Logo
শিরোনাম
শবে বরাত পালন মুসলিম জাতিকে একতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে। ৫৭ তম খোশরোজ শরীফ ও মইনীয়া যুব ফোরামের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন বাঙালি সাংস্কৃতিতে মাইজভাণ্ডারী ত্বরীকার সাথে সম্পর্ক রয়েছে সীমান্তে হত্যা বন্ধের দাবীতে প্রতীকী লাশ নিয়ে হানিফ বাংলাদেশীর মিছিল লক্ষ্মীপুরে কৃষক কাশেম হত্যা: স্ত্রী, শ্বশুরসহ গ্রেপ্তার ৫ কুমিল্লা সিটি’র উপনির্বাচন: মেয়র পদে প্রতীক বরাদ্দ অবৈধ মজুদকারীরা দেশের শত্রু : খাদ্যমন্ত্রী ফতুল্লায় সিগারেট খাওয়ার প্রতিবাদ করায় কিশোরকে পিটিয়ে হত্যা বকশীগঞ্জে মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা নোবিপ্রবিতে সিএসটিই এলামনাই এসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন

নেত্রকোনার সীমান্ত এলাকা থেকে ২০ লাখ ভারতীয় রুপিসহ যুবক আটক

প্রকাশিত:বুধবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

নেত্রকোনা প্রতিনিধি : নেত্রকোনার দুর্গাপুরে সীমান্ত এলাকা থেকে প্রায় ২০ লাখ ভারতীয় রুপিসহ জসিম রুরাম (২৫) নামে এক যুবককে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। 

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার কুল্লাগড়া ইউনিয়নের পশ্চিম বিজয়পুর এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। পরে ওইদিন রাতে দুর্গাপুর থানায় সোপর্দ করা হয়। মামলা দায়ের পর আজ বুধবার দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। 

আটক যুবক জসিম রুরাম হলেন দুর্গাপুর উপজেলার কুল্লাগড়া ইউনিয়নের পশ্চিম বিজয়পুর গ্রামের লেলিন হাজং এর ছেলে। 

বিজিবি'র সূত্রে জানা গেছে, গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে টহল দেওয়ার সময় সীমান্ত এলাকার সন্দেহজনক চলাফেরার সময় ওই যুবককে আটক করে তার দেহ তল্লাসী করলে তার কাছ থেকে ১৯ লাখ ৯৮ হাজার ভারতীয় রুপি উদ্ধার করা হয়। পরে আটক যুবকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের মাধ্যমে দুগার্পুর থানায় হস্তান্তর করা হয়। 

দুর্গাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) উত্তম চন্দ্র দেব জানান, আটক যুবকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে থানায় হস্তান্তর করেছে বিজিবি। পরে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। 


আরও খবর



মুজিব একটি জাতির রূপকার" চলচ্চিত্রটি অডিয়েন্স অ্যাওয়ার্ড ক্যাটেগরিতে পুরস্কৃত

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ |

Image

দ্বাবিংশ ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনী নিয়ে নির্মিত, প্রখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক শ্যাম বেনেগাল পরিচালিত “মুজিব একটি জাতির রূপকার" চলচ্চিত্রটি অডিয়েন্স অ্যাওয়ার্ড ক্যাটেগরিতে পুরস্কার লাভ করেছে।

ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব ২০জানুয়ারি শুরু হয়। ৯দিন ব্যাপী এই উৎসবে ৭৫টি দেশের ২৫২টি চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয়। ২৮ জানুয়ারি উৎসবের পর্দা নামে এবং বিভিন্ন বিভাগে পুরস্কারপ্রাপ্তদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

