Logo
শিরোনাম

ফুলবাড়িতে ৩৩ কেজি গাঁজা সহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক

প্রকাশিত:Friday ০২ December 2০২2 | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

উত্তম কুমার মোহন্ত, ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) 

কুমিগ্রাম জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশ ক্রমে চলমান মাদক বিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে ফুলবাড়ী থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৩৩ কেজি গাঁজাসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে।

০২(ডিসেম্বর)শুক্রবার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ফজলুর রহমানের নেতৃত্বে মাদক উদ্ধার কারী একটি অভিযানিক টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে,রাত তিন টার দিকে ফুলবাড়ী সদর ইউনিয়নের নাওডাঙ্গা পুলের পার বাজারস্থ পাকা রাস্তার উপর একটি কাভার্ড ভ্যানে তল্লাশি চালিয়ে বিশেষ কায়দায় বহন করা ৩৩ কেজি গাঁজা কাভার্ড ভ্যান ও নাওডাঙ্গা ইউনিয়নের বালাতারি গ্রামের মোঃসিয়াম(২৩)নামের এক মাদক কারবারিকে একটি পালসার মটরসাইকেল সহ আটক করে।

এব্যাপারে ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি ফজলুর রহমান জানান,গাঁজা বহনকারী একটি কাভার্ড ভ্যান একটি পালসার মটরসাইকেল শব্দপূর্বক ধৃত আসামিকে নিয়মিত মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা রুজু করে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।


আরও খবর



২০ বছর পর খুলনা যুবলীগের সম্মেলন

প্রকাশিত:Monday ২৩ January 20২৩ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

বিশ বছর পর ২৪ শে জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হচ্ছে খুলনা জেলা ও মহানগর যুবলীগের সম্মেলন। এর আগে ২০০৩ সালে জেলা ও মহানগর যুবলীগের সম্মেলন হয়েছিল।

মঙ্গলবার শিববাড়ী মোড়ে অনুষ্ঠিত হবে জেলা ও মহানগর যুবলীগের সম্মেলন। সম্মেলন ঘিরে সংগঠনের স্থানীয় নেতারা প্রস্তুতি শেষ করেছে। পোস্টার ব্যানারে ছেয়ে গেছে খুলনা শহর। এই কাউন্সিলের পর মহানগর ও জেলায় নতুন নেতৃত্ব আসবে। ২০০৩ সাল থেকে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রয়েছেন কামরুজ্জামান জামাল এবং সাধারণ সম্পাদক আখতারুজ্জামান বাবু। মহানগরীর দায়িত্বে আছেন আনিসুর রহমান ও আলী আকবর টিপু। পরে ২০১৯ সালে মহানগর যুবলীগের কমিটি ভেঙে দিয়ে নতুন আহবায়ক কমিটি করা হয়।


আরও খবর



একাকিত্বে ইবাদতে নিমগ্ন মন

প্রকাশিত:Sunday ০৫ February ২০২৩ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

একাকিত্ব, নিঃসঙ্গতা মানুষের মধ্যে আত্মোপলব্ধি ও ইবাদতের আগ্রহ বাড়িয়ে দেয়। তবু মানুষের অসহায় উচ্চারণ : ‘কী ভয়ংকর এই একাকিত্ব! কী নির্মম এই বন্ধনহীনতা!’

জনমে মরণে মানুষ বড়ই একা ও অসহায়। কেউ একা হয়ে যান না এক দিনে বা হঠাৎ, বরং একাকিত্বের দিকে জীবন গড়ায় অবহেলা, অপমানে এবং আপনজনের অপছন্দের মাত্রা ছাড়ায় যখন। নানা দূরত্ব ও দ্বন্দ্বের কারণে তৈরি হয় ফাঁক-ফাঁকি, ফাটল ও ভাঙন। পরস্পরকে উজাড় করে দেওয়ার ইচ্ছাসত্ত্বেও দায়ী-দোষী কেউ না থাকলেও কিছু সম্পর্ক  কখনো থমকে দাঁড়ায়।

মানুষ তার আপনজনের সঙ্গে সবচেয়ে বেশি অভিমান-অভিযোগ করে। অথচ প্রিয় নবী (সা.)-এর দর্শন—এক মুসলমান অন্য মুসলমানের কাছে সুদৃঢ় প্রাসাদতুল্য, যার একাংশ অন্য অংশকে সুদৃঢ় করে। (মিশকাত)

