Logo
শিরোনাম
শবে বরাত পালন মুসলিম জাতিকে একতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে। ৫৭ তম খোশরোজ শরীফ ও মইনীয়া যুব ফোরামের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন বাঙালি সাংস্কৃতিতে মাইজভাণ্ডারী ত্বরীকার সাথে সম্পর্ক রয়েছে সীমান্তে হত্যা বন্ধের দাবীতে প্রতীকী লাশ নিয়ে হানিফ বাংলাদেশীর মিছিল লক্ষ্মীপুরে কৃষক কাশেম হত্যা: স্ত্রী, শ্বশুরসহ গ্রেপ্তার ৫ কুমিল্লা সিটি’র উপনির্বাচন: মেয়র পদে প্রতীক বরাদ্দ অবৈধ মজুদকারীরা দেশের শত্রু : খাদ্যমন্ত্রী ফতুল্লায় সিগারেট খাওয়ার প্রতিবাদ করায় কিশোরকে পিটিয়ে হত্যা বকশীগঞ্জে মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা নোবিপ্রবিতে সিএসটিই এলামনাই এসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন

দিনাজপুরে ৩৯১ বোতল ফেন্সিডিলসহ দুই জন আটক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :

সিএনজি যোগে বহনকালে ৩৯১ বোতল ফেন্সিডিল সহ দুই জনকে আটক করেছে র‌্যাব।

সত্যতা নিশ্চিত করে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট কাম্প থেকে প্রতিবেদক কে জানানো হয়, র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট ক্যাম্পের একটি চৌকশ অপারেশনাল দল কোম্পানি অধিনায়ক মেজর মোঃ মোস্তফা জামান এবং স্কোয়াড কমান্ডার সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার মোঃ মাসুদ রানা এর নেতৃত্বে সোমবার দিনগত রাত সোয়া ১১ টারদিকে দিনাজপুর জেলার হাকিমপুর থানাধীন ধরন্দা এলাকায় অভিযান পরিচালনা ''একটি সিএনজি'' তল্লাসি করে  ৩৯১ বোতল ফেন্সিডিল সহ

জয়নাল আবেদিন (৪৪) ও জহুরুল ইসলাম (৪০) কে হাতেনাতে আটক করেন। আটককৃতরা হলেন, দিনাজপুর জেলার হাকিমপুর উপজেলার শালগ্রাম গ্রামের মৃত আবুল কাশেম এর ছেলে জয়নাল আবেদিন ও মোঃ আবুল কাশেম এর ছেলে জহুরুল ইসলাম।

র‌্যাব আরো জানান, আটককৃত দুইজন দীর্ঘদিন ধরে মাদক এক স্থান থেকে অন্য স্থানে নিয়ে যাওয়ার এই অবৈধ ব্যবসার সাথে জড়িত। ঘটনার সময়ও তারা দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর সীমান্ত এলাকা থেকে ফেন্সিডিল নিয়ে হিলিতে যাচ্ছিল। এ সময় দিনাজপুর জেলার হাকিমপুর থানার হিলি সীমান্ত এলাকায় র‌্যাবের একটি চৌকশ অপারেশন দল অভিযান চালিয়ে তাদের দুই জনকে ৩৯১ বোতল ফেন্সিডিল সহ গ্রেফতার করেন।

এব্যাপারে নিকটস্থ্য থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ অনুসারে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেছে র‌্যাব।


