Logo
শিরোনাম

কলড্রপের ক্ষতিপূরণ বাড়ছে ১ অক্টোবর থেকে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল : মোবাইল ফোনে প্রতি কলড্রপের জন্য তিনটি পালস ৩০ সেকেন্ড ফেরত পাবেন গ্রাহক। আগামী ১ অক্টোবর থেকে তা কার্যকর হবে। বিটিআরসি থেকে মোবাইল অপারেটরদের এমন নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। কলড্রপ নিয়ে সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর বিটিআরসি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানিয়েছেন সংস্থার চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, জবাবদিহি এবং গ্রাহক সন্তুষ্টি নিশ্চিত করতে সব মোবাইল অপারেটর অভিন্ন ইউএসএসডি কোর্ডের (*১২১*৭৬৫#) মাধ্যমে একজন গ্রাহক-পূর্ববর্তী দিন, সপ্তাহ, মাসিক অননেট কলড্রপের জানতে পারবেন।

এত দিন কোনো অপারেটরই প্রথম কলড্রপের জন্য কোনো ক্ষতিপূরণ দিত না। উল্লেখ করার বিষয় হলো, গ্রাহকের যত কলড্রপ হতো তার ৬৫ শতাংশই হয় প্রথম কলড্রপ। দেখা যাচ্ছে, এতে কলড্রপের বেশির ভাগ অংশেরই ক্ষতিপূরণ পেত না গ্রাহক।

কলড্রপের বর্তমান পরিস্থিতি : চলতি বছরের মে মাস জুড়ে কলড্রপের পরিসংখ্যান বলছে, ওই ৩১ দিনে গ্রামীণফোন, রবি ও বাংলালিংকের অননেট কলড্রপ হয়েছে ৭ কোটি ৯৯ লাখ ৬৬ হাজার ৩৩২টি। যেখানে প্রথম কলড্রপ ৫ কোটি ১৪ লাখ ৪৬ হাজার ৩৪৭টি, দ্বিতীয় কলড্রপ ১ কোটি ৪৭ লাখ ৩০ হাজার ১৭৮টি, তৃতীয় ৫৬ লাখ ৬৮ হাজার ৫৬৬টি, চতুর্থ ২৭ লাখ ৪২ হাজার ৭৫৬টি, ৫ম ১৫ লাখ ৪১ হাজার ১৬০টি, ৬ষ্ঠ ৯ লাখ ৫০ হাজার ৩১০টি এবং ৭ম ১০ লাখ ২৬ হাজার। এর বাইরে ৮ম হতে আরো কলড্রপের পরিমাণ ১৪ লাখ ৬০ হাজার ৮৯২টি।

সংবাদ সম্মেলনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সংযুক্ত ছিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এবং ডাক ও টেলিযোযোগ সচিব মো. খলিলুর রহমান। কলড্রপ নিয়ে বিশদ উপস্থাপনা দেন বিটিআরসির সিস্টেম অ্যান্ড সার্ভিসেস বিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাসিম পারভেজ। সম্মেলনে বিটিআরসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ও মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



সংবিধান দিবসে আইনমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিবাদ

প্রকাশিত:শনিবার ০৫ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

বিদেশী প্রভূ ও তাদের এজেন্টদের খুশি করতে সরকার 'রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম' বাতিল করতে চায়

     ----ইসলামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পরিষদ  

সংবিধান থেকে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাদ দেয়ার জন্য অপেক্ষা করতে বলে সংবিধান দিবসে আইনমন্ত্রীর দেয়া বক্তব্যে ক্ষোভ ও নিন্দা জানিয়েছেন ইসলামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পরিষদ সভাপতি শহিদুল ইসলাম কবির।

