Logo
শিরোনাম

এন্টিবায়োটিক কিনলে ফুল ডোজ কিনবে, খুচরা বিক্রি করা যাবেনা

প্রকাশিত:Sunday ২৭ November ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল ঃ


এন্টিবায়োটিক রেজিস্টেন্সের জন্য খুচরা বিক্রি একটা বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়ায় জানিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা এবিএম খুরশিদ আলম বলেছেন, জ্বর হলেই সাধারণ ওষুধের সাথে দেখা যায় এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট ২ -৩ টা নিয়ে যাচ্ছে। এটা সাধারণ মানুষের মাঝে এন্টিবায়োটিক রেজিস্টেন্সের জন্য বড় কারন। এজন্য নিয়ম করা প্রয়োজন কেউ এন্টিবায়োটিক কিনলে ফুল ডোজ কিনতে হবে, নাহয় কিনবেনা।

রোববার (২৭ নভেম্বর) রাজধানীর গুলশানের লেকশোর হোটেলে আয়োজিত অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল রেজিস্ট্যান্স সমস্যা প্রতিরোধ গড় সবাই মিলে শীর্ষক এক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় তিনি মাইক্রোবিয়াল সমস্যাসহ দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার নানা সমস্যার কথা তুলে ধরেন।

 অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশিদ আলম জানান, রোগীদের পকেটের খরচ বেড়ে যাচ্ছে। এর সাথে যেই স্ট্যান্ডার্ড মেনে হাসপাতালে রোগীদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে তা ঠিক হচ্ছে কিনা সেটাও একটা বড় ইস্যু। আমরা যদি আন্তর্জাতিক মানের সাথে তুলনা করি প্রধানত আমাদের অপারেশন থিয়েটার কিংবা বেড থেকে সংক্রমন হওয়ার ই কথা না, এটি আন্তর্জাতিক ভাবে গ্রহনযোগ্য নয়। কিন্তু সেটা আমাদের এখানে হচ্ছে। আমাদের লোকজন বেশি আমাদের সুযোগ-সুবিধা কম। প্রতিদিন আমাদের অপারেশন থিয়েটার গুলো থেকে জীবানুর সংক্রমণ ছড়াচ্ছে। আমরা থিয়েটারের নিয়ম-কানুন আমরা মানছিনা। আমাদের ওয়ার্ড বয়, সিস্টার, লোকজন, রোগী এমনকি চিকিৎসকরাও মানছেন না। লোকজন সরাসরি ডুকে যাচ্ছে গাউন পরছেনা, বাহিরের কাপড় নিয়ে ডুকে যায়। এই বিষয়গুলো সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখা উচিৎ।  

তিনি বলেন, এছাড়া রোগীদের চিকিৎসায় ব্যবহারিত যন্ত্রপাতি সঠিকভাবে ব্যবহার করা হচ্ছেনা। অপারেশনের যন্ত্রপাতি সঠিকভাবে ব্জীবানু মুক্ত না করে বার বার ব্যবহার করা হচ্ছে এতে সংক্রমন হয়ে থাকে। রোগীদের গ্যাস নয়ার পাইপ থেকে শুরু করে বিভিন্ন সেবা একই জিনিস থেকে ব্যবহার করছে অনেকে। এতে এক জনের মুখের জীবানু ছড়াচ্ছে আরেকজনের কাছে। অনেক জীবানু আছে যেটা গরম পান দিয়ে বয়েল করার পরও মারা যায়না। এ জীবানু ও যাতে না থাকে সেটার জন্য ও ব্যবস্থা নিতে হবে। 

