Logo
শিরোনাম
শবে বরাত পালন মুসলিম জাতিকে একতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে। ৫৭ তম খোশরোজ শরীফ ও মইনীয়া যুব ফোরামের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন বাঙালি সাংস্কৃতিতে মাইজভাণ্ডারী ত্বরীকার সাথে সম্পর্ক রয়েছে সীমান্তে হত্যা বন্ধের দাবীতে প্রতীকী লাশ নিয়ে হানিফ বাংলাদেশীর মিছিল লক্ষ্মীপুরে কৃষক কাশেম হত্যা: স্ত্রী, শ্বশুরসহ গ্রেপ্তার ৫ কুমিল্লা সিটি’র উপনির্বাচন: মেয়র পদে প্রতীক বরাদ্দ অবৈধ মজুদকারীরা দেশের শত্রু : খাদ্যমন্ত্রী ফতুল্লায় সিগারেট খাওয়ার প্রতিবাদ করায় কিশোরকে পিটিয়ে হত্যা বকশীগঞ্জে মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা নোবিপ্রবিতে সিএসটিই এলামনাই এসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন

ঈদের বাজারেও চড়া দাম

প্রকাশিত:শনিবার ০১ এপ্রিল ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

রোকসানা মনোয়ার :ঈদ মানেই নতুন পোশাক। ধনী-গরিব সবাই চায়, সাধ ও সাধ্য মতো নতুন পোশাক কিনে ঈদের আনন্দে সারাদিন মেতে থাকে। কিন্তু এবার সেই আনন্দও মাটি হয়ে যেতে পারে অনেকের। কারণ, নিত্যপণ্যের বাজারের আঁচ লেগেছে রাজধানীর পাইকারি মার্কেট ও শপিংমলগুলোয়। ঈদ সামনে রেখে ক্রেতাদের পকেট কাটার অভিযোগ উঠছে বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে। করোনাভাইরাস মহামারি ও ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের অজুহাত তুলে রোজার শুরু থেকেই পোশাকের বাড়তি দাম হাঁকাচ্ছেন তারা।

ব্যবসায়ীদের দাবি, করোনাকাল ও সরকারের বিধিনিষেধের কারণে ৩ বছরের (২০২০, ২০২১ ও ২০২২) ঈদে আশানুরূপ ব্যবসা হয়নি। এর সঙ্গে ইউক্রেন যুদ্ধের নেতিবাচক প্রভাবে ব্যবসায় দেখা দিয়েছে মন্দাভাব। তাই এবারের ঈদে ৩ বছরের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে হবে, না হলে আগামীতে ব্যবসা টিকিয়ে রাখা অসম্ভব হয়ে পড়বে। তাই ঈদে পোশাকের শতকরা ২৫ থেকে ৪০ শতাংশ দাম বাড়িয়েছেন তারা।

রাজধানীর গুলিস্তান, পল্টন, মৌচাক-মালিবাগ এবং নিউমার্কেট এলাকা ঘুরে দেখা যায়, ক্রেতাদের চাহিদা মূলত গজ কাপড়, থ্রিপিস ও পাঞ্জাবিতে। এই তিনটির পাশাপাশি শাড়ি ও লেহেঙ্গা, গাউনসহ অন্যান্য পোশাকও বিক্রি হচ্ছে। দোকানগুলোও গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে সারিসারিভাবে সাজিয়ে রেখেছে দেশি-বিদেশি পণ্যগুলো। ক্রেতা দেখলেই হাঁকডাক দিচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। নানান কথা ও অফার দিয়ে ক্রেতাদের আকৃষ্টের চেষ্টা করছেন তারা। তবে ক্রেতার পোশাক পছন্দ হলেই ইচ্ছামতো দাম হাঁকাচ্ছেন। হাজার টাকার কাপড়ে ন্যূনতম ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা মুনাফা করছেন। অর্থাৎ ক্রেতারা ২০২২ সালে যে পোশাক ১ হাজার টাকায় কিনেছেন। এবছর সেটা ১৩০০ থেকে ১৫০০ টাকায় কিনতে হচ্ছে। যারা দর-দাম কম করছেন না, তাদের আরো বেশি দাম দিয়ে কিনতে হচ্ছে। ব্যবসায়ীদের এক কথা করোনার কারণে ৩ বছর ব্যবসা করতে পারিনি। পুঁজি খাটিয়ে ব্যবসা ধরে রেখেছি, এবারের ঈদে পোষাতে হবে। অর্থাৎ তিন বছরের লাভ এবার করতে হবে।

