Logo
শিরোনাম

পঞ্চগড় ট্রাজেডি : মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬৮

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৮ নভেম্বর ২০২২ |
Image

পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় করতোয়া নদীতে নৌকাডুবির ঘটনায় তৃতীয় দিন পর্যন্ত মৃতদেহ মিলেছে ৬৮ জনের। এখনো নিখোঁজ আছেন চারজন। তাদের উদ্ধারে আজও চলছে কার্যক্রম।

উদ্ধার কার্যক্রমের তৃতীয় দিনে সন্ধ্যা পর্যন্ত ১৭টি মৃতদেহ পাওয়া যায়। দিনাজপুরের খানসামা ও বীরগঞ্জ এবং পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ ও বোদা উপজেলার বিভিন্ন নদী-উপনদী থেকে এসব মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। আর জেলা প্রশাসনের জরুরি তথ্য কেন্দ্রের সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী, ৬৮ জনের মৃতদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এদের মধ্যে ২১ জন শিশু, ৩০ জন নারী ও পুরুষ ১৭ জন। তবে ডুবে যাওয়া নৌকাটিতে ঠিক কতজন যাত্রী ছিল, তার সঠিক তথ্য এখনো পাওয়া যায়নি। গত রবিবার দুপুরে মাড়েয়া বামনহাট ইউনিয়নের আউলিয়া ঘাট এলাকায় করতোয়া নদীতে শতাধীক যাত্রী নিয়ে ডুবে যায় নৌকাটি। 


আরও খবর

কর্মবিরতিতে নৌযান শ্রমিকরা

রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২




পাংশায় বিশ্ব এন্টিমাইক্রোবিরিয়াল সচেতনতা সপ্তাহ উপলক্ষে সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:বুধবার ২৩ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

 রাজবাড়ী, প্রতিনিধি ঃ

রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রর সম্মেলন কক্ষে বেলা ১১ টায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোহাম্মাদ হাসানাৎ আল মতিন এর সভাপতিত্বে এন্টিবায়োটিক রেজিষ্ট্যান্স সহনীয় মাত্রায় আনায়নের জন্য চিকিৎসক সহ সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি মাসুুর রহমান রুবেল প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য প্রদান করেন বিশেষ অতিথি ছিলেন পাংশা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রতন কুমার ঘোষ, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আজাহার উদ্দিন, পাংশা উপজেলা আবাসিক ম্যাডিকেল অফিসার তরুন কুমার পাল প্রমুখ। অনুষ্ঠান সজ্ঞালনা করেন উপজেলা সেনেটারী ইন্সিপেক্টর ও নিরাপদ খাদ্য পরিদর্শক তৈয়বুর রহমান। 

বক্তাগণ বলেন , সারাবিশ্ব জুরে এন্টিবায়োটিক রেজিষ্ট্যান্স একটি জনস্বাস্থ্য সমস্যা হিসেবে দেখা দিয়েছে এবং জীবাণু সমূহ এন্টিবয়োটিকের প্রতি তাদের প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করেই চলছে। জীবাণু সমূহ বহু প্রকার এন্টিবায়োটিক প্রতিরোধী হয়ে পড়ছে। এমতাবস্থায় এন্টিবায়োটিক রেজিষ্ট্যান্স সহনীয় মাত্রায় আনয়নের জন্য সবাইকে একসাথে কাজ করতে হবে সচেতনতা বৃদ্ধি এখনই জরুরী।


আরও খবর



জন্মনিয়ন্ত্রণে আগ্রহ কমছে

প্রকাশিত:শনিবার ২৬ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৮ নভেম্বর ২০২২ |
Image

সারা দেশে সরকারি জন্মনিয়ন্ত্রণ সেবা নেওয়ার হার কমছে। অনেকে হাতের নাগালের প্রচলিত জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণ করেন। পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের তথ্য বলছে, গত পাঁচ বছরে সাত ধরনের সেবা নেওয়ার হার কমেছে প্রায় ২৪ শতাংশ। আর ছয় বছরের হিসাব করলে এসব সেবা নেওয়ার হার কমে দাঁড়ায় প্রায় ৩৭ শতাংশ। তবে ঢাকার দম্পতিদের মধ্যে দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতি গ্রহণের হার কমছে বেশি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রচারের অভাবে দম্পতিরা দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতিতে আগ্রহ হারাচ্ছেন। এ কারণে তারা গর্ভধারণ রোধে হাতের নাগালে থাকা পদ্ধতিই বেশি গ্রহণ করেন। তবে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, মানুষকে সচেতন করতে প্রচার চলছে।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর জুলাই থেকে জুন পর্যন্ত অর্থবছর ধরে উপাত্তের হিসাব রাখে। ২০১৭–১৮ থেকে ২০২১–২২ অর্থবছরের উপাত্ত পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, আটটি বিভাগেই দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতি গ্রহণের হার কমেছে। পাঁচ বছরে সারা দেশে জন্মনিয়ন্ত্রণে সব ধরনের সরকারি সেবা নেওয়ার হার প্রায় ২৪ শতাংশ কমেছে। আর স্থায়ী পদ্ধতি নেওয়ার হার কমেছে ৩৩ শতাংশ।

