Logo
শিরোনাম

দেশবিরোধীদের সেবা দেবে না কানাডার হাইকমিশন

প্রকাশিত:Wednesday ০৯ March ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

কানাডায় অবস্থানরত বাংলাদেশি নাগরিকদের মধ্যে যারা দেশবিরোধী প্রচারণায় অংশ নেবেন তাদের কনস্যুলার সেবা না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে অটোয়ার বাংলাদেশ হাইকমিশন এবং টরন্টোর কনস্যুলেট জেনারেল।

‘বিদেশে বসে যেসব বাংলাদেশি নাগরিক রাষ্ট্রবিরোধী কাজে অংশ নিচ্ছেন তাদের পাসপোর্ট বাতিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে’— মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের এমন মন্তব্যের পরদিন আজ বৃহস্পতিবার কানাডার বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে এমন ঘোষণা এলো। দেশটির বাংলাদেশ হাইকমিশন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। হাইকমিশন জানায়, অটোয়ার বাংলাদেশ হাইকমিশন এবং টরন্টোর কনস্যুলেট জেনারেল সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে বাংলাদেশবিরোধী প্রচারসহ দেশের বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যেকোনো ধরনের আপত্তিকর প্রচারণায় জড়িতদের কোনো প্রকার কনস্যুলার পরিষেবা দেওয়া হবে না।

কানাডায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার খলিলুর রহমান বলেন, ‘আপনি দেশের পাসপোর্ট নিয়ে অন্য একটা দেশে এসে নিজ দেশের বিরুদ্ধে কথা বলবেন, এটা তো ঠিক নয়। দেশের সার্ভিস পেতে হলে আপনাকে সেভাবে আচরণ করতে হবে। অন্য একটা দেশে এসে নিজ দেশের ইমেজ খারাপ করবেন, এটা হতে পারে না।’

‘আমরা কোনো ক্রিমিনালকে (অপরাধী) সার্ভিস না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যারা দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাবেন, তাদের আমরা সার্ভিস দেব না। যে দলেরই হোন না কেন, ডিসেন্ট বাংলাদেশিদের আমরা সার্ভিস দেব’- বলেন হাইকমিশনার খলিলুর রহমান।

তিনি বলেন, ‘গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় যে কেউ যেকোনো দল করতে পারেন। সবাই তো এক দলের সমর্থন করবেন না, এটাই স্বাভাবিক। সবাইকে সরকারি দল করতে হবে— এমনও কোনো কথা নেই। তাই বলে দেশের পাসপোর্ট নিয়ে অন্য দেশে এসে রাজনীতি করাটাও সমীচীন নয়।’

খলিলুর রহমান বলেন, ‘আপনার যদি একান্তই রাজনীতি করার ইচ্ছা হয়, দেশে গিয়ে করুন, বিদেশে কেন? এতে আমাদের দেশের বদনাম হয়। দেশের উন্নয়নে প্রভাব পড়ে। বিদেশিরা আমাদের দেশ সম্পর্কে খারাপ ধারণা পোষণ করেন। ফলে আমাদের উন্নয়ন ব্যাহত হতে পারে।’

‘যারা বিদেশের মাটিতে বসে দেশের বিরুদ্ধে কথা বলেন তারা সবার শত্রু’ উল্লেখ করে হাইকমিশনার আরও বলেন, ‘খোঁজ নিয়ে দেখুন, তাদের বেশিরভাগই ক্রিমিনাল (অপরাধী)। তারা কোনো না কোনো অপরাধ করে বিদেশে এসেছেন। এখন বিদেশে বসে দেশের বদনাম করছেন। যারা এ ধরনের কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত তারা শুধু দেশের শত্রু নয়, সবার শত্রু। কারণ, তারা সবার ক্ষতি করেন।’

