Logo
শিরোনাম

জাপানে সুপার টাইফুনের আঘাত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০22 | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

সুপার টাইফুন নানমাডলের আঘাতে লণ্ডভণ্ড জাপানের দক্ষিণের দ্বীপ কিউশুসহ বেশ কিছু জায়গা। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে ৯০ লাখ মানুষকে সরিয়ে নিতে বলা হয়েছে।

রোববার পূর্বাভাস অনুযায়ী প্রবল শক্তি নিয়ে আঘাত হানে সুপার টাইফুন নানমাডল। ঝড়ে তাণ্ডবের কারণে এদিন রাতেই জরুরি আশ্রয়কেন্দ্রে কাটিয়েছেন কয়েক হাজার মানুষ। টাইফুনের আঘাতে জাপানে প্রায় ৩ লাখ ৫০ হাজার মানুষ বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে। যার অধিকাংশই কিউশুতে। সুপার টাইফুনের কারণে জাপানে যান চলাচল ব্যাহত হচ্ছে এবং কিছু কারাখানা উৎপাদন বন্ধ রাখতে বাধ্য হয়েছে কর্তৃপক্ষ। দুর্ঘটনা এড়াতে বাতিল করা হয়েছে বুলেট ট্রেন পরিষেবা, ফেরি এবং শতাধিক ফ্লাইট। অনেক দোকান এবং অন্যান্য ব্যবসা বন্ধ হয়ে গেছে।  


আরও খবর

জাতিসংঘে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

জাতিসংঘের ভূমিকায় হতাশ মালয়েশিয়া

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২




বঙ্গবন্ধু সেতুর পিলারের সাথে ধাক্কায়

বাল্কহেড ডুবি আটকে আছে আরেকটি বাল্কহেড

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

সিরাজগঞ্জ  প্রতিনিধি: 

সিরাজগঞ্জে বঙ্গবন্ধু সেতুর ১০ নং পিলারের সাথে বালু বোঝাই বাল্কহেড ধাক্কায় ডুবে গেছে।  এসময় বাল্কহেডে থাকা ৫ শ্রমিক লাইফ জ্যাকেট পরে সাঁতরে তীরে উঠেছে। মঙ্গলবার দুপুর পৌনে ১২টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এর ঘন্টা খানেক পর সেতুর ৯ নং পিলারের সাথে বালু বোঝাই আরেকটি বাল্কহেড জোরে ধাক্কা লেগে আটকে আছে। এদুটি দূর্ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি বলে নিশ্চিত করেছেন বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ মোসাদ্দেক হোসেন।

ডুবে যাওয়া বাল্কহেডটি সিরাজগঞ্জ থেকে বালু নিয়ে নারায়নগঞ্জ ও আটকে  বাল্কহেডটি সিরাজগঞ্জ থেকে বালু বোঝাই করে ফরিদপুর সিএনবি ঘাটের দিকে যাচ্ছিলো। 

ডুবে যাওয়া বাল্কহেডের শ্রমিক আক্তার হোসেন জানান, মঙ্গলবার দুপুর পৌনে ১২টার দিকে আমরা সিরাজগঞ্জ হাজী সাত্তারের বালুর মহল থেকে বালু ভর্তি করে বাল্কহেডটি নিয়ে নারায়নগঞ্জের দিকে রওনা দেই। নদীতে অতিরিক্ত স্রোতের কারনে পিলারের সাথে ধাক্কা লাগার পর আমাদের বাল্কহেডটি ডুবে যায়। তৎক্ষনিক ভাবে আমরা ৫ জন  লাইফ জ্যাকেট পরে সাঁতরে বেলকুচির রান্ধুনীবাড়ী চরে এসে উঠি। আমরা ৫ জনেই সুস্থ্য আছি। 

ডুবে যাওয়া বাল্কহেডের বিষয়ে নৌ-পুলিশকে জানিয়েছেন কি না জানতে চাইলে আক্তার হোসেন বলেন, নৌ- পুলিশকে জানাতে গেলে সমস্যা আছে। তারা আমাদের আটকে রেখে টাকা আদায় করবে তাই এখান থেকেই চলে যাবো। মহাজন তার বাল্কহেড অন্য ভাবে উদ্ধার করবে।