রেইনবো চলচ্চিত্র সংসদের উদ্যোগে আয়োজিত উৎসবে এবারের আসরে ৭৪টি দেশের ২৫২ টি চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয়। এর মধ্যে পূর্ণদৈর্ঘ্য ১২৯টি, স্বল্পদৈর্ঘ্য ও স্বাধীন চলচ্চিত্র ১২৩টি। এর মধ্যে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র ৭১টি। উৎসবের চলচ্চিত্রগুলো প্রদর্শিত হয় জাতীয় যাদুঘরের বঙ্গমাতা ফজিলাতু নেছা মুজিব মিলনায়তন ও কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তন, শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা, নৃত্যশালা মিলনায়তন, অলিয়ঁস ফ্রঁসেজ ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একাডেমি মিলনায়তনে।


এশিয়ান প্রতিযোগিতা বিভাগ, রেট্রোস্পেকটিভ বিভাগ, ট্রিবিউট, বাংলাদেশ প্যানোরোমা, ওয়াইড অ্যাঙ্গেল, সিনেমা অব দ্য ওয়ার্ল্ড, চিলড্রেনস ফিল্ম, স্পিরিচুয়াল ফিল্মস, শর্ট অ্যান্ড ইনডিপেনডেন্ট ফিল্ম ও ইউমেন্স ফিল্ম সেশন-এ প্রদর্শিত হয় ছবিগুলো।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভারতীয় বাঙালি অভিনেত্রী শর্মিলী ঠাকুর, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোকাম্মেল হোসেন, ঢাকাস্থ চিনা দূতাবাসের সাংস্কৃতিক উপদেষ্টা ইউ লিওয়েন। উৎসবের প্রধান পৃষ্ঠপোষক সংসদ সদস্য শাহরিয়ার আলম ও উৎসব পরিচালক রেইনবো চলচ্চিত্র সংসদের সভাপতি আহমেদ মুজতবা জামাল।

উৎসবের সমাপনী দিনের উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত, ভারতীয় বাঙালি অভিনেত্রী শর্মিলী  ঠাকুর, ভারতীয় প্রখ্যাত শিল্পী অঞ্জন দত্ত, সংসদ সদস্য শাহরিয়ার আলম, রেনবো চলচ্চিত্র সংসদের সভাপতি আহমেদ মুজতবা জামাল, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নুজহাত ইয়াসমিন বিভিন্ন দেশ হতে উৎসবে আগত চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, বাংলাদেশের সরকারি বেসরকারি পর্যায়ের বিভিন্ন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দ।


আরও খবর

ব্যবসা শুরু করতে যাচ্ছেন পরীমণি

শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত মাহিয়া মাহির

শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




রাণীনগরে পিএফজি’র পরিকল্পনা প্রনয়ন সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ |

Image

কাজী আনিছুর রহমান,রাণীনগর (নওগাঁ) :

নওগাঁর রাণীনগরে পিস ফ্যাসিলিটেটর গ্রুপ (পিএফজি)’র সম্মিলিত কার্যক্রম অগ্রগতি পর্যালোচনা ও পরিকল্পনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। দি হাঙ্গার প্রজেক্টের সার্বিক সহযোগিতায় পিএফজি’র রাণীনগর উপজেলা কমিটির আয়োজনে সকল বৈধ রাজনৈতিক ও নাগরিক সংগঠনের উপজেলা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দদের অংশগ্রহণে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায়, সাইবার ক্রাইম, যৌন হয়রানি, বাল্য বিবাহ, মাদক মুক্ত উপজেলা গড়তে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে পুলিশ প্রশাসনের সহয়তায় বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় প্রচার-প্রচরনার মাধ্যমে শান্তি সম্প্রীতি ও সৌহার্দ্যপূর্ণ সমাজ ও রাষ্ট্র নির্মাণে কাজ করার পরিকল্পনা প্রনয়ন করা হয়। 