দীর্ঘমেয়াদি ও স্থায়ী পদ্ধতির ৯০ শতাংশের বেশি সেবা দিয়ে থাকে সরকারি সেবাকেন্দ্র। বেসরকারি সংস্থা সোশ্যাল মার্কেটিং কোম্পানিও (এসএমসি) কিছু সেবা দিয়ে থাকে।

ঢাকায় কমেছে যে কারণে :  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পপুলেশন সায়েন্সেস বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মোহাম্মদ মঈনুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতির ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যঝুঁকি, যৌন অক্ষমতা, ভবিষ্যতে সন্তান নিতে পারবেন না-অনেকের মধ্যে এমন ভুল ধারণা রয়েছে। এসব ধারণা ভাঙাতে সরকারের যথাযথ উদ্যোগ নেই।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের জন্মনিরোধ সেবা ও সরবরাহ কর্মসূচি (সিসিএসডিপি) ইউনিটের সহকারী পরিচালক মো. রফিকুল ইসলাম তালুকদার বলেন, দীর্ঘমেয়াদি সেবার ক্ষেত্রে সরকারি সুবিধা গ্রামপর্যায়ে বেশি। ঢাকাসহ অন্যান্য সিটি করপোরেশন এলাকায় এ সুবিধা কম। তবে প্রশিক্ষণ, বিলবোর্ড, বিজ্ঞাপন, টক শো ইত্যাদি উপায়ে দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতির বিষয়ে প্রচার চালানো হচ্ছে।

সচেতনতা বাড়াতে হবে : স্ত্রীরোগ ও প্রসূতিবিদ্যায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সংগঠন অবসটেট্রিক্যাল অ্যান্ড গাইনোকোলজিক্যাল সোসাইটি অব বাংলাদেশের (ওজিএসবি) সভাপতি অধ্যাপক ফেরদৌসী বেগম বলেন, কনডমে ৮ শতাংশ অকার্যকারিতা আছে। খাওয়ার বড়িতে ৯৯ শতাংশ কার্যকারিতা থাকলেও বেশির ভাগ নারী নিয়ম মেনে সেবন করেন না।

ফেরদৌসী বেগম বলেন, অপরিকল্পিত গর্ভধারণে নারীর স্বাস্থ্যঝুঁকি থাকে, শিশুটিরও যত্নের ঘাটতি হয়। অস্ত্রোপচারে সন্তান জন্ম দেওয়া (সি সেকশন) নারী বারবার গর্ভধারণ করলে প্লাসেন্টা আক্রিটা সিনড্রোম বা পিএএস দেখা দেয়। এটা একধরনের অস্বাভাবিক গর্ভধারণ। এতে জরায়ুতে নানা জটিলতা দেখা দিতে পারে। তাই দীর্ঘমেয়াদি ব্যবস্থা নিতে সচেতনতা বাড়াতে প্রচার দরকার।


আরও খবর



চোরাকারবারি কর্তৃক বিজিবি'র উপর হামলা

চিকিৎসার জন্য হেলিকপ্টার যোগে ঢাকায় নেওয়া হলো ক্যাম্প ইনচার্জকে

প্রকাশিত:শনিবার ০৫ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রির্পোটারঃ


নওগাঁর ধামইরহাট ভারতীয় সীমান্তে চোরাচালান বিরোধী অভিযান পরিচালনার সময় চোরাকারবারিদের হামলায় ১৪ বিজিবির বস্তাবর ক্যাম্পের ইনচার্জ নায়েক সুবেদার মজিবর রহমান সহ সোর্স তারেক মারাত্মক জখম হয়েছেন। আহত মজিবর রহমানকে উন্নত চিকিৎসার জন্য হেলিকপ্টারযোগে ঢাকায় নেয়া হয়েছে। শুক্রবার ৪ নভেম্বর ভোর ৩টায় বস্তাবর সীমান্তের শাখাহাটি বাজারে এঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি শান্ত রাখতে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

বিজিবি ও স্থানীয় সূত্র জানায়, মজিবর রহমানসহ কয়েকজন বিজিবি সদস্য বৃহস্পতিবার ৩ নভেম্বর দিবাগত রাতে শাখাহাটি বাজারে টহল দিচ্ছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভোর ৩টায় তারা চোরাকারবারিদের ধরতে উপজেলার শিমুলতলী ব্রিজের পাশে কলাবাগানে যান। সেখানে চোরাকারবারিরা মজিবর রহমান ও সোর্স তারেককে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে পালিয়ে যায়। শুক্রবার সকালে মজিবর রহমানকে উন্নত চিকিৎসার জন্য হেলিকপ্টারযোগে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয় এবং সোর্স তারেককে পত্নীতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

