Logo
শিরোনাম

নারায়ণগঞ্জে থানার সামনেই সাংবাদিককে মারধর করেছে সন্ত্রাসীরা

প্রকাশিত:Saturday ১২ November ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

বুলবুল আহমেদ সোহেল ঃ

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় থানার সামনেই এশিয়ান টেলিভিশনের ফতুল্লা প্রতিনিধি বদিউজ্জামানকে মারধর করেছে বক্তাবলীর চিহ্নিত সন্ত্রাসী জাকির বাহিনী। বিকালে ফতুল্লা মডেল থানার মূল ফটকের সামনেই এ ঘটনা ঘটে। এতে এশিয়ান টেলিভিশনের ফতুল্লা প্রতিনিধি বদিউজ্জামান খান গুরুতর আহত হয়েছে। 

ওইসময় সাংবাদিককে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে মেরে ফেলাসহ উল্টো আদালতে মামলা করে দেখে নেয়ার হুমকী দেয় সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনার পর সাংবাদিক জামান ফতুল্লা মডেল থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করেছেন।

ভুক্তভোগীর অভিযোগে জানা গেছে, থানা সংলগ্ন কাদির কম্পিউটার দোকানের সামনে সাংবাদিক জামান তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে পেশাগত কাজে বাধা দেয় সন্ত্রাসী জাকির, জালাল, আলমগীরসহ তার বাহিনী। এক পর্যায়ে কিছু বুঝে উঠার আগেই জাকির সাংবাদিক জামানের শার্টেল কলার চেপে ধরে এবং এলোপাথারি চর, কিল, ঘুষি ও লাথি মেরে আহত করে। মুঠোফোনে তা ভিডিও ধারণ করতে গেলে অন্যান্য বিবাদীগণ অংশ নিয়া সাংবাদিক জামানের পড়নের শার্ট ছিড়ে ফেলে। এছাড়া তার হাতে থাকা মোবাইল ফোনটি ছিনিয়ে মাটিতে ফেলে ডিসপ্লে নষ্ট করে দেয়। তার গলায় ঝুলানো এশিয়ান টিভির পরিচয়পত্রের ফিতাটিও ছিড়ে ফেলে। এরপর তাকে বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি প্রদর্শণসহ প্রাণনাশের হুমকি দেয়।

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় অফিসার ইনচার্জ রিজাউল হক দিপু বলেছেন, আমরা বিষয়টা দেখছি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

উল্লেখ্য, বক্তাবলী এলাকার মৃত জাকির হোসেনের জামাতা জাকির হোসেন। সে বিভিন্ন সময় পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং প্রভাবশালীদের পরিচয়ে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার করে আসছে। এছাড়াও স্থানীয় মানুষদের মামলায় জড়িয়ে হয়রানী অভিযোগ রয়েছে।


আরও খবর



নওগাঁতে স্ত্রীকে বিবস্ত্র ও মাথার চুলকেটে নির্যাতন, স্বামীসহ ৪ জন আটক

প্রকাশিত:Friday ২০ January ২০23 | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :

নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলা সদরে পরক্রিয়া প্রেমিক রাশেদ এর সাথে স্ত্রীকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পেয়ে ক্ষিপ্ত স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন পরক্রিয়া প্রেমিক রাশেদ এর মাথার মাঝের চুল কেটে দেন এবং স্ত্রী'র বিবস্ত্র ভিডিও সহ ছবি ধারণ করে মাথার চুল কেটে দেয়ার ঘটনা ঘটছে। এঘটনায় স্ত্রী রাবেয়া বসরী মুক্তা (৩৭) বাদী হয়ে মহাদেবপুর থানায় তার স্বামী, সতীন ও দুই দেবর সহ মোট ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করলে মহাদেবপুর থানা পুলিশ শুক্রবার পূর্বরাতে অভিযান চালিয়ে স্বামী ওবায়েদ হোসেন হীরা, দুই দেবর জোবায়ের হোসেন মানিক, ওয়াহেদ হোসেন বাদশা ও শুক্রবার সকালে সতীন উম্মে হাবিবা মোট ৪ জনকে গ্রেফতার করেছেন। লোকজনের মাঝে চাঞ্চল্যকর সৃষ্টিকারী ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার ভোর ৪ টারদিকে মহাদেবপুর উপজেলা সদরের লাইব্রেরী পট্টি মধ্যবাজার এলাকায়। 