এমন ব্যক্তিদের পাসপোর্ট বাতিল করা উচিত বলেও মনে করেন হাইকমিশনার। বিদেশের মাটিতে বসে দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালালে কীভাবে দেশের ক্ষতি হয় সেই ব্যাখ্যাও দেন হাইকমিশনার। বলেন, ‘একটা লোক যখন বিদেশে বসে দেশের বিরুদ্ধে কথা বলেন, তখন ওই দেশ সম্পর্কে তিনি যে দেশে থাকছেন সেই দেশের নাগরিকদের মধ্যে একটা খারাপ ইমেজ তৈরি হয়। এতে বাণিজ্য ও ট্যুরিজম সেক্টর ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ওই দেশের নাগরিকরা মুখ ফিরিয়ে নেন। ব্যবসায়ীরা বিনিয়োগ করতে চান না। ফলে দেশের উন্নয়ন ব্যাহত হয়।

‘আমরা আমাদের নাগরিকদের সবরকম সেবা দিতে সদা প্রস্তুত। তবে যারা ডিসেন্ট ও ভদ্র বাংলাদেশি তাদের সেবা দেব’— বলেন কানাডার বাংলাদেশ হাইকমিশনার।

গত বুধবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী মোজাম্মেল হক জানান, যারা বিদেশে বসে রাষ্ট্রবিরোধী কাজ করছেন তাদের পাসপোর্ট যাতে বাতিল হয় সেজন্য আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় আমরা পরামর্শ দিয়েছি। তাদের তালিকা প্রস্তুত করে, তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে কারা করছে, কী কী করছে— সেগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এদিকে, বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে ব্রিফিংয়ে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদও একই তথ্য জানান। তিনি জানান, বিদেশে বসে যারা দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে, তাদের পাসপোর্ট বাতিল করা হবে- এ রকম সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, ‘অনেকে বিদেশে বসে দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে, দেশবিরোধী নানা ষড়যন্ত্র করছে- এগুলো রাষ্ট্রদ্রোহমূলক কার্যক্রম। সুতরাং কেউ যদি রাষ্ট্রদ্রোহিতামূলক কার্যক্রম করে বা যুক্ত থাকে, রাষ্ট্র তার পাসপোর্ট বাতিল করতে পারে।’

‘সেই সিদ্ধান্ত গতকাল (বুধবার) আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় নেওয়া হয়েছে। কারা এগুলো করছে, আমরা অনেকটা জানি। আরও কারা কারা এর সঙ্গে যুক্ত আছে প্রয়োজনে তাদেরও তালিকা করা হবে’- বলেন মন্ত্রী।

তালিকায় কারা আছেন— জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘এটি এখানে বলার বিষয় নয়। কারা এগুলো করছে তা আমরা জানি, আপনারাও জানেন। অনেক লোক এ কাজগুলো করছে। কিন্তু চিহ্নিত কয়েকজন আছে, যারা ক্রমাগতভাবে এ কাজগুলো করে যাচ্ছে।’


আরও খবর



এলপি গ্যাসের সংকটে দিশেহারা গ্রাহক

প্রকাশিত:Monday ০৬ February ২০২৩ | হালনাগাদ:Monday ০৬ February ২০২৩ |
Image

রাজধানীবাসীর অনেক সমস্যার একটি হলো গ্যাসসংকট। গ্যাসের লাইন থাকলেও সরবরাহ কম থাকা বা বন্ধ থাকার কারণে বেশিরভাগ ভোক্তাকেই বিকল্প হিসেবে এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার কিনতে হয়। ২০২০ সালে বাসাবাড়িতে গ্যাস সংযোগ প্রদান স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেয় সরকার। যে কারণে এলপিজি সিলিন্ডারের চাহিদা বেড়ে গেছে কয়েক গুণ। এর সুযোগ নিচ্ছে ব্যবসায়ীরা। সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে সিলিন্ডার প্রতি কয়েকশ টাকা বেশি নিচ্ছেন তারা।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নির্ধারিত মূল্যে সিলিন্ডার তো পাওয়া যাচ্ছেই না, কোথাও কোথাও কমে গেছে গ্যাসের সরবরাহও। অর্থাৎ সংশ্লিষ্ট খুচরা বিক্রেতা বলছেন তার কাছে গ্যাসই নেই। গ্রাহকরা বলছেন, কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে ব্যবসায়ীরা অসৎ প্রক্রিয়ায় সিলিন্ডার গ্যাসের দাম বাড়িয়ে দিচ্ছেন।

