Logo
শিরোনাম

একাদশের ক্লাস শুরু ৩০ জুলাই

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ |

Image

 ডিজিটাল ডেস্ক:

চলতি বছরের একাদশ শ্রেণিতে শিক্ষার্থীদের ভর্তির জন্য অনলাইন আবেদন শুরু হবে ২৬ মে থেকে। আবেদন করা যাবে ১১ জুন পর্যন্ত।

আর ক্লাস শুরু হবে ৩০ জুলাই থেকে।

বুধবার (১৬ মে) রাতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের ওয়েবসাইটে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির এ নীতিমালা প্রকাশ করা হয়।


শিডিউল অনুযায়ী, প্রথম ধাপে ভর্তির জন্য নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের তালিকা প্রকাশ করা হবে ২৩ জুন। শিক্ষার্থীদের ভর্তি নিশ্চয়ন করতে হবে ২৯ জুনের মধ্যে। দ্বিতীয় ধাপে ভর্তি আবেদন শুরু হবে ৩০ জুন থেকে। যা চলবে ২ জুলাই পর্যন্ত।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ড জানিয়েছে, দ্বিতীয় ধাপে আবেদনকৃত শিক্ষার্থীদের ফল প্রকাশ হবে ৪ জুলাই। একই দিন পছন্দক্রম অনুযায়ী প্রথম দফায় নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের মাইগ্রেশনের ফলও প্রকাশ করা হবে।

দ্বিতীয় ধাপে ভর্তির জন্য নির্বাচিত শিক্ষার্থী ভর্তি নিশ্চয়ন শুরু হবে ৫ জুলাই থেকে। যা চলবে ৮ জুলাই পর্যন্ত।

একাদশ শ্রেণির ভর্তি সংক্রান্ত শিডিউলে বলা হয়েছে, একাদশ শ্রেণিতে তৃতীয় ধাপে ভর্তি আবেদন শুরু হবে ৯ জুলাই থেকে। চলবে ১০ জুলাই পর্যন্ত।

দ্বিতীয় ধাপের মাইগ্রেশন এবং তৃতীয় ধাপের ফল ১২ জুলাই প্রকাশিত হবে। তৃতীয় ধাপের ভর্তি নিশ্চয়ন করতে হবে ১৩ থেকে ১৪ জুলাইয়ের মধ্যে।

সব ধাপে নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের ভর্তি শুরু হবে ১৫ জুলাই থেকে। ভর্তি কার্যক্রম চলবে ১০ দিন। অর্থাৎ ২৫ জুলাই একাদশ শ্রেণির ভর্তি শেষ হবে। আর একাদশ শ্রেণির ক্লাস শুরু হবে ৩০ জুলাই থেকে।


আরও খবর



দেবের সঙ্গে বিয়ে ও সন্তান প্রসঙ্গে মুখ খুললেন রুক্মিণী

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ |

Image



বিডি টু ডে বিনোদন ডেস্ক:


টলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা জিৎ-এর হাত ধরে ‘বুমেরাং’ হয়ে সামনে আসছেন অভিনেত্রী রুক্মিণী মৈত্র। সিনেমাটিতে রোবট হয়ে ধরা দেবেন ‘নিশা’ রুক্মিণী। 


সিনেমা মুক্তির আগে ‘বুমেরাং’-এর নিয়ে বিভিন্ন কথা বলছেন রুক্মিণী মৈত্র। একইসঙ্গে কথা বলেছেন নিজের বিয়ে নিয়েও। 



এদিকে কিছুদিন আগেই গুগল সার্চ করে দেব অনুরাগীরা চমকে যান। তাঁরা দেখেন, সেখানে লেখা দেব নাকি বিবাহিত! ২০২১-এর ৬ মে নাকি তিনি রুক্মিণীর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন। এমনকি সেখানে লেখা ছিল, তাঁদের নাকি একটি সন্তানও রয়েছে। এবার বিয়ে নিয়ে নিজেই মুখ খুলেছেন রুক্মিণী।