স্থানিয় সুত্র জানায়, পরক্রিয়া প্রেমিক রাশেদ এর সাথে স্ত্রীকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পেয়ে ক্ষিপ্ত স্বামী ওবায়েদ হোসেন হীরা ও তার দু' ভাই তাদের আটক করে প্রমিক রাশেদ এর মাথার মাঝখানের চুল কেটে দেন এবং স্ত্রীর মাথার চুলও কেটে নির্যাতন করেন। নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ বাদী হয়ে স্বাসী সহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

মামলা সূত্রে জানাযায়, মহাদেবপুর উপজেলা সদরের ঐ মহল্লার মৃত বজলুর রহমানের ছেলে ওবায়েদ হোসেন হীরা পারিবারিক কলহের জের ধরে তার স্ত্রী রাবেয়া বসরী মুক্তাকে প্রায় দিনই মারপিট করতেন। পারিবারিক কলহের জের ধরে স্ত্রী মুক্তার সাথে ঘোষপাড়া এলাকার মৃত আয়েজ উদ্দীন আকন্দের ছেলে এনামুল হক রাসেদ এর পরক্রিয়া সম্পর্ক আছে এমন অভিযোগ তুলে গৃহবধূর স্বামী হীরা, সতিন উম্মে হাবিবা, দেবর মানিক ও বাদশা, মধ্যবাজার এলাকার মৃত জান মোহাম্মদের ছেলে সাদ্দাম হোসেন সাগর, মৃত আইজুলের ছেলে মামুন হোসেন বুধবার রাত ৩ টা থেকে ভোর ৬ টা পর্যন্ত শারিরিক নির্যাতন, মারপিট, বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ, মাথার চুল কেটে নেয়া সহ জোর পূর্বক সাদা স্ট্যাম্প ও চেকে স্বাক্ষর নেয়। সংবাদ পেয়ে বৃহস্পতিবার সকালে পুলিশ গিয়ে নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ রাবেয়া বসরী মুক্তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার বিকেলে রাবেয়া বসরী মুক্তা স্বামী সহ ৬ জনের বিরুদ্ধে প্যানাল কোড ও পর্ণগ্রাফী নিয়ন্ত্রণ আইনে থানায় মামলা দায়ের করলে শুক্রবার পূর্ব ভোররাতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে স্বামী হীরা, দেবর মানিক ও বাদশা সহ ৩ জনকে গ্রেফতার করেন এবং শুক্রবার সকালে সতীন উম্মে হাবিবা কে ও গ্রেফতার করেন পুলিশ।

ঘটনা ও মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে মহাদেবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোজাফফর হোসেন জানান, স্ত্রী মুক্তাকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ করার ঘটনায় স্বামী, সতীন ও দুই দেবরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এসময় ধারণকৃত ভিডিও সহ মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। তিনি আরো জানান, গ্রেফতারকৃত ৪ জনকে শুক্রবার দুপুরে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে নওগাঁ জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।


আরও খবর



স্কুলকে মোবাইল অ্যাপে নিয়ে আসলেন ব্রাহ্মণপাড়ার ইউএনও

প্রকাশিত:Sunday ২৯ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

কুমিল্লা ব্যুরো :

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য শিখন ব্যবস্থাপনা অ্যাপ তৈরি করে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে উপজেলা প্রশাসন।       নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সোহেল রানার উদ্ভাবিত মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করে উপজেলা ও জেলার বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তাদের শিখন ব্যবস্থাপনায় এনেছে অভাবনীয় পরিবর্তন। রুটিন থেকে শুরু করে লেসন প্ল্যান, শিক্ষা সহায়ক ডিজিটাল উপকরণসহ শিখন কার্যক্রমের পুরোটা এখন চলছে মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে। নতুন বছরের শুরুতে অ্যাপ ভিত্তিক শিখন শেখানো কার্যক্রম হাতের মুঠোয় পেয়ে চরম খুশি শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নেও এ অ্যাপ হতে পারে দারুণ সহায়ক।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশ তাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে লার্নিং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের মাধ্যমে শিখন কার্যক্রমকে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে নিয়ে আসা হয়। তবে, বাংলাদেশের স্কুল কলেজের জন্য এক নতুন ধরণের লার্নিং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম উদ্ভাবন করলেন কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ার ইউএনও সোহেল রানা। ‘শিক্ষায়তন’ নামের এই লার্নিং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম একটি স্যাস ( সফটওয়ার এজ এ সার্ভিস) মডেল অনুসারে তৈরী করা ই-সার্ভিস এপ্লিকেশন যাতে দুইটি ওয়েব বেজড প্ল্যাটফর্ম ও একটি মোবাইল এ্যাপ। পুরো সিস্টেমটির স্পেসিফিকেশন ডিজাইন করেছেন ইউএনও সোহেল রানা। এই ডিজাইনটিকে বাস্তবায়ন করতে জেলা প্রশাসন, কুমিল্লা পরবর্তীতে বিজনেস একসিলারেট বিডি নামে একটি টেকনোলজি পার্টনার নিযুক্ত করে যারা সফলভাবে এই লার্নিং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম ডেভেলাপ করে। সফল পাইলটিং শেষে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বর্তমানে কুমিল্লার ৫টি স্কুলে বাস্তবায়নাধীন আছে সফটওয়ারটি। স্কুল ৫টি হলো কুমিল্লার কালেক্টরেট স্কুল, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলাধীন শিদলাই আশরাফ স্কুল, ভগবান সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, ওশান হাই স্কুল এবং সদর দক্ষিণ উপজেলার শিক্ষা বোর্ড মডেল স্কুল এন্ড কলেজ। 

