Logo
শিরোনাম

আত্রাইয়ে সার-বীজ বিতরনের উদ্বোধন

প্রকাশিত:Wednesday ০৯ November ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

কাজী আনিছুর রহমান,রাণীনগর(নওগাঁ) :

নওগাঁর আত্রাইয়ে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে সার-বীজ বিতরনের উদ্বোধন করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে এই বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

আত্রাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইকতেখারুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় এমপি আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেন হেলাল। অন্যদের মধ্যে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এবাদুর রহমান,ভাইস চেয়ারম্যান শেখ হাফিজুর রহমান,মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মমতাজ বেগম,কৃষি কর্মকর্তা কে,এম কাওছার হোসেন প্রমূখ।সংশ্লিষ্ঠরা জানান,প্রণোদনার আওতায় উপজেলার ৩হাজার ৬১০জন প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে,গম,ভুট্রা,সরিষা,সূর্যমূখী,চিনাবাদাম,পেঁয়াজ,মুগ,মসুর ও খেসারী বীজ এবং রাসায়নিক সার বিতরণ করা হবে। এলক্ষে বুধবার বিতরণের উদ্বোধণ করা হয়। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যান তহবিল থেকে বিভিন্ন রোগে আক্রান্তÍদের চিকিৎসা সহায়তায় ১৬জনের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকার চেক প্রদান করা হয়। 


আরও খবর



নওগাঁয় এক ছাত্রীর মৃতদেহ উদ্ধার

প্রকাশিত:Tuesday ২৪ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Monday ০৬ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :

নওগাঁয় খুশি আক্তার (১৭) নামের একাদশ শ্রেনীতে পড়ুয়া এক ছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্নহত্যা করেছে। এআত্নহত্যার ঘটনাটি ঘটেছে নওগাঁর সাপাহার উপজেলার বাবুপুর গ্রামে। খুশি আক্তার ঐ গ্রামের রফিকুল ইসলামের মেয়ে।

থানা ও স্থানিয় সূত্রে জানা গেছে, মাদ্রাসার একাদশ শ্রেণীতে পড়ুয়া ছাত্রী খুশি আক্তার মঙ্গলবার সকালে তার মা’র সাথে কথা কাটাকাটি'র এক পর্যায়ে মায়ের উপর অভিমান করে নিজ শয়ন ঘরে যান। এসময় তার মা বাসার কাজে ব্যস্ত ছিলেন। দুপুরে খুশি আক্তারের মা ও বাবা খুশি'র ঘরে ভিতর থেকে দরজা বন্ধ রাখার বিষয় জানতে পেরে তাদের সন্দেহ হলে তারা ডাক চিৎকার দেন। এসময় লোকজন এসে ঘরের দরজা ভেঙ্গে ঘরের ভেতর ফ্যানের সাথে মেয়েকে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় দেখতে পান। ঘটনাটি থানা পুলিশকে জানালে, সাপাহার থানা পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছে প্রাথমিক সুরতহাল রির্পোট অন্তে ময়না তদন্তের জন্য সন্ধার দিকে ঘটনাস্থল থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে থানা হেফাজতে নেয়। এব্যাপারে সাপাহার থানার ওসি (তদন্ত) হাবিবুর রহমান মৃতদেহ সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে নিহত ছাত্রীর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে মৃতদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। এছাড়া ঘটনার ব্যাপারে থানায় একটি ইউডি মামলা দায়ের করার পক্রিয়া চলছে।


আরও খবর



কাতারে দুর্ঘটনায় ৪ বাংলাদেশি নিহত

প্রকাশিত:Sunday ১৫ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Monday ০৬ February ২০২৩ |
Image

কাতারে সড়ক দুর্ঘটনায় চার বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছে আরো দু'জন। শুক্রবার কাতারের আল শামাল মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন নারায়ণগঞ্জের মোহাম্মদ শাকিল ও মোহাম্মদ ইউসুফ, মৌলভীবাজারের মোহাম্মদ রাহাত এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম। রাহাতকে শনিবার কাতারের আবু হামুর কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। বাকি তিনজনের মরদেহ দোহা হামাদ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। মর্গে থাকা তিনজনের লাশ দ্রুত পরিবারের কাছে পাঠানো হবে বলে জানিয়েছে দূতাবাস। আহত হয়েছেন মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন ও হাবিবুর রহমান নামে দুই প্রবাসী। তাদের বাড়ি নারায়ণগঞ্জে। 


আরও খবর



বাসচাপায় শিক্ষার্থী নাদিয়ার মৃত্যু

প্রকাশিত:Monday ২৩ January 20২৩ | হালনাগাদ:Monday ০৬ February ২০২৩ |
Image

রাজধানীতে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাদিয়া সুলতানাকে চাপা দেওয়া বাসের চালক ও তার সহকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার সকালে রাজধানীর বাড্ডা এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