ইসলাম নিঃসঙ্গতা পরিহার করে মানুষে মানুষে সব সময় সম্প্রীতির শিক্ষা দেয়। এমন বাস্তবতাকে পবিত্র কোরআনে ‘সিসা ঢালা প্রাচীরতুল্য’ বলা হয়েছে। সৃষ্টিগত কারণে সবাই অভিন্ন উৎসজাত মানুষ। মহান আল্লাহ বলেন, ‘হে মানবমণ্ডলী! তোমাদের প্রতিপালককে ভয় করো, যিনি তোমাদের একটি প্রাণসত্তা থেকে সৃষ্টি করেছেন এবং তার থেকেই তার জুটি সৃষ্টি করেছেন। আর তাদের উভয়ের থেকে অসংখ্য নর-নারীর বিস্তার ঘটিয়েছেন।’ (সুরা : নিসা, আয়াত : ০১)

প্রিয়নবী (সা.) বলেন, তুমি মুমিনদের পারস্পরিক করুণা প্রদর্শন, পারস্পরিক সহানুভূতি প্রদর্শনের দিক থেকে একই দেহের মতো দেখতে পাবে। যখন দেহের কোনো একটি অঙ্গ কষ্ট অনুভব করে, তখন গোটা দেহটই জ্বর-নিদ্রাহীনতা দ্বারা এর প্রতি সাড়া দিয়ে থাকে। (বুখারি)

তবু নিঃসঙ্গতা ও একাকিত্ব থেকে দূরে থাকতে ইসলামে বাস্তবসম্মত নির্দেশনা রয়েছে। যেমন—

আল্লাহর স্মরণ ও দোয়া

মনের প্রশান্তির জন্য মহান আল্লাহর স্মরণ প্রসঙ্গে পবিত্র কোরআনের অমীয় বাণী : ‘জেনে রেখো! আল্লাহর জিকর দ্বারা অন্তরে স্থিরতা ও শান্তি আসে।’ (সুরা : রাদ, আয়াত : ২৮)

প্রিয় নবী (সা.) যখন কোনো দুঃখ-কষ্ট বা হতাশাগ্রস্ত হতেন, তখন বলতেন—ইয়া হাইয়ু ইয়া ক্বাইয়ূমু বিরাহমাতিকা আস্তাগিছ অর্থাৎ হে চিরঞ্জীব! হে চিরস্থায়ী! আপনার রহমতের মাধ্যমে আপনার নিকটে সাহায্য চাই। (তিরমিজি)

প্রিয় নবী (সা.)-এর আরো একটি দোয়া—আল্লাহুম্মা ইন্নি আউযু বিকা মিনাল হাম্মি ওয়াল হাযানি, ওয়া আউযু বিকা মিনাল বুখলি ওয়াল জুবনি, ওয়া আউযু বিকা মিন দ্বালায়িদ্দাইনি ওয়া গালাবাতির রিজাল। অর্থাৎ হে আল্লাহ! নিশ্চয়ই আমি দুশ্চিন্তা ও দুঃখ থেকে আপনার আশ্রয় চাই, অপারগতা ও অলসতা থেকে আপনার আশ্রয় চাই, কৃপণতা ও ভীরুতা থেকে আপনার আশ্রয় চাই আর ঋণের দায় ও মানুষের দমন-পীড়ন থেকেও আপনার আশ্রয় চাই। (বুখারি ও মুসলিম)

নামাজে একাগ্রতা, বিপদ ও হতাশায় নামাজ প্রশান্তির পথ দেখায়। মহান আল্লাহ বলেন, ‘তোমরা নামাজ ও ধৈর্যের মাধ্যমে আমার সাহায্য প্রার্থনা করো। অবশ্য তা যথেষ্ট কঠিন। কিন্তু সেসব বিনয়ী লোকদের পক্ষেই তা সম্ভব।’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ৪৫)

হাদিসে আছে, প্রিয় নবী (সা.) যখন কোনো কঠিন সমস্যার মুখোমুখি হতেন, তখন নামাজ আদায় করতেন। (আবু দাউদ)

সাহাবায়ে কিরামের অভ্যাস ছিল, তাঁরা অতি সামান্য বিষয়ের জন্যও নামাজে দাঁড়িয়ে যেতেন, এমনকি জুতার ফিতা ছিঁড়ে গেলেও।

মহান আল্লাহর প্রতি ভরসা

মনঃকষ্টমুক্ত হতে মহান আল্লাহর প্রতি ভরসার বিকল্প নেই। কেননা, তিনিই বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি মহান আল্লাহর প্রতি তাওয়াক্কুল বা ভরসা করে, তার জন্য আল্লাহই যথেষ্ট।’ (সুরা : তালাক, আয়াত : ০৩)