বিয়ের খবরে অবাক রুক্মিণী সম্প্রতি ভারতীয় গণমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিনকে বলেন, ‘ওহ গড! এটা যে কোথা থেকে আসছে! গুগলেও পৌঁছে গেল। শুধু তাই নয়। সেখানে একটা বাচ্চার কথাও রয়েছে। যার কথা বলা হয়েছে, সেই আমাইরা আমার ভাইঝি। যেহেতু আমাইরার সঙ্গে আমার এত ছবি রয়েছে। ওরা ওকে আমার বাচ্চা বানিয়ে দিয়েছে।’


তবে বাস্তবে অনুষ্ঠান করে রুক্মিণী বিয়েটা কবে করবেন? এ বিষয়েও মুখ খুলেছেন অভিনেত্রী। রুক্মিণীর কথায়, ‘মিডিয়া যেদিন অনুমান করা বন্ধ করবে, আমি সেদিন বিয়েটা করে নেব। আমার মাও কিন্তু বিয়ের কথা জিজ্ঞাসা করেন না। তাহলে আপনারা কেন জিজ্ঞাসা করছো! 


যেদিন মনে হবে, আমি বিয়ের জন্য তৈরি, সেদিন বিয়েটা করে নেব। আমি বিয়েতে বিশ্বাসী, আর বিয়ে লুকিয়ে রাখতেও চাই না। এখন এত ব্যস্ততা রয়েছে, তাই বিয়ের প্ল্যান করা সম্ভব নয়। 


তবে আমার মনে হয় প্রতিশ্রুতি জরুরি। আজকাল দেখি বহু বিয়েই টিকে আছে, তবে সেই সম্পর্কে কোনো প্রতিশ্রুতি নেই। তাই আমাদের প্রতিশ্রুতিটাই আগে থাকুক। বাকিটা ক্রমশ প্রকাশ্য।’


রুক্মিণীর কথায়, অভিনেত্রী হওয়াটাই তাঁর জীবনের সব থেকে বড় বুমেরাং। ভেবেছিলাম কোনো দিনই অভিনেত্রী হবো না, তবে সেটাই ঘটেছে।


এদিকে সম্প্রতি লোকসভা নির্বাচনে আরও একবার ঘাটাল থেকে সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন দেব। ভোটের আগে জোর কদমে প্রচার চালিয়েছেন অভিনেতা। তবে দেবের কোনো প্রচারেই রুক্মিণীকে দেখা যায়নি। এ প্রসঙ্গে রুক্মিণী বলেন, ‘এটা এক্কেবারেই ওর আলাদা কর্মক্ষেত্র। ওর একার জার্নি। ওই বিষয়টা ও একাই খুব পরিণত হাতে সামলাচ্ছে। 


প্রচারে ওর সঙ্গে না থাকলেও আমি ওর পাশে সবসময় আছি।’



আরও খবর



চীন সফরে যাচ্ছেন পুতিন

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ |

Image

চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এ সপ্তাহে চীন সফরে যাবেন।

মন্ত্রণালয়টি বলছে, চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং -এর আমন্ত্রণে দু দিনের সফরে পুতিন বৃহস্পতিবার বেইজিংয়ে পৌঁছাবেন। মার্চে পুতিন পঞ্চম মেয়াদের জন্য তার পদে পুননির্বাচিত হবার পর এটি হবে তার প্রথম বিদেশ সফর এবং গত ছয় মাসে চীনে এটি হবে তার দ্বিতীয় সফর।

প্রেসিডেন্ট শিবেল্ট এন্ড রোড উদ্যোগের একটি ফোরামে যোগ দিতে পুতিন অক্টোবর মাসে বেইজিংয়ে গিয়েছিলেন। অবশিষ্ট বিশ্বের সাথে চীনের পরিবহন সংযোগকে উন্নত করে বিনিয়োগ ও বাণিজ্য বৃদ্ধির লক্ষ্যে ২০১৩ সালে চীন এই উদ্যোগ গ্রহণ করে।