প্রত্যাক্ষদর্শী বঙ্গবন্ধু রেল সেতুর প্রকৌশলী ফারুক হোসেন বলেন, নদীতে অনেক পানি বাড়ছে নদীর প্রবল স্রোতের কারনে বাল্কহেডটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম পাড়ের ১০ নং পিলারের সাথে ধাক্কা লাগে এবং সেখানেই ডুবে যায়। তার কিছুক্ষন পর ৯ নং পিলারের সাথে আরেকটি বালু বোঝাই বাল্কহেড জোরে ধাক্কা দিয়ে আটকে যায়।

গত দুই দিন আগে একই স্থানে বালু বোঝাই একটি বাল্কহেড ডুবে গেছে। একজন নিখোজ এখনো উদ্ধার হয়নি বলে জানতে পেরেছি।

এ বিষয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম নৌ- ফারির ওসি আতাউর রহমানের সাথে মোবাইল ফোনে বারবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেন নি। 

এবিষয়ে বঙ্গবন্ধু সেতুর সাইড অফিসের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান মাসুদ বাপ্পী বলেন, আজ সকালে সেতু মন্ত্রনালয়ের সচিব মো: মনজুর হোসেন স্যার বঙ্গবন্ধু সেতু পরিদর্শনে এসেছেন।  স্যার সব কিছু দেখছেন। ডুবে যাওয়া বাল্কহেড সম্পর্কে জানিনা তবে একটি বালু বোঝাই বাল্কহেড আটকে আছে জানতে পেরেছি।

কঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ মোসাদ্দেক হোসেন বলেন, দুপুর ১২ টার দিকে জানতে পারি ১০ নং পিলারের সাথে বালু বোঝাই একটি বাল্কহেড ধাক্কা লেগে ডুবে গেছে। সঙ্গে সঙ্গে নৌ-পুলিশকে জানিয়েছি। পরে কি হয়েছে তা জানিনা।  তার ঘন্টা খানেক পরে আমাদের ফোর্স জানায় ৯ নং পিলারের সাথে বালু বোঝাই আরেকটি বাল্কহেড জোরে ধাক্কা দিয়ে মাঝামাঝি অবস্থায় আটকে আছে। আমি সঙ্গে সঙ্গে সেখানে যাই। দেখি প্রচন্ড স্রোত সেখানে পিলারের সাথে আটকে আছে বাল্কহেডটি। এতে নদীর স্রোতের পুরো চাপ গিয়ে পরছে পিলারের সাথে। এটি বিআইডাব্লিউটিএ এর রেসকিউ নিয়ে এসে দ্রুত সরাতে হবে। তা না হলে যে কোন দূর্ঘটনা ঘটতে পারে। তবে বিআইডাব্লিউএকে খবর দেবে নৌ-পুলিশ।

উল্লেখ্য গত ১১ সেপ্টম্বর বঙ্গবন্ধু সেতুর ৯ নং পিলারের সাথে একটি বালু বোঝাই বাল্কহেড ধাক্কায় ডুবে যায় এবং একজন নিখোজ হয়। ঘটনার দুইদিন পার হলেও এখনো নিখোজ ব্যাক্তিকে উদ্ধার করতে পারেনি নৌ-পুলিশ। 


আরও খবর

পঞ্চগড়ে নৌকা ডুবে ২৪ জন নিহত

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

এবার ৩২ হাজার মণ্ডপে দুর্গাপূজা

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২




পটুয়াখালীতে ৬ হাজার পিস ইয়াবাসহ ৪ মাদক কারবারিকে গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

 পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ

 পটুয়াখালী সদর উপজেলার পশ্চিম হেতালিয়া এলাকা থেকে ৬ হাজার পিস ইয়াবাসহ ৪ মাদক কারবারি গ্রেফতার করেছে পুলিশ।  এর মধ্যে একজন দুইটি মামলায় ২৯ বছরের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী ও একজন নারীর রয়েছে।  আজ ভোর ছয়টায় পটুয়াখালী সদর থানা পুলিশ এই অভিযান চালায়।  গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন মাদারবুনিয়া  ইউনিয়নের পশ্চিম হেতালিয়া গ্রামের বাসিন্দা মোহাম্মদ বশির হোসেন,  তার স্ত্রী বিথী খাতুন, ওই বাড়িতে অবস্থানকারী একাধিক মাদক মামলার পলাতক আসামী মিজানুর রহমান সাগর আকন ও অপর মাদক কারবারি গাফফার হাওলাদার। শেষের দুজনের বাড়ি পটুয়াখালী পৌরসভার ৯ নং ওয়ার্ডের পশ্চিম টাউন  কালিকাপুর এলাকায়। 