১২ কেজি এলপিজি সিলিন্ডারের দাম ২৬৬ টাকা বাড়িয়ে ১ হাজার ৪৯৮ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। একসঙ্গে আড়াইশ টাকার বেশি দাম বাড়ানোয় এমনিতেই ক্রেতাদের ওপর চাপ তৈরি হয়েছে। তার ওপর এখন সরকার নির্ধারিত দামেও গ্যাস পাচ্ছেন না ক্রেতারা। ১৪৯৮ টাকার গ্যাস খুচরা পর্যায়ে বিক্রি করা হচ্ছে ১৮০০ টাকায়। কোথাও কোথাও আরো বেশি। অর্থাৎ ৩শ টাকারও বেশি নেওয়া হচ্ছে ১২ কেজির সিলিন্ডারে।

এলপিজি সিলিন্ডারের দাম সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বেশি কেন- এমন প্রশ্ন করা হয় বসুন্ধরা এলপিজি সিলিন্ডারের ডিলার শিহাব হোসেনকে। জবাবে তিনি বলেন, কোম্পানি থেকেই বেশি রেট-এ আসে, তাই দাম বেশি।

এ বিষয়ে বসুন্ধরা এলপি গ্যাসের হেড অব সেলস প্রকৌশলী জাকারিয়া জালাল বলেন, এলপিজি সিলিন্ডারের মূল্য বেশি রাখাটা যে শুধু কোম্পানির দোষ, ব্যাপারটা তা নয়। আমাদের এ গ্যাস বিক্রির সিস্টেমে কিছু ত্রুটি আছে। সেটা নিরসনে অনেকদিন ধরেই বিইআরসিকে আমরা বলে আসছি। ত্রুটি ঠিক করা হলে নির্ধারিত মূল্যেই সিলিন্ডার বিক্রি করা সম্ভব হবে।

এলসি খোলায় সমস্যা আরেকটি কারণ উল্লেখ করে জাকারিয়া জালাল বলেন, আমরা প্রতি মাসে এলসি খুলে এলপিজি আমদানি করি। বর্তমান পরিস্থিতিতে ধারাবাহিকভাবে এলসি খোলা যাচ্ছে না। যদি মাসে দুটি এলসি খোলা হয়ে থাকে, তাহলে একটার সঙ্গে আরেকটা এলসি খোলার যে ধারাবাহিকতা সেখানে গ্যাপ তৈরি হচ্ছে। সে গ্যাপের সুযোগ নিচ্ছে ডিলার ও দোকানিরা। যখন ডিলাররা দেখে যে এ মাসে প্রোডাক্ট কম আসছে কোম্পানি থেকে, তখন তারা টার্গেট পূরণের জন্য বেশি দামে সিলিন্ডার বিক্রি করে। আপনি তাদের কাছে সঠিক মূল্যের হিসাব পাবেন না।

আবার দোকানি যখন দেখছে সাপ্লাই কম, তারাও তখন মজুত করে দাম বাড়িয়ে ফেলে। সুতরাং সমস্যাটা সামগ্রিকভাবে তৈরি হয়। কোম্পানি যে দামে সেল করতে চায়, মধ্যস্বত্বভোগীদের কারণে গ্রাহক পর্যায়ে গিয়ে তার দাম বেড়ে যায়। আমরা সবসময় চেষ্টা করি নির্ধারিত মূল্যেই গ্যাস বিক্রি করতে। এখন প্রশাসন কঠোর হলে বা তদারকি বাড়ালে অন্তত ‘অতিরিক্ত বেশি’ মূল্যে বিক্রি হওয়াটা নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের প্রশাসন ও আইন বিষয়ক সদস্য সচিব খলিলুর রহমান খান বলেন, এলপিজি সিলিন্ডারের দাম বেশি রাখা হলে গ্রাহকরা অভিযোগ দিতে পারবেন। তবে আমরা এখনো এ বিষয়ে কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পাওয়া গেলে অবশ্যই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। গ্রাহকরা সচেতন হলে মূল্যবৃদ্ধির এ প্রবণতা কমে যাবে। ভোক্তা অধিকারও এ বিষয়ে কাজ করছে।