আজ শনিবার, গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, সংখ্যাগরিষ্ঠ ৯২% মুসলমানদের দেশে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম আছে ছিলো থাকবে, এটা গণমানুষের দাবি। ইসলাম বিদ্বেষী গোষ্ঠীর এজেন্ট হাতে গোনা কিছু লোকের মন রক্ষায় সরকার যদি রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম বাদ দিতে চায় তবে দেশবাসী মনে করবে ক্ষমতাসীন সরকার জনগণকে খুশি করতে নয়, বিদেশী প্রভূ ও তাদের এজেন্টদের খুশি করতে রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম বাতিল করতে চায়। সরকারের সুবিধাভোগী কিছু দুস্কৃতিকারী একইভাবে ইসলাম বিদ্বেষী ষড়যন্ত্রকারীদের এজেন্ডা বাস্তবায়নে শিক্ষাব্যবস্থা থেকে ইসলামী শিক্ষা উঠিয়ে দিয়ে ভিনদেশি শিক্ষা-সংস্কৃতির প্রচলন করতে উঠেপড়ে লেগেছে।  

শহিদুল ইসলাম কবির বলেন, সরকারের কোন কোন মন্ত্রীর বক্তব্য ও তৎপরতা বলে দেয় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ মুখে মদীনা সনদের কথা বলে মানুষকে বোকা বানিয়ে ধোঁকা দিয়ে বিধর্মীদের প্রেসক্রিপশন এ অন্যকোন সনদে রাষ্ট্র পরিচালনা করছে। যে কারণে তারা বাংলাদেশ থেকে ইসলামের নাম গন্ধ মুছে দিতে চায়। 

তিনি বলেন, পীর আউলিয়ার বাংলায় ইসলাম ও মুসলমানদের চিন্তা চেতনা বিরোধী কোনো পদক্ষেপ রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে নেয়া হলে তা দেশবাসী অতীতে মেনে নেয়নি, ভবিষ্যতে ও মেনে নিবে না, ইনশাআল্লাহ।


আরও খবর



কু‌মিল্লায় লরি ও বা‌সের ধাক্কায় নিহত ২

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৫ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

কুমিল্লা ব্যুরো ঃ

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে লরির ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী স্ত্রী নিহত হয়েছেন। স্বামী আশংকাজনক অবস্থায় হাসপাতা‌লে ভ‌র্তি।                মঙ্গলবার (১৫ নভেম্বর) বিকেলে মহাসড়কের কুমিল্লার বুড়িচং এলাকার ময়নামতি ক্যান্টনমেন্ট পূবালী ব্যাংকের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় ছিটকে পড়ে আহত হয়েছেন মোটরসাইকেল চালক  ও নিহত হ‌য়ে‌ছেন আ‌রোহী চাল‌কের স্ত্রী   ।

নিহতরা হ‌লেন ইভা আক্তার (২৫)। আহত স্বামী রবিউল ইসলাম (৩২)। তাদের বাড়ি কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার আজ্ঞাপুর গ্রামে। রবিউল ময়নামতি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

কুমিল্লা ময়নামতি হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকুল চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। আহত রবিউলকে হাসপাতালে পাঠিয়েছি। স্বজনরা আসলে আইনগত প্রকৃয়া শেষে মরদেহ পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হবে। দুর্ঘটনার পর লরিটি দ্রুত বেগে চলে যায় বলে জানতে পেরেছি। দুর্ঘটনার কারণ জানতে সিসিটিভি ফুটেজ পর্যালোচনা করা হচ্ছে।

এ‌দি‌কে মঙ্গলবার বিকেলে কু‌মিল্লার গৌরীপুর -হোমনা সড়কের মোস্তাক হাজারী বাড়ির সামনে  কুমিল্লা গামী (কুমিল্লা- জ-১১-০২৮০) নাম্বারের একতা সার্ভিস প‌রিবহ‌নের এক‌টি বাস একপথচা‌রি ভিক্ষুককে ধাক্কা দেয়। এসময় মৃত্যু ঘটে ঘটনাস্থলেই মৃতু‌্য হয় পথচা‌রি ভিক্ষুক। 