পত্নীতলা ১৪-বিজিবির কমান্ডিং অফিসার (সিও) লেফটেন্যান্ট কর্নেল হামিদ উদ্দিন পিএসসি বলেন, ‘একটা তথ্যের ভিত্তিতে বিজিবি সদস্যরা ঘটনাস্থলে যায়। যখন এক চোরাকারবারিকে ১৩৫ বোতল ফেনসিডিলসহ আটক করা হয় তখন পেছন থেকে আরও দু-তিনজন এসে হামলা চালিয়ে বিজিবি সদস্যকে কুপিয়ে জখম করে। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। ঘটনার পর তথ্য অনুসন্ধান করা হচ্ছে। তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সীমান্তের পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক।

তিনি বলেন, ‘আমরা সম্পূর্ণ ঘটনা নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছি এবং তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের গ্রেপ্তার করার চেষ্টা করছি। 

শুক্রবার সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফুল ইসলাম, থানা পুলিশ ও পত্নীতলা সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফতাফ উদ্দিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি বলেন, বিজিবির সদস্যের ওপর চোরকারবারিরা হামলা করায় দুজন আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থলে বিজিবি ও পুলিশ সদস্যরা আছে।


আরও খবর



ডু অর ডাই ম্যাচ মেসিদের

প্রকাশিত:শনিবার ২৬ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

বিশ্বকাপের এই আসরের বেস্ট দল ব্রাজিল। ফুটবল সেন্স, স্টেমিনা, ফিল্ড ওয়ার্ক, সব জায়গায়, সব পজিশনে সবচেয়ে গোছালো দল ব্রাজিল। সার্বিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে প্রথমার্ধে সেটা যদিও দেখা যায়নি। কারণ বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচ। সব খেলোয়াড়রাই একটু চিন্তায় ছিলেন, আসলে কি হয়। মানসিকভাবেই একটু প্রেসারে থাকায় এমনটা হয়েছিল। অপজিশন দল আসলে কিভাবে খেলে, সেটা দেখে দ্বিতীয়ার্ধে তৈরি হয় প্ল্যান। ফাস্ট হাফে দুই দলই সমানতালে খেলেছে। রিচার্ডলিসন যে গোলটা করল, তা আসলে এক্সট্রা অর্ডিনারি। আনভেলিয়েবল গোল। এটা ব্রাজিলের খেলোয়াড়দের পক্ষেই সম্ভব। বিশ্বকাপের এটাই মনে হয় এখন পর্যন্ত সেরা গোল। যাই হোক, ব্রাজিল ব্রাজিলের মতোই খেলে জয়লাভ করেছে। ৯০ মিনিটের খেলা। ব্রাজিলের শক্তি হচ্ছে বেঞ্চ। গোলকিপার থেকে শুরু করে প্রতিটি পজিশনে তাদের সেকেন্ড চয়েজ বলতে কিছু নেই। সবই ফাস্ট চয়েস। জয় দিয়েই তাদের যাত্রা শুরু।
ইরান গতকাল ম্যাচে দুর্দান্ত কামব্যাক করেছে ওয়েলসের বিপক্ষে। দ্বিতীয় ম্যাচ দেখে মনে হলো প্রথমটা তাদের আসলে বেড লাকই গেছে। ইরানের এই কামব্যাক করাটা এশিয়ার জন্যই বিশাল পাওয়া। প্রথম ম্যাচে আসলে তারা ইংল্যান্ডের কাছে যেভাবে হেরেছে, তাতে কেউ গোনায় আনেনি ইরানকে। সবাই ভেবেছে এই বিশ্বকাপে কিছু করতে পারবে না। তারা দেখিয়ে দিলো, এশিয়ান জাপান, সৌদি আরবের মতো তারাও এগিয়ে যাবে। আশা করা যায়, যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে জয়ী হয়ে নকআউট পর্বে উঠার সম্ভাবনা তৈরি হতে পারে। কারণ যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে ইরান সবসময় ভালো খেলে। ওয়েলসের বিপক্ষে ম্যাচ জয়ে তারা উজ্জীবিত হয়েছে। সেই হিসেবে নকআউটে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি ইরানের।
তিউনিসিয়া এক পয়েন্ট। গ্রুপ ডিতে প্রথম ম্যাচে ইউরোপের দেশ ডেনমার্কের সাথে ড্র করেছে। তিউনিসিয়া অনেকটা এগিয়ে অস্ট্রেলিয়া থেকে। অস্ট্রেলিয়া তো এশিয়া অঞ্চলেই পড়ে। তারাও ভালো দল। তারা যদিও প্রথম ম্যাচে হেরেছে ফ্রান্সের কাছে। এতে কিছুটা ব্যাকফুটে হলেও গোল করেছিল কিন্তু প্রথমে অসিরাই। এই ম্যাচে অবশ্য লড়াই আশা করা যায়। সৌদি আরব ও পোল্যান্ড ম্যাচটা হবে অনেকটা মজার। কারণ সৌদি আরবের শক্তি তো আমরা প্রথম ম্যাচে দেখতেই পেয়েছি। তারা আসলে এই ধাঁচেই খেলবে। আজকের ম্যাচে তারা নিজের ঘর সামলেই খেলবে। কারণ ১ পয়েন্ট পেলেও তাদের লাভ। বাকিটা যা হয়।