আরও খবর



৫৭ তম খোশরোজ শরীফ ও মইনীয়া যুব ফোরামের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির (বিএসপি) চেয়ারম্যান ও মাইজভার দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী মাইজভারীর (মা.জি.আ.) ৫৭ তম খোশরোজ শরীফ উপলক্ষ্যে তাঁরই প্রতিষ্ঠিত হযরত সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ মাইজভারী ট্রাস্টের বার্ষিক সাধারণ সভা ও  মইনীয়া যুব ফোরামের ১১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে যুব মহাসমাবেশ চট্টগ্রাম ফটিকছড়ি মাইজভার দরবার শরীফে অনুষ্ঠিত হয়। ২৪ ফেব্রæয়ারি শনিবার দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি ও বাদ মাগরিব হুজুর কিবলার জীবনী আলোচনা, র‌্যালি, মাদক, যৌতুক ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে গণসচেতনতায় গণস্বাক্ষর ও প্রচারণা, রক্তদান,, খতমে কুরআন, খতমে গাউছিয়াসহ নানা কর্মসূচি পালিত হয়। খোশরোজ শরীফ ও মইনীয়া যুব ফোরামের মহাসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী বলেন, যুব তরুণ সমাজ আজ লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে নানামুখী অবক্ষয়ে ধুঁকছে। বিপথগামিতার পথে পা বাড়িয়ে বহু তরুণ নিজেদের মূল্যবান জীবন নিঃশেষ করে দি”েছ। সর্বনাশা মাদক ও বিভিন্ন প্রকার নেশার আগ্রাসনের শিকার সম্ভাবনাময়ী যুব তরুণ সমাজ। তাই, অবক্ষয়ের অতল গহŸর থেকে তাদেরকে ফিরিয়ে এনে সত্য সুন্দর ও আলোর পথে নিয়ে আসতে হবে। তাদেরকে দেখাতে হবে উজ্জ্বল ভবিষ্যতের সুষমামন্ডিত স্বপ্ন। তিনি বলেন, যুব তরুণদের আধুনিক জীবন যাপনের নামে অবাধ মেলামেশা ও অনৈতিকতার পথে বাধাহীনভাবে চলতে দেয়া যায় না। তাদেরকে সূফিবাদি উদার মানবিক, নৈতিক ও দ্বীনি মূল্যবোধের আলোকে গড়ে তুলতে হবে। নবী-ওলী মনীষীদের মহৎ জীবনাদর্শের আলোকে যুব সমাজকে জাগিয়ে তুলতে পারলে তারাই এগিয়ে নেবে দেশকে।তিনি বলেন, অক্ষর জ্ঞানে শিক্ষিত হলে হবে না। রাষ্ট্র ও সমাজ গঠনে ভূমিকা রাখতে নৈতিকভাবে পরিশুদ্ধ সৎ, বিবেকবান ও দুর্নীতিমুক্ত সু¯’-আদর্শিক হতে হবে। নৈতিকভাবে উজ্জীবিত আদর্শবান প্রজন্মই দেশকে এগিয়ে নিতে পারে বলে তিনি মন্তব্য করেন। সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী যুব সমাজকে মইনীয়া যুব ফোরামের ্প্লাটফরমে এসে জ্ঞান, চরিত্র ও আদর্শিকভাবে উজ্জীবিত হবার আহŸান জানান এবং তথ্য প্রযুক্তির অপব্যবহার থেকে সবাইকে সতর্ক থাকার তাগিদ দেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মইনীয়া যুব ফোরামের সভাপতি শাহ্জাদা সৈয়দ মেহবুব-এ-মইনুদ্দীন আল-হাসানী, উদ্বোধক ছিলেন ফোরামের কার্যনির্বাহী সভাপতি শাহ্জাদা সৈয়দ মাশুক-এ-মইনুদ্দীন আল্-হাসানী। বিশেষ অতিথি ছিলেন পি, এইচ, পি ফ্যামিলীর চেয়ারম্যান সূফি মোঃ মিজানুর রহমান, আন্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভারীয়ার কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক খলিফা শাহ্ মো: আলমগীর খান, হযরত সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ মাইজভারী ট্রাস্টের মহাসচিব ও বিএসপি কো-চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খলিফা কাজী মহসীন চৌধুরী। প্রধান আলোচক ছিলেন মইনীয়া যুব ফোরামের সাধারণ সম্পাদক খলিফা মো: আসলাম হোসাইন। মহাসমাবেশ ও ট্রাস্টের সভায় অতিথি এবং আলোচক ছিলেন আনজুমান চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা সাধারণ সম্পাদক কাজী মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ, বিএসপি দপ্তর সম্পাদক মোঃ ইব্রাহিম মিয়া, , প্রমুখ। মিলাদ ক্বিয়াম শেষে বিশ্বশান্তি, নিপীড়িত মানবতার মুক্তি এবং দেশবাসীর ওপর আল্লাহর রহমত কামনায় মুনাজাত পরিচালনা করেন শাহ্সূফী মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল্-হাসানী (মা.জি.আ.)। পরে সবার মাঝে তবারুক পরিবেশিত হয়। 


