Logo
শিরোনাম

বেপরোয়া বাইক ঝরছে প্রাণ

প্রকাশিত:Friday ৩০ December ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল : মোটরসাইকেল এখন প্রাণঘাতী বাহনে পরিণত হয়েছে। উচ্চগতির মোটরসাইকেল বেপরোয়াভাবে চালাতে গিয়েই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দুর্ঘটনা ঘটছে। এসব দুর্ঘটনায় ঝরছে প্রাণ। দুর্ঘটনার কবলে পড়াদের বড় একটা অংশ স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী। এমন অল্পবয়সী শিশু-কিশোরদের সড়কে যানবাহন চালানোর কোনো বৈধতা নেই। লাইসেন্স পাওয়ার জন্য ন্যূনতম বয়স ১৮। অথচ সড়কে মোটরসাইকেল দাপিয়ে বেড়ানোদের অনেকেরই বয়স আঠারোর কম।

সরকারি আইন অনুযায়ী ১৮ বছরের নিচে লাইসেন্স দেওয়া হয় না। এটিই সবচেয়ে বড় মেসেজ। যেখানে সরকার পারমিশনই দিচ্ছে না, সেখানে অভিভাবকরা সন্তানদের আবদার রাখতে গিয়ে মোটরসাইকেল কিনে দিচ্ছেন। ফলে কয়েক বছরে ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সী অনেক শিশু-কিশোর মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছে।

বর্তমানে কিশোর ও যুবকদের কাছে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেল বেশ লোভনীয়। উঠতি বয়সী এসব শিশু, কিশোর ও যুবকরাই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মারা যাচ্ছে বেশি। দুর্ঘটনার পরিণাম জানা সত্ত্বেও অনেক সচেতন অভিভাবক তাদের ১২-১৭ বছর বয়সী কিশোর সন্তানটিকে কিনে দিচ্ছেন মোটরসাইকেল। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে অধ্যয়নরত কিশোররা তিন-চারজন করে বন্ধু নিয়ে বাইক চালাচ্ছে সর্বোচ্চ গতিতে। তারা দল বেঁধে বাইক প্রতিযোগিতায় মেতে উঠছে। আবার কেউ কেউ মোটরসাইকেল অতিরিক্ত গতিতে চালিয়ে মোবাইলে ভিডিও ধারণ করছে টিকটকের জন্য।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক বিভাগ বলছে, রাজধানীতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ বেপরোয়া গতিতে চালানো, রাতে রেসিং করা, সিগন্যাল না মানার প্রবণতা, ফিটনেস না থাকা। অনেকের আবার বয়স কম, তারপরও লাইসেন্স পেয়ে যাচ্ছে। এ ছাড়া একটি আদর্শ শহরে ২৫ শতাংশ সড়ক থাকা প্রয়োজন। রাজধানীতে কাগজে-কলমে আছে ৯ শতাংশ। প্রকৃতপক্ষে আছে ৬ শতাংশ। এ যানবাহন নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। সে কারণে দুর্ঘটনা কোনোভাবেই কমানো সম্ভব হচ্ছে না।

বেসরকারি সংগঠন রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের (আরএসএফ) তথ্যানুসারে, গত ২৮ মাসে সারা দেশে (চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত) এক হাজার ৬৭৪ শিশু সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যায়। এর মধ্যে ৬১ দশমিক ৩৫ শতাংশ শিশু রাস্তা পারাপারের সময় নিহত মারা যায়। এছাড়া ১৯ দশমিক ৭৭ শতাংশ শিশু মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মারা যায়।

রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত তিন বছরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ঘটেছে ৪ হাজার ৬৪৮টি, প্রাণহানি হয়েছে ৪ হাজার ৬২২ জনের। এ ছাড়া চলতি বছরের ৯ মাসে (জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর) ১ হাজার ৮৩১টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৯১১ জনের। নিহতদের মধ্যে শিশু-কিশোর রয়েছে উল্লেখযোগ্য হারে।