২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে রুশ সৈন্যরা ইউক্রেনে আক্রমণ চালানোর কয়েক সপ্তাহ আগে, শি ও পুতিন একটি প্রত্যয় পত্রে স্বাক্ষর করেন যেখানে ঘোষণা করা হয় যে- তাদের দ্বিপক্ষীয় অংশীদারিত্বের কোন সীমা নেই।

সেই থেকে বেইজিং মস্কোর সবচাইতে বিশ্বাসযোগ্য অর্থনৈতিক ও কূটনৈতিক অংশীদার হয়ে উঠেছে যখন রাশিয়ার আত্রমণের প্রতিক্রিয়ায় পাশ্চাত্য দেশগুলো দেশটির উপর কঠোর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।


আরও খবর



স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ করলো ৫০ জলদস্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ |

Image

বিডি টু ডে  ডেস্ক:


স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার উপকূলীয় এলাকার ১২ বাহিনীর ৫০ জলদস্যু। এর মধ্যে একজন নারীও রয়েছেন।


বৃহস্পতিবার (৩০ মে) দুপুর ১টায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে পতেঙ্গায় র‌্যাব-৭ এর এলিট হলে আত্মসমর্পণ করেন তারা। এ ৫০ জনের মধ্যে তিনজন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত জলদস্যু। 


জলদস্যুদের পক্ষে ১১ জন তাদের অস্ত্র, গুলি ও অন্যান্য সরঞ্জামাদি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হাতে জমা দেন।


এ প্রসঙ্গে র‌্যাব বলছে, চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী এবং কক্সবাজার জেলার চকরিয়া, পেকুয়া, মহেশখালী ও কুতুবদিয়ার হাজার হাজার উপকূলবর্তী মানুষ দীর্ঘদিন ধরে কতিপয় চিহ্নিত জলদস্যু ও অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী গ্রুপের কাছে জিম্মি হয়ে রয়েছে। 


এসব মানুষের মধ্যে অনেকে জলদস্যুদের দ্বারা অত্যাচারিত হয়ে দুঃসহ জীবনযাপন করছেন। আর এলাকার স্থানীয় অস্ত্র কারিগররা প্রতিনিয়ত জলদস্যুদের দেশীয় অবৈধ অস্ত্রের বড় একটি অংশ সরবরাহ করে যাচ্ছে।



চট্টগ্রাম-কক্সবাজারের বিস্তীর্ণ উপকূলীয় এলাকায় জলদস্যুদের দমন, দেশীয় অস্ত্র তৈরির কারিগর ও অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে র‌্যাব প্রতিনিয়ত অভিযান পরিচালনা করে আসছে। 


আজকের এ আত্মসমর্পণের মধ্যদিয়ে চট্টগ্রাম-কক্সবাজারের উপকূলীয় অঞ্চল জলদস্যুমুক্ত হবার পথে অনেক দূর এগিয়ে যাবে বলে আশা করা যায়। ফলশ্রুতিতে এ অঞ্চলের সাগরকেন্দ্রিক অর্থনৈতিক কার্যক্রম আগামীর দিনগুলোতে আরও বেগবান হবে।



আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ছাড়াও র‌্যাবের মহাপরিচালক এম খুরশীদ হোসেন, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) নুরে আলম মিনা, র‌্যাব-৭ এর অধিনায়ক লেফট্যানেন্ট কর্নেল মো. মাহবুব আলম, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার কৃষ্ণপদ রায়, সংসদ সদস্য আবদুল লতিফ, কোস্টগার্ডের প্রতিনিধিসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিতি আছেন।



র‌্যাব মহাপরিচালক বলেন, ‘বাংলাদেশের সীমানার একটি বিশাল অংশ জুড়ে রয়েছে বঙ্গোপসাগর। এই সাগরকে কেন্দ্র করেই আবর্তিত হয় উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষের জীবন ও জীবিকা। 