আরও খবর



র‌্যাবের অভিযানে গাঁজাসহ নওগাঁর দুই যুবক আটক

প্রকাশিত:Saturday ১৪ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন  :


র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, এর অভিযানে সারে ১৪ কেজি গাঁজাসহ মাদক কারবারি নওগাঁর দুই যুবক আটক। আটককৃতদের শনিবার জেল-হাজতে প্রেরন।

সত্যতা নিশ্চিত করে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট কাম্প থেকে জানানো হয়, র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট ক্যাম্পের একটি চৌকশ অপারেশনাল দল কোম্পানি অধিনায়ক মেজর মোঃ মোস্তফা জামান এবং স্কোয়াড কমান্ডার সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার মোঃ মাসুদ রানা'র নেতৃত্বে শুক্রবার দিনগত রাতে জয়পুরহাট জেলার সদর উপজেলার কাশিয়াবাড়ি এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে সারে ১৪ কেজি,  একটি মোটর সাইকেল, ৩ টি মোবাইল ফোন ও নগদ ৪ হাজার ৩শ' টাকা সহ মাদক ব্যবসায়ী নুর নবী ওরফে লুৎফর রহমান (৩৭) ও সাদেকুল ইসলাম ওরফে বুদু (২৬) নামে দুই যুবককে হাতেনাতে আটক করা হয়। আটককৃতরা হলেন, নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার ঘোষনগর গ্রামের নবীর উদ্দিনের ছেলে নুর নবী ওরফে লুৎফর রহমান ও একই গ্রামের কুদ্দুস আলীর ছেলে সাদেকুল ইসলাম ওরফে বুদু। র‌্যাব আরো জানায়, আটককৃত দু' যুবক দীর্ঘদিন ধরে মাদক (গাঁজা) এক স্থান থেকে অন্য স্থানে নিয়ে যাওয়া ব্যবসার সাথে জড়িত। শুক্রবারও তারা কুরিয়ার সার্ভিস থেকে গাঁজা পেয়ে জয়পুরহাট থেকে পাঁচবিবি এলাকায় নিয়ে যায়। এ সময় কাশিয়াবাড়ি এলাকায় র‌্যাব-৫ এর চৌকশ অপারেশনাল দল অভিযান চালিয়ে তাদেরকে হাতেনাতে আটক করেন।

এব্যাপারে জয়পুরহাট সদর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ অনুসারে মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং আটককৃতদের শনিবার জেল হাজতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।


আরও খবর



মিস ইউনিভার্স হলেন যুক্তরাষ্ট্রের আর’বনি

প্রকাশিত:Sunday ১৫ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Monday ০৬ February ২০২৩ |
Image

এ বছর সুন্দরী প্রতিযোগিতা মিস ইউনিভার্সের সেরার মুকুট মাথায় পরেছেন যুক্তরাষ্ট্রের আর’বনি গ্যাব্রিয়েল। তাকে মুকুট পরিয়ে দিয়েছেন গতবারের মিস ইউনিভার্স হারনাজ সান্ধু।

এ বছর মিস ইউনিভার্সের মঞ্চে সেরা তিনে জায়গা করে নিয়েছেন ভেনেজুয়েলা ও দ্য ডমিনিকান রিপাবলিকের প্রতিযোগী। যুক্তরাষ্ট্রের নিউ অরলিন্সের আরনেস্ট এন. মোরিয়াল কনভেনশন সেন্টারে প্রতিযোগিতাটির আয়োজন করা হয়।

এ বছর মিস ইউনিভার্সের শীর্ষ তিন প্রতিযোগী। দ্বিতীয় রানারআপ হয়েছেন দ্য ডমিনিকান রিপাবলিকের প্রতিযোগী।