আরও খবর



শুল্ক কমলেও চিনির দাম উল্টো বাড়ছে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ |

Image

আমদানি শুল্ক অর্ধেক কমানোর পর এক টাকাও কমেনি চিনির দাম বরং বেড়েছে। বছরের ব্যবধানে ৩৫ টাকা বেড়ে প্রতি কেজি প্যাকেটজাত চিনি বিক্রি হচ্ছে ১৪৮ টাকায়। আর খোলা চিনি ১৪০ টাকা। বিশ্লেষকদের দাবি, চিনি আমদানিতে মনোপলি সিন্ডিকেট ভাঙতে না পারলে দাম কমানো কঠিন।

তথ্যমতে, চিনির মূল্য নিয়ন্ত্রণে গত বছরের নভেম্বরে আমদানি শুল্ক অর্ধেকে নামিয়ে আনে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। সংস্থাটির প্রজ্ঞাপনে, অপরিশোধিত চিনি আমদানিতে প্রতি টনে শুল্ক ৩ হাজার টাকা থেকে কমানো হয়েছে দেড় হাজার টাকা। আর পরিশোধিত চিনির শুল্ক ৬ হাজার টাকা থেকে করা হয়েছে ৩ হাজার টাকা। শুল্ক ছাড় সুবিধা আমদানিকারকরা পাবেন আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত।

বড় আকারের শুল্ক ছাড়ে ভোক্তারা কম দামে চিনি কিনতে স্বস্তি পাবেন, এমনটাই স্বাভাবিক। কিন্তু হয়েছে তার উল্টো। দাম তো কমেনি বরং প্রায় প্রতি মাসে বেড়েছে। বছরের ব্যবধানে খোলা ও প্যাকেটজাত চিনির দাম বেড়েছে গড়ে ৩৫ টাকা।

পাইকারি ব্যবসায়ীরা বলছেন, চিনির দাম একটু বেশি হলেও সংকট নেই। তবে, সরকার যদি আমদানি করে আমাদের মাধ্যমে সরবরাহ করে তাহলে দাম কিছুটা কমবে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, চিনি আমদানি ও সরবরাহে মনোপলি সিস্টেম ভাঙতে না পারলে বাজারে স্বস্তি ফেরার সম্ভাবনা নেই।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর জানিয়েছে, ট্র্যাকিং সফটওয়্যার ব্যবহার পুরোপুরি চালু হলে তথ্যে কোন ঘাটতি থাকবে না। তখন মিলগেট থেকে ডিস্ট্রিবিউটরদের মাধ্যমে কোন জেলায় কতটুকু পণ্য যাচ্ছে সেগুলো আমরা ট্র্যাক করতে পারব।


আরও খবর

চড়া দাম অধিকাংশ পণ্যের

শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ধামরাইয়ে বংশী নদী ভরাট চলছে আঁটো রাইছ মিলের ছাই দিয়ে

প্রকাশিত:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

মাহবুবুল আলম রিপন (স্টাফ রিপোর্টার):