বিশাল এই উপকূলীয় জনগোষ্ঠীর উপার্জনের অন্যতম আশ্রয়স্থলকে কণ্টকাকীর্ণ করে রাখে কিছু অস্ত্রধারী বিপথগামী জলদস্যু। চট্টগ্রাম-কক্সবাজার অঞ্চলে র‌্যাবের কঠোর পদক্ষেপের ফলে ২০১৮ এবং ২০২০ সালে র‌্যাব-৭ এর তত্ত্বাবধানে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের উপকূলীয় অঞ্চল হতে সর্বমোট ৭৭ জন জলদস্যু আত্মসমর্পণ করে।’


তিনি বলেন ‘এরআগে র‌্যাব-৭, র‌্যাব-৬ এবং র‌্যাব-৮ এর তত্ত্বাবধানে বাঁশখালী, মহেশখালী, কুতুবদিয়া এবং সুন্দরবন উপকূলীয় অঞ্চল হতে জলদস্যুদের আত্মসমর্পণ ও পুনর্বাসন প্রক্রিয়া অবলোকন করার ফলেও এসব জলদস্যুরা আত্মসমর্পণে অনুপ্রাণিত বোধ করে। 


প্রধানমন্ত্রীর সদয় সম্মতিতে এবং মাননীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী মহোদয়ের নির্দেশনায় র‌্যাবের পক্ষ থেকে জলদস্যুদের আত্মসমর্পণ করানোর বিষয়টি এক যুগান্তকারী ঘটনা। এতে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার উপকূলে জলদস্যু বাহিনীর অপতৎপরতা বহুলাংশে হ্রাস পেয়েছে।’


জলদস্যুদের আত্মসমর্পণের মধ্যস্থতা করেন চট্টগ্রামের সাংবাদিক মীর মোহাম্মদ আকরাম হোসাইন। তিনি বলেন, ‘আজ চট্টগ্রামের উপকূলীয় অঞ্চলের চিহ্নিত অস্ত্রের কারিগর ও কুখ্যাত বেশ কয়েকটি জলদস্যু বাহিনীর সর্দার ও সদস্যরা সদলবলে আত্মসমর্পণ করেছে।’


তিনি জানান, ২০১৮ সালের ২০ অক্টোবর মহেশখালী আর্দশ উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার অঞ্চলের ৪৩ জন জলদস্যু আত্মসমর্পণ করে। 


২০১৯ সালে মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে ৯৬ জন, ২০২০ সালে চট্টগ্রামের বাঁশখালী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বিভিন্ন দুর্ধর্ষ বাহিনীর ৩৪ জন জলদস্যু অস্ত্র গুলি জমা দিয়ে আত্মসমর্পণ করে।


আরও খবর



টপ অর্ডার ব্যাটিং নিয়ে চিন্তিত শান্ত

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ |

Image

বিশ্বকাপ শুরু হয়েছে প্রায় সপ্তাহ গড়িয়েছে। তবে এখনও মাঠে নামা হয়নি বাংলাদেশের। শনিবার (৮ জুন) ভোরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মাঠে নামবে শান্তর দল। বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে মাঠে নামার আগে প্রতিপক্ষকে নিয়ে ভাবছেন না টাইগার অধিয়ানায়ক। বরং টপ অর্ডার নিয়ে চিন্তিত শান্ত।

লঙ্কানদের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে প্রতিপক্ষকে নিয়ে কথা বলেছেন শান্ত। সেখানে তিনি বলেন, সবসময় তো সমর্থকদের প্রত্যাশা থাকে এবং সবাই চায়, আমরা ভালো ক্রিকেট খেলি। সেই জায়গাটা থাকবে এবং আমরাও চাই আমরা কত ভালো ক্রিকেট খেলে বাংলাদেশের মানুষদের একটা ভালো ম্যাচ উপহার দিতে পারি। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ হলো আমরা কিভাবে ওই ম্যাচটাতে আমাদের পরিকল্পনা ব্যবহার করছি এবং আমাদের যে শক্তি আছে সেটা অনুযায়ী খেলছি কি না।

