Logo
শিরোনাম
যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন, ভোগান্তি চরমে

মোরেলগঞ্জে খাল কাটা এখন গলার কাটা : কার্পেটিং রাস্তা ধস

প্রকাশিত:বুধবার ১৬ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৮ নভেম্বর ২০২২ |
Image

এম.পলাশ শরীফ, নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে বলইবুনিয়া ও পুটিখালী ইউনিয়নের সিমান্তে মোল্লারজোর ৬ কিলোমিটার খাল কাটায় ২ কিলোমিটার কার্পেটিং ও  সোয়া ২ কিলোমিটার ইটসোলিং রাস্তা ভেঙ্গে ডেবে গেছে। খাল কাটা এখন গলার কাটা হয়ে দাড়িয়েছে। ৩ ইউনিয়নের মানুষের চলাচলে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। হুমকির মুখে রয়েছে ব্রীজ। এতে হাজার হাজার মানুষের ভোগান্তি এখন চরমে।

 বুধবার সরেজমিনে খোজ নিয়ে জানাগেছে, উপজেলার বিষখালী খাল হয়ে বলইবুনিয়া শ্রেনীখালী অভিমুখি পানিউন্নয়ন বোর্ড প্রকল্পের মাধ্যমে ৬.৫ কিমি. মোল্লারজোর খাল পুনঃখাননের কাজটি শুরু হওয়ার ২দিনের মাথায় ১২.৬০ কিলোমিটার বলইবুনিয়া হয়ে আমতলা, পুটিখালী ১ কোটি ৪ লাখ টাকা ব্যায়ে কার্পেটিং রাস্তাটি ভেঙ্গে ডেবে যায়। পাশেই সোয়া ২ কিলোমিটারের ইট সোলিং রাস্তাটির একই অবস্থা। জনগুরুত্বপূর্ন এ রাস্তা দুটি ভেঙ্গে পড়ায় বলইবুনিয়া, পুটিখালী ও দৈবজ্ঞহাটীর ৩ ইউনিয়নের মানুষের চলাচলে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ৮/১০টি গ্রামের মানুষের ভোগান্তি এখন চরমে। অটোভ্যান, মোটরসাইকেল, ইজিবাইক, কৃষকদের উৎপাদিত ফসল বাজারে বিক্রির জন্য বিকল্প ব্যবস্থায় নিয়ে আসতে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

 ক্ষতিগ্রস্ত সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড ইউপি সদস্য কেএম জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, অপরিকল্পিত প্রকল্প কৃষকের উপকারে খালকাটা এখন গলার কাটা হয়ে দাড়িয়েছে। বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল গনি খানের নামে একটি ইটসোলিং রাস্তা সেটিও ভেঙ্গে গিয়ে গ্রামবাসীরা দুর্ভোগে  পড়েছে। কর্তাব্যক্তিদের নেই কোন নজরদারি।


 স্থানীয় বলাইবুনিয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা কৃষক আবুল কালাম খান, অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য আব্দুস কুদ্দুস শেখসহ একাধিক ক্ষতিগ্রস্তরা বলেন, দুটি রাস্তা ভেঙ্গে কয়েক হাজার মানুষের ক্ষতিগ্রস্ত করছে। দুই ইউনিয়নের খালের সংযোগ ব্রীজটিও এখন হুমকির মুখে। সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের প্রতি জরুরি ভিত্তিতে জনসাধারনের দুর্ভোগ লাঘবের জন্য ব্যবস্থা গ্রহনের জোর দাবি জানান তারা।  

বলইবুনিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান আলী খান বলেন, ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান কাজটি শুরুতেই দায়সারাভাবে করেছে। মূল ঠিকাদার স্পর্টে কখনও আসেনি। স্থানীয় এক ব্যক্তিকে দিয়ে কাজটি করানো হচ্ছে। কার্পেটিং রাস্তা ভেঙ্গে পড়ার বিষয়টি পানিউন্নয়ন বোর্ডের কর্তৃপক্ষকে জানানো হলেও এখনও পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা গ্রহন করেনি তারা।