সড়ক নিরাপত্তা নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন সংগঠনের গবেষণায় উঠে এসেছে, মহাসড়ক, আঞ্চলিক সড়ক ও গ্রামীণ সড়কে মোটরসাইকেল চালানোর ক্ষেত্রে অধিকাংশ চালক নিয়ম মানেন না। ট্রাফিক সিগন্যাল সম্পর্কে ধারণা না থাকায় শিশু-কিশোররা মোটরসাইকেল পেলেই নিয়ম মানছেন না সড়কের। এতে যেমন মোটরসাইকেলে শিশু-কিশোরদের প্রাণ ঝরছে সড়কে, অন্যদিকে পথচারী কিংবা অন্য যানবাহন চালকরাও পড়ছেন বিপদে। পাড়া-মহল্লা কিংবা মূল সড়কেও দেখা যাচ্ছে রাজনৈতিক বড় ভাইয়ের প্রভাবে মোটরসাইকেল নিয়ে বেপরোয়া গতিতে রাজনৈতিক মহড়া ও রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করছে কিশোর-যুবকরা। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে অনেক সময় ড্রাইভিং লাইসেন্সবিহীন এসব কিশোর-যুবকের হাতে তুলে দেওয়া হচ্ছে মৃত্যুফাঁদ মোটরসাইকেল।


আরও খবর

সুখবর নেই বাজারে

Saturday ০৪ February ২০২৩




সার ও বীজের দাম বাড়বে না : কৃষিমন্ত্রী

প্রকাশিত:Saturday ০৪ February ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

কৃষি উৎপাদনের ধারা অব্যাহত রাখা ও টেকসই খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে দেশে সার, বীজসহ কৃষি উপকরণের কোনোরকম দাম বাড়ানো হবে না বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী  ড. মো. আবদুর রাজ্জাক।

মন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের নীতি হলো যে কোনো মূল্যে খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি করা ও খাদ্য নিরাপত্তা টেকসই করা। সেজন্য বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক মন্দার এই সময়ে যত কষ্টই হোক সরকার বীজ, সারসহ কৃষি উপকরণের দাম বাড়াবে না। অন্যান্য খাতে যে নীতিই নেয়া হোক না কেন, কৃষি খাতে বিশাল ভর্তুকি প্রদানসহ সব সহযোগিতামূলক নীতি অব্যাহত থাকবে। কৃষি উৎপাদন টেকসই করতে যা যা করা দরকার, তা অব্যাহত থাকবে।

সাভারের ব্র্যাক সিডিএম মিলনায়তনে সার্কভুক্ত দেশসমূহে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) অর্জনে খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। 

মন্ত্রী বলেন, আমনে বাম্পার ফলন হয়েছে। রেকর্ড পরিমাণ খাদ্য মজুত আছে। দেশে দুর্ভিক্ষ হবে না, ইনশাল্লাহ, এ গ্যারান্টি দিতে পারি। ফসলের গবেষণা ও সম্প্রসারণের মধ্যে বিরাট ফাঁক রয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, গবেষক/বিজ্ঞানীর উদ্ভাবিত জাত যেটি গবেষণা পর্যায়ে বিঘায় ৮ মণ উৎপাদন হয়, সেটি সম্প্রসারণের পর কৃষক পর্যায়ে দেখা যায় উৎপাদন হয় বিঘায় ৩-৪ মণ। এটি কেন হবে, এই বিশাল ফারাক কমিয়ে আনতে হবে।

বিভিন্ন ফসলের উদ্ভাবিত জাত ও প্রযুক্তি খুবই ধীরে সম্প্রসারণ বা কৃষকের কাছে পৌঁছে। আমাদের বিজ্ঞানীরা সম্প্রতি ধান, সরিষাসহ অনেক ফসলের কতগুলো উন্নত উচ্চফলনশীল জাত উদ্ভাবন করেছেন। এদের মধ্যে লবণসহিষ্ণু জাতও রয়েছে। কিন্তু এগুলো মাঠে কৃষকের কাছে যাচ্ছে খুবই দেরিতে। এত দেরিতে মাঠে যাওয়ার কারণ কী, তা সম্প্রসারণকর্মীদের খুঁজে বের করতে হবে। সম্প্রসারণকর্মীদের আন্তরিকতা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করতে হবে।


আরও খবর

সুখবর নেই বাজারে

Saturday ০৪ February ২০২৩




আপাতত হচ্ছে না ইভিএম প্রকল্প

প্রকাশিত:Monday ২৩ January 20২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

ইভিএম প্রকল্পটি আপাতত হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন সচিব জাহাঙ্গীর আলম। পরিকল্পনা কমিশন ইভিএম প্রকল্পটি ফেরত পাঠিয়েছে বলেও জানান তিনি।