 ঢাকা মহানগর পুলিশের গুলশান বিভাগের পুলিশের উপকমিশনার মো. আব্দুল আহাদ জানান, গ্রেপ্তার করা ভিক্টর পরিবহনের ওই বাসের চালক মো. লিটন ও সহকারী আবুল খায়েরের বাড়ি ভোলায়। এর আগে গতকালই এ ঘটনায় বাদী হয়ে ভাটারা থানায় সড়ক পরিবহন আইনে মামলা করেন নাদিয়ার বাবা জাহাঙ্গীর আলম। এই ঘটনায় ভিক্টর পরিবহনের বাসটি জব্দ রয়েছে। রোববার ক্লাস না থাকায় এক বন্ধুর সঙ্গে মোটরসাইকেলে করে বই কিনতে বসুন্ধরা যাচ্ছিলেন নাদিয়া । কুড়িল বিশ্বরোড এলাকায় তাঁদের মোটরসাইকেলটিকে ধাক্কা দেয় ভিক্টর ক্ল্যাসিক পরিবহনের একটি বাস। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় নাদিয়া।  


আরও খবর



র‌্যাবের অভিযানে ৩১০ বোতল ফেন্সিডিল সহ যুবক আটক

প্রকাশিত:Monday ১৬ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Monday ০৬ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার  :

র‌্যাবের অভিযানে ৩১০ বোতল ফেন্সিডিল সহ মাদক কারবারি যুবক আটক।

সত্যতা নিশ্চিত করে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, কাম্প থেকে প্রতিবেদক কে জানানো হয়, র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট ক্যাম্পের একটি চৌকশ অপারেশনাল দল কোম্পানি অধিনায়ক মেজর মোঃ মোস্তফা জামান এর নেতৃত্বে সোমবার ১৬ জানুয়ারি ভোর সকালে জয়পুরহাট জেলার পাঁচবিবি উপজেলার করিয়া বর্ডার এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ৩১০ বোতল ফেন্সিডিল সহ মাদক কারবারি বেলাল হোসেন (৩২) নামে এক যুবককে হাতেনাতে আটক করেন। আটককৃত বেলাল হোসেন পাঁচবিবি উপজেলার পশ্চিম করিয়া গ্রামের সায়েম উদ্দিন এর ছেলে।

র‌্যাব আরো জানান, আটককৃত বেলাল হোসেন কোরিয়া সীমান্ত এলাকার একজন বড় মাদক ব্যবসায়ী। সে ওই এলাকায় ফেন্সিডিলের ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করত। আজ আমরা খবর পেয়েছি যে, আসামিরা সীমান্ত এলাকা থেকে ফেন্সিডিলের একটি বড় চালান আনতে যাচ্ছে। আর ভোরবেলা সেই মাদক অন্য পার্টিকে পৌঁছে দেওয়া হবে। এমন গোপন খবরের ভিত্তিতে কোরিয়া সীমান্ত এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে তাকে আটক করা হয়। এব্যাপারে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেছে র‌্যাব।


আরও খবর



আবারও বাড়ল বিদ্যুতের দাম

প্রকাশিত:Wednesday ০১ February ২০২৩ | হালনাগাদ:Monday ০৬ February ২০২৩ |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল :সরকারের নির্বাহী আদেশে বাড়ল খুচরা পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম। একই সঙ্গে বাড়ানো হয়েছে পাইকারি বিদ্যুতেরও দাম। তবে বিদ্যুৎ বিভাগ বলছে, নতুন করে বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়নি। গত ১২ জানুয়ারিতে সরকারের নির্বাহী আদেশে বিদ্যুতের যে দাম বাড়ানো হয়েছিল, সেই জারিকৃত প্রজ্ঞাপন সংশোধন করে নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। নতুন দাম কার্যকর হবে ১ ফেব্রুয়ারি থেকে। 

এর আগে ১২ জানুয়ারি গড়ে ৫ শতাংশ দাম বাড়ানো হয় বিদ্যুতের। ওই দাম জানুয়ারি মাসেই কার্যকর করা হয়। জানুয়ারি মাসের বিল গ্রাহককে ফেব্রুয়ারি মাসে দিতে হবে। এবার ফেব্রুয়ারি মাসের বাড়তি দামের বিদ্যুতের বিল গ্রাহককে দিতে হবে মার্চ মাসে।

