Logo
শিরোনাম

আনার চোরাচালানের সঙ্গে যুক্ত ছিল তা আমরা কখনোই বলিনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ |

Image

বিডি  ডেস্ক:

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, সংসদ সদস্য (এমপি) আনোয়ারুল আজীম আনার চোরাচালানের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তা আমরা কখনোই বলিনি।

মঙ্গলবার (১১ জুন) দুপুরে রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে বাংলাদেশ পুলিশ অডিটোরিয়ামে আয়োজিত হাইওয়ে পুলিশের ১৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এমপি আনার হত্যাকাণ্ডের পর বিভিন্ন সময় বলা হয়েছে তিনি চোরাচালানের সঙ্গে যুক্ত– আপনারা কী মনে করছেন? জবাবে আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, চোরাচালানের সঙ্গে যুক্ত ছিল এমপি আনার, তা আমরা কখনোই বলিনি।

তিনি বলেন, আমরা সবসময় বলে আসছি ঝিনাইদহ সন্ত্রাস-পূর্ণ একটি এলাকা। ওখানে সত্যিকারে কী হয়েছে, সেটা আমাদের জানতে হবে। আমরা তদন্ত করছি, তদন্তের পর আপনাদের সবকিছু জানাব।


আরও খবর



দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট পেশ করলেন অর্থমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ |

Image



নিজস্ব প্রতিবেদক:


জাতীয় সংসদে বাজেট পেশ করছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। ছবি : বিটিভির সৌজন্যে

‘সুখী, সমৃদ্ধ, উন্নত ও স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে অঙ্গীকার’ নিয়ে দেশের সবচেয়ে বড় বাজেট পেশ শেষ হয়েছে।


 আজ বৃহস্পতিবার (৬ জুন) বিকাল ৩টা পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে জাতীয় সংসদে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেট পেশ শুরু হয়। 


এবারের বাজেটের আকার ধরা হয়েছে সাত লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকা। এটি দেশের ৫৩তম এবং আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের ২৫তম বাজেট।



জাতীয় সংসদে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে এই বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। 


এর আগে প্রচলিত রীতি অনুযায়ী, জাতীয় সংসদে বাজেট উপস্থাপনের আগে দুপুর ২টার দিকে মন্ত্রিসভার বৈঠকে তা অনুমোদন করা হয়। ওই প্রস্তাবে সই করেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন। 


পরে সংসদে পাস হয়ে ১ জুলাই থেকে নতুন অর্থবছর শুরু হবে।জানা যায়, বিশাল অংকের এ বাজেটের ঘাটতি ধরা হচ্ছে দুই লাখ ৫১ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। আর অনুদান ছাড়া ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়াবে ২ লাখ ৫৬ হাজার কোটি টাকা, যা মোট জিডিপির চার দশমিক ছয় শতাংশ। 


বাজেটের আয়-ব্যয়ের বিশাল ঘাটতি পূরণে প্রধান ভরসাস্থল হিসেবে ব্যাংক খাত বেছে নিয়েছে সরকার।



ঘাটতি পূরণে এক লাখ ৩৭ হাজার ৫০০ কোটি টাকার ব্যাংক ঋণ নেবে বলে লক্ষ্য ঠিক করেছে সরকার। এই অংক চলতি অর্থবছরের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে পাঁচ হাজার ১০৫ কোটি টাকার বেশি। চলতি অর্থবছরের বাজেটে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে এক লাখ ৩২ হাজার ৩৯৫ কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার লক্ষ্য ঠিক করেছিল সরকার। 


তবে সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রায় এটি বাড়িয়ে এক লাখ ৫৫ হাজার ৯৩৫ কোটি টাকা ঠিক করা হয়েছে।



আরও খবর



দুবাইয়ে ধনকুবেরদের গোপন সম্পদ, তালিকায় ৩৯৪ বাংলাদেশি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ |

Image



 ক্রাইম ডেস্ক:


বিলাসবহুল জীবনযাপনের শহর দুবাইয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের হাজার হাজার মানুষের বিপুল পরিমাণ গোপন সম্পদের পাহাড় গড়ে উঠেছে। 


এসব সম্পদের তথ্য ফাঁস করেছে ‘দুবাই আনলকড’ নামে বৈশ্বিক অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার একটি প্রকল্প। এতে দেখা গেছে, দুবাইয়ে সম্পদ গড়া ব্যক্তিদের তালিকায় রয়েছেন ৩৯৪ বাংলাদেশি।


অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের বৈশ্বিক নেটওয়ার্ক অর্গানাইজড ক্রাইম অ্যান্ড করাপশন রিপোর্টিং প্রজেক্ট (ওসিসিআরপি) ও নরওয়ের সংবাদমাধ্যম ই-টোয়েন্টিফোরের নেতৃত্বে অনুসন্ধান কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে। 


৫৮টি দেশের ৭৪টি সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিরা দীর্ঘ ছয় মাস ধরে এই প্রকল্পে অনুসন্ধান চালিয়েছেন। গত মঙ্গলবার ‘দুবাই আনলকড’ শিরোনামে প্রতিবেদনটি নিজেদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করেছে ওসিসিআরপি।


দুবাইয়ের সরকারি ভূমি দপ্তরসহ অন্যান্য রিয়েল এস্টেট কোম্পানির ফাঁস হওয়া তথ্য-উপাত্তের ওপর ভিত্তি করে অনুসন্ধান চালানো হয়। 


ওসিসিআরপি বলছে, ২০২০ থেকে ২০২২ সাল নাগাদ দুবাইয়ে বিদেশিদের মালিকানায় থাকা সম্পদের পরিমাণ ১৬০ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি।


প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দুবাইয়ে বিদেশিদের সম্পদের মালিকানার তালিকায় শীর্ষে আছেন ভারতীয়রা। দেশটির ২৯ হাজার ৭০০ নাগরিকের ৩৫ হাজার সম্পত্তি রয়েছে দুবাইয়ে। 



২০২২ সাল পর্যন্ত দুবাইয়ে ভারতীয়দের এসব সম্পত্তির মোট মূল্য ১৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি বলে ধারণা করা হয়। ভারতের পর এই তালিকায় রয়েছে পাকিস্তান। দুবাইয়ে ১৭ হাজার পাকিস্তানির হাতে ২৩ হাজার সম্পত্তির মালিকানা রয়েছে।


আমিরাতের এই শহরে গোপন সম্পদের তথ্য ফাঁস হয়ে যাওয়ার পর ভারত ও পাকিস্তানে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। ভারতের শীর্ষ ধনী মুকেশ আম্বানি থেকে শুরু করে বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খানেরও গোপন সম্পদের খোঁজ মিলেছে দুবাইয়ে। 


দুবাইয়ের কৃত্রিম দ্বীপ পাম জুমেইরাতে মুকেশ আম্বানির প্রায় ২৪ কোটি ডলারের সম্পদ রয়েছে।


ওসিসিআরপির তথ্য বলছে, দুবাইয়ে গোপনে সম্পদ গড়েছেন অন্তত ৩৯৪ জন বাংলাদেশি। শহরটিতে এই বাংলাদেশিদের মালিকানায় রয়েছে ৬৪১টি সম্পত্তি। বাংলাদেশিদের মালিকানায় থাকা এসব সম্পত্তির মূল্য ২২ কোটি ৫৩ লাখ ডলারেরও বেশি।


তবে বাংলাদেশিদের সম্পদ ও মালিকানার তথ্য জানানো হলেও তাদের বিষয়ে বিস্তারিত কোনো তথ্য প্রকাশ করেনি ওসিসিআরপি।


আরও খবর



আমি একজন বিজেপি ক্যাডার: মিঠুন চক্রবর্তী

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ |

Image

বিডি টু ডে ডিজিটাল ডেস্ক :



ভারতে চলছে লোকসভা নির্বাচনের শেষ এবং সপ্তম দফার নির্বাচন। শনিবার নিজের কেন্দ্র পশ্চিমবঙ্গের বেলগাছিয়ায় ভোট দিলেন বিজেপির নেতা মিঠুন চক্রবর্তী। 


ভোট দিয়ে বেরিয়েই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন এ অভিনেতা।


আনন্দবাজারের প্রতিবেদন অনুযায়ী, সকাল সাতটায় বেলগাছিয়ার ২২ নম্বর ওয়ার্ডে পৌঁছে যান মিঠুন চক্রবর্তী। ৪০ মিনিট লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট দেন তিনি। 



এসময় তিনি জানান, দল ৩০ জুন পর্যন্ত যা দায়িত্ব দিয়েছিল তিনি তা নিখুঁতভাবে পালন করেছেন। এবার তিনি আগের মতো ছবিতে কাজ করবেন। যোগ করেন, তাকে তো পেট চালাতে হবে।


অভিনেতা বলেন, ‘আমি একজন বিজেপি ক্যাডার। আমি আমার দায়িত্ব পালন করলাম। তবে কাল থেকে আমি সিনেমা নিয়েই কথা বলব কারণ আমার একটা পরিবার আছে। তাদের দায়িত্ব পালন করতে হবে আমাকে।’