মার্কেটে আসা ক্রেতারা বলছেন, ঈদে পোশাকে শতকরা ২৫ থেকে ৪০ শতাংশ দাম বেড়েছে। কিছু কিছু পণ্যের দাম বেড়েছে দ্বিগুণ। তবে বিক্রেতারা বলছেন, ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধের কারণে একদিকে ডলারের দাম বেড়েছে। এতে করে গত বছরের তুলনায় ডলার প্রতি ২০-২৫ টাকা বেশি খরচ হচ্ছে। এছাড়া গ্যাস ও বিদ্যুৎসহ উৎপাদন খরচ বেড়েছে। এছাড়া দোকান ও কর্মচারী ভাড়াসহ খরচের পর মুনাফা আসবে। সব কিছু হিসাব করে এবার বেশি দামে পোশাক বিক্রি করতে হচ্ছে। ভারত-চীন থেকে শাট ও টি-শার্ট আমদানি করে গুলিস্তানের গোলাপ শাহ শপিং সেন্টারে বিক্রেতা শিমুল আহমেদ বলেন, গত বছর ভালো ব্যবসা হয়েছে। এবছরও শবেবরাতের পর থেকে বিক্রি হচ্ছে টুক-টাক। আশা করছি- আগামী সপ্তাহ থেকে বিক্রি বাড়বে।

নিউমার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ডা. দেওয়ান আমিনুল ইসলাম শাহীন বলেন, প্রত্যেক ঈদেই ঘরে পড়া ও সাধারণ পার্টিতে ঘুরে বেড়ানো পোশাকই বেশি বিক্রি হয়। আমরা সেই চিন্তা করেই পোশাক উৎপাদন করেছি। ভারত, পাকিস্তান এবং কাশ্মীর থেকে আমদানি করেছি। তবে এবার এসব পোশাকের দাম বেড়েছে শতকরা ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ। গত বছর ১ হাজার টাকায় যে থ্রিপিস বিক্রি করেছি। এবছর সেই থ্রিপিস বিক্রি করছি ১৩০০ থেকে ১৪০০ টাকায়। আমাদের কোন উপায় নেই, কারণ ডলারের মূল্য বৃদ্ধি হয়েছে। উৎপাদন খরচও বেড়েছে।

বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন বলেন, ইউক্রেন রাশিয়া যুদ্ধের কারণে সব কিছুর দাম বেড়েছে। এ কারণে ঈদেও পোশাকের দাম বেড়েছে। এবার ঠিকভাবে ব্যবসা করতে পারলে আশা করছি করোনা ও সরকারের বিধিনিষেধের কারণে গত ৩ বছর যে লোকসান হয়েছে। সেই ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারবো।

 


আরও খবর

চড়া দাম অধিকাংশ পণ্যের

শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ট্রেনের টিকিট কালোবাজিদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে যাবে রেলপথ মন্ত্রণালয়

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ |

Image

রাজবাড়ী প্রতিনিধি :  ট্রেনের টিকিট কালোবাজারিদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে যাবে রেলপথ

মন্ত্রণালয়। ইতমধ্যে এই চক্রের বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনার সদস্যরা। এই

অভিযান অব্যাহত থাকবে। আসন্ন ঈদযাত্রায় ট্রেনের টিকিট প্রাপ্তিকে স্বস্তি থাকবে বলে জানান রেলপথ

মন্ত্রণালয়ে মন্ত্রী মো. জিল্লুল হাকিম। ট্রেনের টিকিট কালোবাজির চক্রের সাথে ‘সহজ’ ডটকম,

রেলের কর্মচারীসহ অসাধু কিছু কর্মকর্তারা জড়িত।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাজবাড়ীর মাদ্রাসা পাংশা- বালিয়াকান্দি ও কালুখালী শিক্ষক-কর্মচারীবৃন্দের

আয়োজনে পাংশা জর্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন রেলমন্ত্রী।

সংগঠটির সমিতির সভাপতি মীর আব্দুল বাতেনের সভাপতিত্বে মন্ত্রী বলেন, বিএনপির সময় রেলপথ ধ্বংস

করা হয়েছিল। রেলে আগুন দিয়ে রেলপথকে ধ্বংস করতে চায় বিএনপি। বিভিন্ন জেলায় নতুন নতুন রেলপথ