পটুয়াখালী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান জানান,  গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সাব ইন্সপেক্টর মাসুদ হাওলাদারের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল আজ ভোর ছয়টায় পশ্চিম হেতালিয়া গ্রামে মোহাম্মদ বশির হোসেনের বাসায় অভিযান চালায়।  এসময় তার স্ত্রী বিথী খাতুনের মালামাল রাখার ওয়ারড্রব থেকে ২০২০ পিস উদ্ধার করে। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ঘরের অন্যরুম থেকে  ইয়াবার চালানের মূল হোতা চিহ্নিত মাদক কারবারি মিজানুর রহমান সাগর আকন, তার সহযোগী গাফফার হাওলাদার  ও অপর সহযোগী বিথী  খাতুন এর স্বামী মোহাম্মদ বশির হোসেনকে  আটক করে তাদের দেহ তল্লাশি করে আরো ৩৯৮০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট করে।  

এরমধ্যে মিজানুর রহমান সাগর আকন দুটি মাদক মামলার ২৯ বছরের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি।  সে পটুয়াখালীর পশ্চিম থানা কালিকাপুর এলাকার রফিকুল ইসলাম আকনের ছেলে। এ ব্যাপারে পটুয়াখালী সদর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়েছে।  গ্রেফতারকৃত চারজন আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে । 


আরও খবর



মানসম্মত শিক্ষা বাস্তবায়নে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

এম.পলাশ শরীফ, নিজস্ব প্রতিবেদক :

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে রবিবার সকালে মানসম্মত শিক্ষা বাস্তবায়নে বাস্তবায়নে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স ভবনে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাগেরহাট-৪ আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড. আমিরুল আলম মিলন। 

 উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ও জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আজিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড.শাহ-ই-আলম বাচ্চু, পৌর মেয়র এসএম মনিরুল হক তালুকদার। বক্তব্য রাখেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.জাহাঙ্গীর আলম, এসএম কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসার নীতিশ বিশ্বাস, রওশন আরা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ জাহাঙ্গীর আল আজাদ, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো.কামরুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোরেলগঞ্জ সার্কেল আল মামুন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক মোজাম, পঞ্চকরণ ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক মজুমদার, স্কাউট কমিশনার হোসনে আরা হাসি, সাংবাদিক মশিউর রহমান মাসুম, প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহামন, দূর্গা রানী ঘরাই প্রমুখ। সভায় উপজেলার বিভিন্ন কলেজ, স্কুল, মাদ্রাসার প্রধানগণ, শিক্ষক-শিক্ষিকা, সুধিজন উপস্থিত ছিলেন । #


আরও খবর

বিশ্বজয় করে দেশে ফিরল ক্ষুদে হাফেজ

শুক্রবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

বিদেশে উচ্চশিক্ষার খরচ বাড়ল

শনিবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২




জাতীয় সীরাত প্রতিযোগিতার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

সমাজের সকল অসঙ্গতি, অন্যায়-অবিচার, সন্ত্রাস-দুর্নীতির মুলোৎপাটন করে বাংলাদেশকে বাসবাসের উপযোগী আদর্শ কল্যাণ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আদর্শ প্রতিষ্ঠায় সীরাত চর্চা করার আহ্বান জানিয়েছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর মহাসচিব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ। 

আজ বিকেলে পুরানা পল্টনের আইএবি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত জাতীয় সীরাত প্রতিযোগিতা ২০২২ এর উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সহকারী মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম এর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের যুগ্ম মহাসচিব আলহাজ্ব আমিনুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা মুহাম্মাদ নেছার উদ্দীন, কেন্দ্রীয় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আবুল কাশেম, নগর দক্ষিণ সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আলতাফ হোসেন, আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেন, সেক্রেটারি আলহাজ্ব আব্দুল আউয়াল মজুমদারসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। 

একটি অনুপম আদর্শ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ গতবারের ন্যায় এবারও ২দিন ব্যাপী "জাতীয় সিরাত সম্মেলন, সংবর্ধনা ও সিরাতুন্নাবী সা. মাহফিল" উপলক্ষে জাতীয় সীরাত প্রতিযোগিতা-২০২২ এর আয়োজন করছে।