মূলত এই প্ল্যাটফর্মে স্কুলের সকল কার্যক্রম প্রধান শিক্ষক ওয়েব প্ল্যাটফর্মে, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা মোবাইল অ্যাপে করতে পারবেন। শিক্ষার্থীদের জন্য প্রতিটি কোর্সে আলাদা আলাদাভাবে সাজানো আছে। কোর্সের ভেতরে সেই কোর্সে সকল ক্লাসের আলাদা ডাইনামিক সেকশন আছে যেখানে শিক্ষকেরা অতিরিক্ত লার্নিং ম্যাটেরিয়াল জমা করতে পারবেন এবং শিক্ষার্থীরা তা দেখতে পাবেন। শিক্ষকেরা  অ্যাপে লেকচার নোট আপলোড করতে পারবেন, শিক্ষার্থীদের গ্রুপে ভাগ করতে পারবেন, ক্লাসে নোটিফিকেশন পাঠাতে পারবেন, এসাইনমেন্ট দিতে পারবেন ও জমা নিতে পারবেন, গ্রেড বসাতে পারবেন। ক্লাসে বসে সফটওয়্যার ব্যবহার করে শিক্ষকেরা হাজিরা নিতে পারবেন। অর্থাৎ স্কুলের সকল কার্যক্রম মোবাইল অ্যাপে করতে পারবেন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। এছাড়াও, প্রত্যেক শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের রয়েছে নিজস্ব ওয়েব পেইজ। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে  ইউএনও সোহেল রানা বলেন, ‘ লার্নিং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের ধারণাটি বেশ পুরনো। স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ক্যানভাস, মুডল, স্কুলজি, ব্ল্যাকবোর্ড ইত্যাদি নানা ধরণের লার্নিং ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার আছে। এগুলো স্কুল ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার থেকে কিছুটা ভিন্ন ধাচের। তবে, নানা ধরণের সফটওয়্যার এর ডিজাইন বিশ্লেষণ করে, শিক্ষক শিক্ষার্থীদের সাথে আলোচনান্তে স্থানীয় চাহিদা নআমরা কুমিল্লার সকল স্কুলে এটি বাস্তবায়ন করতে চাই ও পরবর্তীতে সরকার বড় পরিসরে পুরো বাংলাদেশে এটি ছড়িয়ে দিতে পারে। শিক্ষার মানোন্নয়নে ও সরকারের স্মার্ট বাংলাদেশের রূপকল্প বাস্তবায়নেও এটি সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারে। তবে, এটি বাস্তবায়নের অনেকগুলো চ্যালেঞ্জ আছে যেগুলো মোকাবিলা করে সামনে এগুতে হবে।’ 

কু‌মিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক  ও বর্তমানে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের যুগ্মসচিব জনাব মোহাম্মদ কামরুল হাসান জানান,“ আমি জেলা প্রশাসনে যোগ দেওয়ার পর থেকেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন স্মার্ট বাংলাদেশ বাস্তবায়নে ও চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় কাজ করে আসছি। কাজ করতে গিয়ে শিক্ষা ব্যবস্থাপনাকে যুগোপযোগি করে তোলার কথা মাথায় আসে। ব্রাহ্মণপাড়ার উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল রানা শিক্ষাক্ষেত্রে লার্নিং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের আধুনিকায়নের কথা বললে আমরা সেই অভাব পূরণের লক্ষ্যে লার্নিং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম তৈরী করার উদ্যোগ গ্রহণ করি এবং পরবর্তীতে তা প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিক্ষার্থীদের মাঝে ছড়িয়ে দেই। সেখান থেকেই মূলত শিক্ষায়তনের যাত্রা শুরু।”

