Logo
শিরোনাম

নওগাঁয় বেগুন গাছে টমেটো চাষে সফল কৃষক বাদল

প্রকাশিত:Thursday ০১ December ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টারঃ


ব্যতিক্রমী উৎপাদন-নওগাঁয় বেগুন গাছে টমেটো চাষ।

জংলি বেগুন গাছের সাথে গ্র্যাফটিং পদ্ধতিতে হাইব্রিড জাতের গ্রীষ্মকালীন টমেটো চাষ করে সফল হয়েছেন কৃষক জহুরুল ইসলাম বাদল। কৃষক জহুরুল ইসলাম বাদলের বাড়ি নওগাঁর রানীনগর উপজেলার শিয়ালা গ্রামে। তিনি নিজস্ব জমিতে ফসল উৎপাদন করে জীবিকা নির্বাহ করেন। জমিতে নতুন নতুন জাতের এবং অধিক উৎপাদনশীল ফসল উৎপাদন তার নেশা। সাধারণ যে কোন ফসলকে ব্যতিক্রমী উপায়ে উৎপাদন করে অধিক  লাভবান হওয়ার উপায় খুজে বের করেন কৃষক জহুরুল ইসলাম বাদল।

এ বছর তিনি জংলি বেগুন গাছের সাথে গ্র্যাফটিং পদ্ধতিতে হাইব্রিড জাতের গ্রীষ্মকালীন টমেটো চাষ করে সফল হয়েছেন। জহুরুল ইসলাম বাদলের এসফলতা নিয়ে এলাকার কৃষকদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া পরেছে। তার এ সফলতা দেখে অনেক কৃষক গ্র্যাফটিং পদ্ধতিতে টমেটো চাষে আগ্রহী হয়ে ওঠেছেন।

কৃষক জহুরুল ইসলাম বাদল মোবাইল ফোনে ইউটিউব দেখা  ধারনা অনুযায়ী তার নিজস্ব ১৩ কাঠা জমিতে জংলি বা ঘুটি বেগুন গাছের চারা তৈরী করে সেই জংলি বেগুন গাছে গ্র্যাফটিংয়ের মাধ্যমে হাইব্রডি জাতের টমেটোর গাছ সংযোগ করার মাধ্যমেই কৃষক জহুরুল ইসলাম বাদল এখন সফল। বেগুন গাছে টমেটো চাষ করতে গিয়ে ১৩ কাঠা জমিতে সব মিলিয়ে তার খরচ হয়েছে ৩০ হাজার টাকা।


রোপণ এর মাত্র দু' মাস পর থেকেই গাছে ফল আসতে শুরু করে এমনকি স্বাভাবিক টমেটোর গাছ থেকে বিশেষ প্রক্রিয়ায় তৈরী গাছে অনেক বেশী টমেটো ধরেছে। ইতি মধ্যেই কৃষক জহুরুল ইসলাম বাদল জমি থেকে প্রতিদিন ৬০ বা ৭০ কেজি করে টমেটো উত্তোলন করে বিক্রি করছেন। আগাম তোলা টমেটো বাজারে প্রতি কেজি প্রথম দিকে ১১০ টাকা করে বিক্রি করছেন এবং এখনও কিছুটা দর কমলেও তুলনা মূলক ভালো মূল্য পাচ্ছেন তিনি। ইতি মধ্যেই তিনি সেই হিসাবে মত বিগত দু’মাসে প্রায় ৪ লাখ টাকার টমেটো বিক্রি করেছেন। এগাছগুলো থেকে আরো এক মাস তিনি টমেটো বিক্রি করবেন বলে প্রত্যাশা করছেন। উৎপাদনের হার থাকবে একই রকম। খরচ বাদ দিয়ে নীট মুনাফা আসবে ৪ লাখ টাকার উপর বলেই তার আশা।  

নতুন প্রক্রিয়ায় টমেটো চাষের সফলতা দেখে এলাকার অনেক কৃষক-ই এখন এ পদ্ধদিতে টমেটো চাষ করতে অগ্রহী হয়ে উঠেছেন। জহুরুল ইসলাম বাদলের সহায়তায় তারা চাষ করতে চান।