আরও খবর

বিশ্বজয় করে দেশে ফিরল ক্ষুদে হাফেজ

শুক্রবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২




সমাজ ও রাষ্ট্রে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় ইসলামের বিকল্প নেই -পীর সাহেব চরমোনাই

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই বলেছেন, মুসলিম উম্মাহ এক ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। বিরানব্বই ভাগ মুসলমানের দেশে ঢাবিতে ছাত্র-ছাত্রীদের নামাজের জায়গা ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে। ইসলামী শিক্ষাকে ঐচ্ছিক করে দিয়ে ইসলামী শিক্ষা ধ্বংসের পাঁয়তারা চলছে। অপরদিকে ডারউইনের মতবাদ শিক্ষা সূচিতে পাঠ্য হিসেবে অর্ন্তভূক্ত করে জাতিকে নাস্তিক বানানোর চক্রান্ত চলছে। 

পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, ওলামায়ে কেরাম জাতির শ্রেষ্ঠ ও জাগ্রত বিবেক, নায়েবে নবী। সমাজ ও রাষ্ট্রে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ আদর্শ দীনে হক তথা কুরআন সুন্নাহর আইন প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে আলেমদেরকেই নেতৃত্ব দিতে হবে। তিনি বলেন, রাষ্ট্র্রের অবস্থা অত্যন্ত করুন। সুশাসনের অভাবে মানুষ অসহায় জীবন যাপন করে। অধিকার বঞ্চিত মানুষ অধিকার ফিরে পেতে আল্লাহর দরবারে ফরিয়াদ করছে। অত্যাচারিত অসহায় ও মজলুম মানুষের আহাজারিতে আকাশ বাতাম প্রকম্পিত হচ্ছে। এ প্রচলিত সমাজ ব্যবস্থার পরিবর্তন করে একটি ইসলামী কল্যাণ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে ওলামায়ে কেরামগণকেই নেতৃত্ব দিতে হবে। সমাজের নেতৃত্ব দেয়ার দায়িত্ব আলেমদের। আজ যেখানে আলেম সমাজ তথা আল্লাহভীরু জনপ্রতিনিধি নেতৃত্ব দিচ্ছেন সেখানকার মানুষ অনেক ভাল আছেন। আজ যদি রাষ্ট্রের প্রতিটি সেক্টরে আলেম সমাজের নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা হয়, তখন সব শ্রেণি ও পেশার মানুষ সুখে শান্তিতে বসবাস করতে পারবে। ওলামায়ে কেরামগণ পিছিয়ে থাকায় নেতৃত্ব দিচ্ছেন দুর্নীতিবাজ নেতানেত্রীগণ। ফলে যা হবার তাই হচ্ছে। এ উপলব্ধি যত তাড়াতাড়ি আলেমগণ করতে পারবেন, ততই সমাজ, রাষ্ট্র ও জনগণের কল্যাণ হবে। জনগণের মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি আলেম সমাজের অবদান রাখতে হবে। 

আজ মঙ্গলবার বিকেলে খাগড়াছড়ি জেলা অফিসার্স ক্লাব মিলনায়তনে জাতীয় ওলামা মাশায়েখ আইম্মা পরিষদ খাগড়াছড়ি জেলা শাখা আয়োজিত ওলামা ও সুধী সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন সংগঠনের  কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক (চট্টগ্রাম বিভাগ) মুফতী শাহজাহান আল হাবিবী। বক্তব্য রাখেন বাবুনগর মাদরাসার মুহাদ্দিস আল্লামা মীর হুসাইন, খাগড়াছড়ি জেলা কওমী ওলামা পরিষদের সভাপতি মাওলানা ক্বারী ওসমান গণী, মাওলানা হাবিবুল্লাহ জাহাঙ্গীর, মাওলানা সানাউল্লাহ নূরী মাহমুদী, খাগড়াছড়ি বায়তুশ শরফ আলিম মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা আবু ওসমান, খাগড়াছড়ি সিনিয়র মাদারাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা মহিউদ্দিন, মাওলানা ফজলুল হক, মাওলানা শেখ বাহার উল্লাহ, মুফতী মাকসুদুল হক, মাওলানা আনোয়ার হোসেন মিয়াজী, মাওলানা আখতারুজ্জামান ফারুকী, মুফতী মহিউদ্দিনসহ জেলার অন্যান্য ওলামায়ে কেরাম, মসজিদের ইমাম ও ইসলামী আন্দোলনের নেতৃবৃন্দ।


আরও খবর