াজ যেটা বছরজুড়ে পাওয়া যায়, সেই পেঁয়াজ উঠতে কিছুদিন সময় লাগবে। সে পর্যন্ত এমন বাড়তি দাম থাকতে পারে।

 মালিবাগ বাজারের ক্রেতা গার্মেন্টকর্মী রেজাউল করিম বলেন, এক কেজি পেঁয়াজের দাম ১০০ টাকা হওয়ায় আধা কেজি পেঁয়াজ কিনেছি। বাজারে সব জিনিসের দাম অতিরিক্ত বেশি, এর মধ্যে আবারও বাড়ল পেঁয়াজের দাম। সবকিছুর দাম এভাবে বাড়তে থাকলে আমাদের মতো নিম্নআয়ের মানুষের সংসার পরিচালনা করাই কঠিন হয়ে পড়বে। বাড্ডা এলাকার মুদিদোকানি রহমান মিয়া বলেন, আজ দোকানে বিক্রির জন্য কয়েক পাল্লা পেঁয়াজ কিনে এনেছি। সেখানে প্রতি পাল্লা (৫ কেজিতে এক পাল্লা) দাম পড়েছে ৪৭০ টাকা, মানে প্রতি কেজি পড়েছে ৯৪ টাকা। এরপর আছে পরিবহন খরচ।

সব মিলিয়ে খুচরা বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি করছি ১০০ টাকায়। মাত্র তিন দিন আগে পাইকারি ৭০ টাকায় কিনে, বিক্রি করেছি ৮০ টাকা কেজিদরে। সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র প্রতিদিনের সংবাদকে জানায়, মুড়িকাটা পেঁয়াজের মৌসুম শেষ হওয়ার পথে। তাই বাজারে এ পেঁয়াজের সরবরাহ কমে গেছে। এর ফলেই দাম বাড়ছে। গত শনিবার পাইকারদের থেকে ৮৫ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ কিনে ৯০ টাকায় বিক্রি করেছে খুচরা ব্যবসায়ীরা। তবে আগামী মাসে নতুন হালি পেঁয়াজ বাজারে আসবে। এর আগে পর্যন্ত দাম কিছুটা বাড়ন্ত থাকবে।

শ্যামবাজার বণিক সমিতির সহসভাপতি ও পেঁয়াজের পাইকারি ব্যবসায়ী আবদুল মাজেদ বলেন, মুড়িকাটা পেঁয়াজ যা উৎপাদন হয়েছে, তা আমরা খেয়ে ফেলেছি। ফলে এ পেঁয়াজ এখন মৌসুম শেষ হয়ে যাওয়ায় সরবরাহ সংকট আছে। এতেই দাম বাড়ছে। কবে নাগাদ পেঁয়াজের দাম স্থিতিশীল হতে পারে- এ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাজারে সারা বছর যে পেঁয়াজ আমরা পাই, তা হালি পেঁয়াজ। আগামী দেড় থেকে দুই মাসের মধ্যে এ পেঁয়াজ বাজারে আসা শুরু হবে। অর্থাৎ মার্চ-এপ্রিল মাসে নতুন পেঁয়াজ এলে বলা যাবে দাম কোনদিকে যাবে। এর আগে দাম কমার কোনো সম্ভাবনা নেই। কারণ পেঁয়াজের আমদানি বন্ধ আছে।

এফবিসিসিআইয়ের ঊর্ধ্বতন সহসভাপতি আমিন হেলালী বলেন, মুড়িকাটা পেঁয়াজের মৌসুম শেষের দিকে হলেও উত্তোলন তো বন্ধ নেই। তাহলে সরবরাহ সংকট হবে কেন? বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি। অন্যদিকে পেঁয়াজ আমদানির বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে কিনা- জানতে চাইলে বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে পেঁয়াজ আমদানির জন্য ব্যবসায়ীদের অনুমতি দেওয়া আছে। যে যেখান থেকে ইচ্ছে আমদানি করুক, কোনো বাধা নেই। কিন্তু এরপর কেউ আমদানির উদ্যোগ নিয়েছে কিনা, সেটা এ মুহূর্তে বলতে পারছি না। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলব।

দাম বৃদ্ধির পর ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পদক্ষেপ সম্পর্কে জানতে চাইলে অধিদপ্তরের উপপরিচালক আতিয়া সুলতানা বলেন, আমরা এ মুহূর্তে উৎপাদনকারী উৎসগুলোয় গিয়ে পরিস্থিতি যাচাই করছি। বর্তমানে আমাদের মহাপরিচালক বরিশাল বিভাগের জেলাগুলোয় পরিদর্শনে আছেন। সেখানকার কৃষকের সঙ্গে কথা বলছেন। এছাড়া কয়েকদিন আগেও আমরা পেঁয়াজ নিয়ে দেশব্যাপী অভিযান চালিয়েছিলাম। এখন যেহেতু আবার দাম বেড়েছে, তাই আবারও হয়তো আমরা পদক্ষেপ নেব।