বুধবার দুপুরে রাণীনগর উপজেলা জাতীয়তাবাদী দলের সাবেক আহবায়ক নজরুল ইসলাম’র সভাপতিত্বে রাণীনগর সদরের বন্ধু রেস্টটুরেন্ট এ্যান্ড ক্যাফে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন, রাণীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু ওবায়েদ, হিন্দু বৌদ্ধ খিষ্ঠান ঐক্য পরিষদের সভাপতি প্রভাষক চন্দন কুমার মহন্ত, সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের পিন্টু, দি হাঙ্গার প্রজেক্টের এরিয়া কো-অডিনেটর আব্দুর রঊফ, ফিল্ড কো-অডিনেটর এনায়েতউল্লাহ, উপজেলা কমিটির কো-অডিনেটর সাইদুজ্জামান সাগর, পিস এম্বাসেডর শামীম হোসেন প্রমূখ।


আরও খবর



লাগামহীন সবজির বাজার

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ |

Image

ভরা মৌসুমে বাজারে প্রচুর সরবরাহ থাকার পরেও ফের লাগামহীন সবজির দাম। ৬০ টাকার নিচে তেমন কোনো সবজি নেই বললেই চলে। মৌসুম শুরু হলেও কিছুতেই কমছে না আলুর দাম। তবে সপ্তাহের ব্যবধানে কিছুটা কমেছে মুরগি ও পেঁয়াজের দাম।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, লম্বা বেগুন প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০ টাকা, গোল বেগুন ৮০-৯০ টাকা, ফুলকপি ৪০-৫০ পিস, বাঁধাকপি ৪০-৫০ টাকা, শিম ৮০-১০০ টাকা, টমেটো ৭০-৮০ টাকা, পেঁপে ৪০-৫০ টাকা, করলা ৭০-৮০ টাকা, চিচিঙ্গা বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০ টাকা, ঢেঁড়শ ৭০-৮০ টাকা মান ও সাইজভেদে লাউ ৭০-১০০ টাকা, শসা ৫০-৬০, মূলা ৫০-৬০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। যা গেল সপ্তাহজুড়ে কিছুটা কমে বিক্রি হয়েছে।

এছাড়াও শাকের মধ্যে সরিষা শাক আঁটি ১৫ টাকা, ডাটা শাক ১৫ টাকা, মূলার শাক ১৫ টাকা, লাউ শাক ৪০-৫০ টাকা, পুঁইশাক ৩০ টাকা, লাল শাক ১৫ টাকা আঁটি বিক্রি হচ্ছে। তবে বাজারে দোকানের তুলনায় ভ্যানে কিংবা ফুটপাতের দোকানগুলোতে প্রত্যেক সবজির দাম ৫-১০ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে বাজারে প্রচুর নতুন আলু ও পেঁয়াজের সরবরাহ প্রচুর থাকলেও কমছে না দাম। ভরা মৌসুমেও হলেন্ডের আলু ৫০-৫৫ টাকা, দেশি আলু ৭০-৮০ টাকা, পেঁয়াজ ৮০-৯০ টাকা, রসুন ২৬০-২৮০ টাকা, আদা ২০০-২২০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

অপরদিকে অস্বস্তি রয়েই গেছে মাছ-মাংসের বাজারে। সপ্তাহের ব্যবধানে ব্রয়লা মুরগির দাম ১০ টাকা কমলেও বিক্রি হচ্ছে ১৯০-১৯৫ টাকা কেজি। সোনালি ৩০০-৩৩০ টাকা। আবারও গরুর মাংস ৭০০-৭৫০ টাকায় দাম উঠেছে।

মাছের বাজারে তেলাপিয়া ২০০-২২০ ও পাঙাশ ১৮০ থেকে ২০০ টাকা। যা গেল সপ্তাহেও একই দামে বিক্রি হয়েছে। অন্য মাছের মধ্যে মাঝারি ও বড় আকারের চাষের রুই, কাতলা ও মৃগেল মাছের দাম প্রতি কেজি ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা। এছাড়াও ৬০০ টাকার নিচে নেই পাবদা, টেংরা, কই, বোয়াল, চিতল, আইড় ও ইলিশ মাছ। মাছ যত বড় তার দাম ততো বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে।

 


আরও খবর

চড়া দাম অধিকাংশ পণ্যের

শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




জ্যামে দূর্বিষহ জনজীবন,বাড়ছে ক্যানসার ঝুঁকি

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ |

Image

রাজধানীর যানজটপূর্ণ ব্যস্ত সাতটি সড়ক বাড়াচ্ছে ক্যানসারের ঝুঁকি। এসব সড়কে জটে আটকেপড়া যানবাহন থেকে নির্গত ধোঁয়ায় রয়েছে ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার উপাদান, যা শ্বাসের সাথে মানবদেহে প্রবেশ করছে। ফলে ঝুঁকি বাড়ছে ফুসফুসসহ অন্যান্য ক্যানসারের। বাংলাদেশ শিল্প ও বিজ্ঞান গবেষণা পরিষদের (বিসিএসআইআর) গবেষণায় এসব তথ্য উঠে এসেছে। এতে যে সাতটি এলাকার সড়ককে চিহ্নিত করা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে- মতিঝিল, প্রেসক্লাব, শাহবাগ, ফার্মগেট, এলিফ্যান্ট রোড, টিএসসি ও গাবতলী।

ঢাকায় যানবাহনের নির্গত ধোঁয়ায় মিশ্রিত পলিসাইক্লিক এরোমেটিক হাইড্রোকার্বনের বিস্তার এবং বিভিন্ন বয়সীদের স্বাস্থ্যঝুঁকি ও এর প্রতিকার শীর্ষক ওই গবেষণা প্রতিবেদনটি আন্তর্জাতিক সাময়িকী স্প্রিংগার ন্যাচারের অনলাইন সংস্করণে প্রকাশ হয়েছে। এ বিষয়ে গতকাল কথা হয় ওই গবেষক দলের প্রধান ড. মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানের সঙ্গে। তিনি আমাদের সময়কে জানান, দীর্ঘমেয়াদি শ্বাসযন্ত্রের ক্যানসারে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে আছেন এসব সড়কে নিয়মিত চলাচলকারী প্রাপ্তবয়স্করা।

গবেষণা প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, রাজধানীতে ৪৬-৬৪ শতাংশ পলিসাইক্লিক এরোমেটিক হাইড্রোকার্বন (অপরিশোধিত তেল পুড়ে তৈরি হওয়া রাসায়নিক) নির্গত হয় যানবাহনের ধোঁয়া থেকে। বিশেষ করে ফিটনেসবিহীন যানবাহন থেকে এ ধরনের রাসায়নিক বেশি নির্গত হয়। এ ধোঁয়ায় রয়েছে উচ্চমাত্রার ক্ষতিকর কার্সিনোজেনিক (ক্যানসার সৃষ্টিকারী) বেনজো এ পাইরিন। বেনজো এ পাইরিনযুক্ত এ ধোঁয়া দীর্ঘদিন গ্রহণের ফলে মানব শরীরের ডিএনএ ক্ষতিগ্রস্ত, পরিবর্তিত হয় এবং শ্বাসযন্ত্রের ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ে।

ড. মনিরুজ্জামান বলেন, যানজটের কারণে রাজধানীর বায়ুতে দূষণকারী কণার সংখ্যা বাড়ছে। আমরা রাজধানীর সাতটি সবচেয়ে ব্যস্ত সড়ক থেকে ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে ৮৪টি নমুনা সংগ্রহ করে গবেষণাটি করেছি। শীত এবং বর্ষা দুই সিজনেই নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। স্যাম্পলগুলো আমরা দেশের মানুষের গড় উচ্চতা (৫-৬ ফিট) অনুযায়ী খোলা জায়গায় রেখেছি। গবেষণায় আমরা সদ্যোজাত শিশু (০-১ বছর), হাঁটতে শেখা শিশু (১-৬ বছর), কিশোর (১২-১৮ বছর) ও প্রাপ্তবয়স্কদের (১৮-৭০ বছর) স্বাস্থ্যঝুঁকির পরিমাণ পৃথকভাবে নির্ণয় করেছি।