ছোটবেলা থেকেই স্বপ্ন দেখেছেন মিস ইউনিভার্স হওয়ার। গত বছর সেই স্বপ্ন সত্যি হয়েছিল। এ বছর আরও একবার মিস ইউনিভার্সের মঞ্চে হেঁটেছেন ভারতের মডেল ও অভিনেত্রী হারনাজ সান্ধু। এসময় তিনি আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন।


আরও খবর



রাণীনগরে পৃথক অভিযানে ৪জন গ্রেপ্তার মাদক উদ্ধার

প্রকাশিত:Sunday ০৮ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

কাজী আনিছুর রহমান,রাণীনগর (নওগাঁ) :


নওগাঁর রাণীনগর থানাপুলিশ পৃথক অভিযান চালিয়ে মাদকসহ দুইজন এবং মারপিট মামলায় আরো দুইজনসহ মোট চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে। শনিবার রাতে ও রোববার সকালে পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয় । গ্রেপ্তারকৃতদের রোববার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

রাণীনগর থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ বলেন, শনিবার রাতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় উপজেলার আবাদপুকুর বাজার এলাকা থেকে সুমন মোল্লা (৩১) কে ৫০গ্রাম গাঁজাসহ গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার সুমন উপজেলার বিষ্ণপুর গ্রামের মোজাম্মেল হকের ছেলে। একই রাতে উপজেলার মিরাট ধনপাড়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে ওই গ্রামের একটি মারপিট মামলার আসামী তাছের সরদার (৪০) ও তার ছেলে নয়ন সরদার (১৮) গ্রেপ্তার করা হয়। এছাড়া রোববার সকালে উপজেলার চকাদিন এলাকা থেকে হেরোইনসহ আব্দুল করিম (৩৮) কে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার করিম উপজেলার খট্রেশ্বর পশ্চিম পাড়া গ্রামের মৃত ছামছুর প্রামানিকের ছেলে। এঘটনায় মাদক সহ গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করে রোববার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।


আরও খবর



দশমিনায় বিতর্কিত শিক্ষা সিলেবাস বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশিত:Sunday ২৯ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

মোঃ নাঈম হোসাইন,দশমিনা (পটুয়াখালী) :

গত ২৬শে জানুয়ারী বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় দশমিনা উপজেলা পরিষদের  সামনে মানববন্ধন করে ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ দশমিনা থানা শাখা। 

দশমিনা থানা শাখার সভাপতি মোঃ বাহাউদ্দীন নোমান এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবুবকর সিদ্দিক এর সঞ্চালনায় কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচীর অংশ হিসেবে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।

মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ইসলামী আন্দোলন   বাংলাদেশ দশমিনা উপজেলা শাখার  জয়েন্ট সেক্রেটারী মোঃ রুহুল আমীন রুহানি। 

তিনি বলেন, আমাদের প্রথম পরিচয় আমরা মুসলিম এরপর আমরা বাঙালী, আমরা ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী, আমরা জানি আমাদের সৃষ্টি কর্তা মহান আল্লাহ। বর্তমানে শিক্ষা সিলেবাসে কুরআন সুন্নাহ বিরোধী, অযৌক্তিক ডারউইনের বিবর্তনতত্ত্ব যুক্ত করার মাধ্যমে আমাদের ঈমানের উপর আঘাত করা হয়েছে।

ইসলাম ও মুসলমানদের ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছে। 

একটি মুসলিম অধ্যুষিত দেশে হিন্দুত্ববাদী সিলেবাস মেনে নেয়া যায় না। 

যাঁরা এই সিলেবাস রচনা করেছে তাঁদের তদন্ত সাপেক্ষ বিচারের দাবী জানাচ্ছি। 

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ দশমিনা থানা শাখার সাবেক সভাপতি মোঃ ইমাম হোসাইন।  সহ-সভাপতি বনিউল আমিন, সাংগঠনিক মোঃ ফয়সাল আহমেদ, কওমী মাদ্রাসা বিষয়ক সম্পাদক মোঃ মাহফুজুর রহমান, তথ্য গবেষণা ও প্রচার সম্পাদক  মোঃ আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।


আরও খবর