এদিকে ভোট দিয়ে বেরিয়ে যাওয়ার সময় মিঠুনের গাড়ি ঘিরে শাসকদলের সমর্থকেরা স্লোগান দেন, ‘চোর এসেছে। সব দলের থেকে খেয়েছে। এবার গেরুয়া শিবিরের পালা।’


 


আরও খবর



তারেক আতঙ্কে আন্দোলনে দ্বিধা বিএনপির

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ |

Image


সদরুল আইন:


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কদিন আগে জানিয়েছেন যে, তারেককে দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করানোই এখন তার প্রধান কাজ। 


প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণার পর বিএনপির মধ্যে চিন্তার ভাঁজ। বিএনপি নেতারা উদ্বিগ্ন, আতঙ্কিত। শুধু ঢাকায় বিএনপির নেতারাই নয়, লন্ডনে তারেক জিয়াও এই বার্তাকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে নিয়েছে।


বিএনপির একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বলছে যে, তারেক জিয়া লন্ডন থেকে বিএনপির একাধিক নেতার সঙ্গে এ বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন। 


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কদিন আগে জানিয়েছেন যে, তারেককে দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করানোই এখন তার প্রধান কাজ। প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণার পর বিএনপির মধ্যে চিন্তার ভাঁজ। 


বিএনপি নেতারা উদ্বিগ্ন, আতঙ্কিত। শুধু ঢাকায় বিএনপির নেতারাই নয়, লন্ডনে তারেক জিয়াও এই বার্তাকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে নিয়েছে।


বিএনপির একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বলছে যে, তারেক জিয়া লন্ডন থেকে বিএনপির একাধিক নেতার সঙ্গে এ বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন। 



নানা বাস্তবতা প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যকে অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে নিচ্ছে বিএনপি। আর এই কারণেই তারা মনে করছে যে, এ রকম পরিস্থিতি হলে বিএনপির জন্য তা হবে এক কঠিন বার্তা। 


এমনিতেই বেগম খালেদা জিয়া মুচলেকা দিয়ে ফিরোজায় অবস্থান করছেন। এখন তারেক জিয়াকেও যদি দেশে ফিরিয়ে এনে শাস্তির আওতায় আনা হয়, তাহলে বিএনপির জন্য এক কঠিন পরিস্থিতি তৈরি হবে। 


আর এই কারণেই জোরেশোরে আন্দোলনের ব্যাপারে বিএনপির মধ্যে দ্বিধা দ্বন্দ্ব দেখা দিয়েছে। 



দায়িত্বশীল একাধিক সূত্রগুলো বলছে যে, বিএনপির নেতারা জানার চেষ্টা করছেন কেন প্রধানমন্ত্রী হঠাৎ করে তারেক জিয়ার বিষয়টি বললেন এবং এই বিষয়কে বিএনপি নেতারা কেন গুরুত্ব দেবেন। বিএনপির নেতারাই একাধিক কারণে এটিকে গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন।



 প্রথমত, বিএনপির নেতারা বলছেন যে, প্রধানমন্ত্রী যখন যেটা বলেন, সেটা তিনি বাস্তবে করে দেখেন এবং এখানে তিনি সাহসিকতার সাথে কাজ করেন। যেমন, কেউ বিশ্বাস করেনি যে বেগম খালেদা জিয়াকে বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করা হবে।



 কিন্তু বাস্তবে সেটাই ঘটেছে। সকলের কাছে অকল্পনীয় ছিল যে বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে দুই বছরের বেশি সময় আটকে রাখা সম্ভব হবে না। কিন্তু সেটাই করে দেখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।



 কাজেই তারেক জিয়াকে লন্ডন থেকে দেশে ফিরিয়ে আনা হবে, প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণা কেবল কথার কথা নয়। তিনি জেনে বুঝেই কথাটি বলেছেন বলে মনে করছেন বিএনপির অনেক নেতারা। 



দ্বিতীয়ত, যুক্তরাজ্যের পরিবর্তিত রাজনৈতিক পরিস্থিতি একটি অন্যতম বিষয়। যুক্তরাজ্যে আগামী ৪ জুলাই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এবং এই নির্বাচনে কনজারভেটিভ পার্টির পরাজয় সময়ের ব্যাপার বলে মনে করা হচ্ছে। 