নির্মাণ করে বাংলাদেশকে রেল নেটওয়ার্কের আওতায় আনতে হবে।

ট্রেনে যাত্রীদের জন্য যে খাবার সরবরাহ করা হয় সেগুলো অত্যন্ত নি¤œমানের। মানুষ টাকা দিয়ে খাবার ক্রয়

করে খায়। কিন্তু খাবারের মান ভালো করার জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। আগামী ১৩ ফেব্রæয়ারী

্ধসঢ়;এসব বিষয় নিয়ে মন্ত্রণালয়ে সভা আহŸান করা হয়েছে।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল মোরশেদ আরুজ, পাংশা উপজেলা পরিষদের

চেয়ারম্যান ফরিদ হাসান ওদুদ, বালিয়াকান্দি উপজেলা পরিষদের আবুল কালাম আজাদ, পাংশা উপজেলা

আওয়ামী লীগের সভাপতি খোন্দকার সাইফুল ইসলাম বুড়ো প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।


আরও খবর



গজারিয়ায় পুরস্কার বিহীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, অভিভাবক মহলে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ |

Image

মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি : গজারিয়ায় উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠিত বাৎসরিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার না দিয়ে সার্টিফিকেট স্কুলে পৌঁছে দিবে বলে মাইকে ঘোষণা দেওয়া হয়।

গত (১৫ ফেব্রুয়ারী) বৃহস্পতিবার সকাল থেকে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার টেংগারচর ইউনিয়নের হাজী কেরামত আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ প্রাঙ্গনে এ ক্রীড়া অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

ক্রিয়া প্রতিযোগিতায় সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুল কাদির মিয়া, সহযোগী হিসেবে সহকারী শিক্ষা অফিসারগণ উপস্থিত ছিলেন।

স্থানীয় সুত্রে জানাযায়, বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে কয়েকশত ক্রীড়াপ্রেমী ছাত্র-ছাত্রীরা তাদের অভিভাবক ও শিক্ষকদের উপস্থিতিতে ক্রিয়া অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে কোন প্রকার পুরস্কার না দিয়ে শুধুমাত্র ছাপানো সার্টিফিকেট স্কুলে পৌঁছে দিবে বলে মাইকে ঘোষণা দেওয়া হয়।

এতে কোমলমতি ক্রীড়া শিক্ষার্থীদের প্রতিভা বিকাশে অনাগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে বলে অভিভাবক মহলে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়।

আগত শিক্ষার্থীদের কোন প্রকার পানীয় খাদ্যদ্রব্য সরবরাহ করা হয়নি বলে ছাত্র ছাত্রী ও অভিভাবকরা জানান।

বিশেষ সূত্রে জানা যায় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা উপলক্ষে উপজেলা শিক্ষা অফিসের ৭ হাজার টাকা বরাদ্দ থাকলেও শিক্ষা অফিসার আব্দুল কাদির প্যান্ডেল, সাউন্ড সিস্টেম মাইক দুইজন সহকারি শিক্ষক হতে আদায় করে নেন। এমনকি বাৎসরিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার ব্যানার পর্যন্ত তৈরি করা হয়নি।

কয়েকজন ক্রীড়াপ্রেমী কোমলমতি শিক্ষার্থী জানান ব্যানার ও পুরস্কার না থাকায় আমরা আগামী ক্রিয়া অনুষ্ঠানে যোগদান করা থেকে বিরত থাকবো।

অভিভাবক ও শিক্ষকরা জানান বাৎসরিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বিদ্যালয় ও উপজেলা শিক্ষা অফিস হতে বরাদ্দের অর্থ কোথায় ব্যবহার হলো তা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নিয়ে কোমলমতি ক্রীড়া-প্রেমী শিক্ষার্থীদের প্রতিভা বিকাশে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করবেন।

উক্ত ক্রীড়াপ্রতিযোগিতা অনুষ্ঠান বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুল কাদির মিয়াকে ফোন দিলেও তাকে পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে গজারিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কোহিনুর আক্তার জানান বিষয়টি আমি অবগত নয়, তবে প্রতিভা বিকাশে ক্রীড়া-প্রেমী ছাত্র-ছাত্রীদের উৎসাহে পুরস্কার বিতরণে উপজেলা শিক্ষা অফিসার এই ভূমিকা কেন নিবে, তা তদন্ত করে দেখব।