নওগাঁর রানীনগর উপজেলার কৃষি অফিসার মোঃ শহিদুল ইসলাম জানিয়েছেন, সময়ের প্রয়োজনে কৃষকদের নতুন নতুন অধিক উৎপাদনশীল ফসল চাষে আগ্রহী করে তুলতে কৃষি বিভাগ কাজ করছে। তারই ধারাবাহিকতায় চাষী জহুরুল ইসলাম বাদল সহ অনেকেই গ্র্যাফটিং পদ্ধতিতে টমেটো চাষ করে সাফল্য অর্জন করেছেন। এ ব্যপারে কৃষি বিভাগ সর্বাত্মক পরামর্শ ও সহযোগিতা প্রদান অব্যাহত রাখবে বলে জানান কৃষি তিনি।


আরও খবর



সামরিক শক্তি সূচকে ৪০তম বাংলাদেশ

প্রকাশিত:Sunday ১৫ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Wednesday ২৫ January ২০২৩ |
Image

সামরিক সক্ষমতার ওপর নির্ভর করে তৈরি করা আন্তর্জাতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান গ্লোবাল ফায়ারপাওয়ারের (জিএফপি) চলতি বছরের সামরিক শক্তি সূচকে বিশ্বের ১৪৫টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ৪০তম অবস্থানে রয়েছে। এই সূচকে গত বছরের মতো শীর্ষ সামরিক ক্ষমতাধর দেশ নির্বাচিত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এর আগে, ২০২০ ও ২০২১ সালে বাংলাদেশের এই অবস্থান ছিল যথাক্রমে ৪৬ ও ৪৫ তম।

জিএফপির চলতি বছরের সূচকে দেশগুলোর শক্তি বৃদ্ধির প্রবণতার ওপর ভিত্তি করে জাতীয় সামরিক শক্তিকে তুলে ধরা হয়েছে। জিএফপির পর্যালোচনায় ‘পাওয়ারস অন দ্য রাইজ’ তালিকায় ১২তম স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। জিএফপির ২০২৩ সালের বার্ষিক প্রতিরক্ষা পর্যালোচনায় ‘পাওয়ারস অন দ্য রাইজ’ হিসেবে ৫৩টি দেশকে বেছে নেওয়া হয়।

আন্তর্জাতিক এই সংস্থার ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, বিশ্বের ১৪৫টি দেশের সামরিক সক্ষমতার সর্বশেষ সহজলভ্য সামরিক সরঞ্জাম, প্রতিরক্ষা বাজেট, সৈন্য সংখ্যাসহ বিভিন্ন ধরনের ৬০টির বেশি মাপকাঠির ওপর ভিত্তি করে চলতি বছরের সূচক তৈরি করা হয়েছে।

‘২০২৩ মিলিটারি স্ট্রেন্থ র‍্যাংকিং’ নামে প্রকাশিত এই সূচকে সামরিক শক্তিমত্তা বিচারে দেশগুলোর স্কোরও নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে বাংলাদেশের সামরিক বাহিনীকে বিশ্বের ৪০তম হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। সামরিক শক্তিসূচকে বাংলাদেশ স্কোর পেয়েছে শূন্য দশমিক ৫৮৭১।

গত ৫ জানুয়ারি পর্যন্ত বাংলাদেশের সামরিক সক্ষমতাকে এই সূচকের ভিত্তি হিসেবে ধরে নিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান নির্ধারণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে জিএফপি।

এদিকে, গত বছরের মতো এই সূচকে শীর্ষ স্থান ধরে রেখেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। রাশিয়া-ইউক্রেন চলমান যুদ্ধের পটভূমিতে ১৪৫টি দেশের মধ্যে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী সামরিক বাহিনীর তালিকায় ১৫তম স্থানে রয়েছে ইউক্রেন।

অন্যদিকে, জিএফপির সূচকে দ্বিতীয় সামরিক ক্ষমতাধর দেশ নির্বাচিত হয়েছে রাশিয়া। দেশটির স্কোর শূন্য দশমিক ০৭১৪। আর সামরিক শীর্ষ ক্ষমতাধর দেশের এই সূচকে চীন রয়েছে তৃতীয় স্থানে। চীনের স্কোর শূন্য দশমিক ০৭২২।