যদি শেষ পর্যন্ত এই নির্বাচনে কনজারভেটিভ পার্টি পরাজিত হয় এবং লেবার পার্টি যদি ক্ষমতায় আসে তাহলে তারেক জিয়াকে দেশে ফিরিয়ে আনার পথ সহজ হবে। কারণ ইতোমধ্যেই সরকারের পক্ষ থেকে যুক্তরাজ্যে আবেদন করা হয়েছে যে তারেক জিয়াকে যেন দেশে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। তার বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ রয়েছে। 



তৃতীয়ত, লেবার পার্টি ক্ষমতায় এলে বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ কন্যা শেখ রেহানার মেয়ে টিউলিপ সিদ্দিকী অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হবে এবং তিনি ব্রিটিশ সরকারের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হবেন। ফলে তারেক জিয়াকে দেশে ফিরিয়ে আনাটা অনেক সহজ সাধ্য ব্যাপার হবে। 


চতুর্থত, ব্রিটেনে যে অভিবাসন সংকোচন নীতি গ্রহণ করা হয়েছে, এই নীতির কারণে এখন হয়তো তারেক জিয়ার বেশি দিন লন্ডনে থাকা কঠিন হয়ে যাবে। তাছাড়া বাংলাদেশ এবং যুক্তরাজ্য যে চুক্তি গুলো স্বাক্ষর করেছে তাতে যে কোন দন্ডিত ব্যক্তিকে বাংলাদেশ যেমন যুক্তরাজ্যকে ফেরত দিবে, তেমনি যুক্তরাজ্য বাংলাদেশকে ফেরত দিবে।


এ সমস্ত বাস্তবতায় অনেকে মনে করছেন, প্রধানমন্ত্রী একটি পরিকল্পিত চিন্তার অংশ থেকেই এই ঘোষণাটি দিয়েছেন। আর তাই বিএনপির মধ্যে একটি আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। বিএনপির নেতারা মনে করছেন যে, এখন বড় ধরনের আন্দোলনের চেষ্টা করলে তারেক জিয়ার ওপর চাপ বাড়বে, তারেক জিয়ার যুক্তরাজ্যে থাকা দুর্বিষহ হয়ে পড়বে।


 এ কারণে তারা আন্দোলন করবে না সরকারের সাথে গোপন সমঝোতা করবে এটি নিয়ে দ্বিধা দ্বন্দ্বে রয়েছে।


আরও খবর



ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থির খোঁজ মিললো নারায়নগঞ্জে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ |

Image

ডেস্ক রিপোর্ট:


ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রীতি খন্দকার হালিমার খোঁজ পেয়েছে পুলিশ। 


বৃহস্পতিবার (৩০ মে) সকালে নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুর এলাকা থেকে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে নিজেদের হেফাজতে নেয়। প্রীতি খন্দকার এখন নারায়ণগঞ্জ থানা পুলিশের হেফাজতে আছেন।


বিজয়নগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার সৈয়দ মাহবুবুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 



তারা জানান, বৃহষ্পতিবার সকালে প্রীতি খন্দকারকে নারায়ণগঞ্জ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। তবে কিভাবে কি হয়েছে সে ব্যাপারে পুলিশের উপর ছেড়ে দিয়েছেন তারা। 


প্রীতি খন্দকারের স্বামী মাসুদ খন্দকার বলেন, ‘৫ জুন বিজয়নগর উপজেলা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ হবে। এই নির্বাচনে তার স্ত্রী মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে পদ্মফুল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। 


সার্ভার ক্রুটির কারণে প্রীতির মনোনয়ন জমা দিতে সমস্যা হওয়ার ফলে হাইকোর্ট থেকে প্রার্থীতা ফিরে পান।’


তিনি জানান, গত মঙ্গলবার দুপুরে হরষপুর ইউনিয়নে দুজন সহযোগী নিয়ে নির্বাচনি প্রচারণায় যান প্রীতি খন্দকার। হরষপুরের ঋষি পাড়ায় ঢুকে প্রচার করা অবস্থায় দুজন মহিলা বাহিরে আসেন আর প্রীতি ভোটারদের সঙ্গে ভিতরে কথা বলছিলেন।


 ১০ মিনিট ২০ মিনিট পার হলেও যখন বের হচ্ছিলেন না বিধায় দুজন মহিলা ভেতরে যান। ভেতরে গিয়ে প্রীতিকে খুঁজে পাননি তারা। পরে থানায় জিডি করা হয়। 


বিজয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত  কর্মকর্তা আসাদুল ইসলামের মুঠোফোনে একাধিক বার ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।  




আরও খবর