ভর্তি রোগীদের মাঝে সংক্রমণ রোধে প্রতিকার তুলে ধরে তিনি বলেন,  যখন কোনো একটি মেডিকেলে কোনো সংক্রমণ হচ্ছে তখন সেখান থেকে স্যাম্পল নিলাম, যেমন, হাসপাতালের বেড থেকে, অপারেশন থিয়েটার থেকে, সেখান কার টয়লেট থেকে এবং প্রয়োজনীয় জায়গা থেকে স্যাম্পল নিয়ে আমাদের বের করা উচিৎ কোন ধরনের বিষয়গুলো সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ছড়াচ্ছে। তখন  আমরা বুঝতে পারবো এই হাসপাতালে রোগী আসলে আমরা প্রথমে কোন এন্টিবায়োটিকটা দিবো। এটি সব হাসপাতালের জন্য এক ধরনের হবেনা। এটি হবে এক হাসপাতালের জন্য এক ধরনের পলিসি। 

আমাদের হাসপাতালের বর্জ্য ব্যবস্থাপনাও একটা বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন,  আমরা ময়লা পেলার জন্য আলাদা আলাদা বিন করে দিয়েছি, যে এখানে নরমাল বর্জ্য এখানে সংক্রামক ধরনের ময়লা ফেলা হবে। কিন্তু দেখা যায় সব হাসপাতালের এই বিন গুলোর ময়লাকে নিয়ে সব একই জায়গায় পেলে দেয়া হয়। এতে সেখান থেকে পরিবেশ, মাটি, পানি এবং শস্য খেতেও জায়গায় জীবানু সংক্রমিত হচ্ছে। এছাড়া হাসপাতালে ভর্তি রোগীরা একই বিচানায় ৩ জন ও থাকছে। এই রোগীরা যে টয়লেট ব্যবহার করছে কিংবা যেখানে থাকছে সেখান থেকে জীবানুর সংক্রমিত হচ্ছে কিনা সেটাও একটা বড় বিষয়। এই বিষয়গুলো আমাদের চিন্তা করতে হবে। 

এন্টিবায়োটিক ব্যবহারে আইন প্রয়োজন, সাথে আইন প্রয়োগকারী ও প্রয়োজন।  এছাড়া দেখা যায় ফার্মাসিস্ট কোম্পানিরা ইনসেনটিভ তো ডাক্তারকে দিচ্ছে সাথে কোয়াকদের ও দেয়া হচ্ছে। আমরা ডাক্তারকে বন্ধ করলেও কোয়াককে তো আইনে আনা যাবেনা। ওজন্য শুধু আইন দিয়েও ব্যবস্থা হবেনা।


আরও খবর



মোরেলগঞ্জে মৎস্য ঘের দখলে মরিয়া একটি মহল

প্রকাশিত:Tuesday ৩১ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

এম.পলাশ শরীফ, বাগেরহাট :

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে জিউধরায় একটি মৎস্য ঘের দখলের পায়তারা জোরপূর্বক মাটি কেটে ভেরিবাঁধ দেওয়ার ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে ভূক্তভোগী কৃষক পরিবার।

 অভিযোগে জানাগেছে, মঙ্গলবার সকালে জিউধরা ইউনিয়নের ঠাকুরান তলা গ্রামে কৃষক জাকির হোসেন খানের পৈত্রিক সম্পত্তি দুই একর ৬৯ শতক জমির মৎস্য ঘেরের মধ্যে একটি অংশে জোরপূর্বক মাটি কেটে ভেরিবাঁধ দিয়ে ঘেরটি দখলে নেওয়ার জন্য হামলা করে একই গ্রামের শাহাদৎ শরীফের নের্তৃত্বে মনির শরীফসহ ৮/১ জনের একটি সংর্ঘবদ্ধ হয়ে মাটি কাটে ভেরিবাঁধ দেয়। এ সময় তাদের বাঁধা দিলে কৃষক জাকিরকে জমি থেকে তাড়িয়ে দেয়। এ ঘটনার পরপরই ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক জাকির হোসেন খান বাদি হয়ে শাহাদৎ শরীফসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। কৃষক জাকির খান ও তার স্ত্রী পলি বেগম বলেন, জমিতে হামলাকারিরা এলাকার প্রভাবশালী। ৩০/৪০ বছর ধরে পৈত্রিক জমিতে মৎস্য ঘের করে আসছি। হঠাৎ করে লোকজন নিয়ে ঘেরটি দখলের চেষ্টা করেছে। আমরা ন্যায় বিচার দাবি করছি প্রশাসনের প্রতি।