এ সর্ম্পকে বাগেরহাট জেলা পানিউন্নয়ন বোর্ডের ফিল্ড অফিসার (এসও) মোশারেফ হোসেন বলেন, কার্পেটিং রাস্তাটি ভেঙ্গে যাওয়ায় উর্দ্ধতন কর্মকর্তাকে জানানো হয়েছে। ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী মো. আরিফুল ইসলাম বলেন, এ উপজেলার বলইবুনিয়ার বাসবাড়িয়া আমতলা পুটিখালীর ১২.৬০ মিটার কার্পেটিং রাস্তাটি ২০১৬-২০১৭ অর্থ বছরে নির্মাণ করা হয়। খাল কাটার কারনে রাস্তা ভেঙ্গে যাওয়ার বিষয়টি শুনে সরেজমিনে পরিদর্শন করে। তাৎক্ষনিক ক্ষয়-ক্ষতির বিষয়ে উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের অবহিত করা হয়েছে। 


আরও খবর



সরকার জনগনকে, বিএনপিকে ভয় পায়

প্রকাশিত:শনিবার ২৯ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৮ নভেম্বর ২০২২ |
Image

মিজা ফখরুল : সরকার বলে জনগনকে ভয় পায় না : তাহলে সমাবেশে বাঁধা কেন।  

সমবেশকে বিদ্রোহ এর সমাবেশ তৈরি করেছেন। কারণ একটাই ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ।  চিবিয়ে চিবিয়ে অর্থনীতি খেয়ে ফেলেছে। এখন দেশটাকে খেয়ে ফেলার চেষ্টা করছে।  প্রতিটি ক্ষেতে চুরি চুরি আর চুরি এমনকি মানুষকে ঘর দিয়ে : টাকা নেয়।  এই সরকার এমন কোন খাত নাই যেখান থেকে চুরি করছে না। 

মিথ্যা মামলা গুম খুন করেছে ৩৫ লাখ নেতাকমীদের নামে মামলা দিয়েছে।  যারা দেশকে মানুষ কে ধংস করে দেয় তাদের কি আর ক্ষমতায় রাখা যায় ? 

দুভিক্ষ যদি হয় ; তার সব দায় শেখ হাসিনা এবং আওয়ামীলীগ দুনীতি দায়ী : 

দেশ মধ্য আয়ের দেশ হয়ে গেছে : তাহলে কেন এসব মিথ্যা কঁথা বললেন কেন।   চাল ডাল চিনি ডাল ডিম এতো দাম কেন ৪২:/ ভাগ মানুষ 

মানুষকে বলছেন কম খান। আর নিজেরা চিতল মাঝ খান : ঘন ঘন বিদেশে যান। 

আবার নতুন করে জংগীবাদের ভোতা অস্ত  বের করছে আওয়ামীলীগ।  এসব যে তাদের মিথ্যা আর বিশ্বাস করে না। 

এদেশের মানুষ আর ক্ষমতায় থাকতে দেবে না।   সবাইকে নুরুল উদ্দীনের ডাকে দেন জাগো বাহে কোনঠে সবাই।   

মুক্তি যুদ্ধ কি এই ধরনের শোষন শাসনের জন্য : ১৪ বা ১৮ সালের মতো আর নিবাচন হবে না। সোজা কথা পদত্যাগ করতে হবে : সংসদ ভেংগে দিতে হবে আর নিদলীয় সরকারেরর অধীনে নিবাচন হবে।  বিএনপির এমপি হারুন , রুমিন জাহিদুর মোশাররফ , জিম সিরাজ সবাই রেডি আছে। সংসদ থেকে পদত্যাগ করার জন্য পস্তুত।  আরেকবার মানুষ  যুদ্ধ করে রাহু মুক্ত করতে হবে।


আরও খবর



আত্রাইয়ে আনসার ভিডিপি’র সমাবেশ অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৫ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

কাজী আনিছুর রহমান,রাণীনগর (নওগাঁ) :

‘শান্তি শৃঙ্খলা উন্নয়ন নিরাপত্তায় সর্বত্র’ এই প্রতিপাদ্য বিষয় সামনে রেখে নওগাঁর আত্রাইয়ে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী সমাবেশ আনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কার্যালয়ের আয়োজনে উপজেলা অডিটরিয়াম হল রুমে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইকতেখারুল ইসলামের সভাপাতিত্বে এবং উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা আমিনুল ইসলামের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন হেলাল। অন্যদের মধ্যে উপজেলা চেয়ারম্যান এবাদুর রহমান প্রমাণিক, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি শ্রী নিপেন্দ্রনাথ দত্ত দুলাল, সাধারণ সম্পাদক আক্কাছ আলী,ভাইস চেয়ারম্যান শেখ হাফিজুল ইসলাম,মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মমতাজ বেগম,আত্রাই থানা ওসি তারেকুর রহমান সরকার প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠান শেষে বিশেষ অবদানের জন্য ৩৫ জন আনসার ও ভিডিপি সদস্যদের পুরষ্কার প্রদান করা হয়। সমাবেশে উপজেলার ৮ টি ইউনিয়নের আনসার ও ভিডিপি সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



