Logo
শিরোনাম
রাজধানীর সেতু ভবনে আগুন কমপ্লিট শাটডাউন : ঢাকাসহ সারা দেশে বিজিবি মোতায়েন জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ইট বোঝায় ট্রাক খাদে কুষ্টিয়ায় আন্দোলনকারী ও ছাত্রলীগের মধ্যে সংঘর্ষ -কয়েকটি মোটর সাইকেলে আগুন পুঠিয়ায় আ’লীগের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা লালমনিরহাটে অনুষ্ঠিত হয়েছে তিস্তা সমাবেশ বেনাপোল স্থল বন্দর দিয়ে মিথ্যা ঘোষণায় আমদানি করা হয়েছে ১৮ কোটি টাকার সালফিউরিক এসিড কুমারখালীতে মহাসড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, আহত-২ শরণখোলায় নার্সের চিকিৎসার অবহেলায় এক রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ শেরপুরে কোটাবিরোধী শিক্ষার্থী-ছাত্রলীগের সংঘর্ষ, সাংবাদিকসহ আহত-২০

৫ সেপ্টেম্বর ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২১ জুলাই ২০২৪ |

Image

রোকসানা মনোয়ার : প্রধানমন্ত্রীর আসন্ন ভারত সফরে সমন্বিত অর্থনৈতিক অংশীদারি চুক্তি করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ও ভারত। তার এ সফরে দুই দেশের বাণিজ্যিক সম্পর্ক পাচ্ছে বিশেষ গুরুত্ব। সফর নিয়ে দুই দেশে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি।

দ্বিপক্ষীয় বিষয়গুলোর পাশাপাশি বর্তমান বৈশ্বিক অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক বাস্তবতায় আঞ্চলিক রাজনীতি নিয়ে কথা বলতে পারেন প্রতিবেশী দুই দেশের শীর্ষ নেতারা।

সফরসূচি অনুযায়ী, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে দ্বিপক্ষীয় সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৫ সেপ্টেম্বর নয়াদিল্লি পৌঁছবেন। দিল্লিতে বাংলাদেশ হাইকমিশনের নৈশভোজে যোগ দেবেন। পরদিন সকালে রাজঘাটে গান্ধী সমাধিস্থলে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণের পর রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। এরপর হায়দরাবাদ হাউসে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী প্রথমে একান্তে ও পরে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে মিলিত হবেন। বৈঠকের পর যৌথ ঘোষণাপত্র দেওয়া হবে। ৭ সেপ্টেম্বর ভারতের ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশের কথা তুলে ধরবেন। ৮ সেপ্টেম্বর রাজস্থানে আজমির শরিফ জিয়ারত শেষে তিনি ঢাকা ফিরে আসবেন।

কর্মকর্তারা বলছেন, এ চুক্তির ব্যপ্তি অনেক বেশি হওয়ায় চলমান মুক্তবাণিজ্য চুক্তি থেকে এটির অনেক ভিন্নতা রয়েছে। নতুন এ চুক্তিতে পণ্য ও সেবা বাণিজ্য, বিনিয়োগ, মেধাস্বত্ব ও ই-কমার্সের মতো অনেক বিষয় অন্তর্ভুক্ত থাকছে। চুক্তির আওতায় দুই দেশের মধ্যে দুই দেশের পণ্যের শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকারের বাইরে পণ্য ও সেবা বাণিজ্য বৃদ্ধির জন্য উভয় দেশের মধ্যে আন্তদেশ ও আন্তঃখাত বিনিয়োগের প্রতি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। 

ভারত যেসব খাতে বাংলাদেশে সেবা রপ্তানি করতে পারবে- ব্যবসায়িক সেবা, পর্যটন, ব্যক্তিগত ভ্রমণ ও পণ্য বহন সেবা, টেলিযোগাযোগ, কম্পিউটার ও তথ্যসেবা, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা। বিদ্যমান নীতি অনুযায়ী বাংলাদেশে ভারতীয়রা বিনিয়োগ করতে পারলেও বাংলাদেশিরা বিনিয়োগ করতে চাইলে আগে ভারত সরকারের অনুমতি নিতে হয়। ভারত ও বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের জন্য বিনিয়োগের সুযোগ সমানুপাতিক করার পক্ষে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। 