শিক্ষায়তনের টেকনিক্যাল বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করছেন বিজনেস একসিলারেটের সিইও কামরুল হাসান সুমন। তিনি বলেন এ ধরণের সফটওয়্যারের ব্যবহার দেশে নেই। “ দেশে প্রচলিত সফটওয়্যারগুলোতে  ক্লাসরুমে কি পড়ানো হচ্ছে সে বিষয়টি সংযোগ করার অপশন কম। শিক্ষায়তনের মাধ্যমে অভিভাবক, শিক্ষার্থীরা জানতে পারবেন তার বাচ্চারা কি পড়ছে। যেগুলো আছে (যেমন টেন মিনিট স্কুল) তাদের অধিকাংশ কনটেন্ট নির্ভর সেবা দেয়। আমাদের এই সফটওয়্যার কনটেন্ট নির্ভর নেই। জেলা প্রশাসনের মতো প্রতিষ্ঠান থেকে এরকম সফটওয়্যার এর ডিজাইন অভাবনীয়। আমরা এই উদ্যোগের অংশীদার হতে পেরে গর্বিত এবং ভবিষ্যতে এটিকে সারা দেশে ছড়িয়ে দিতে ইচ্ছুক।” 

ভগবান সরকারি স্কুলে শিক্ষায়তন বাস্তবায়ন করছেন বিজ্ঞান শিক্ষক মহিউদ্দিন পলাশ। তিনি  জানান শিক্ষায়তন এমন একটি সফটওয়্যার যেখানে এক কথায় শ্রেণি কার্যক্রমের সবকিছু রয়েছে। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা মোবাইলের মাধ্যমে উন্নত মানের শিক্ষা সেবা গ্রহণ করতে পারবে। অ্যাপের  মাধ্যমে শিক্ষকদের কাজ অনেকটাই সহজ হয়ে যাবে। বিশেষ করে তদের টিচিং প্ল্যান সাজানোর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।    

বর্তমানে www.sikkhayton.gov.bd   ইউআরএলের মাধ্যমে প্ল্যাটফর্মটি ব্যবহার করা যাবে ও গুগল প্লে স্টোরে এপের নাম ‘শিক্ষায়তন’ অথবা ‘sikkhayton’ নামে এন্ড্রয়েড অ্যাপটি পাওয়া যাবে। শিক্ষায়তন নেটওয়ার্কে যুক্ত হতে চাইলে আগ্রহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জেলা প্রশাসন, কুমিল্লা অথবা উপজেলা প্রশাসন, ব্রাহ্মণপাড়ার সংশ্লিষ্টদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।


আরও খবর



রাশিয়াকে অবহেলা বিপজ্জনক হবে :ন্যাটো

প্রকাশিত:Friday ০৬ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Thursday ০২ February 2০২3 |
Image

রাশিয়াকে খাটো করে দেখালে সেটি বিপজ্জনক হবে বলে মন্তব্য করেছেন পশ্চিমাদের সামরিক জোট ন্যাটোর মহাসচিব জেন্স স্টোলটেনবার্গ।

বৃহস্পতিবার নরওয়েতে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন তিনি। স্টোলটেনবার্গ বলেন, প্রেসিডেন্ট পুতিন তার পরিকল্পনা ও ইউক্রেনে লক্ষ্য পাল্টেছেন বলে কোনও ইঙ্গিত নেই। ফলে রাশিয়াকে খাটো করে দেখা হবে বিপজ্জনক। তবে, এই মুহুর্তে রাশিয়া ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি ও দুর্ভোগ মেনে নেয়ার সদিচ্ছা দেখাচ্ছে। এদিকে, এদিন ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের রাশিয়ার সাথে তুমুল লড়াইয়ের কথা জানিয়েছেন ইউক্রেন। দেশটির প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি পশ্চিমা মিত্রদেরকে ইউক্রেনে সেনাবাহিনীকে ট্যাংক সরবরাহের আহ্বান জানিয়েছেন।  


আরও খবর



র‍্যাবের অভিযানে কষ্টি পাথরের মূর্তি উদ্ধারসহ ৩ জন আটক

প্রকাশিত:Monday ১৬ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :

র‍্যাবের অভিযানে ১টি কষ্টি পাথরের বিষ্ণু মূর্তি উদ্ধার সহ জড়ীত ৩ জন প্রতারক কে গ্রেফতার।