পু‌লিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায় সড়‌কের পশ্চিম দিক থেকে পার হ‌য়ে পূর্ব দিকে আসার সময় বাস‌টি ধাক্কা দেয়।

আহত ছেনোয়ারাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গৌরীপুর নিয়ে গেলে ডাক্তার তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।                                         নিহত ভিক্ষুক  ‌মোঃ সা‌নোয়ার (৬৫) ।তাঁর গ্রামের বাড়ি কু‌মিল্লা দাউদকা‌ন্দি উপজেলার বার পাড়া ইউনিয়নের রাঙ্গাশিমুলিয়ায়।                               নিহ‌তের লাশের পাশে আহাজারি করতে দেখা যায় তাঁর  মেয়েকে।

এ ঘটনার পরপর  ঘাতক বাস ও চালক পলাতক র‌য়ে‌ছে।


আরও খবর



মন্ত্রী পরিষদের নির্দেশ অমান্য

গজারিয়ায় পাউবো থ্রি-এঙ্গেলের কারসাজিতে খাল উদ্ধার হচ্ছে না।

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

মুহাম্মদ মাসুম খান: মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়া উপজেলার মেঘনা ও ফুলদী নদীর তীরে থ্রিএঙ্গেল শীপ ইয়ার্ড কোম্পানী বহুল আলোচিত এবং বিতর্কিত একটি কোম্পানী।

২০১০ সালে এই কোম্পানি নয়ানগর মৌজায়  জমি কেনার নাম করে প্রান্তিক শ্রেনীর জনগনের কৃষিজ জমি,বিল, হাওড়,খাস জমি, খাল এবং নদী দখল শুরু করে।

শুরু থেকেই এই কোম্পানীর কৃষিজ জমি, খাস জমি এবং খাল দখলের বিরুদ্ধে এলাকার জনগন বিভিন্নভাবে প্রতিবাদ আন্দোলন করেছে, স্থানীয় এবং  প্রায় সব জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় এই কোম্পানির অপকর্মের বিরুদ্ধে একাধিকবার সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে।

একাত্তর,ইন্ডিপেন্ডেটস টিভি সহ বেশ কয়েকটি টেলিভিশনে বিশদ প্রতিবেদন হয়েছে।  থ্রিএঙ্গেলের নানা অনিয়ম অপকর্মের কারনে তার আইপিও বাতিল করেছিল বিসিইসি। ২০১৯ সালে জাতীয় নদী কমিশন থ্রিএঙ্গেলকে মুন্সীগঞ্জ জেলার ১ নম্বর নদী দখলদার কোম্পানী হিসেবে তালিকাভুক্ত করে।

২০২০ সালে হাইকোর্টে কোম্পানির বিরুদ্ধে রিট করা হয় যে রিট পিটিশন নম্বরঃ 8768 of 2020। রিটে বলা হয় সংশ্লিষ্ঠ ১২ কর্তৃপক্ষকে এই মর্মে নোটিশ দেয়া হয় যে,কেন  থ্রিএঙ্গেলের নদী,খাল,কৃষিজ জমি এবং খাস জমি দখলের বিরুদ্ধে একশন না নেয়া এবং এসব বন্দ না করা তাদের ব্যর্থতা বলে গন্য হবে না এবং আইনগত  ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে না?