আসন্ন সফরে তিস্তা নদীর পানিবণ্টন চুক্তি নিয়ে তেমনভাবে আশা করা না হলেও কুশিয়ারার পানিবণ্টন নিয়ে চুক্তি হবে। গঙ্গার পানিবণ্টন চুক্তি নবায়ন হবে। আর ছয় নদীর পানি বণ্টন নিয়ে হতে পারে অন্তর্বর্তীকালীন পানি ব্যবস্থাপনা চুক্তি। এ সফরে আরো যেসব বিষয় আলোচনায় আসবে তার মধ্যে আছে- প্রতিরক্ষা ঋণ কাজে লাগানো, প্রতিরক্ষা খাতে বাণিজ্য, যৌথ উৎপাদন ও যৌথ উদ্ভাবনের সম্ভাবনার বিষয়ে আলোচনা। 

 শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করতে পারেন মমতা : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত সফরে এলে দিল্লিতে তার সঙ্গে দেখা করতে পারেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। এর আগে ২০১৭ সালেও দিল্লি সফরে এসে মমতার সঙ্গে একান্ত বৈঠক করেছিলেন শেখ হাসিনা। দুই নেত্রীর একান্ত বৈঠকে উঠে এসেছিল তিস্তার পানি বণ্টনসহ একাধিক দ্বিপক্ষীয় বিষয়।

তবে এখন পর্যন্ত সরকারিভাবে মমতাকে দিল্লিতে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। তার সঙ্গে রাজনৈতিকভাবে কোনো যোগাযোগ হয়েছে কি না সরকারি কর্মকর্তারা তা বলতে পারছেন না। 


আরও খবর



বেড়েছে ডেঙ্গু আক্রান্ত, মৃত্যু ২

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২০ জুলাই ২০24 |

Image

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে দেশে সোমবার (১৫ জুলাই) সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় আরো দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। তবে এই সময়ের মধ্যে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১১২ জন।

এর মধ্যে ঢাকার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৫৫ জন। আর ঢাকার বাইরের হাসপাতালে নতুন করে ভর্তি হয়েছেন আরো ৫৭ জন রোগী।

চলতি বছরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৫০ জনের। এদের মধ্যে পুরুষ ৪৬ দশমিক শূন্য শতাংশ ও নারী ৫৪ দশমিক শূন্য শতাংশ।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সরকারি প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ১৫ জুলাই পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন মোট ৪ হাজার ৬৭৮ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ৬০ দশমিক ৭ শতাংশ ও নারী ৩৯ দশমিক ৩ শতাংশ।


আরও খবর



মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২০ জুলাই ২০24 |

Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিভিন্ন সময় মুক্তিযোদ্ধাদের অসম্মান করা হয়েছে এবং তারা তাদের সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। আমি চাই যুগ যুগ ধরে দেশের মানুষ মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান দেবে। মুক্তিযোদ্ধাদের সব সময় সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে।

মঙ্গলবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ‌প্রধানমন্ত্রী ফেলোশিপ ২০২৪-২৫-এর নির্বাচিত ফেলোদের পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, লাখো শহীদের রক্তে অর্জিত স্বাধীনতা কখনো ব্যর্থ হতে পারে না। মুক্তিযোদ্ধা যে দলেরই হোক, তাদের সব সময় সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে।

বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, আমাদের দেশের ছেলেমেয়েরা সবচেয়ে বেশি মেধাবী। তাদের সুযোগ তৈরি করে দিতে হবে। সেটাই আমাদের কর্তব্য। সেই সুযোগ আমরা করে দিতে চাই। সেই কারণে ফেলোশিপটা চালু করেছি।

২০২১ থেকে ২০৪১ সাল নির্দিষ্ট করেছি। ২০৪১ সালে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ব। আমাদের জনশক্তি স্মার্ট জনশক্তি হবে। আমাদের বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। বলেন সরকারপ্রধান।

নারী, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী, প্রতিবন্ধী কেউ যাতে পিছিয়ে না থাকে তার জন্য সরকার সচেষ্ট বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী ফেলোশিপ অ্যাওয়ার্ড ভবিষ্যতে কেউ যেন বাতিল করতে না পারে সেজন্য একে ট্রাস্টের আওতায় আনা হবে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। এজন্য ৫০০০ কোটি টাকার ফান্ড প্রয়োজন বলে জানান তিনি।

চতুর্থ শিল্পবিপ্লব মোকাবিলায় তরুণদের উপযুক্ত করে গড়ে তোলার প্রত্যয়ের কথাও জানান সরকারপ্রধান।