র‍্যাবের অভিযানে মাদক সেবনকারী ৭ জন কিশোর গ্যাং চক্রের সদস্য গ্রেফতার

প্রকাশিত:বুধবার ১৬ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টারঃ 


র‍্যাবের অভিযানে মাদকসেবনরত অবস্থায় ৭ জন কিশোর গ্যাং চক্রের সদস্য গ্রেফতার।

জয়পুরহাটের সদর থানার খঞ্জনপুর উত্তরপাড়াস্থ খঞ্জনপুর আনসার ক্যাম্প হতে বেল-আমলাগাী পাকা রাস্তার পশ্চিম পার্শ্বে এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে কিশোর গ্যাংয়ের ৭ জন সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। তারা বিভিন্ন কলেজ এর শিক্ষার্থী বলেও জানান র‍্যাব।

আটককৃতরা হলেন, সদর উপজেলার চকশ্যাম গ্রামের মোঃ আনোয়ারের ছেলে মোঃ ওবাইদুল ইসলাম (২২), মোঃ আসাদুল ইসলামের ছেলে মোঃ আল আমিন হোসেন (২৫), মোঃ ইলিয়াস হোসেনের ছেলে মোঃ উজ্জল হোসেন (২৩), মোঃ মাসুদ রানার ছেলে মোঃ সুজন হাসান (১৯), মোঃ সোনা মিয়ার ছেলে মোঃ মিরাজ হোসেন (২২), ও খঞ্জনপুর উত্তরপাড়া গ্রামের মোঃ রুস্তম মন্ডলের ছেলে মোঃ আরিফুল ইসলাম, (২২), মোঃ রেজাউল ইসলামের ছেলে মোঃ রাসেল সাজু (২০)।

র‌্যাব জানায়, জয়পুরহাট র‌্যাব ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মেজর মোঃ মোস্তফা জামান, আর্টিলারি, ও সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার মোঃ মাসুদ রানার নেতৃত্বে মঙ্গলবার দিবাগত রাত পৌনে ১১টার দিকে মাদকসেবনরত অবস্থায় হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়। উল্লেখ্য, অভিযুক্তরা অবৈধ মাদকদ্রব্য গাঁজা সেবন করে নেশাগ্রস্ত অবস্থায় বিরক্তিকর আচরণ ও জনসাধারণের শান্তি বিনষ্ট করে আসছিল। 

পরবর্তীতে তাদের বিরুদ্ধে জয়পুরহাট জেলার সদর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ অনুসারে মামলা দায়ের করা পূর্বক বুধবার জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।


আরও খবর



আট ব্যাংকের প্রভিশন ঘাটতি ২০ হাজার কোটি টাকা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৭ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

রোকসানা মনোয়ার :  ব্যাংকিং খাতে বাড়ছে খেলাপ ঋণ। সেই সঙ্গে বাড়ছে ঝুঁকিপূর্ণ ঋণের পরিমাণও। আর এই ঝুঁকিপূর্ণ ঋণের বিপরীতে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা (প্রভিশন) সংরক্ষণ করতে ব্যর্থ হয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত ও বেসরকারি খাতের আটটি ব্যাংক ।  সেপ্টেম্বর শেষে এসব ব্যাংকের প্রভিশন ঘাটতির পরিমাণ ১৯ হাজার ৮৩৩ কোটি টাকা।

ঘাটতির তালিকায় রয়েছে সরকারি অগ্রণী, বেসিক, জনতা ও রূপালী ব্যাংক। আর বেসরকারিতে বাংলাদেশ কমার্স, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট, ন্যাশনাল ও স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের নাম।

করোনাভাইরাসের কারণে ২০২০ ও ২০২১ সালে দেশের অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াতে নানামুখী সুবিধা দিয়েছে সরকার। এ ক্ষেত্রে ব্যাংক ঋণ পরিশোধেও বিভিন্ন ছাড় দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। চলতি বছরের শুরুতে তা তুলে নেয়ার পর ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে খেলাপি ঋণ। 

বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ম অনুযায়ী, সব ধরনের ব্যাংক যেসব ঋণ দেয় তার গুণমান বিবেচনায় নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ প্রভিশন হিসেবে জমা রাখতে হয়। কোনো ঋণ শেষ পর্যন্ত মন্দ ঋণে পরিণত হলে তাতে যেন ব্যাংক আর্থিকভাবে ঝুঁকিতে না পড়ে, সেজন্য এ প্রভিশন সংরক্ষণের নিয়ম রাখা হয়েছে।