ধামরাই উপজেলার সোমভাগ ইউনিয়নের সোমভাগ কাটাখালী এলাকায় কেলিয়ার উত্তরপাশে বংশী নদী ভরাট চলছে ধানের চাতালের ছাই দিয়ে। নদী ভরাটের ফলে গতি পথে বাঁধা সৃষ্টি হচ্ছে। দূষিত হচ্ছে পরিবেশ। প্রশাসনের নাকের ডগায় চলছে ছাই দিয়ে ভরাটের কর্মযজ্ঞ।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার কুল্লা ইউনিয়নের কেলিয়া এলাকায় কে এন্ড কে অটোরাইস মিল, কাদের আটো রাইস মিল, সৌদিয়া অটো রাইস মিল,সুষমা অটো রাইস মিল মালিকরা নদী ভরাট করে পানি চলাচলের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে।


আরও খবর



নওগাঁয় প্রথম বারের মতো অনুষ্ঠিত হলো দুদকের গণশুনানি

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ |

Image

'রুখবো দুর্নীতি, গড়বো দেশ হবে সোনার বাংলাদেশ'' এই প্রতিপাদ্য বিষয় কে সামনে রেখে নওগাঁয় প্রথম বারের মতো অনুষ্ঠিত হলো দুদক এর গণ-শুনানি। এবারের গণ-শুনানির শ্লোগান ছিলো দুর্নীতির বিরুদ্ধে এবার আওয়াজ তুলুন। রবিবার দুর্নীতি দমন কমিশন, সমন্বিত জেলা কার্যালয় নওগাঁর আয়োজনে এবং জেলা প্রশাসন ও জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সহযোগিতায় নওগাঁ সদর উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত গণশুনানিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, দুর্নীতি দমন কমিশনের কমিশনার (তদন্ত) মোঃ জহুরুল হক। নওগাঁ জেলা প্রশাসক মোঃ গোলাম মওলার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, দূর্নীতি দমন কমিশনের মহাপরিচালক (তদন্ত) আকতার হোসেন, রাজশাহী বিভাগীয় পরিচালক কামরুল আহসান, নওগাঁ জেলা পুলিশ সুপার মুহাম্মদ রাশিদুল হক, দুর্নীতি দমন কমিশন, সমন্বিত জেলা কার্যালয় নওগাঁর উপ-পরিচালক মোহাম্মদ মাহমুদুর রহমান, জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ডা. হাবিবুর রহমান সহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন। 

গণশুনানিতে ১টি ইনস্যুরেন্স কোম্পানীর ও জেলার ১৫টি সরকারি দপ্তর এর বিরুদ্ধে ঘুষ, দুর্নীতি ও হয়রানির বিষয়ে সেবা প্রার্থীরা সরাসরি উপস্থাপন করলে ৩৯টি অভিযোগে মুখোমুখি হয়ে সেগুলো সমাধাণ করে দেন বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারিরা। নওগাঁ জেলা সদরে অবস্থিত যে কোন সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত দপ্তর, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে সেবা পেতে ঘুষ, দুর্নীতি বা হয়রানীর শিকার হয়েছে এমন অভিযোগের অনেক গুলো শুনানি শেষে তাৎক্ষণিক সমাধান করা হয়। এছাড়া অন্যান্য অভিযোগ স্বল্প সময়ের মধ্যে সমাধান করে তার প্রতিবেদন কমিশন বরাবর পাঠানোর নির্দেশনা প্রদান করেন প্রধান অতিথি। 