 এ বিষয়ে থানার ডিউটিরত অফিসার এএসআই মিঠুন বলেন, অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। পরিস্থিতি শান্ত করে মাটি কাটা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

এ সর্ম্পকে মো. শাহাদৎ শরীফ বলেন, আমাদের জমির মাটি আমরা কেটেছি। জাকির খান জাল দলিল করেছে। সে বিষয়ে আদালতে মামলাও রয়েছে। #


আরও খবর



ধামরাইয়ে ৮২তম বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরষ্কার বিতরণ

প্রকাশিত:Sunday ০৮ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

মাহবুবুল আলম রিপন,স্টাফ রিপোর্টার :

ধামরাইয়ে কুশুরা আব্বাস আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮২তম বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রবিবার ০৮ জানুয়ারী ঢাকার ধামরাইয়ে কুশুরা আব্বাস আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ প্রাঙ্গনে ৮২তম বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে কুশুরা আব্বাস আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মোঃ এনামুল হক আইয়ুব এর সভাপতিত্বে সাবেক রাষ্ট্র দূত ও সচিব বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ সোরহাব হোসেন এর উদ্বোধনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব বেনজির আহমদ।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ধামরাই উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ সিরাজ উদ্দিন সিরাজ, কুশুরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কুশুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, কৃষিবিদ মোঃ নূরউজ্জামান, কুশুরা আব্বাস আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সহ বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।


আরও খবর



নওগাঁয় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় স্কুল ছাত্র নিহত-মা ও ছোট বোন আহত

প্রকাশিত:Friday ০৩ February ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :

নওগাঁয় মা ও বোনকে সাথে নিয়ে হিন্দুবাঘা মেলায় যাওয়ার পথে ১০ম শ্রেণীতে পড়ুয়া বিজয় সরকার (১৬) নামে এক স্কুল ছাত্র নিহত। এদূর্ঘটনায় আহত হয়েছেন নিহত ছাত্রের মা ও ছোট বোন। মর্মান্তিক এ সড়ক দূর্ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার দুপুরে নওগাঁ-রাজশাহী মহাসড়কের মহাদেবপুর উপজেলার হাট চকগৌরী নামক স্থানে। 

নিহত স্কুল ছাত্র বিজয় নওগাঁ পৌর শহরের পুরাতন রেজেস্ট্রি অফিস পাড়ার সুশীল সরকার ওরফে বাদলের ছেলে এবং নওগাঁ সরকারি জিলা স্কুলের ১০ম শ্রেণিতে পড়ুয়া ছাত্র।

নিহতের স্বজন ও থানা-পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার দুপুরে স্কুল ছাত্র বিজয় তার মা বর্ষা রাণী ও ছোট বোনকে সাথে নিয়ে একটি অটোরিকশা যোগে নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার ভীমপুর এলাকার হিন্দু ধর্মীয় ঐতিহ্যবাহী হিন্দুবাঘা মেলায় যাচ্ছিলেন। যাওয়ার পথে নওগাঁ-রাজশাহী মহাসড়কের হাট চকগৌরী এলাকায় পৌঁছালে এসময় পেছন থেকে আসা একটি বেপরোয়া গতির মোটরসাইকেল তাদের বহণকারী অটোরিকশাকে ধাক্কা দেয়। এতে অটোরিকশাটি সড়কের উপর উল্টে স্কুল ছাত্র বিজয়, তার মা বর্ষা রাণী ও ছোট বোন শ্রদ্ধা সরকার আহত হোন। স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে নওগাঁ সদর হাসপাতালে নিলে দায়িত্বরত চিকিৎসক বিজয় কে মৃত বলে ঘোষণা করেন। আহত মা ও মেয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