নোটিশে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জবাব দেয়ার নির্দেশ প্রদান করা হয়েছিল। ফলে সংশ্লিষ্ঠ বিভিন্ন সংস্থা বিভিন্ন সময় থ্রিএঙ্গেলকে অবৈধ স্থাপনা বন্ধে চিঠি প্রদান ওতদন্ত করেন। কিন্তু থ্রিএঙ্গেল কোম্পানি এসবের কোন তোয়াক্কা না করে তাদের স্থাপনা চালিয়ে যায়। পরবর্তিতে সাংবাদিক,শিক্ষক,আইনজীবী এবং পরিবেশ  সচেতন বিভিন্ন শ্রেনি পেশার মানুষের সম্বনয়ে নদী-খাল ও পরিবেশ রক্ষা কমিটি নামে একটি সংগঠন গড়ে তুলা হয়।

তারা সামাজিক যোগাযোগের  মাধ্যমে থ্রিএঙ্গেলের নদী-খাল ও কৃষিজ জমি দখলের বিষয়টির ভয়াবহ পরিনতি সম্পর্কে জনগনকে সচেতন করে তুলেন। নখাপরক এর সভাপতি বিশিষ্ঠ আলোকচিত্র সাংবাদিক, গবেষক সাহাদাত পারভেজের তোলা একটি ছবি দিয়ে,"মেঘনা-ফুলদীর বুকে কারখান " শীর্ষক একটি বিশদ প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়  দেশ রুপান্তর পত্রিকায় ২৮ জুলাই ২০২১ সালে।

পরবর্তিতে ২ আগস্ট মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ নৌ পরিবহন মন্ত্রনালয়কে চিঠি দেয় তদন্ত করার জন্য। এর পরিপ্রেক্ষিতে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসন তদন্ত করে। ২০ অক্টোবর প্রশাসন নদী, খাল ও সরকারের খাসজমি দখলের অভিযোগের সত্যতা পায়নি বলে প্রতিবেদন জমা দেয়।

এরপর ১৬ নভেম্বর দেশ রুপান্তর, ডেইলি স্টার সহ বেশ কয়েকটি পত্রিকায়" দেখল না ‘অন্ধ’ প্রশাসন” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হলে মন্ত্রিপরিষদ ফের তদন্ত করার নির্দেশ দেয়। তার প্রেক্ষিতে ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২২ তারিখে কমিটি সরেজমিন গিয়ে দুটি খাল ভরাটের সত্যতা পায় এবং সাংবাদিক,কৃষক এবং জনতার সামনে স্বিকার করেন যে থ্রিএঙ্গেল কোম্পানি দুটি খাল দখল করেছে তবে নদী দখল হয়নি। যদিও নদী কমিশন, জেলা প্রশাসন ২০১৯ সালে থ্রিএঙ্গেলকে ১নম্বর নদী দখলদার হিসেবে তালিকাভুক্ত করেছিলেন। 

তবে পরিবেশকর্মী ও আইন বিশেষজ্ঞরা সরকারি কর্মকর্তাদের দিয়ে করা কমিটির বিরোধিতা করেছেন। তারা ফুলদী ও মেঘনা নদী দখলমুক্ত করতে দ্রুত একটি বিচার বিভাগীয় কমিটি গঠনের দাবি জানিয়েছেন। তাদের যুক্তি, যেখান দিয়ে নদীর পানি প্রবাহিত হয় সেটাই নদী। সরকারের রেকর্ডপত্রে কী আছে, তা বিবেচ্য নয়।

তদন্ত কমিটির প্রধান সরকারের উপসচিব মোহাম্মদ এনামুল আহসান বলেন, ‘নয়ানগর মৌজায় দুটি খাল থ্রিএঙ্গেল মেরিন দখল করেছে। এ দুটি খাল পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাধ্যমে উদ্ধার করা হবে।’ পরবর্তীতে থ্রিএঙ্গেলের দখলকৃত জায়গায় জেলা প্রশাসন সাইন বোর্ড লাগিয়ে দেয় যাতে লিখা হয়" এই জমির মালিক জেলা প্রশাসন" 

কিন্তু অদ্যাবধি কেন ৩০০ বছরের পুরানো জীবন্ত খাল দুটি উদ্ধার করার কোন উদ্যোগ নেয়া হয় নি। মুন্সিগঞ্জ উপ বিভাগ,পানি উন্নয়ন বোর্ডের  প্রকৌশলী রাকিব এবং কতিপয় কর্মকর্তা থ্রিএঙ্গেলের সাথে কারসাজি করে এই খনন প্রক্রিয়া বন্ধ রেখেছেন বলে গোপন সূত্র থেকে জানা যায়।