আরও খবর



ভোক্তা পর্যায়ে দাম বাড়লো বিদ্যুতের

প্রকাশিত:Friday ১৩ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Monday ০৬ February ২০২৩ |
Image

জহীরুল কবির আমজাদ :ভোক্তা পর্যায়ে বাড়ল বিদ্যুতের দাম। ইউনিটপ্রতি বাড়ানো হয়েছে ১৯ পয়সা। ১ জানুয়ারি থেকে নতুন এ দাম কার্যকর করা হবে। একইসঙ্গে এখন থেকে প্রতিমাসে বিদ্যুতের খুচরা দাম নিয়মিত সমন্বয় করা হবে।

১২ জানুয়ারি এক নির্বাহী আদেশে এ দাম বাড়ানো হয়। এর আগে গত ৮ জানুয়ারি বিদ্যুৎ কোম্পানিগুলোর গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির আবেদনের প্রেক্ষিতে গণশুনানি করেছিল বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)।

ওইদিন সকাল ১০টায় রাজধানীর বিয়াম ফাউন্ডেশনের শহীদ এ কে এম শামসুল হক খান অডিটোরিয়ামে ওই গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে জানুয়ারির মধ্যেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্তের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন বিইআরসি চেয়ারম্যান আবদুল জলিল।

তবে সরকার চাইলে জনসাধারণের কথা বিবেচনায় যে কোনো সময় বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দাম সমন্বয় করতে পারবে। সম্প্রতি এমন বিধান যুক্ত করে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (সংশোধন) আইন, ২০২৩ এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ৯ জানুয়ারি নবনিযুক্ত মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন জানিয়েছেন, বিদ্যমান আইন অনুযায়ী বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দাম ৯০ দিন সময় নিয়ে নির্ধারণ করে বিইআরসি। তবে বিশেষ পরিস্থিতিতে সরকারও যেন তা নির্ধারণ করতে পারে এ জন্যই প্রস্তাবিত এই সংশোধনী মন্ত্রিসভা অনুমোদন করে।

ইতোমধ্যেই এটি রাষ্ট্রপতির কার্যালয় থেকে অধ্যাদেশ আকারে জারিও করা হয়েছে। তবে ওই সময় জাতীয় সংসদের অধিবেশন চলমান না থাকায় আইনে কার্যকর করা সম্ভব হয়নি। বর্তমানে সংসদের অধিবেশন চালু রয়েছে। তাই নিয়ম অনুযায়ী সংসদে উত্থাপনের জন্য মন্ত্রিসভায় আইনটি অনুমোদন করে নেওয়া হয়েছে।


আরও খবর



জুনের মধ্যে খুলে দেয়া হবে পদ্মা রেল সেতু

প্রকাশিত:Saturday ১৪ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

বুলবুল আহমেদ সোহেল :


রেল মন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন,  আগামী জুন মাসের মধ্যে ঢাকা থেকে ভাঙা র্পযন্ত পদ্মা সেতু দিয়ে রলে পথ চলাচল উপযোগী করা হবে। উন্নয়নের প্রয়োজনে রেলওয়ের নিজস্ব জায়গায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে। এ নিয়ে কোন দ্বিমত নেই। যে সমস্ত জায়গা উন্নয়নের জন্য ব্যবহার করতে পারছিনা কিন্তু রেলওয়ের দখলে আছে তা চাহিদা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মন্ত্রী আরও বলেন, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ ডাবল রেললাইনের কারনে সড়কে যাতে যানজট সৃষ্টি হতে না পারে এ কারনে বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে আলাপ আলোচনা চলছে। দুপুরে নারায়ণগঞ্জে ডাবল রেললাইন প্রকল্পের কাজ পরিদর্শণ শেষে নগরের শেখ রাসেল পার্কে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াৎ আইভী, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবদুল হাই ও রেলওয়ের উর্ধ্বতন কর্মকতা সহ অনেকে।


আরও খবর



ধামরাইয়ে বাসের ধাক্কায় চিতাবাঘ নিহত

প্রকাশিত:Monday ১৬ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Monday ০৬ February ২০২৩ |
Image

মাহবুবুল আলম রিপন, স্টাফ রিপোর্টার :