ব্যাংকের অশ্রেণিকৃত বা নিয়মিত ঋণের বিপরীতে দশমিক ২৫ থেকে পাঁচ শতাংশ হারে প্রভিশন রাখতে হয়। নিম্ন বা সাব-স্ট্যান্ডার্ড ঋণের বিপরীতে রাখতে হয় ২০ শতাংশ, সন্দেহজনক ঋণের বিপরীতে ৫০ শতাংশ এবং মন্দ বা কু-ঋণের বিপরীতে ১০০ শতাংশ প্রভিশন সংরক্ষণ করতে হয়। 

প্রতিবেদন বিশ্লেষণে দেখা যায়, চলতি বছরের সেপ্টেম্বর প্রান্তিক শেষে রাষ্ট্রায়ত্ত চার ব্যাংকের প্রভিশন ঘাটতি ১১ হাজার ৬৯৬ কোটি টাকা। জুন শেষে এ চার ব্যাংকের ঘাটতি ছিল ১১ হাজার ১৭ কোটি টাকা। সবচেয়ে বেশি ঘাটতি বেসিক ব্যাংকে চার হাজার ৫৬২ কোটি টাকা। জুনে যা ছিল চার হাজার ৪৪১ কোটি ৫৪ লাখ টাকা। এর পরেই অগ্রণী ব্যাংকের ঘাটতি তিন হাজার ৫২১ কোটি টাকা। জুনে ছিল দুই হাজার ৯৭৩ কোটি ২২ লাখ টাকা। তালিকায় তৃতীয় স্থানে রয়েছে রূপালী ব্যাংক। তিন হাজার ১৩ কোটি ৫৪ লাখ টাকা প্রভিশন ঘাটতিতে পড়েছে ব্যাংকটি। জুনে রূপালীর ঘাটতি ছিল দুই হাজার ৯৬২ কোটি ১০ লাখ টাকা৷ 

চতুর্থ অবস্থানে থাকা জনতা ব্যাংকের প্রভিশন ঘাটতি কিছুটা কমে হয়েছে ৫৯৮ কোটি ৯৬ লাখ টাকা। জুনে যা ছিল ৬৪০ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

বেসরকারি চার ব্যাংকের প্রভিশন ঘাটতি আট হাজার ১৩৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে শুধু ন্যাশনাল ব্যাংকেরই ঘাটতি  সাত হাজার ৪৭৪ কোটি ৪৯ লাখ টাকা। জুনে ঘাটতি ছিল সাত হাজার ১১৫ কোটি ৯০ লাখ টাকা। 

দ্বিতীয় স্থানে থাকা বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকের ৩৪৪ কোটি ৬৮ লাখ টাকা প্রভিশন ঘাটতি রয়েছে। এ ছাড়া মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ১৭১ কোটি ১৫ লাখ টাকা ও স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের ১৪৬ কোটি ৭৭ লাখ টাকা প্রভিশন ঘাটতি রয়েছে।


আরও খবর



নারায়ণগঞ্জে অস্ত্র মামলায় একজনের ১৭ বছরের কারাদণ্ড

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১০ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

বুলবুল আহমেদ সোহেল ঃ

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার একটি অস্ত্র মামলায় শাহিন ওরফে  চুষনি শাহীনকে ১৭ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। দুপুরে নারায়ণগঞ্জ যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ কাজী ইয়াসিন হাবীবের আদালত এ রায় প্রদান করেন। দণ্ডপ্রাপ্ত শাহীন ফতুল্লার ফাজিলপুর এলাকার মৃত মুনসুর কন্ট্রাক্টরের ছেলে।

কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক আসাদুজ্জামান জানান, ২০১৫ সালের ৬ এপ্রিল র‌্যাব-১১ ফতুল্লা এলাকা থেকে অভিযান চালিয়ে শাহীনকে গ্রেফতার করে। এসময় তার কাছ থেকে একটি বিদেশী পিস্তল, এক রাউন্ড গুলি ও একটি চাকু উদ্ধার করা হয়। পরে এই ঘটনায় ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা দায়ে করা হয়। মামলার তদন্ত শেষে স্বাক্ষীদের সাক্ষ্যগ্রহণের ভিত্তিতে অস্ত্র আইনের দুইটি ধারায় ১৭ বছরের কারাদণ্ড প্রদান করেন আদালত।


আরও খবর