দূর্ঘটনায় এক স্কুল ছাত্রের মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করে মহাদেবপুর থানার ওসি  মোজাফফর হোসেন জানান, সড়ক দূর্ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছালেও পুলিশ পৌছার পূর্বেই দূর্ঘটনাস্থল থেকে মোটরসাইকেল ও অটোভ্যান নিয়ে পালিয়ে যান চালকরা। এছাড়া নিহতের পরিবার বা স্বজনরা কেউ কোন অভিযোগ করেন নি। যদি অভিযোগ পাওয়া যায় আইনানুগ পদক্ষেপ হবে বলেও জানান ওসি।


আরও খবর



ধাপে ধাপে বাড়বে বিদ্যুতের দাম !

প্রকাশিত:Monday ৩০ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল :একবারে দাম না বাড়িয়ে ধাপে ধাপে বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির চিন্তা করছে সরকার। এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন একবারেই গ্রাহকপর্যায়ে দাম ১৫ ভাগ বাড়ানোর চিন্তা করছিল। কিন্তু বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী আদেশে মূল্যবৃদ্ধির আগে মানুষের ওপর এর কতটা চাপ পড়বে সেই বিবেচনা করার কথা বলা হয়।

মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলেন, বিদ্যুতের দাম একবারে ১৫ থেকে ২০ ভাগ বাড়লে বাজারে পণ্যের দাম অনেকটা বেড়ে যায়। এজন্য সরকারের যদি কিছুটা লোকসানও হয় তাহলেও ধাপে ধাপে দাম বাড়ালে মানুষের ওপর পণ্যের দাম বৃদ্ধির প্রভাব খুব একটা পড়ে না ।

বিদ্যুৎ বিভাগ বলছে, আগামী দুই মাসে আবার পাঁচ ভাগ হারে গ্রাহকপর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি করা হবে। গ্রাহকপর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির পরে বিষয়টি সমন্বয় করে দেখা হবে। যদি মনে করা হয় পাইকারি বিদ্যুতের দাম বাড়ানো প্রয়োজন, তাহলেই তা বাড়ানো হবে। যদিও পিডিবি গ্যাসের দাম বৃদ্ধির ফলে সাড়ে সাত হাজার কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হবে উল্লেখ করে। এরই মধ্যেই ইউনিটপ্রতি ৫০ পয়সা করে পাইকারি বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে। তবে এ বিষয়ে বিদ্যুৎ বিভাগ এখনই কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি।

বিদ্যুৎ বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, পিডিবি হয়তো শুধু নিজেদের কথা চিন্তা করছে। কিন্তু সরকার সামগ্রিক ভর্তুকির কথা চিন্তা করছে।

গত বছর বিদ্যুৎ সরবরাহ দিতে পিডিবিকে ২৯ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিতে হয়েছে। চলতি বছর এর পরিমাণ ৪০ হাজার কোটি টাকা পিডিবির জন্য ভর্তুকি প্রয়োজন হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এত বেশি পরিমাণ ভর্তুকি দেওয়া সরকারের একার পক্ষে সম্ভব না হওয়ায় সরকার বিদ্যুৎ এবং জ্বালানির মূল্য সমন্বয় করছে।

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, আমরা প্রতি মাসে অল্প অল্প করে বিদ্যুতের দাম বাড়াব। এতে মানুষের ওপর চাপ কম পড়বে। সরকার ১২ জানুয়ারি নির্বাহী আদেশে গ্রাহকপর্যায়ে বিদ্যুতের দাম ৫ ভাগ দাম বাড়ায়। এর আগে ১৯ ভাগ পাইকারি বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির ঘোষণা দেয় বিইআরসি।

এদিকে, গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির ফলে ইনপুট খরচ বেড়ে যাওয়ায় চলতি অর্থবছরে রাষ্ট্রায়ত্ত বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) আর্থিক ক্ষতি ৫৪ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। ২০২১-২২ অর্থবছরে সংস্থাটির লোকসান ছিল ২৯ হাজার ৯১৫ কোটি টাকা।