নির্বাচন কমিশনে এক বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন সচিব। বর্তমানে যতগুলো ইভিএম আছে সেগুলো দিয়েই সংসদ নির্বাচন হবে বলেও জানান তিনি।এর আগে, নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমান জানান, কতগুলো আসনে ইভিএম বা ব্যালটে নির্বাচন হবে তা নিয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত নেবে কমিশন। একই সাথে বর্তমানে থাকা ইভিএমগুলো দিয়ে কতগুলো নির্বাচন করা যাবে তাও যাচাই করবে ইসি।এ সময় রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রসঙ্গে কমিশনার জানান, এ বিষয়ে দুএকদিনের মধ্যেই স্পিকারের সাথে দেখা করবেন সিইসি। 


আরও খবর

সুখবর নেই বাজারে

Saturday ০৪ February ২০২৩




ইউএনও রোমানা আফরোজ বনাম শীর্তাত মানুষের শরীরে গড়ম কাপড়

প্রকাশিত:Thursday ১৯ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :


নওগাঁয় মানবিক ইউএনও রোমানা আফরোজ তীব্রশীতে শীর্তাত মানুষের শরীরে তুলে দিচ্ছেন গড়ম কাপড়।

নওগাঁয় কয়েক দিন ধরেই চলমান শৈত্য প্রবাহে দরিদ্র, ছিন্নমুল ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর মানুষের যখন যুবুথুবু অবস্থায়, ঠিক সে সময়-ই   শির্তাতদের শীত নিবারণের জন্য গড়ম কাপড় নিয়েএগিয়ে এলেন নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ রোমানা আফরোজ। তিনি বুধবার বিকাল থেকে রাত পর্যন্ত হতদরিদ্র ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী বসবাসরত এলাকায় ঘুরে ঘুরে নিজ হাতে ৫ শতাধিক অসহায় শীতার্ত মানুষের শরীরে জড়িয়ে দিয়েছেন শীত নিবারনে গড়ম কাপড়। অপরদিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের হাতে শীত নিবারণের গড়ম কাপর, জামা পেয়ে নারী-পুরুষ ও শিশুরা আনন্দ প্রকাশ করেন। 

বুধবার সন্ধ্যায় পত্নীতলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ রোমানা আফরোজ নজিপুর ইউনিয়নের সুলতানপুর ভুঁইয়া পাড়া, পাটিচরা ইউনিয়নের পাটিচরা ও ছালিগ্রাম গ্রামে গিয়ে ৫ শত শীর্তাত নারী-পুরুষ ও শিশুর মাঝে শীত নিবারণের জন্য গড়ম মোটা কাপড় বিতরণ করেন। এ সময় তার সাথে ছিলেন, নজিপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ হাবিবুর রহমান, ঘোষনগর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিক প্রমুখ। উল্লেখ্য এর আগেও রোমানা আফরোজ রাতের আঁধারে বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে ঘুরে ৫শত শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করেন। 

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রোমানা আফরোজ বলেন, এলাকার শীতার্ত মানুষকে সুরক্ষা দেওয়া সকলের নৈতিক দায়িত্ব। পর্যায়ক্রমে শীর্তাত আরো মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হবে 


আরও খবর



অবৈধ স্টান্ড উচ্ছেদের দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশিত:Saturday ১৪ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image
নারায়ণগঞ্জে যানজট নিরসনে

বুলবুল আহমেদ সোহেল :

নারায়ণগঞ্জে যানজট নিরসনে চাষাঢ়ায় মৌমিতা বাসসহ সকল অবৈধ স্ট্যান্ড শহর থেকে উচ্ছেদ হকার্সমুক্ত ফুটপাত এবং পুলিশ ফাঁড়ি ও ডাক বাংলোর ছেড়ে দেয়া রাস্তা দ্রুত নির্মাণ করার দাবীতে মানববন্ধন করেছে আমরা নারায়ণগঞ্জবাসী সংগঠন। শনিবার সকালে নগরীর চাষাঢ়ায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। মানববন্ধনে আমরা নারায়ণগঞ্জবাসী সংগঠনের সভাপতি নুর উদ্দিনের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির সভাপতি এ বি এম সিদ্দিক, কুতুব উদ্দিনসহ নেতৃবৃন্দ।