আরও খবর

মাথায় আঘাত পেয়ে হাসপাতালে মোস্তাফিজ

রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




বকশীগঞ্জে মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

 জামালপুর প্রতিনিধি : বকশীগঞ্জ নূর ডায়াগনস্টিক সেন্টার এন্ড ক্লিনিকের উদ্যোগে ২০২৪ সালে দেশের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় উর্ত্তীন্ন কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধণা দেয়া হয়েছে শুক্রবার সকালে নূর ডায়াগনস্টিক সেন্টার এন্ড ক্লিনিকে জমকালো সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়

 সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মাধ্যমিক উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বিভাগের উপ সচিব মোহাম্মদ আলতাফ হোসেন সভাপতিত্ব করেন নূর ডায়াগনস্টিক সেন্টার এন্ড ক্লিনিকের অন্যতম কর্নধার পঙ্গু হাসপাতালের (নিটোর) স্পাইন অর্থোপেডিক সার্জন অধ্যাপক ডা.রেজাউল করিম রেজা বিশেষ অতিথি হিসেবে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন শ্রীবরদী সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ হাসান বিন রফিক, অর্থোপেডিক সার্জন ডা.মোহাম্মদ নাদের হোসেন,বীর মুক্তিযোদ্ধা আফছার আলী,বাট্টাজোর নগর মাহমুদ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মামুনুর রশিদ,কৃতি শিক্ষার্থী হৃদয় ইসলাম, তাসনিমা হাসনাইন,আবরার জাওয়াদ রাইয়ান তালুকদার,তাহমিদ হাসান,জান্নাতুল ফেরদৌসি, নিশাত তাসনিম ছোয়া, জান্নাতুল ফেরদৌসি মীম,আদিবা মুয়িম্মাহ নূর আফজা মোহনা

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন নূর ডায়াগনস্টিক সেন্টার এন্ড ক্লিনিকের অন্যতম কর্নধার ইসলামী ব্যাংক বকশীগঞ্জ শাখা ব্যাবস্থাপক আনোয়ার হোসেন ফুয়াদ কৃতি শিক্ষার্থীদের হাতে ক্রেস্ট মেডিকেলের বই তুলে দেন অতিথিবৃন্দ


আরও খবর



শবে বরাত পালন মুসলিম জাতিকে একতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে।

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

মাইজভাণ্ডার শরীফের সাজ্জাদানশীন, হযরত সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ মাইজভাণ্ডারী বলেছেন, "পবিত্র শবে বরাত বা শাবান মাসের ১৫ তারিখ রজনীতে মহান আল্লাহ্ তার বান্দাদের জন্য বিশেষ দয়া ও ক্ষমা করে থাকেন। প্রিয় নবিজী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এ রজনীকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছেন। শবে বরাত মুসলিম সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ। এ রজনীতে ঘরে ঘরে রুটি হালুয়া তৈরির একটি প্রথা রয়েছে। মুসলিমরা তাদের প্রতিবেশী ও দরিদ্রদের মাঝে এ খাবার বিতরণ করেন। এতে মানুষের মাঝে ভাতৃত্ববোধ ও সম্প্রীতির মনোভাব বৃদ্ধি পায়। মুসলিম উম্মাহর মাঝে একতা ও জাতীয় চেতনার জাগরণ ঘটে এ ধরনের উপলক্ষ্যগুলো পালনের মাধ্যমে। রুটি-হালুয়া এক ধরনের হালাল খাবার। মানুষকে খাওয়ানে সবচেয়ে উত্তম কাজগুলোর মধ্যে অন্যতম। বিশেষত দরিদ্রদের খাওয়ানো মহৎ একটি গুণ। এ রজনীতে বেশি বেশি তাওবা ইস্তেগফার করা, নফল নামায আদায়, পবিত্র কুরআন তিলাওয়াত, তাহাজ্জুদ আদায়, প্রিয় নবিজী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর প্রতি শ্রদ্ধার সাথে সালাতু সালাম পেশ ও দরুদ শরীফ পাঠ, দান সদকাহ্ করা,নবী রসুল, সাহাবী অলি আল্লাহ মাজার ও মুরববীগনের জেয়ারত করা এবং পরদিন রোজা পালন অত্যন্ত বরকতময় আমল। মহান আল্লাহ্ যেন, এ মহিমান্বিত রজনীর মাধ্যমে আমাদের সকলের প্রতি তার সদয় দৃষ্টি নিবদ্ধ করেন।"