ফ্রান্স ও ডেনমার্কের ম্যাচটা হবে কম্পিটিশন। প্রথম ম্যাচে ডেনমার্ক ড্র করেছে। ডেনমার্কও ভালো দল। আর ফ্রান্স প্রথম ম্যাচ জিতেছে। ম্যাচ জিতে তারা উইনিং মোডে রয়েছে। বর্তমান চ্যাম্পিয়নও তারা। বর্তমান দলে বিশ্বমানের অনেক স্ট্রাইকার রয়েছে। ফ্রান্সই আজকের ম্যাচে এগিয়ে থাকবে।
দিনের শেষ ম্যাচে আর্জেন্টিনার সামনে মেক্সিকো। মেসিদের হচ্ছে এটা ডু-অর-ডাই ম্যাচ। হয় জিতবে না হলে বিদায়। এটা একটা প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচ হবে। আর্জেন্টিনা দলে যেসব তারকা রয়েছেন, তাদের তো পরীক্ষা করার মতো কিছু নেই। তাদের সব পর্যায়ে সব ধরনের ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে। যদি প্রেসার নিয়ে খেলে তাহলে সমস্যায় পড়ার বেশি সম্ভাবনা। যদি স্বাভাবিক ফুটবল খেলে, তাহলে আর্জেন্টিনার জয় নিশ্চিত।


আরও খবর

আর্জেন্টিনাকে মাটিতে নামাল সৌদি

বুধবার ২৩ নভেম্বর ২০২২

মহাযজ্ঞ উদ্বোধন আজ

রবিবার ২০ নভেম্বর ২০22




নওগাঁয় নিম্নমানের শিশু খাদ্য বিক্রি করায় ব্যবসায়ীর জরিমানা

প্রকাশিত:বুধবার ২৩ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টারঃ


নওগাঁয় নিম্নমানের শিশু খাদ্য বিক্রি করায় এক ব্যবসায়ীর ১০ হাজার টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় করা হয়েছে। একই সময় আরো ২ টি প্রতিষ্ঠানের ৫ হাজার টাকা করে ১০ হাজার টাকা। সর্বমোট ৩ টি প্রতিষ্ঠানের ২০ হাজার টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় করা হয়। 

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ও নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের যৌথ অভিযানে উপরোক্ত জরিমানা আরোপ ও আদায় করা হয়। 

সত্যতা নিশ্চিত করে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর নওগাঁ কার্যালয় এর

সহকারী পরিচালক মোঃ শামীম হোসেন জানান, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সার্বিক তত্ত্বাবধানে,  জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) মহোদয়ের অর্পিত ক্ষমতাবলে, জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশনায় ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহযোগিতায় বুধবার ২৩ নভেম্বর নওগাঁ জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোঃ শামীম হোসেন এবং নওগাঁ জেলার নিরাপদ খাদ্য কর্মকর্তা চিন্ময় প্রামানিক নওগাঁ জেলা সদর উপজেলার মিষ্টি পট্টি ও সুপারি পট্টি এলাকায়  যৌথ অভিযান পরিচালনা করাকালে

অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে মিষ্টি সংরক্ষণের অপরাধে মুক্তা মিষ্টান্ন ভান্ডারকে ৫ হাজার টাকা এবং মেয়াদহীন ও নিম্নমানের শিশু খাদ্য বিক্রয়ের অপরাধে সম্পর্ক স্টোর কে ১০ হাজার টাকা এবং সিরাজ স্টোর কে  ৫ হাজার টাকা "ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ অনুযায়ী" জরিমানা আরোপ ও আদায় করা হয়। এসময় বিপুল পরিমাণ মেয়াদহীন শিশু খাদ্য ধ্বংস করা হয় বলেও জানিয়েছেন অভিযানিক কর্মকর্তা। অভিযানে নওগাঁ পুলিশ লাইনের একটি চৌকষ টিম সহযোগীতা করেন। 

জনস্বার্থে এ ধরনের তদারকি অভিযান আগামীতেও অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।


আরও খবর

বাড়তি চালের দাম

রবিবার ২০ নভেম্বর ২০22