ঢাকার ধামরাইয়ে বাথুলী বাস স্ট্যান্ডে দ্রুতগামী বাসের ধাক্কায় নিহত হয়েছে এক চিতাবাঘ। রোববার ১৫ (জানুয়ারি) দিনগত রাত সাড়ে ৮টার দিকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের  ধামরাইয়ের বাথুলী বাসস্ট্যান্ডের পশ্চিম পাশে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে বলে নিশ্চিত করেছেন এলাকাবাসী। মানুষের ধারণা সুন্দরবন থেকে ঢাকার ধামরাইয়ে আমতা ইউনিয়নের  বাউখন্ড এলাকায় জিন্দাপী কালু-গাজীর দরাগাহে দরশন দিতে  এ বাঘটি এসেছে অথবা পাচারকালে বণ্যপ্রাণী পাচারকারি চক্রের হেফাজত থেকে চিতাবাঘটি পালিয়ে আত্মরক্ষা করতে গিয়ে বাসের ধাক্কায় প্রাণ হারিয়েছে। প্রতিবছরই ঢাকার ধামরাইয়ে ২-৪টি বাঘ আটক কিংবা মারা যাওয়ার ঘটনা ঘটে থাকে। জনশ্রুতি রয়েছে উপজেলার আমতা  ইউনিয়নের বাউখন্ড এলাকায় ইতিহাসখ্যাত জিন্দাপীর কালু-গাজীর দরগাহে তাদের ভক্ত সুন্দর বনের বাঘ জিয়ারত করতে আসে। আর ফিরে যাওয়ার পথে হয় তাদের মৃত্যু ঘটে না হয় জনতার হাতে আটক হয়।

এলাকাবাসী জানান,রোববার দিনগত রাত অনুমান সাড়ে ৮টার দিকে বাঘটি বাথুলী বাসস্ট্যান্ডের পশ্চিম পাশে ঢাকা-আরি মহাসড়কের উত্তর প্রান্ত থেকে দক্ষিণ প্রান্তে পার হচ্ছিল। ঠিক এসময় দ্রুতগতিসম্পন্ন ঢাকা-গামী একটি ঘাতক বাসের ধাক্কায় ওই চিতা বাঘটি মহাসড়কের ওপর পড়ে যায় এবং গুরুতর আহত হয়। মহাসড়কের দু’পাশ থেকেই থেমে যায় সবধরণের যান ও পরিবহণ। মানুষজন দ্রুত ওই বাঘটি রাস্তার পাশে নিয়ে সেবাযত্ন  করেন বাঁচানোর জন্য। কিন্ত শেষ পর্যন্ত ওই বাঘটিকে বাঁচানো গেলনা। বাঘটি এক দীর্ঘ্য নিস্বাস ছেড়ে চলে যায় না ফেরার দেশে। বাঘ হিংস্র  প্রাণী হলেও তার প্রতি মানুষের মমত্ববোধের একটুও  কমতি ছিলনা। আর এসময় বাঘটিও মানুষের দিকে ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে দু’চোখের পানি ফেলছিল। আর এদৃশ্য অবলোকন করে মানুষের দু’চোখেও নেমে এসেছিল ছলছল পানি।

মোঃ আলাউদ্দিন নামে এক ব্যক্তি বলেন,বাঘটির মারা যাওয়ার করুণ দৃশ্য আমি আামর নিজ চোখে দেখেছি এবং তাকে বাঁচানোর জন্য সবধরণের চেষ্টাও করেছি। আমি ভুলেই গিয়েছিলাম বাঘ। আমার বুকের ধন নয়নের মণি আমার ছেলেও কিছুদিন আগে এ মহাসড়কের শ্রীরামপুর এলাকায় দ্রুতগতির বাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেল থেকে পড়ে মারা যায়। আজও আমি সে দৃশ্য ভুলতে পারিনি। তাই আমি এলাকার মানুষের সহায়তায় ওই বাঘটি বাঁচানোর চেষ্টা করি। আমার ছেলে আমাকে যেন দূর  থেকে বলছিল বাবা তুমি ওই বাঘটিকে বাঁচাও তাহলে আমার আত্মাও শান্তি পাবে।

ডা. দেওয়ান মোহাম্মদ ফজলুর রহমান সবুজ বলেন,আমরা বাপ-দাদার আমল থেকে শুনে আসছি প্রতিবছরই নাকি জিন্দাপীর কালু-গাজীর দরগাহে বাঘভক্তরা দরশন দিতে আসে। আর প্রতিবছরই জনতার হাতে ধরা পড়ে অথবা মৃত্যবরণ করে এবাঘ। সড়ক দুর্ঘটনায় আহত বাঘটি আলাউদ্দিনের সহায়তায় আমরা এলাকাবাসী বাঁচানোর সবধরণের চেষ্টা করেও সফল হইনি। শেষ পর্যন্ত বাঘটি মারা যায়। এলাকাবাসী বাঘটি মাটিচাপা দিয়ে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।


আরও খবর