 


আরও খবর

চড়া দাম অধিকাংশ পণ্যের

শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ইজতেমা উপলক্ষে পুলিশের নির্দেশনা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ |

Image

বিশ্ব ইজতেমায় মুসল্লিদের বেশ কিছু নির্দেশনা মেনে চলতে অনুরোধ জানিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ। আগামী ২ থেকে ৪ ফেব্রুয়ারি এবং ৯ থেকে ১১ ফেব্রুয়ারি দুই পর্বে টঙ্গীতে বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস পুলিশ সুপার ইনামুল হক সাগর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ইজতেমায় নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করবেন এবং প্রয়োজনে সহযোগিতা নেবেন। অপরিচিত ও সন্দেহভাজন ব্যক্তি এবং কোন পোটলা, ব্যাগ বা সন্দেহজনক বস্তুর উপস্থিতি দেখামাত্র তাৎক্ষণিকভাবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের অবহিত করবেন।

টাকা, মূল্যবানসামগ্রীসহ একাকি ঘোরাফেরা করবেন না এবং সবসময় টাকা ও মূল্যবান সামগ্রী নিজ হেফাজতে রাখবেন। টাকা ও মূল্যবান সামগ্রী চুরি বা হারিয়ে গেলে তাৎক্ষণিকভাবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের অবহিত করবেন।

হকার ও ভ্রাম্যমাণ ফেরিওয়ালাদের কাছ থেকে খাদ্য বা পানীয় গ্রহণে অজ্ঞান পার্টি ও মলম পার্টির কবলে পড়ার ঝুঁকি সৃষ্টি হতে পারে। মুসল্লিদের নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন চলাচলের সুবিধার্থে ইজতেমা চলাকালে প্রধান সড়কসমূহ ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় তাবু খাটাবেন না কিংবা অন্য কোনোভাবে সড়ক ও পার্শ্ববর্তী এলাকা ব্যবহার করবেন না।

অসুস্থ হলে ইজতেমার জন্য নির্ধারিত অস্থায়ী হাসপাতাল ও নিকটবর্তী হাসপাতাল, স্বাস্থ্যসেবা কর্মী বা প্রয়োজনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সহায়তা গ্রহণ করবেন। গুজব শুনলে বা কোনো প্রকার দুর্ঘটনা ঘটলে ধৈর্য ধরে সাহসিকতার সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবিলা করবেন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সহযোগিতা করবেন।

ট্রেনে নাশকতা সম্পর্কে তথ্য জানতে পারলে তাৎক্ষণিকভাবে নিকটবর্তী থানা/আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের অবহিত করবেন।

রান্না করার সময় আগুন থেকে দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে সর্তক থাকবেন। খিত্তা এলাকায় বা নিজেদের অবস্থানস্থলে ধূমপান করবেন না। খিত্তায় সবসময় পানি মজুদ রাখুন।

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে চলাচল নির্বিঘ্ন রাখার উদ্দেশে ঢাকা মহানগরীর প্রগতি সরণি থেকে টঙ্গী ফ্লাইওভার পর্যন্ত, গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী ফ্লাইওভার থেকে চৌরাস্তা ও পার্শ্ববর্তী এলাকার প্রধান সড়কের ৫০ গজের মধ্যে মাইক লাগাবেন না। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ট্রেনে কিংবা অন্য কোন যানবাহনে চলাচল করবেন না।