পিডিবির একজন শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, সম্প্রতি গ্যাসের দাম বৃদ্ধির পর গ্যাস বিল পরিশোধ করতে আমাদের ১০ হাজার কোটি টাকা অতিরিক্ত গুনতে হবে।

সরকার গত ১৮ জানুয়ারি সরকারি, বেসরকারি ও ক্যাপটিভ পাওয়ার প্লান্ট এবং শিল্প ও বাণিজ্যিক ব্যবহারকারীদের জন্য খুচরা গ্যাসের দাম বাড়িয়েছে। নতুন এই দাম ১ ফেব্রুয়ারি থেকে কার্যকর হবে। তবে বাসাবাড়ি, সিএনজিচালিত মোটরযান ও চা-বাগানের ব্যবহারের জন্য এই দাম অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে।

পিডিবির সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী, ২০২১-২২ অর্থবছরে তাদের লোকসান ২৯ হাজার ৯১৫ কোটি এবং ২০২২-২৩ অর্থবছরে ৪৮ হাজার কোটি টাকা অতিক্রম করার কথা ছিল। কিন্তু পাইকারি বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির পর লোকসান প্রায় ৪ হাজার টাকা কমে ৪৪ হাজার কোটি টাকায় নেমে আসে। এখন ফেব্রুয়ারি থেকে গ্যাসের দাম বৃদ্ধির কারণে এখন লোকসান ১০ হাজার কোটি টাকা বেড়ে যাবে।


আরও খবর

সুখবর নেই বাজারে

Saturday ০৪ February ২০২৩




বাসায় আটকে রেখে যুবতীকে ধর্ষণ, অভিযুক্তকে আটক করেছে র‌্যাব

প্রকাশিত:Tuesday ১৭ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :

যুবতীকে ভাড়া বাসায় আটকে রেখে জোর পূর্বক অনৈতিক কাজে বাধ্য করা (ধর্ষণের) ঘটনায় র‌্যাবের অভিযানে (ভিকটিম) যুবতীকে উদ্ধার সহ অভিযুক্ত যুবক আটক। 

সত্যতা নিশ্চিত করে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩,জয়পুরহাট কাম্প থেকে জানানো হয়, ভিকটিম যুবতী (১৯) কে হিরো (৩৪) নামের এক অভিযুক্ত যুবক একটি ভাড়া বাড়িতে আটকে রেখে ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর পূর্বক অনৈতিক কাজ (ধর্ষণ) করছেন বলে ভুক্তভোগী যুবতীর পরিবার থেকে র‌্যাব কাম্পে অভিযোগ করা হলে অভিযোগের ভিত্তিতে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট ক্যাম্পের একটি চৌকস আভিযানিক দল কোম্পানী অধিনায়ক মেজর মোঃ মোস্তফা জামান এর নেতৃত্বে সোমবার দিনগত রাত সারে ৮ টারদিকে জয়পুরহাট জেলা সদর উপজেলার বিশ্বাসপাড়া এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ভিকটিম (যুবতী) কে উদ্ধার পূর্বক অভিযুক্ত ধর্ষক হিরো নামে এক যুবক কে আটক করা হয়। আটককৃত যুবক হিরো জয়পুরহাট জেলার পাঁচবিবি উপজেলার পাঁচবিবি গ্রামের ফজল করিম বাবুয়া'র ছেলে।

র‌্যাব আরো জানান, ভিকটিমের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে প্রথমে অবস্থান সনাক্ত করণের মাধ্যমে সোমবার দিনগত রাতে আভিযান পরিচালনা করে ভিকটিমকে উদ্ধার পূর্বক অভিযুক্ত যুবক হিরোকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় র‌্যাব।

এঘটনায় জয়পুরহাট সদর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন র‌্যাব।


আরও খবর