শান্ত বলেছেন তিনি শুধু নিজের দলে নিয়ে ভাবছেন। কীভাবে দলকে পরিকল্পনা মোতাবেক খেলানো যায় সেটাই শান্তর পরিকল্পনা। টাইগার অধিনায়ক বলেন, তাদের ম্যাচটা ভালো যায়নি কিন্তু তারা কী অনুভব করছে সেটা নিয়ে ভাবছি না।

লঙ্কানদের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে বাংলাদেশের বড় চিন্তার নাম টপ অর্ডার। এই টপ অর্ডার রান পাচ্ছে না। এমনকি অধিনায়ক শান্তও নেই ছন্দে। অভিজ্ঞ রিয়াদ দলকে টানছেন। তবে বিশ্বকাপে ঘুরে দাঁড়াবে বাংলাদেশ এমন আশা শান্তর।

বাংলাদেশের অধিনায়ক বলেন, সাম্প্রতি খুবই সত্য টপ অর্ডাররা ভালো করেনি বা করছে না। কিন্তু কালকের (শনিবার) দিনটা পুরোপুরি নতুন দিন এবং আপনি যেটা বললেন অনুশীলনে যার যে জায়গায় সমস্যা আছে সবাই শতভাগ দিচ্ছে। আগের জায়গা থেকে সবাই ভালো অবস্থায় আছে।

এদিকে দলের অনুশীলনে দেখে আশাবাদী শান্ত। তিনি বলেন, অবশ্যই আগের জায়গা থেকে সবাই ভালো অবস্থায় আছে। অনুশীলন দেখে বা নেটে ব্যাটিং করেছি সবাই তাতে মনে হয়েছে আগের থেকে ভালো অবস্থায় আছে। আগে কি হয়েছে এটা চিন্তা না করে কালকে একটা নতুন দিন। কালকে আমরা কেউই জানি না কে ভালো খেলবে, কে খারাপ খেলবে।


আরও খবর



নওগাঁয় ছেলের লাঠির আঘাতে নেশাগ্রস্ত বাবার মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ |

Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, সিনিয়র রিপোর্টার :

নওগাঁয় ছেলের লাঠির আঘাতে ৭০ বছরের বৃদ্ধ বাবা গদেন কুজুর এর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার সকাল ৯ টারদিকে নিজ বাড়িতে তার মৃত্যু হয়। এর আগে মঙ্গলবার নওগাঁর নিয়ামতপুর উপজেলার সাদাপুর জিগাবাড়ি গ্রামে ছেলে সজিব কুজুর (৩০) তার বৃদ্ধ বাবার মাথায় লাঠি দিয়ে আঘাত করে। নিহত গদেন কুজুর ঐ গ্রামের মৃত ছবি কুজুরের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গদেন কুজুর নেশাগ্রস্ত ছিল। দীর্ঘ দিন অসুস্থ থাকার পরও গতকাল রাতে নেশা করে বাড়ি ফেরায় ছোট ছেলে সজিব কুজুর বাবার উপর চড়াও হয়। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে বাড়িতে পড়ে থাকা লাঠি দিয়ে মাথায় আঘাত করে ছেলে। লাঠির আঘাতে রক্ত বন্ধ না হওয়ায় রাতেই স্থানীয় একটি ক্লিনিকে নেওয়া হয় তাকে। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে বাড়িতে নেওয়া হয়। আজ সকালে তার মৃত্যু হয়।

নিয়ামতপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মাইদুল ইসলাম বলেন, নিহত গদেন কুজুরের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়না তদন্তের পর মরদেহ পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হবে। এবং নিহতের ছেলে সজিব কুজুরকে হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।


আরও খবর