মানববন্ধনে বক্তাগন প্রশাসনের প্রতি নারায়ণগঞ্জে যানজট নিরসনে চাষাঢ়ায় মৌমিতা বাসসহ সকল অবৈধ স্ট্যান্ড শহর থেকে উচ্ছেদ দাবী জানিয়ে বলেন, মৌমিতা বাস গুলির অনুমতি না থাকা সত্ত্বেও চাষাঢ়ায় এসে প্রতি নিয়ত যানজটের সৃষ্টি করছে। অবিলম্বে এ বাস চাষাঢ়ায় আসা বন্ধ করতে হবে। ফুটপাতের অবৈধ দখল মুক্ত করতে হবে। বক্তগন বলেন, এ সব বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে কঠোর আন্দোলন করা হবে।


আরও খবর



কুমিল্লায় মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম

স্মার্ট শিক্ষার্থীরাই স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলবে

প্রকাশিত:Friday ০৩ February ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

কু‌মিল্লা ব্যুরো :

স্মার্ট শিক্ষার্থীরাই স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলবে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম। 

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, 'দেশজুড়ে শহরের পাশাপাশি গ্রাম পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর উন্নয়ন হয়েছে। গ্রামের স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা এখন দেশ-বিদেশে সুনামের সাথে কাজ করছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলার ঘোষণা দিয়েছেন। স্মার্ট শিক্ষার্থীরাই স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলবে।'

 শুক্রবার (০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩) সকালে কুমিল্লার তিতাস উপজেলার লালপুর নজরুল ইসলাম উচ্চ বিদ্যালয়ের চার তলা ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তৃতায় ডিএনসিসি মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম এসব কথা বলেন।  

মেয়র আরও বলেন, 'গ্রামের একটি স্কুলের সফলতার জন্য সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা থাকতে হবে। লালপুর গ্রামের এই স্কুলটি শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও গ্রামবাসীর সহযোগিতায় এগিয়ে চলেছে। জেলা পর্যায়ে ও উপজেলা পর্যায়ে স্কুলের শিক্ষার্থীর ভালো করছে। মাননীয় স্থানীয় সরকার মন্ত্রী আজ নিজে এসে স্কুলের চার তলা ভবন উদ্বোধন করেছেন। আশা করছি স্কুলটির সুনাম ও সফলতা অব্যাহত থাকবে।

উল্লেখ্য, লালপুর নজরুল ইসলাম উচ্চ বিদ্যালয়ের চার তলা ভবনের নির্মাণ কাজ বাস্তবায়ন করে কুমিল্লা জেলার শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর।

এসময় ডিএনসিসি মেয়র বিদ্যালয়টিতে আসা যাওয়ার সুবিধার জন্য বিদ্যালয় থেকে আশেপাশের গ্রামগুলোতে যাওয়ার রাস্তা নির্মাণের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর নিকট আহবান জানান।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্হানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম এমপি। 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২০৪১ সালের স্মার্ট ও উন্নত  বাংলাদেশ গড়তে শিক্ষার্থীদের জ্ঞান অর্জনের মাধ্যমে সক্ষমতা ও দক্ষতা লাভের উপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন স্হানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম। 


প্রধান অতিথির বক্তৃতায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, 'বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিক্ষার উন্নয়নে প্রাইমারি স্কুলের জাতীয়করণ করেছিলেন যাতে শিক্ষকরা নিয়মিত বেতন পান। তাঁর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্কুলে শতভাগ এনরোলমেন্ট নিশ্চিত করেছেন। জনগণের দ্বারগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে শেখ হাসিনা কমিউনিটি ক্লিনিক চালু করেছেন। উন্নয়নের এ ধারা অব্যাহত রাখতে মন্ত্রী শিক্ষার্থীদের আইটি শিক্ষায় গুরুত্ব দেবার আহবান জানান। 

মন্ত্রী আরও বলেন, 'কৃষকের সন্তানও সক্ষমতা ও দক্ষতা অর্জন করে দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবার জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টি করতে অবিরাম কাজ করে যাচ্ছেন। নারী শিক্ষা ও ক্ষমতায়নে বাংলাদেশে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এসেছে। যে বাংলাদেশের উন্নয়ন নিয়ে এক সময় উন্নত বিশ্ব সন্দেহ পোষণ করত, তারাই আজ বাংলাদেশকে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বগুণেই আজ তা সম্ভব হয়েছে।'

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা-৬ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার ,কুমিল্লা  জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম।


আরও খবর