বিদ্যুতের ব্যবহার ভেদে ছয় ধরনের গ্রাহক রয়েছে, যে গ্রাহক যত বেশি বিদ্যুৎ ব্যবহার করবেন, তাকে বিদ্যুতের দাম তত বেশি দিতে হবে। এর মধ্যে শূন্য থেকে ৫০ ইউনিট বিদ্যুৎ যারা ব্যবহার করে, তাদের অতি দরিদ্র মনে করা হয়; তাদের বিদ্যুতের ধাপকে লাইফলাইন বলা হয়। এ বাদেই ছয়টি ধাপ রয়েছে। সংশোধিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, শূন্য থেকে ৫০ ইউনিট ব্যবহারকারী লাইফলাইন গ্রাহকদের বিদ্যুতের দাম ইউনিটপ্রতি ৩ টাকা ৯৪ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৪ টাকা ১৪ পয়সা, শূন্য থেকে ৭৫ ইউনিট ব্যবহারকারীর বিদ্যুতের দাম ৪ টাকা ৪০ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৪ টাকা ৬২ পয়সা এবং ৭৬ থেকে ২০০ ইউনিট ব্যবহারকারীদের ৬ টাকা ১ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৬ টাকা ৩১ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছে। সে সঙ্গে ২০১ থেকে ৩০০ ইউনিট ব্যবহারকারীদের ৬ টাকা ৩০ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৬ টাকা ৬২ পয়সা, ৩০১ থেকে ৪০০ ইউনিটের জন্য ৬ টাকা ৬৬ পয়সা থেকে বেড়ে ৬ টাকা ৯৯ পয়সা, ৪০১ থেকে ৬০০ ইউনিটের জন্য ১০ টাকা ৪৫ পয়সা থেকে বেড়ে ১০ টাকা ৯৬ পয়সা এবং ৬০০ ইউনিটের ওপরে বিদ্যুৎ ব্যবহারকারী আবাসিক গ্রাহকদের বিদ্যুৎ বিল ১২ টাকা ৩ পয়সা থেকে বেড়ে ১২ টাকা ৬৩ পয়সা করা হয়েছে।

দেশের পাইকারি বিদ্যুৎ কিনতে গিয়ে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) ৪০ হাজার কোটি টাকা লোকসান হবে। এর মধ্যে সরকার দেবে ১৭ হাজার কোটি টাকা। বাকি ২৩ হাজার কোটি টাকা ঘাটতি থেকে যাচ্ছে।

এর আগে চলতি মাসেই বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) দেশের ছয়টি বিদ্যুৎ বিতরণ সংস্থার দেওয়া মূল্যবৃদ্ধি প্রস্তাবের ওপর গণশুনানি করে। বিইআরসির কারিগরি মূল্যায়ন কমিটি প্রায় ২০ শতাংশ খুচরা বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর সুপারিশ করে। এর মধ্যেই ১২ জানুয়ারি বিদ্যুৎ বিভাগ ৫ শতাংশ খুচরা পর্য়ায়ে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রজ্ঞাপন জারি করে বিইআরসির আদেশকে পাশ কাটিয়ে। মঙ্গলবার ফের দাম বাড়ানোর ঘোষণা দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করল বিদ্যুৎ বিভাগ।

বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, সরকার একবারে ২০ শতাংশ দাম বাড়াতে চায়নি। সে কারণে মাসে মাসে সমন্বয়ের নামে বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হবে। কম কম করে দাম বাড়ালে গ্রাহকের প্রতিক্রিয়া কম হবে বলে মনে করছে বিদ্যুৎ বিভাগ।

মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলেন, বিদ্যুতের দাম একবারে ১৫ থেকে ২০ ভাগ বাড়লে বাজারে পণ্যের দাম অনেকটা বেড়ে যায়। এজন্য সরকারের যদি কিছুটা লোকসানও হয় তাহলেও ধাপে ধাপে দাম বাড়ালে মানুষের ওপর পণ্যের দাম বৃদ্ধির প্রভাব খুব একটা পড়ে না।

মন্ত্রণালয় সূত্র বলছে, সরকার সম্প্রতি বিদ্যুৎ, শিল্প ও বাণিজ্যে ব্যবহৃত গ্যাসের দাম বাড়িয়েছে। এর ফলে গ্যাস বিক্রি থেকে অতিরিক্ত যে অর্থ পাওয়া যাবে তা দিয়ে বিশ্ববাজার থেকে এলএনজি কেনা হবে। এই এলএনজি দিয়ে যদি বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয় তাহলে গড়ে এলএনজি চালিত বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ পড়বে সাড়ে আট টাকা। কিন্তু দেশের তেলচালিত (ফার্নেস) অয়েলে উৎপাদন খরচ ২৯ টাকার কাছাকাছি। এতে প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ উৎপাদনে ২০ টাকার মতো কম প্রয়োজন হবে। যাতে সরকারের বিদ্যুৎ উৎপাদনে ভর্তুকি কম প্রয়োজন হবে। যাতে বিদ্যুৎ জ্বালানিতে সামগ্রিক ভর্তুকির হার কমবে।


আরও খবর