এদিকে এলাকায় ভুক্তভোগী কৃষক জমি হারিয়ে নিস্ব হওয়াসহ,খাল ভরাট হয়ে যাওয়ায় এলাকার জীব বৈচিত্র মারাত্মক ভাবে নষ্ট হচ্ছে, কৃষিক সংস্কৃতি বিলীন হয়ে যাচ্ছে,ফুলদী নদীর মুখ সরু হয়ে গেছে,ফুলদী নদীর নাব্যতা কমে গেছে। ফলশ্রুতিতে পুরো গজারিয়া উপজেলার সকল  খালগুলি শুকিয়ে যাচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ভয়াবহ পরিনতির দিকে এগুচ্ছে সুজলা সুফলা ফুলদী এবং মেঘনা নদীর জল ধারায় সিক্ত গজারিয়া উপজেলা।

উল্লেখ্য বর্তমান সরকার নদী-খাল রক্ষায় অত্যন্ত কঠোর। অতিসম্প্রতি ঢাকার মুহাম্মদ্দপুরে বসিলা খাল সহ সারাদেশ ব্যাপী দখলকৃত অনেক  নদী-খাল উদ্ধার করা হচ্ছে না। সেক্ষেত্রে থ্রিএঙ্গেলের দখলকৃত  গজারিয়ার ৩০০ বছরের ঐতিহ্যবাহী বোরোচক, কুমোরিয়া খাল দুটি কেন উদ্ধার হবে না? শান্তিপ্রিয় নিরীহ  এলাকাবাসীর মধ্যে থ্রিএঙ্গেলের বিরুদ্ধে  চরম ক্ষোভ জমে উঠছে ক্রমশ।

নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষায় এলাকার পরিবেশ বাচাতে সচেতন মানুষের নেতৃত্বে আপামর জনগন  যে কোন সময় কঠোর আন্দোলন দিতে বাধ্য হবে।


আরও খবর



গজারিয়ায় অবৈধ গ্যাস লাইন বিচ্ছিন্ন

প্রকাশিত:বুধবার ০৯ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

গজারিয়া প্রতিনিধি : মুন্সগঞ্জের গজারিয়ায় ছয় কিলোমিটার অবৈধ গ্যাস লাইন বিচ্ছিন্ন করেছে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ। লাইনটির মাধ্যমে প্রায় দশ হাজার অবৈধ সংযোগ চলতো বলে তিতাসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। 

গজারিয়া উপজেলার লস্করদী-ভবানীপুর এলাকা থেকে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গজারিয়া সহকারী কমিশনার (ভূমি) জি.এম. রাশেদুল ইসলাম।

তিতাস গ্যাসের সোনারগাঁ আঞ্চলিক বিপণন বিভাগের উপ-মহাব্যবস্থাপক প্রকৌশলী সুরুজ আলম বলেন, গজারিয়া উপজেলার লস্করদী-ভবানীপুর এলাকার হোসেন্দী, হোসেন্দী বাজার এলাকা, ভবানীপুর, লস্করদী, নাজির চর গ্রাম পর্যন্ত প্রায় ছয় কিলোমিটার অবৈধ গ্যাস বিতরণ লাইন বিচ্ছিন্ন করা হয়। লাইনটির মাধ্যমে অন্তত ১০ হাজার সংযোগ চালু ছিল। গজারিয়া উপজেলায় আরো কিছু অবৈধ গ্যাস লাইন চালু আছে বলে আমরা খবর পেয়েছি। পর্যায়ক্রমে অভিযান পরিচালনা করে সবগুলো লাইন বিচ্ছিন্ন করা হবে।