এসময় প্রধান অতিথি বলেন, এই দেশের মালিক জনগণ যা সংবিধানের মাধ্যমে এই মালিকানা প্রদান করা হয়েছে। আর সেই মালিকরা সরকারী অফিসে গিয়ে সেবা পাবেন না তা হতে পারে না। মালিক তার দপ্তরে সেবা নিতে গেলে হয়রানীর শিকার হবেন এটা মেনে নেওয়া যায় না। প্রতিটি কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা হলো জনগণের সেবক। তাই জেগে ঘুমালে সেই ঘুম ভাঙ্গানো কঠিন। আমরা চাকরীজীবীরা যদি যে যার স্থান থেকে দুর্নীতিকে না বলি প্রতিরোধ না করি তাহলে এই ধরণের শত শত দুদকের পক্ষে দেশ থেকে দুর্নীতি নামক ভাইরাসকে দূর করা সম্ভব নয়। তাই মৃত্যুর কথা ভেবে, একজন অসহায় মানুষের জন্য ভালো কিছু করে পরের স্থায়ী জীবনের জন্য নেকী অর্জনের কথা ভেবে, সর্বোপরি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে এবং আগামী প্রজন্মের জন্য একটি সুস্থ্য ও সুন্দর একটি বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে আজ থেকেই দুর্নীতি বিরুদ্ধে সবাইকে যুদ্ধ ঘোষণা করার প্রতি আহব্বান জানান প্রধান অতিথি।   


আরও খবর



দশমিনায় শ্রদ্ধাঞ্জলির নামে জুতা পায় অবমাননা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

মোঃ নাঈম হোসাইন,দশমিনা  (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি :

দশমিনা উপজেলার আরজবেগী এস.এ. মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের  এক সহকারি শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের জুতা পায়ে শহীদ মিনারের বেদিতে দাঁড়িয়ে তোলা একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি)সন্ধা থেকে ছবিটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে।জানা গেছে, ওই শিক্ষকের নাম মাইনুল ইসলাম রুমি। তিনি উপজেলার আরজবেগী এস.এ.মাধ্যমিক বিদ্যালয় গনিত বিভাগের শিক্ষক। এবং ওই বিদ্যালয়ের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা। 

গতকাল আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে সাজানো হয় ওই স্কুলের শহীদ মিনার। সকাল থেকেই শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানায় স্কুলের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।এসময় ওই শিক্ষক মাইনুল ইসলাম রুমি জুতা পায়ে শহীদ মিনারের বেদিতে উঠে ফটোসেশন করেন। পরে ছবিটি তার  ছাত্র ফেসবুকে পোস্ট করলে তা মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায়।ছবিটি পোস্ট করে এক ফেসবুক ব্যবহারকারী লিখেছেন,শ্রদ্ধাঞ্জলির নামে জুতা পায়ে অবমাননা। শিক্ষার্থীদের সাথে একজনশিক্ষকওরয়েছেনদুঃখিত,আমরা একাডেমিক শিক্ষায় শিক্ষিত হলেও প্রকৃত শিক্ষা গ্রহন করতে পারিনি। স্থানঃআরজবেগী এসএ মাধ্যমিক বিদ্যালয় শহিদ মিনার।এ ছাড়া মন্তব্যতে লিখেছেন, একজ শিক্ষক হয়ে উনি জুতা পায় দিয়ে শহিদ মিনারে কিভাবে ফুলের তোরা দ্যায় আমার জানা নেই, আর তার স্টুডেন্ট রা তো মাশাল্লাহ।এছাড়াও আরো নানা ধরনের নেতিবাচক মন্তব্য করেছেন অনেকেই।এ বিষয়ে জানতে ওই শিক্ষক মাইনুল ইসলাম রুমি কিছু বলতে রাজি নন।দশমিনা উপজেলা সাবেক  মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আলহাজ্ব মোঃ শাহাবুদ্দিন বলেন,শহীদ মিনারের জুতা পায়ে না উঠি। এটা আমাদের শিষ্টাচার। আমরা যুগে যুগে তা মেনে চলে আসছি, যা আমাদের মানা উচিৎ বলে আমি মনে করি।এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ কাওসার আলম মুঠোফোনে জানান, আমার অনুষ্ঠান চলাকালীন সময় কেউ জুতা পায়ে দিয়ে ওঠে নাই, এর আগে বা পরে কেউ উঠলে আমার জানা নেই। এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সেলিম মিয়া বলেন,  বিষয়টি আমি ফেসবুকে দেখেছি, বিষয়টি খোঁজ নিয়ে ওই  শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর