Logo
শিরোনাম

অস্তিত্ব সংকটে শীতলক্ষ্যা

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

রবিবার বিশ্ব নদী দিবস। প্রতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসের শেষ রবিবার সারা বিশ্বে দিবসটি পালিত হয়। বাংলাদেশেও নানা আয়োজন থাকে। বাংলাদেশের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত সব নদ-নদীকে জীবন্ত সত্তা ঘোষণা করেছে হাইকোর্ট। তুরাগ নদ রক্ষায় মানবাধিকার ও পরিবেশবাদী সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের করা এক রিটের চূড়ান্ত শুনানি নিয়ে ২০১৯ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি ওই রায় দেয় হাইকোর্ট।

এর আগে ২০১৭ সালে কলম্বিয়ার সাংবিধানিক আদালত ‘রিয়ো এট্রাটো’ নামক একটি নদীকে জীবন্ত সত্তা ঘোষণা করে। নদীটি সোনা আর কয়লার খনির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়াতে সেখানকার আদিবাসী সম্প্রদায় ও অন্যদের জন্য ব্যাপক সমস্যা হচ্ছিল।

নিউজিল্যান্ডের একটি নদীকেও জীবন্ত সত্তা ঘোষণা করা হয়, ওই নদীকে সেখানকার মানুষ খুবই পবিত্র মনে করে একে ঘিরে নানা উপাসনাও করত। ভারতের মধ্য প্রদেশের রাজ্য আদালত থেকে নর্মদা নদীকে জীবন্ত সত্তা ঘোষণা দেওয়া হয়।

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের ২০২১ সালের এক জরিপে জানা গেছে, সারা দেশে ৬৫ হাজার ১২৭ জন নদী দখলদার রয়েছে। তবে এরমধ্যে ১৯ হাজার ৮৭৪ জন অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ করা হয়েছে।

বাংলাদেশ রিভার ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মো. মনির হোসেন বলেন, জেলা প্রশাসক জেলা নদী রক্ষা কমিটির সভাপতি একই সঙ্গে তিনি জেলা পানিসম্পদ ব্যবস্থাপনা কমিটির আহ্বায়ক। জেলা প্রশাসক পরিবেশ অধিদপ্তর, মৎস্য অফিস, কৃষি অফিস, পানি উন্নয়ন বোর্ড, বিআরডিবি, পরিবেশবাদী, জনপ্রতিনিধি, সিভিল সোসাইটি, মিডিয়ার প্রতিনিধির সমন্বয়ে নদী রক্ষার কাজকে এগিয়ে নিতে হবে। তাছাড়া জলাধার সংরক্ষণ আইন ২০০০, পানি আইন ২০১৩, বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫, বাংলাদেশ জীববৈচিত্র্য আইন ২০১৭, বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন ২০১২ কঠোর প্রয়োগে সুফল আসতে পারে বলেও তিনি মনে করেন।

 শীতলক্ষ্যার পানি হাতে বা শরীরে লাগলে চর্মরোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। এলাকার কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি নদী ভরাট, অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও স্থাপনা নির্মাণ করছেন।

তারা আরো জানান, উপজেলার পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া শীতলক্ষ্যা নদী পাড়ের কৃষিজমিগুলো ছিল ফসলে ভরা। নদীতে ছিল নানা প্রজাতির মাছ। এখন শীতলক্ষ্যায় বিপন্ন জীববৈচিত্র্য, আর বেকার জেলে পরিবার।

তারা আরো জানান, কারখানা গড়ার আগে স্থানীয় কিছু মানুষকে সেখানে চাকরির ব্যবস্থা করা হয়। আর চাকরির কারণে স্থানীয়রাও তেমন কিছু বলেন না। মাঝে মাঝে সামাজিক ও পরিবেশবাদী সংগঠনগুলো নদী রক্ষায় আন্দোলন করে। আর নীতিনির্ধারকরা বরাবরই উদাসীন থাকেন।

ঘোড়াশাল পৌর এলাবার জামালপুর গুদারাঘাটের নৌকার মাঝি হাসমত আলী বলেন, দীর্ঘ ১৫ বছর যাবত এই ঘাটে নৌকা চলাই। নদীর পানি আগে এতটাই দূষিত যে নৌকা চালাতে ভয় হয়। ‘বাঁচাও শীতলক্ষ্যা’ আন্দোলনের সমন্বয়ক মাহবুব সৈয়দ বলেন, একটা সময় আসবে যখন দেশজুড়ে নগর-জনপদের বিপুল পানির চাহিদা পূরণ করতে হবে নদী থেকে। কারণ ভূগর্ভস্থ পানির স্তর বিপজ্জনক মাত্রায় নিচে নেমে গেছে।


আরও খবর



রাঙ্গামাটিতে মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা ৩৯ তম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১০ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

 উচিংছা রাখাইন, রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি :

পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির প্রতিষ্ঠাতা, গণ পরিষদ ও স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম জাতীয় সংসদের সদস্য মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা(এম এন লারমা) ৩৯ তম মৃত্যু বার্ষিকী রাঙ্গামাটিতে পালিত হয়েছে। 

১০ নভেম্বর (বৃহস্পতিবার) সকালে জেলা শিল্পকলা একাডেমি  মিলনায়তনে ৩৯ তম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে অনুষ্টিত  স্মরণ সভায় শোক প্রস্তাব পাঠ করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি, রাঙ্গামাটির জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক শ্রী নগেন্দ্র চাকমা।

সভায় পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি রাঙ্গামাটি জেলা কমিটির সভাপতি  ডা.গঙ্গা মানিক চাকমা'র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য গৌতম কুমার চাকমা। এসময় অন্যান্যের মধ্যে  উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম চট্টগ্রাম অঞ্চলের সভাপতি প্রকৃতি রঞ্জন চাকমা, এম এন লারমার মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের  সভাপতি বিজয় কেতন চাকমা, সিএইচটি হেডম্যান নেটওয়ার্কের সহ-সভাপতি অ্যাড. ভবতোষ দেওয়ান, পার্বত্য চট্টগ্রাম মহিলা সমিতি রাঙ্গামাটির সহ সাধারণ সম্পাদক আশিকা চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম যুব সমিতি রাঙ্গামাটির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক সাগর ত্রিপুরা নান্টু, পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সুমন মারমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশন কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শান্তিদেবী তঞ্চঙ্গ্যা সহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতা কর্মীরা।

 এর আগে  মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা(এম এন লারমা) শহীদ বেদিতে পুষ্প স্তবক অর্পন করা হয়।


আরও খবর



হাজীগঞ্জে আলোচিত কাউন্সিলর মিনু"র স্বামী গ্রেফতার

প্রকাশিত:শনিবার ১২ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

কামরুজ্জামান টুটুল, হাজীগঞ্জ,চাঁদপুর ঃ

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ পৌরসভার ৭, ৮ ও ৯নং  ওয়ার্ডের  আলোচিত সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর মিনু আক্তারের স্বামী নুরে আলমকে গ্রেফতার করেছে হাজীগঞ্জ থানা পুলিশ। শুক্রবার (১১ নভেম্বর) দুপুরে তাকে গ্রেফতার করেন হাজীগঞ্জ থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মো. রেজাউল করিম। 

পুলিশ জানায়, উপজেলার দ্বাদশগ্রাম ইউনিয়নের কাপাইকাপ গ্রামের বাসিন্দা, হাজীগঞ্জ বাজারের দর্জি ও পৌরসভার ৭, ৮ ও ৯নং  ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর মিনু আক্তারের স্বামী নুরে আলমের বিরুদ্ধে চেক জালিয়াতির একটি মামলার ওয়ারেন্ট রয়েছে। 

ওই মামলার আসামি হিসাবে তাকে গ্রেফতার করে হাজীগঞ্জ থানা পুলিশ। ফরহাজুল ইসলাম নামের এক এনজিও'র কর্মকর্তা বাদী হয়ে নুরে আলমের বিরুদ্ধে আদালতে চেক জালিয়াতির একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং- সিআর- ৪৪৬/২২। 

এ বিষয়ে নুর আলম জানান, ব্রাক বাজার নামক একটি এনজিও থেকে তিনি ঋণ গ্রহণ করেন। ওই ঋণ মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে যায়। যার ফলে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়।

হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ জোবাইর সৈয়দ জানান, গ্রেফতারি পরোয়ানামূলে নুরে আলমসহ কয়েকজন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আজ বিকালে তাদের আদালতে সোপর্দ করা হবে। 

উল্লেখ্য সম্প্রতি সময় এই নারী কাউন্সিলর এক পুরুষ কাউন্সিলর ও পৌর মেয়রকে উদ্দেশ্য করে নিজ ফেজবুক পেজে বিভিন্ন কুৎসা রটনা রটিয়ে আলোচনায় আসেন। সেই ঘটনায় পৌর কাউন্সিলর মিনু আক্তারের নামে আদালতে মামলা ও থানায় সাধারন ডায়েরি করেন যা তদন্তাধীন রয়েছে। একই বিষয় নিয়ে উভয় পক্ষ সংবাদ সন্মেলন করেছ 


আরও খবর



কালকিনিতে বসতবাড়ি হারিয়ে নিঃস্ব ঝুমকির পরিবার

প্রকাশিত:সোমবার ২১ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

এইচ এম মিলন, কালকিনি (মাদারীপুর):

মাদারীপুরের কালকিনিতে আড়িয়াল খাঁ নদীর তান্ডবে স্বামীর পৈত্রিক ভিটা হারিয়ে ও শেষ সম্বল সরকার থেকে পাওয়া জমিটুকু প্রভাবশালী কর্তৃক দখল হয়ে যাওয়ায় ঝুমকি বেগম নামে এক অসহায় পরিবার পুরোপুরিভাবে এখন নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন। বর্তমানে মাথার গোজার কোন ঠাই মিলছে না ওই পরিবারের। তবে সরকার থেকে পাওয়া ওই জমি বেদখল মুক্তির দাবিতে বিভিন্ন দ্বারে-দ্বারে ঘুরছেন এখন অসহায় ঝুমকি বেগম ও তার পরিবার।

সরেজমিন ও ভুক্তভোগী পরিবার সুত্রে জানাগেছে, উপজেলার পুর্বএনায়েতনগর এলাকার আলীপুর গ্রামের ঝুমকি বেগমের স্বামী হামিদ আকনের ১৩৪ নং বাশগাড়ি মৌজার ১৬১৮ নং দাগের ৪ একর ৮১ শতাংশ জমির উপর বসতবাড়ি ছিল। কিন্তু নিয়তির নিষ্ঠুর আঘাতে গত দুই বছর আগে অব্যহত ভাঙ্গনে আড়িয়াল খা নদী গর্ভে সকল জমি ও বসবাড়িটি সম্পুর্নরুপে বিলিন হয়ে যায়। এ নদী ভাঙ্গনে ঝুমকি বেগম ও তার পরিবার পুরোপুরি নিঃস্ব হয়ে যায়। এ ঘটনায় ঝুমকি বেগম নিরুপায় হয়ে নদীর পাড়ে পরিবার পরিজন নিয়ে খোলা আকাশের নিচে বসবাস করে। পরে এ বিষয়টি প্রশাসনের নজরে আসলে মানবিক বিবেচনায় ভুমিহীন হিসেবে ঝুমকি ও তার স্বামী হামিদ আকনের নামে ওই এলাকায় ২৬ শতাংশ জমি কবুলিয়ত দলিল মুলে প্রদান করে সরকার। এ সুত্র মতে হামিদ আকন ওই জমিতে বেশ কিছু গাছ রোপন করেন এবং একটি ঝুপড়ি ঘর তুলে পরিবার নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন। কিন্তু সরকারের দেয়া ওই জমি হামিদ আকনকে আনুষ্ঠানিকভাবে বুঝিয়ে দিতে বিলম্ব করলে তিনি হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করেন। উক্ত রিট অনুযায়ী গত ০৭-০২-২২ তারিখে রুল ইস্যু করা হয়। এ মামলা চলমান অবস্থায় সরকার থেকে পাওয়া হামিদ আকনের ওই জমির বিভিন্ন প্রকার রোপনকৃত গাছ কেটে নিয়ে জমি অবৈধভাবে জোর পুর্বক দখল করে নেয় ফাসিয়াতলা গ্রামের কবির খা, হাবি মালত, নজু মালত,  আরিফ মালত ও ফারুক মালতসহ বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী। অসহায় হামিদ আকন ওই ঘটনার কোন প্রতিবাদ করতে না পেরে প্রভাবশালীদের বিচারের দাবিতে বিভিন্নস্থানে গিয়েও কোন সঠিক বিচার পাচ্ছে বলে অভিযোগ সুত্রে জানাগেছে।

অসহায় হামিদ আকন ও তার স্ত্রী ঝুমকি বেগম আক্ষেপ করে বলেন, আমাদের ভিটামাটি সব চলে গেল রাক্ষুসে আড়িয়াল খার পেটে। এখন আবার সরকারের দেয়া আমাদের শেষ সম্বল জমিটুকু চলে যাচ্ছে প্রভাবশালীদের পেটে। আমাদের জমি আমাদের ভোগ থেকে বিতারিত করা হচ্ছে। আমরা এখন কোথায় গিয়ে বাচবো। অনেক জায়গায় গিয়েছি সঠিক বিচারের জন্য কিন্তু তা পাচ্ছি না। আমাদের এখন আত্নহত্যা করা ছাড়া কোন উপায় পাচ্ছি না।

তবে অভিযুক্ত কবির খা ও হাবি মালত ঘটনার অস্বিকার করেন।

পুর্বএনায়েত নগর ইউপি চেয়ারম্যান নেয়ামুল আকন বলেন, আমি বিষয়টি সমাধান করার চেষ্টা করবো।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিংকি সাহা জানান, হামিদ আকনের বিষয়টির ব্যাপারে জেনে ব্যবস্থা নেয়া হবে।



আরও খবর



লালমনিরহাট আদিতমারিতে যৌতুকের জন্য

ছোটভাইয়ের স্ত্রীকে নির্যাতন বাড়ী থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৫ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ 

লালমনিরহাট আদিতমারি থানার ভাদাই টাউরাশের বাজার নামক এলাকায় সদ্য বিবাহিত ছোটভাইয়ের স্ত্রীকে নির্যাতন করে বাড়ী থেকে বের করে ওই এলাকার চেয়ারম্যান কৃষ্ণ কান্ত রায় বিধুরের সহযোগিতায় ওই নববধূকে প্রথমে  জোড় পূর্বক ভাদাই ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে আসেন৷ এবং হুমকি প্রদান করার অভিযোগ উঠছে।  

অভিযোগ এও উঠছে যে, লালমনিরহাট সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্মচারী অশোক দীর্ঘদিন ধরে লালমনিরহাট সদরের নবীনটারি রাধা নগরের মানসিক ভারসাম্যহীন সুনিল চন্দ্র রায়ের একমাত্র কন্যা নমিতার সাথে প্রেমের সম্পর্কে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হয়। পরে অশোকের বড়ভাই গোপাল মেয়ের বাপ ও প্রতিবেশীদের উপস্থিতিতে ২০লাখ টাকা যৌতুক হিসেবে দাবি জানায়। 


এ বিষয়ে টাকা দিতে অসম্মতি জানালে অশোক পারিবারিক ভাবে মিমাংসা করে তার স্ত্রী নমিতাকে তার বাড়ীতে নিয়ে যাবার কথা বলে তালবাহানা শুরু করলে অদ্য ২৫ নভেম্বর সকালে নমিতা অশোকের বাড়ীতে যায়। অশোক তার বড়ভাইয়ের বেধে দেয়া কুড়ি লাখ টাকা যৌতুক না দিলে কয়েকজন কুচক্রী মহলের ইন্ধনে বিবাহিত স্ত্রীকে গ্রহন করতে অসম্মতি জানায়। 

উক্ত নারী তার স্বামীর স্বীকৃতি ও  অধিকার আদায় করতে চান।  

তাতেও বাঁধ সাজে গোপাল সহ কয়েকজন কুচক্রী মহল।  খবর দেয় আদিতমারি থানা পুলিশকে।  উক্ত বিষয়ে ওই থানার ওসি মোক্তারুল ইসলামের সাথে একাধিকবার মুঠো ফোনে কথা বলার চেষ্টা করলে তিনি এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত ফোন রিসিভ না করাশ তার মতামত পাওয়া যায়নি।


আরও খবর



মোরেলগঞ্জে শেখ রাসেল শিশু পার্ক শুভ উদ্ধোধন করেন জেলা প্রশাসক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৯ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

এম.পলাশ শরীফ নিজস্ব প্রতিবেদক :

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে শিশু বিনোদনের শেখ রাসেল শিশু পার্কের আনুষ্ঠানিক শুভ উদ্ধোধন করেন বাগেরহাট জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আজিজুর রহমান।

মোরেলগঞ্জ পৌরসভার উদ্যোগে মঙ্গলবার সকাল ১১টায় বারইখালী পুরাতন জেল খানা মাঠ চত্বরে ‘শেখ রাসেল নির্মলতার প্রতীক দুরন্ত প্রাণবন্ত নির্ভীক’ এ ¯্রােগানকে সামনে রেখে শেখ রাসেল শিশু পার্কের উদ্ধোধন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পৌরসভার মেয়র এ্যাড. মনিরুল হক তালুকদার, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. জাহাঙ্গীর আলম।

এর পরে আব্দুল আজিজ মেমোরিয়াল মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে প্রধান অতিথি দিনব্যাপী কর্মসূচিতে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে কাব হলি-ডে ২০২২ আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন এ উপলক্ষে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আজিজুর রহমান। উপজেলা স্কাউট সভাপতি নির্বাহী অফিসার জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. শাহ-ই আলম বাচ্চু, ভাইস চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক মোজাম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফাহিমা খানম। আলোচনা করেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. জালাল উদ্দিন, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. জিহাদ হাসান, উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ আকাশ বৈরাগী।


বক্তৃতা করেন উপজেলা স্কাউট কমিশনার মো. খলিলুর রহমান। এ সময় পৌরসভার কাউন্সিলরবৃন্দ, বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পরবর্তীতে জেলা প্রশাসক প্রধান অতিথি হিসেবে কৃষক সমাবেশ ও বীজ বিতরণ, রওশন আরা মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়, দক্ষিণ জিউধরা ভূমি অফিস ও আশ্রয়ণ প্রকল্পের গৃহনির্মাণ প্রকল্প পরিদর্শন করেন। এ সব অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতাকালে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আজিজুর রহমান বলেন, শেখ রাসেল শিশু পার্ক এ অঞ্চলের শিশুদের বিনোদন ও জীবনযাত্রার মানউন্নোয়নে গুরুত্ববহন করবে।একই সাথে কাব স্কাউটস সমাজের বাল্য বিবাহ, মাদক প্রতিরোধে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে পারে।


আরও খবর

নোরাকে অশালীনভাবে স্পর্শ !

বৃহস্পতিবার ০১ ডিসেম্বর ২০২২