জরুরি প্রয়োজনে ইজতেমাস্থলের নিকটস্থ পুলিশ কন্ট্রোল রুমে যোগাযোগ করার অনুরোধও জানান তিনি।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ : উপ-পুলিশ কমিশনার, উত্তরা- ০১৩২০-০৪১৭৪০, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এয়ারপোর্ট)- ০১৩২০-০৪১৭৪১, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণখান)- ০১৩২০-০৪১৭৪২, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তরা)- ০১৩২০-০৪১৭৪৩, সহকারী পুলিশ কমিশনার (উত্তরা)- ০১৩২০-০৪১৭৫৪, সহকারী পুলিশ কমিশনার (এয়ারপোর্ট)- ০১৩২০-০৪১৭৫৭, সহকারী পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-উত্তরা পশ্চিম জোন)- ০১৩২০-০৪৩৯৫৫, অফিসার ইনচার্জ, উত্তরা পূর্ব থানা- ০১৩২০-০৪১৭৮৯, অফিসার ইনচার্জ, উত্তরা, পশ্চিম থানা০১৩২০-০৪১৮১৭, অফিসার ইনচার্জ- তুরাগ থানা- ০১৩২০-০৪১৮৪৫, ট্রাফিক কন্ট্রোল রুম- ০১৭১১-০০০৯৯০; গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ: উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ দক্ষিণ)- ০১৩২০-০৭০৩৩০, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ দক্ষিণ)- ০১৩২০-০৭০৬৪১, সহকারী পুলিশ কমিশনার (টঙ্গী জোন)- ০১৩২০-০৭০৬৫৮, অফিসার ইনচার্জ, টঙ্গী পশ্চিম থানা- ০১৩২০-০৭০৭৫১, ডিউটি অফিসার, টঙ্গী পশ্চিম থানা- ০১৩২০-০৭০৭৫৯, অফিসার ইনচার্জ, টঙ্গী পূর্ব থানা- ০১৩২০-০৭০৭২২, ডিউটি অফিসার্র, টঙ্গী পূর্ব থানা- ০১৩২০- ০৭০৭৩০, ডিউটি অফিসার্র, টঙ্গী পূর্ব থানা- ০১৩২০-০৭০৭৩০, ইজতেমা কন্ট্রোল রুম (হটলাইন)- ০১৩২০-০৭২৯৯৯, কন্ট্রোল রুম, জিএমপি- ০১৩২০-০৭২৯৯৮, ট্রাফিক কন্ট্রোল রুম-০১৩২০-০৭১২৯৮ এ যোগাযোগ করুন।

র‌্যাব : র‌্যাব-১ কন্ট্রোল রুম- ০১৭৭৭৭১০১৯৯, র‌্যাব হেডকোয়ার্টার্স কন্ট্রোল রুম- ০১৭৭৭৭২০০২৯ এবং প্রয়োজনে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ যোগাযোগ করুন।

 


আরও খবর



ট্রাম্পকে ৩৫৫ মিলিয়ন ডলার জরিমানা

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

প্রতারণা মামলায় সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং তার ট্রাম্প অর্গ্যানাইজেশনকে ৩৫৫ মিলিয়ন ডলার জরিমানা করেছে নিউইয়র্কের একটি আদালত। স্থানীয় সময় শুক্রবার এই রায় দেওয়া হয়।

রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, রায়ে ট্রাম্পকে তিন বছরের জন্য নিউইয়র্কের কোনো প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ গ্রহণে নিষিদ্ধ করা হয় এবং নিউইয়র্কের কোনো করপোরেশনে তাকে অফিসার বা পরিচালক হিসেবে কাজ করা থেকে বিরত থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, নিউইয়র্কের একজন বিচারক শুক্রবার ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তার কোম্পানিগুলোকে ৩৫৪.৯ মিলিয়ন ডলার জরিমানা করেছেন। রায়ে বিচারক জানিয়েছেন, তারা কয়েক বছর ধরে তাদের এমন সব আর্থিক বিবরণ দিয়ে বোকা বানাচ্ছিল যা তার অর্থের পরিমাণকে বাড়িয়ে দেখাচ্ছিল।

ট্রাম্পকে অবিলম্বে এই অর্থ দিতে হবে না কারণ এ ব্যাপারে আপিলের প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে। তবে এই রায় সাবেক প্রেসিডেন্টের অগ্রগতির জন্য প্রতিবন্ধক।

শেষ অবধি তিনি যদি এই অর্থ প্রদানে বাধ্য হন তাহলে আগের বিচারের রায়ের উপর এই রায় তার অর্থ সম্পদকে নাটকীয়ভাবে হ্রাস করবে। এছাড়া একজন সফল ব্যবসায়ী হিসেবে তার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হবে।

২০২২ সালে সম্পত্তির মূল্য বাড়িয়ে দেখিয়ে জালিয়াতির মাধ্যমে ব্যাংক লোন ও বীমা সুবিধা নেয়ার অভিযোগে নিউইয়র্কের ম্যানহাটনের একটি আদালতে ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তার ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে এই দেওয়ানি মামলা হয়। তদন্ত শেষে ট্রাম্পের কোম্পানি ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে সম্পত্তির অতিরিক্ত মূল্য দেখানো আবার সেই সম্পত্তিরই দাম কম দেখিয়ে আয়করে ছাড় পাওয়া, ব্যবসায়িক রেকর্ড, বীমা জালিয়াতি এবং ষড়যন্ত্রসহ বেশ কয়েকটি অভিযোগে ট্রাম্প ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করে বিচার কাজ শুরু করে আদালত।

বেশ কয়েকটি ফৌজদারি অপরাধে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প রিপাবলিকান প্রার্থী হিসেবে চলতি বছরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে ব্যাপক প্রচারণা চালাচ্ছেন।


আরও খবর

অনুমতি ছাড়া হজ করলে শাস্তি ঘোষণা

শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