উল্ল্যেখ গজারিয়ার প্রায় প্রতিটি গ্রামে অবৈধ গ্যাস লাইনের ছড়াছড়ি ,তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ এর আগেও বেশ কয়েকবার

সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে গেলে মধ্য বাউশিয়া, লক্ষিপুর সহ বিভিন্ন গ্রামের মহিলা পুরুষ রাস্তায় নেমে অরাজগতা সৃষ্টি করে ।

আর এর সাথে সরকারি দলের নেতারা জড়িত ।


আরও খবর



মাথায় ও বুকে আঘাতের চিহ্ন

বুয়েট শিক্ষার্থী ফারদিন নূর পরশের ময়না তদন্ত সম্পন্ন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৮ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

বুলবুল আহমেদ সোহেল ঃ

রাজধানীর রামপুরা থেকে নিখোঁজের তিনদিন পর নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে শীতলক্ষ্যা নদী থেকে  বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ফারদিন নূর পরেশের মরদেহ উদ্ধার করেছে নৌ-পুলিশ। সোমবার সন্ধ্যায় সিদ্ধিরগঞ্জের বনানীঘাট থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। পরে পরিবারের লোকজন এসে তার লাশ শনাক্ত করেন।

নিহতের স্বজনদের দাবি ৪ নভেম্বর রাতে রামপুরা থেকে নিখোঁজ হয় সে। এ ব্যাপারে রামপুরা থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়। পরেশের সাথে সর্বশেষ বনশ্রীর এক নারীর সর্বশেষ কনটাক্ট হয়। সে সূত্র ধরে পুলিশ ওই নারীকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করেও কোন ক্লু উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। 

ফারদিন মেধাবী শিক্ষার্থী ছিল। ভর্তিপরীক্ষার সময় বুয়েট। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেয়েছিল। বুয়েট ডিবেট সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক ছিল ফারদিন। ওয়াল্ড ইউনিভার্সিটির ডিবেট চেম্পিয়ন শীপ হিসেবে আগামী জানুয়ারি মাসে স্পেন যাওয়ার কথা ছিল। তাদের করোরই ধারণা নেই কারা কি কারণে তাকে হত্যা করেছে। পরিবারের পক্ষ থেকে ধারণা করছেন ফারদিনের মেধার কারণে ঈর্ষান্বিত হয়ে এই হত্যাকান্ড ঘটিয়ে থাকতে পারে। 

মরদেহ উদ্ধার কারি নৌ পুলিশ জানিয়েছে লাশটি নদীর জোয়ারে ভেসে এসেছে। ৯৯৯ এ খবর পেয়ে লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। 

নিহতের স্বজনরা জানান ;  দুপুরে ফারদিনের প্রথম জানাজা হবে বুয়েটে। বিকেলে ডেমরা সামসুল হক স্কুল ও কলেজে দ্বিতীয় জানাজা শেষে পৈতৃক ভিটা নারায়ণগঞ্জের দেলপাড়ায় তৃতীয় জানাজা শেষে দাফন সম্পন্ন হবে। পরবর্তীতে পারিবারিক ভাবে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে কোন থানায় মামলা দায়ের করা হবে।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১ টায় নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে শিক্ষার্থীর ফারদিন নূর পরশের ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। ময়না তদন্তের ডা. ফরহাদ হোসেন বলেছেন, বুয়েট শিক্ষার্থী ফারদিন নূর পরশের শরীরের বুকে ও মাথায় যে পরিমাণ আঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে তাতে নিশ্চত এটি হত্যাকান্ড। তার ভিসেরা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।  ময়না তদন্তের প্রতিবেদন বেলে মৃত্যুর কারন সম্পর্কে স্পষ্ট হওয়া যাবে।

নিহতের পরিবার সুষ্ঠ তদন্ত শেষে খুনিদের শনাক্ত করে সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেছেন। 


আরও খবর