সীতাকুণ্ডের ভাটিয়ারিতে হযরত নেয়ামত শাহ্ (রহঃ) মাজার প্রাঙ্গণে, শেরে খোদা মওলা আলি (আঃ), গাউসুল আযম হযরত সৈয়দ আহমদউল্লাহ্ মাইজভাণ্ডারী (কঃ) ও হুযুর গাউসুল ওয়ারা হযরত আল্লামা শাহ্সুফি সৈয়দ মইনুদ্দীন আহমদ আল হাসানী মাইজভাণ্ডারী (কঃ) স্মরণে আয়োজিত গাউসুল আযম মাইজভাণ্ডারী কনফারেন্সে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা, বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, ওলামা মাশায়েখ, খলিফাবৃন্দ, আঞ্জুমান-এ-রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভাণ্ডারীয়া ও মইনীয়া যুব ফোরামের নেতৃবৃন্দ। 

দো-জাহানের বাদশাহ্, রহমাতুল্লিল আলামীন, হযরত আহমদ মুজতবা, মুহাম্মদ মুস্তফা (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এবং তার পবিত্র আহলে বাইতগণের প্রতি সশ্রদ্ধ সালাম পেশ শেষে দেশ ও মানবতার কল্যাণ কামনায় মুনাজাত করেন, সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসানী মাইজভাণ্ডারী।


আরও খবর

অনুমতি ছাড়া হজ করলে শাস্তি ঘোষণা

শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪

৪৪ হাজার কোটা খালি রেখেই হজ নিবন্ধন শেষ

বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




থাইরয়েড রোগী কী খাবেন

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ |

Image

অনেকেরই থাইরয়েডের সমস্যা আছে। তবে পুরুষের তুলনায় নারীদের এ সমস্যা বেশি হয়। এই হরমোনের ঘাটতি বা আধিক্যের কারণে ব্যাপক শারীরবৃত্তীয় পরিবর্তন ঘটে। থাইরয়েডের সমস্যায় সুস্থ থাকতে জীবনযাত্রা ও ডায়েটে পরিবর্তন আনতে হবে। থাইরয়েড স্বাস্থ্য বজায় রাখা নিশ্চিত করার জন্য থাইরয়েড সমর্থনকারী পুষ্টিতে ভরা ডায়েট করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ভারতীয় গণমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসের এক প্রতিবেদনে এমনই কিছু খাবারের কথা বলা হয়েছে।

সেলেনিয়াম: সেলেনিয়াম শরীরে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট হিসাবে কাজ করে। ব্রাজিল বাদাম, ঝিনুক, সার্ডিন এবং স্যামন মাছে সেলেনিয়াম পাওয়া যায়। এই উপাদানটি থাইরয়েডের সমস্যা সমাধান করতে সাহায্য করে। তবে খুব বেশি সেলেনিয়াম আবার থাইরয়েডের জন্য ক্ষতিকারকও হতে পারে।

আয়োডিন: থাইরয়েডে আয়োডিন খুব গুরুত্বপূর্ণ। এই উপাদান মাছ, চিংড়ি এবং ডিমে পাওয়া যায়। আয়োডিন শরীরের জন্য একটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান।

জিঙ্ক: শরীরের জিঙ্কের অভাব হাইপোথাইরয়েডিজম হতে পারে। তাই যেই সমস্ত খাবারে জিঙ্ক রয়েছে তা খেতে হবে। এসব খাবারের মধ্যে সামুদ্রিক মাছ ও অন্যান্য খাবার যেমন-চিংড়ি, মাংস, দুধ ও দুগ্ধজাত খাবার, ডিম, বাদাম, শিম, মাশরুম ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

ভিটামিন ডি: মাশরুম, স্যামন এবং ডিমে পাওয়া ভিটামিন ডি হাইপোথাইরয়েডিজমের মতো থাইরয়েড ব্যাধিগুলির বিরুদ্ধে লড়াই করতে সহায়তা করে।

ম্যাগনেসিয়াম ও ভিটামিন বি : কুমড়োর বীজ, তিল এবং বাদামে ম্যাগনেসিয়াম পাওয়া যায়। এ ছাড়া ভিটামিন বি খেতে হবে। ভিটামিন বি থায়রয়েড নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

 


আরও খবর