বাংলাদেশের প্রতিবেশি ভারত শীর্ষ সামরিক ক্ষমতাধর দেশের এই তালিকায় চতুর্থ স্থানে আছে ভারত; দেশটির স্কোর শূন্য দশমিক ১০২৫। পাকিস্তান রয়েছে ৭ম স্থানে; স্কোর শূন্য দশমিক ১৬৯৪। আর মিয়ানমার রয়েছে ৩৮তম স্থানে। দেশটির স্কোর শূন্য দশমিক ৫৭৬৮।

জিএফপির এই সূচকে ইরান ১৭তম, ইসরায়েল ১৮তম, ভিয়েতনাম ১৯তম, সৌদি আরব ২২তম, তাইওয়ান ২৩, থাইল্যান্ড ২৪তম ও উত্তর কোরিয়া ৩৪তম সামরিক ক্ষমতাধর দেশের অবস্থানে রয়েছে।

আর এই তালিকার একেবারে তলানিতে রয়েছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশ ভুটান। ১৪৫তম অবস্থানে থাকা দেশটির স্কোর ৬ দশমিক ২০১৭।


সূত্র : জিএফপি।


আরও খবর



রাণীনগর-আত্রাই উপজেলা

এক বছরে ৮১জনের অস্বাভাবিক মৃত্যু তালিকায় ৮বছরের শিশু ও ৮৩ বছরের বৃদ্ধ

প্রকাশিত:Saturday ৩১ December ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

কাজী আনিছুর রহমান,রাণীনগর (নওগাঁ) :


নওগাঁর রাণীনগর- আত্রাই উপজেলায় গত এক বছরে ৮১জনের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এসব অস্বাভাবিক মৃত্যুর মধ্যে আত্মহত্যার তালিকায় ৮বছরের শিশু থেকে শুরু করে ৮৩ বছরের বৃদ্ধ রয়েছে।এর মধ্যে ১১জন শিশু-কিশোরসহ ৫৪জন আত্মহত্যা,১১জন পানিতে ডুবে,৭জন বিদ্যুৎস্পর্শে,৭জন অজ্ঞাত কারনে এবং একজন বজ্রপাতে ও একজন ছাদ থেকে পরে মারা গেছে।

 রাণীনগর থানাপুলিশের দেয়া তথ্য মতে,চলতি বছরের শুরু থেকে ২৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত উপেজলায় কেউ বিষপানে কেউ গলায় ফাঁস দিয়ে শিশু,কিশোর ও নানান বয়সি মোট ২৯জন আত্মহত্যা করেছে। এর মধ্যে গত ২এপ্রিল চরকানাই গ্রামের সুমাইয়া আক্তার (১৭) গলায় ফাঁস দিয়ে,১২মে কালীগ্রামের ফারজানা খাতুন (১৫) গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে,৭জুলাই কালীগ্রামের তাসকিয়া খাতুন (১৫) গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে,১৮ আগষ্ট শিয়ালা গ্রামের আমির হামজা (১০) বিষপান করে,২৩ আগষ্ট বনপুকুর গ্রামের বাদল হোসেন (১৩) গলায় ফাঁস দিয়ে,২৭নভেম্বর যাত্রাপুর গ্রামের শিশু ছালমা ওরফে শারমিন আক্তার (৮) গলায় ফাঁস দিয়ে এবং ২৬ডিসেম্বও বড়িয়া গ্রামের সৃষ্টি হোসেন (১৭) গ্যাসের ট্যাবলেট খেয়ে আত্মহত্যা করে। এসব আত্মহত্যার ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে কেউ অভিমান করে,কেউ পেটের পিঁরা,কেউ মানষিক সমস্যাজনিত কারনে আত্মহত্যা করেছে বলে থানায় দায়েরকৃত অস্বাভাবিক মৃত্যু মামলায় দাবি করা হয়েছে।এছাড়া পানিতে ডুবে ৬জন,বিদ্যুৎস্পর্শে ৪জন,অজ্ঞাত কারনে ৩জন এবং বাসার ছাদ থেকে পরে ১জনের মৃত্যুসহ মোট ৪২জনের অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। 