আরও খবর

রাজধানীর সেতু ভবনে আগুন

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




শত কোটি টাকার সম্পদের মালিক মতিউর কন্যা ইপ্সিতা

প্রকাশিত:শনিবার ২৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ |

Image

বিডি টুডেস ডিজিটাল ডেস্ক:

ছাগলকাণ্ডে একে একে বের হতে থাকে মতিউরের দুর্নীতির মাধ্যমে উপার্জন করা কোটি কোটি টাকার সম্পদ। 

শুধু মতিউর না তার দুই স্ত্রী এবং সন্তানদের নামে বেনামে থাকা সম্পদের তথ্যও প্রকাশ্যে আসতে শুরু করেছে। মতিউরের প্রথম স্ত্রী লায়লা কানিজ লাকীর মেয়ে ফারজানা রহমান ইপ্সিতা সম্পদের তথ্য এবার ফাঁস হয়েছে।


মাত্র ৩২ বছর বয়স। নিজেকে মেকআপ আর্টিস্ট হিসাবে পরিচয় দেন এই তরুণী। পড়াশোনা শেষে এই পেশায় যোগ দিয়ে কতই বা আয় করতে পারেন। কিন্তু বিস্ময়কর হলেও সত্যি, এই অল্প বয়সেই বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় সাততলা বাড়িসহ শতকোটি টাকার সম্পদের মালিক হয়েছেন।



 কানাডায় নিজস্ব ফ্লাটে বসবাস করেন ইপ্সিতা। কানাডায় তার বাড়ি-গাড়িসহ বিলাসী জীবনের ছবি ঘিরে নেট দুনিয়ায় হইচই চলছে। তবে কানাডার চেয়ে দেশেই তার বেশি সম্পদ রয়েছে।প্রশ্ন উঠেছে একজন মেকআপ আর্টিস্ট এত টাকার সম্পদের মালিক হলেন কীভাবে।



ইপ্সিতার সম্পদ নিয়ে একাধিক সূত্রে চাঞ্চল্যকর সব তথ্য সামনে এসেছে, ২০২৩ সালে মতিউর কন্যার প্রকাশিত আয়কর ফাইলেই ৪২ কোটি টাকার সম্পদ দেখানো হয়েছে। 



সোনালী সিকিউরিটিজে ১ কোটি ৫০ লাখ টাকা, সিনাজি ট্রেডিং লিমিটেডে ৫ লাখ টাকা, গ্লোবাল সুজ কোম্পানিতে ৪ কোটি ৯৪ লাখ ৫৫ হাজার, ওয়ান্ডার পার্কে ১০ লাখ ও মামুন অ্যাগ্রো প্রোডাক্টস কোম্পানিতে ৪৫ লাখ ৪৫ হাজার ৬৯০ টাকা বিনিয়োগ রয়েছে ইপ্সিতার।



আয়কর নথিতে আরও জানা গেছে, বিভিন্ন স্থানে ঋণ ও ধার বাবদ ইপ্সিতার সম্পদ আছে ২২ কোটি টাকার। নরসিংদীতে হেবামূলে দেড় একর জমি আছে তার। রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার বিলাসবহুল এলাকার সাততলা বাড়ি মালিক তিনি। বাড়িটির মূল্য অন্তত ৫০ কোটি হলেও আয়কর নথিতে তা ৫ কোটি দেখানো হয়েছে।


সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, মতিউর রহমান তার অবৈধ পথে আয় করা কোটি কোটি টাকা বিভিন্ন কৌশলে বৈধ করার অপচেষ্টাও চালিয়েছেন। ইপ্সিতার নামে থাকা বিপুল সম্পদ তারই নমুনা মাত্র।


ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি)-এর নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান গণমাধ্যমে বলেন, বয়স ও পেশার সঙ্গে ইপ্সিতার সম্পদের পরিমাণ স্পষ্টতই অস্বাভাবিক। 



বাবার প্রভাবে তার আয়কর ফাইল রাজস্ব বিভাগে পরীক্ষা-নিরীক্ষা হয়নি। বাবার প্রভাবে তিনি আটকাননি। দেশে যারা কর ফাঁকি দিতে চান তারা পার পেয়ে যান, আর স্বচ্ছতার সঙ্গে কর দিতে চাওয়া মানুষেরা নানামুখী হয়রানির শিকার হন। 


এখন দুদকের উচিত হবে মতিউর রহমান, তার দুই পক্ষের স্ত্রী-সন্তান, ভাই-বোন ও আত্মীয়স্বজনের সম্পদের খোঁজ নেওয়া।