জয়পুরহাট জেলা সদর উপজেলার বানিয়াপাড়া এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ৪০ কেজি ওজনের একটি বিষ্ণু মূর্তি উদ্ধার সহ আব্দুল আলীম (৩২), জহুরুল ইসলাম (৪৪) ও মেহেদী হাসান (৩২) নামের সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের ৩ জন সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব।

সত্যতা নিশ্চিত করে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট কাম্প থেকে জানানো হয়, র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার মেজর মোঃ মোস্তফা জামানের নেতৃত্বে রবিবার বেলা পৌনে ৩ টার দিকে জেলার কালাই থানার আকন্দপাড়া গ্রামের মফিজুল প্রামাণিকের ছেলে ও প্রতারক চক্রের মূলহোতা মোঃ আব্দুল আলীম, একই থানার কালাই পূর্বপাড়া গ্রামের মৃত আলতাব মোল্লার ছেলে মোঃ জহুরুল ইসলাম ও ক্ষেতলাল থানার ভাসিলা থানার মৃত আব্দুল জলিলের ছেলে মোঃ মেহেদী হাসানকে হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়।

র‍্যাব আরো জানায় যে, গ্রেফতারকৃত মোঃ আব্দুল আলিম সংঘবদ্ধ একটি প্রতারক চক্রের মূলহোতা এবং অন্য দু' জন সেই চক্রের সক্রিয় সদস্য। তারা পরস্পর যোগসাজশে দেশের বিভিন্ন এলাকার লোকজনকে কষ্টিপাথরের বিষ্ণু মূর্তির মিথ্যা প্রলোভন দেখিয়ে তাদের নিকট হইতে প্রতারণার মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিত। 

পরবর্তীতে তাদের বিরুদ্ধে থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইন-১৯৭৪ অনুসারে মামলা দায়ের পূর্বক সোমবার জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।


আরও খবর



তীব্র শীতে হাসপাতালে বাড়ছে রোগীর সংখ্যা

প্রকাশিত:Saturday ০৭ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

রোকসানা মনোয়ার :তীব্র শীত ও ঘন কুয়াশায় স্বাভাবিক জনজীবন ব্যাহত হচ্ছে। শীতের প্রকোপে রাজধানীতে বাড়ছে শিশুদের ঠান্ডাজনিত সমস্যা। এতে গত এক সপ্তাহে কেবল ঢাকা শিশু হাসপাতালেই জ্বর-সর্দি-কাশি নিয়ে রোগী বেড়েছে দ্বিগুণ। যেসব শিশুর আগে থেকেই অ্যাজমার সমস্যা আছে তারা ভর্তি হচ্ছে হাসপাতালে। পাশাপাশি বাড়ছে নিউমোনিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই সময় এসবের আগে দরকার অভিভাবকদের সচেতনতা।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে সূর্যের দেখা মেলেনি এখানে। পৌষের কনকনে শীতে কাবু হয়ে পড়েছে মানুষ। ঘন কুয়াশায় চারিদিক আবৃত হয়ে আছে। ঘন কুয়াশার কারণে জেলার অধিকাংশ সড়কে যানবাহনগুলো হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করছে। প্রচন্ড শীতে বেশি কষ্ট পাচ্ছে বৃদ্ধ ও শিশুরা। 

শীতে হাসপাতালগুলোতে ঠান্ডাজনিত রোগীর সংখ্যা অস্বাভাবিকভাবে বাড়ছে। ফসলের বীজতলা ঠিকমতো পরিচর্যা করা যাচ্ছে না। কুয়াশায় চারা ও পান বরজ নষ্ট হওয়ায় কৃষকরা বিপাকে পড়েছেন। হাড় কাঁপানো শীতে রীতি মতো জবুথবু অবস্থা। গায়ে গরম কাপড় ও টুপি পরে মানুষ শীতের তীব্রতা থেকে রক্ষা পাওয়ার চেষ্টা করছেন। দরিদ্র মানুষ কাগজ-খড়কুটো পুড়িয়ে একটু উষ্ণতা পাওয়ার চেষ্টা করছেন। ঠান্ডাজনিত নানা রোগের প্রকোপ বেড়েছে। হঠাৎ করে শীত পড়ায় শ্বাসকষ্ট, জ্বর, সর্দি, কাশি, বাত ব্যথায় আক্রান্ত রোগী বৃদ্ধি পেয়েছে। আক্রান্তদের অধিকাংশ শিশু ও বৃদ্ধ। 

সরেজমিনে দেখা যায়, শয্যা সংকট থাকায় হাসপাতালের মেঝে ও বারান্দায় চিকিৎসা নিচ্ছেন অনেক রোগী।

 


আরও খবর