অপর দিকে আত্রাই থানাপুলিশ জানায়,উপজেলায় চলতি বছরে ২৫জনের আত্মহত্যাসহ মোট ৩৮জনের অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে গত২৬জানুয়ারী সুবর্ণ গ্রামের শিশু চিত্রারাণী (১১) গলায় ওড়নার ফাঁস দিয়ে,২২মার্চ উলাবাড়িয়া গ্রামের শিশু আরমান (১১) গলায় ফাঁস দিয়ে,২৫জুন সাহেবগঞ্জের মারুফ হোসেন (১৭) বিষপান করে এবং ২ফেব্রুয়ারী নৈদিঘী গ্রামের নছিরন বেওয়া (৮৩) গলায় ফাঁস দিয়ে এবং ১৭জুলাই রাতে সুদরানা গ্রামের দম্পতি মাসুম সরদার (২২) ও তার স্ত্রী লিমা বিবি (১৮) এক সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।এছাড়া পানিতে ডুবে ৫জন,বিদ্যুৎস্পর্শে ৩জন,বজ্রপাতে ১জন এবং অজ্ঞাত কারনে ৪জনের মৃত্যু হয়েছে।

রাণীনগর থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ বলেন, বিশেষ করে শিশুরা অনেক আবেগ প্রবোন হয়। এরা সামান্য বিরুপ আচরণে মান-অভিমান করে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়। সুতরাং প্রত্যেক বাবা-মা বা অভিভাবকদের উচিত শিশুদের সাথে ভাল ব্যবহার এবং ভালবাসা দিয়ে আগলে রাখা। তাহলেই অনেকাংশেই আত্মহত্যা রোধ করা সম্ভব।


আরও খবর



ধামরাইয়ে সরিষার বাম্পার ফলন কৃষকের মুখে হাসি।

প্রকাশিত:Saturday ০৭ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

মোঃ মাহবুবুল আলম রিপন,ধামরাই,ঢাকা :


ঢাকার ধামরাই উপজেলার ১৬ টি ইউনিয়ন জোরেই এবার সরিষার আবাদ হয়েছে, যতদূর চোখ যায় শুধু সরিষা আর সরিষা।

এবার ১৬ টি ইউনিয়ন এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি সরিষা আবাদ হয়েছে ধামরাই সদর ইউনিয়ন, সোমভাগ ইউনিয়ন, ভাড়ারিয়া ইউনিয়ন  কুল্লা ইউনিয়ন, কুশুরা ইউনিয়ন সূতিপাড়া ইউনিয়ন, আমতা ইউনিয়ন, বালিয়া ইউনিয়ন, নান্নার ইউনিয়ন ও সুয়াপুর ইউনিয়ন এ সবচেয়ে বেশি সরিষার আবাদ হয়েছে। 

সরিষা চাষি কালাম মিয়া বলেন এবার আমি ৫ বিঘা জমিতে সরিষা আবাদ করেছি আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এবার ভালো ফলন হবে বলে আশা করি, তিনি জানান যে অনন্য ফসলের তুলনায় সরিষা আবাদে খরচ কম সার বিষ লাগে না বললেই চলে, যখন সরিষা রোপণ করি তখন ২ টা চাষ করি এবং সাথে হালকা কিছু সার দিয়ে সারিষা রোপন করি


যখন সরিষার গাছ গুলো একটু বড় হয় তখন একবার ৫ বিঘা জমিতে একমণ সার দিয়েছি তারপর আর কোন সার বিষ দিয়ে দিতে হয়নি, আল্লাহ তালা যদি আবহাওয়ার ঠিক রাখে বৃষ্টি পাত না হয় তাহলে এবার অনেক ভালো সরিষা হবে বলে মনে করি, তিনি জানায় প্রতি বিঘা জমিতে প্রিয় ৪ মণ সরিষা হয়ে থাকে, আশা করি এবার ভালো দামে সরিষা বিক্রি করতে পারবো। 