আরও খবর



জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে গোখাদ্য নেপিয়ার ঘাস এখন অর্থকারী ফসল

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২১ জুলাই ২০২৪ |

Image
আবু সুফিয়ান মুক্তার - জয়পুরহাট জেলা প্রতিনিধি::



জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে পশু পালন বৃদ্ধি পাওয়ায় নেপিয়ার ঘাস এখন অন্যতম অর্থকারী ফসল হিসাবে পরিচিতি পেয়েছে। লাভজনক হওয়ায় পশু পালনের পাশাপাশি ব্যাপকভাবে চাষ হচ্ছে নেপিয়ার ঘাস। গো-খামারে ব্যবহৃত ছোলা, ভুট্টা, গম, ভুসি, ফিড ও খড়ের দাম বৃদ্ধি হাওয়ায় প্রান্তিক পর্যায়ের কৃষকেরা শাক সবজি চাষের পরিবর্তে এখন ঘাস চাষের দিকেই ঝুকছে বেশি। কারণ হিসাবে জানা গেছে, ঘাস চাষে ব্যয় কম, উৎপাদন হয় সারা বছর। অন্য ফসলের তুলনায় লাভ বেশি।

যে কোন মৌসুমে ঘাস চাষ শুরু করা যায়। জমি তৈরির পর একবার ঘাসের চারা রোপন করলে একটানা দু’বছর ঘাস উৎপাদন হতে থাকে। ২ মাস পর পর ঘাস কর্তন করা যায়। সে হিসাবে দু’বছরে ১২ বার ঘাস কর্তন করা হয়। মৌসুমে শেষে ঘাসের দাম ওঠা নামা করলেও বছরে ১ বিঘা জমির ঘাস একলাখ চল্লিশ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়। অথচ উৎপাদন খরচ মাত বিঘা প্রতি বছরে সর্বোচ্চ ৩০ হাজার টাকা। তুলনামুলক দাম কম হওয়ায় নেপিয়ার ঘাসকেই প্রধান গোখাদ্য হিসাবে দেখছে গো-খামারিরা। পাঁচবিবির নন্দইল গ্রামের গো-খামার আঃ হাকিম জানান তাঁর খামারে সবসময় ৭০/৮০টি গরু থাকে এদের খাদ্য হিসাবে তিনি ১০বিঘা জমিতে নেপিয়ার ঘাস চাষ করেছেন। এতে খামারে খরচ অনেক কমে গেছে। ছিট মানিক গ্রামের প্রান্তিক কৃষক ফারুক হোসেন বলেন, ”আমার নিজের জমি ১ বিঘা লিজ নেওয়া আছে আর ২ বিঘা মোট ৩ বিঘার মধ্যে ১ বিঘাতে সবজি চাষ করি অন্য ২ বিঘাতে ঘাস চাষ করি। ঘাস চাষ করতে খরচ কম কিন্তুু বিক্রি করতে দাম ভাল পাওয়া যায়। ঘাস আবাদ করে লাভ ছাড়া কখনো লোকসান হয়না, তাই ঘাস আবাদ করি”। 
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা জায়, “এ মৌসুমে উপজেলাতে ৬৫ হেক্টর জমিতে নেপিয়ার ঘাস চাষ হয়েছে। চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় আগামীতে এই ঘাসের চাষ আরও বৃদ্ধি পাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে”। 

পাঁচবিবি বড়মানিক বাজার নেপিয়ার ঘাষ বিক্রয়ের জন্য খুবই পরিচিত। এখানে দূর দুরান্তের খামারীরা ঘাস ক্রয়ের জন্য আসেন। এ বাজারে ১৫/২০ জন ফরিয়া নিয়মিত ঘাস বিক্রয় করেন। ফরিয়ারা কৃষকদের নিকট থেকে সরাসরি ঘাস কিনে থাকেন। “ঘাস বিক্রেতা অফির উদ্দিন বলেন, এখন ব্যবসা নাই, কাম নাই, তাই ঘাস বিক্রয় করছি। ঘাসের খদ্দের সবসময় পাওয়া যায়। ঘাস নিয়ে বসে থাকতে হয় না। লাভও মোটামুটি ভালো হয়”। 

হয়তো এমনদিন সামনে আসবে, সেদিন নেপিয়ার ঘাস পাঁচবিবির প্রধান অর্থকারী ফসল হিসাবে পরিচিতি পাবে এমনটাই মনে করছেন স্থানীয় কৃষকেরা। 