গবেষণার ফল থেকে জানা যায়, রাজধানীর সাতটি সড়কের বায়ুতে ধাতু এবং উচ্চমাত্রার ক্যানসার সৃষ্টিকারী বেনজো এ পাইরিনের মতো পলিসাইক্লিক এরোমেটিক হাইড্রোকার্বনের। রাজধানীর ব্যস্ততম এসব সড়কে বেনজো এ পাইরিনের গড় পরিমাণ ৩১-১৪৫ এনজি/মি৩। যেখানে বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থা নির্ধারিত স্বাভাবিক মাত্রা ১ এনজি/মি৩।

গবেষকরা বলছেন, এ গ্যাস দ্বারা দূষিত বাতাসে নিঃশ্বাস নিতে থাকলে এসব গ্যাস রক্তে মিশে যায় এবং ফুসফুসের স্থায়ী ক্ষতি করে। ফুসফুসের রোগ যেমন হাঁপানি, ক্রনিক অবস্ট্রাক্টিভ পালমোনারি ডিজিজ, ইন্টারস্টিসিয়াল লাঙ ডিজিজের প্রবণতা বেড়ে যায়। যা শ্বাস প্রশ্বাসের সাথে দীর্ঘদিন ধরে প্রবেশ করতে থাকলে শ্বাসযন্ত্রে ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ে।

গবেষণা প্রতিবেদন থেকে আরও জানা যায়, একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ যিনি শীতে প্রতিনিয়ত এসব সড়কে যাতায়াত করেন তিনি দৈনিক গড়ে ৯.৭০-১১.২ মাইক্রোগ্রাম বেনজো এ পাইরিনের মতো পলিসাইক্লিক এরোমেটিক হাইড্রোকার্বন গ্রহণ করছেন। শীতকালে এই শোষণের মাত্রা ২.৩-২.৭ গুণ বেড়ে যায়। যার ১.২২ মিউগ্রাম সরাসরি পিএম ২.৫ শোষণের মাধ্যমে ব্যক্তির এ্যালভিওলাইয়ে (ফুসফুসের ছোট থলি) জমা হচ্ছে। যা পরে রক্ত সরবরাহের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ছে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রতঙ্গে।

যানবাহন ঘটিত এমন স্বাস্থ্য সমস্যাকে উদ্বেগের বলছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, গবেষণায় পাওয়া সমস্যাগুলো সমাধানের জন্যও গবেষণার উদ্বোগ নিতে হবে আর যানবাহনগুলোকে আনতে হবে বিশেষ মনিটরিংয়ের আওতায়।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক পরিচালক জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. বে-নজির আহমেদ আমাদের সময়কে বলেন, যানবাহনের নির্গত ধোঁয়ায় বায়ুদূষণ এবং ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বর্তমানে খুবই উদ্বেগের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমি মনে করি, এ সংকট নিরসনে যানবাহনের ফিটনেস চেক করা এবং নিয়মিত মনিটরিংয়ে জোর দিতে হবে। যেসব যানবাহন অতিরিক্ত দূষণের কারণ, সেগুলো তাৎক্ষণিকভাবে সড়ক থেকে সরিয়ে দিতে হবে। এই জনস্বাস্থ্যবিদ মনে করেন, দেশের জনগণের সুস্বাস্থ্যই উন্নয়নের অপরিহার্য শর্ত।

উল্লেখ্য, গত কয়েক দশকে নগরায়নের ফলে ঢাকা শহরে বায়ুদূষণঘটিত পরিবেশগত পরিবর্তন হয়েছে। বর্তমানে যানযট রাজধানী ঢাকার অন্যতম প্রধান একটি সমস্যা। ২০২১ সালে গ্লোবাল লাইভিবিলিটি ইনডেক্সের করা তালিকায় সবচেয়ে কম বসবাসযোগ্য শহর হিসেবে ৪ নম্বরে ছিল ঢাকা। যানজট বৃদ্ধির কারণে বায়ুর খারাপ মান এর অন্যতম কারণ।


আরও খবর

ফুটপাতের চাঁদার টাকা খায় কারা ?

সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

বায়ুদূষণে নীরবে ধুঁকছে ঢাকা

শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




রমজানে কোনো জিনিসের অভাব হবে না

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, রমজানে কিন্তু কোনো জিনিসের অভাব হবে না। ইতোমধ্যে সমস্ত কিছু ব্যবস্থা করা আছে। এটা নিয়ে অনেকে কথা বলবে, কিন্তু কোনো অসুবিধা হবে না। রমজান তো কৃচ্ছতা সাধনের জন্য, রমজানে মানুষ একটু কম খায়। আমাদের দেশে রমজানে খাবার-দাবারের চাহিদা একটু বেড়ে যায়।

জার্মানি সফরের বিষয়ে আজ (শুক্রবার) সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান শেখ হাসিনা। ১৬-১৮ ফেব্রুয়ারি জার্মানির মিউনিখ শহরে অনুষ্ঠিত হয় ৬০তম মিউনিখ সিকিউরিটি কনফারেন্স। সে বিষয়েই আজকের সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

তিনি বলেন, রমজানে ছোলা, খেজুর, চিনি পর্যাপ্ত পরিমাণে আনার ব্যবস্থা আছে, এগুলো নিয়ে সমস্যা হবে না। সেই ব্যবস্থা অনেক আগেই করে রেখেছি।

তিনি আরো বলেন, গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা বজায় থাকলে একটা দেশ উন্নত হয়। গত পনেরো বছরে আত্মসমাজিক উন্নয়ন হয়েছে, মানুষের মন-মানসিকতার পরিবর্তন হয়েছে, সব দিক থেকে বাংলাদেশ অনেক উপর উঠে আসতে সক্ষম হয়েছে। আমরা এখন স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছি। উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে আমরা যথাযথভাবে এগিয়ে যেতে পারি সেই কাজটাই আমাদের বড় কথা। এদিকে আমার মনোযোগ দিয়েছি।

শেখ হাসিনা বলেন, রাজনৈতিক দলের অভাব বাংলাদেশে। আওয়ামী লীগ ৪৯ সালে গঠিত হয়েছিল গণমানুষের কথা বলে। সেই সময় থেকে আন্দোলন সংগ্রাম করেই আওয়ামী লীগ এগিয়ে গেছে। আমি যদি আমার প্রতিপক্ষ কয়েকটি দল দেখি, একটা হচ্ছে যুদ্ধাপরাধী দল জামাত। যাদের রাজনীতি নিষিদ্ধ ছিল। অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে জিয়াউর রহমান সংবিধান সংশোধন করে তাদেরকে রাজনীতি করার সুযোগ করে দেয়। পাসপোর্ট নিয়ে যারা পাকিস্তান গেছে তাদেরকে ফিরিয়ে এনে ভোটের অধিকার দিয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে সরকারপ্রধান বলেন, তারা চায় এমন একটা পরিবেশ হোক, তাদেরকে কেউ ক্ষমতায় বসিয়ে দেবে। সেটা করতে গিয়ে তারা যে প্রথম ধরা খেল, সেটা ২০১৮ নির্বাচন। প্রচার-প্রচারণা সব দিক থেকে আওয়ামী লীগ বিএনপি সমান-সমান ভাব ছিল। ২০০৮ নির্বাচন নিয়ে কেউ প্রশ্ন করতে পারেনি। সেই নির্বাচনের রেজাল্টটা কি? গণতান্ত্রিক ধারাকে আমরা স্থায়ী করেছি, যার সুফল মানুষ পাচ্ছে। তাদের জীবনমান উন্নত হয়েছে। আমরা চাই এ ধারাবাহিকতা যেন বজায় থাকে।


আরও খবর