এ বিষয়ে ধামরাই উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আরিফ হাসান বলেন এবার ৬২০০ হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ হয়েছে, এবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে অবশ্যই সরিষার ফলন ভালো হবে বলে মনে করি। এখন বর্তমানে সরিষার যে দাম আছে এই দাম থাকলে কৃষক লাভবান হবে। কৃষকের যে পরামর্শের জন্য আমার কাছে আসলে সর্বোচ্চ সেবা দেওয়ার চেষ্টা করি আমি।


আরও খবর



বিশ্বের অনেক দেশ ও অঞ্চলে এবার মন্দা আসবে

প্রকাশিত:Tuesday ১৭ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

মার্কিন-চীন বাণিজ্যযুদ্ধ ও করোনা মহামারি বিশ্বের অনেক কিছুই বদলে দিয়েছে । এরপর চলতি বছর বিশ্বের অনেক দেশ ও অঞ্চলের আর্থনীতি মন্দায় পড়বে। তবে পরিস্থিতি বাংলাদেশ ও ভারতের বাণিজ্য ও অর্থনীতির জন্য অনুকুলে থাকবে।

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের বার্ষিক সম্মেলন উপলক্ষে প্রকাশিত এক জরিপের প্রতিবেদনে বাংলাদেশের এই সম্ভাবনার কথা বলা হয়েছে। মূলত অর্থনীতিবিদদের ওপর এই জরিপ করা হয়। অর্থনীতিবিদরা বলেন, পশ্চিমা দেশগুলো এখন পণ্যের জন্য আর এককভাবে চীননির্ভর থাকতে চাইছে না। আমদানির উৎস বাড়ানোর জোর চেষ্টা করছে তারা। এতে সবচে বেশি লাভবান হতে পারে বাংলাদেশ ও ভারতের মতো দেশ । 


আরও খবর



র‍্যাবের অভিযানে কষ্টি পাথরের মূর্তি উদ্ধারসহ ৩ জন আটক

প্রকাশিত:Monday ১৬ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :

র‍্যাবের অভিযানে ১টি কষ্টি পাথরের বিষ্ণু মূর্তি উদ্ধার সহ জড়ীত ৩ জন প্রতারক কে গ্রেফতার।

জয়পুরহাট জেলা সদর উপজেলার বানিয়াপাড়া এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ৪০ কেজি ওজনের একটি বিষ্ণু মূর্তি উদ্ধার সহ আব্দুল আলীম (৩২), জহুরুল ইসলাম (৪৪) ও মেহেদী হাসান (৩২) নামের সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের ৩ জন সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব।

সত্যতা নিশ্চিত করে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট কাম্প থেকে জানানো হয়, র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার মেজর মোঃ মোস্তফা জামানের নেতৃত্বে রবিবার বেলা পৌনে ৩ টার দিকে জেলার কালাই থানার আকন্দপাড়া গ্রামের মফিজুল প্রামাণিকের ছেলে ও প্রতারক চক্রের মূলহোতা মোঃ আব্দুল আলীম, একই থানার কালাই পূর্বপাড়া গ্রামের মৃত আলতাব মোল্লার ছেলে মোঃ জহুরুল ইসলাম ও ক্ষেতলাল থানার ভাসিলা থানার মৃত আব্দুল জলিলের ছেলে মোঃ মেহেদী হাসানকে হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়।

র‍্যাব আরো জানায় যে, গ্রেফতারকৃত মোঃ আব্দুল আলিম সংঘবদ্ধ একটি প্রতারক চক্রের মূলহোতা এবং অন্য দু' জন সেই চক্রের সক্রিয় সদস্য। তারা পরস্পর যোগসাজশে দেশের বিভিন্ন এলাকার লোকজনকে কষ্টিপাথরের বিষ্ণু মূর্তির মিথ্যা প্রলোভন দেখিয়ে তাদের নিকট হইতে প্রতারণার মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিত। 

পরবর্তীতে তাদের বিরুদ্ধে থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইন-১৯৭৪ অনুসারে মামলা দায়ের পূর্বক সোমবার জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।


আরও খবর