আরও খবর



যশোর থেকে কিনে বিদেশী বলে ১৫ লাখ টাকায় বিক্রি করতে চেয়েছিল

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ |

Image

বিডি টুডেস রিপোর্ট: ছাগলকাণ্ডের সেই ১৫ লাখ টাকার ছাগল নিয়ে দেশব্যাপী তুলকালাম হয়ে গেলেও আলোচিত সেই ছাগলটি দেশীয় জাতের। 

তথ্য বলছে, ওই ছাগলটি যশোরের একটি বাজার থেকে মাস দুয়েক আগে ১ লাখ টাকায় আনা হয়। তবে ঈদ সামনে রেখে সেটি বিদেশি ব্রিটল জাতের ছাগল বলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল করেন মোহাম্মদ ইমরান হোসাইন।

এরপর এর দাম নির্ধারণ করা হয় ১৫ লাখ টাকা, যেটি ক্রয় করেন আলোচিত এনবিআর কর্মকর্তা মতিউরপুত্র মুশফিকুর রহমান ইফাত। তবে ইফাত ১ লাখ টাকা অগ্রীম দিয়েও ছাগলটি নেননি বলে জানা গেছে, কিন্তু এ ছাগলের সঠিক বিক্রয়মূল্য কত তা নিয়ে তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা। সাদেক এগ্রোর ইনচার্জ মো. শরীফও যশোর থেকে ছাগল আনার এ তথ্য স্বীকার করেছেন।

চোখ ধাঁধানো বিজ্ঞাপন আর নানা চমকের কারণে বারবার আলোচনায় আসা ‘সাদিক এগ্রো’ এবং এর মালিক মোহাম্মদ ইমরান হোসাইনের বিরুদ্ধে গরু চোরাচালান সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণসহ নানাভাবে গ্রাহকদেরকে ঠকানোর অভিযোগ উঠেছে। মিথ্যা বলে অতিরিক্ত মূল্য ধরা এবং দেশি গরু-ছাগল বিদেশি বলে বিক্রি করারও অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে।

একটি জাতীয় পত্রিকার অনুসন্ধান প্রতিবেদনে দেখা গেছে, কক্সবাজারের উখিয়া সীমান্ত দিয়ে গরু চোরাচালানের রুট নিয়ন্ত্রণ করেন মোহাম্মদ ইমরান হোসাইন। থাইল্যান্ড থেকে উন্নত জাতের গরু মিয়ানমার হয়ে উখিয়া সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। এর নেপথ্যে ভূমিকা রাখেন ইমরান।

বিভিন্ন সূত্রে পাওয়া একাধিক ভিডিওতে দেখা গেছে, থাইল্যান্ড থেকে আসা গরু উখিয়া সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে। এরপর সেগুলো দীর্ঘদিন রাখা হয় উখিয়ার গহিন জঙ্গলে তৈরি করা গোপন ডেরায়। এরপর উখিয়া থেকে সুযোগ মতো গরু এনে রাখা হয় নরসিংদীর শেখ ক্যাটল ফার্মে।

২০২১ সালে অবৈধভাবে নিয়ে ১৮টি ব্রাহমা জাতের গরু ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ধরা পড়ে। ওই ঘটনায় সাদেক এগ্রো দায়ী থাকলেও তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। তবে গরুগুলো বাজেয়াপ্ত করে সরকার। সেগুলো রাখা হয় সাভারের সরকারি ডেইরি ফার্মে।

জানা গেছে, সাধারণ মানুষের মধ্যে কমদামে মাংস বিক্রির জন্য প্রতি বছর সাভারের ফার্ম থেকে কিছু গরু সরবরাহ করা হয়। সুচতুর ইমরান প্রভাব খাটিয়ে ব্রাহমা জাতের গরুগুলো সেই তালিকাভুক্ত করান। এর পর নিজের ফার্মের দেশীয় জাতের গরুর সঙ্গে বদল করে ১৭টি ব্রাহমা নিয়ে আসেন।

তারা জানান, মন্ত্রণালয়ে প্রভাব খাটিয়ে গরু বদলের ব্যবস্থা করেন ইমরান। এই প্রক্রিয়ার প্রতিবাদ করায় সে সময় কয়েকজন কর্মকর্তাকে হুমকিও দেওয়া হয়।


আরও খবর