Logo
শিরোনাম

পরাজয়ের কারণ জানালেন বাবর আজম

প্রকাশিত:সোমবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

ইয়াশফি রহমান : টুর্নামেন্টের শুরু থেকে পাকিস্তানকে ফেবারিট মানা হচ্ছিল।তবে সুপার ফোরে টানা ৪ ম্যাচ জয়ে বাবর আজমদের উপর চোখ রাঙাচ্ছিল দাসুন শানাকারা। ফাইনালের তারই প্রতিফলন ঘটল। যদিও শ্রীলংকার শুরুটা ছিল একবারে নড়বড়ে। পাকিস্তানের দুই পেসার নাসিম শাহ ও হারিস রউফের তোপে ৫৮ রানেই ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলে শ্রীলংকা। ১০০ রানও পার হবে কি না তা নিয়ে সংশয় দেখা দেয়।

আর সেখান থেকে আর মাত্র ২ উইকেট খুইয়ে ১৭০ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর করে শ্রীলংকা, যা নির্ধারিত ২০ ওভারে পার করতে পারেনি পাকিস্তান। ২৩ রানে হেরে যায় বাবর আজমের দল।

বাজে ফিল্ডিং ও ক্যাচ মিসের মাশুল গুনেছে পাকিস্তান। ম্যাচ শেষে পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে সে কথাই জানালেন পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজম। তার মতে, বাজে ফিল্ডিংয়ের কারণেই ফাইনালে হেরেছে তার দল।

দাসুন শানাকাদের অভিনন্দন জানিয়ে বাবর আজম বলেন, ‘শ্রীলংকা দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলেছে। তবে আমাদের ফিল্ডিং আজ কোনোভাবেই ভালো ছিল না। খুবই বাজে হয়েছে। তাছাড়া আমাদের মিডল অর্ডার যেভাবে চেয়েছিলাম, সেভাবে ক্লিক করেনি। আমরা শুরুতে তাদের চেপে ধরেছিলাম। কিন্তু শেষটা হয়নি। আমরা যেভাবে চেয়েছি সেভাবে শেষ করতে পারিনি। একটা জুটিই সেখান থেকে বের করে নিয়েছে তাদেরকে। 



আরও খবর

বিশ্বকাপ নিশ্চিত নারী ক্রিকেট দলের

শনিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

মুকুট নিয়ে আজ ফিরছে বাঘিনীরা

বুধবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২




মোরেলগঞ্জে মানসম্মত শিক্ষা বাস্তবায়নে সভা

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

এম.পলাশ শরীফ, নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে মানসম্মত শিক্ষা বাস্তবায়নে করনীয় বিষয় মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার বেলা ১০টায় উপজেলা চত্বরে অনুষ্ঠিত এ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য অ্যাড. আমিরুল আলম মিলন। সভাপতিত্ব করেন বাগেরহাট জেলা প্রশাসক মো. আজিজুর রহমান

এ ছাড়াও সরকরি এসএম কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর নীতিশ বিশ্বাস, উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাড. শাহ্-ই-আলম বাচ্চু,  পৌরসভা মেয়র এসএম মনিরুল হক তালুকদার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আল মামুন উপজেলা স্কাউটস কমিশনার হোসনেয়ারা হাসিসহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক ও এসএমসি সভাপতিগণ উপস্থিত ছিলেন। 

অন্যান্যের মধ্যে আলোচনা করেন অধ্যক্ষ জাহাঙ্গীর আল আজাদ, ভাইস চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান, প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান, দুর্গা ঘরাই, স্কাউটার সারমিন আক্তার ও সাংবাদিক মশিউর রহমান মাসুম। 


আরও খবর



ফিরে আসুক ফুটবলের সুদিন......

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

কু‌মিল্লা ব্যুরো ঃ

কুমিল্লা আদর্শ সদরে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত।

সোমবার বিকালে নগরীর হোচ্ছামিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত ফাইনাল খেলায় প্রধান অতিথি ছিলেন আদর্শ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট মোঃ আমিনুল ইসলাম টুটুল। 

আদর্শ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকিয়া আফরিন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ তরিকুল ইসলাম জুয়েল, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান এডভোকেট হোসনেয়ারা বকুল, আদর্শ সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ জিয়া উল হক শিকদার।

সদর উপজেলার ইউনিয়ন ভিত্তিক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর মধ্যে এ  খেলার আয়োজন করে কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলা শিক্ষা কার্যালয়।

উপজেলা পর্যায়ে ফাইনালে বালক এবং বালিকা দুটি খেলা অনুষ্ঠিত হয়। জগন্নাথপুর ইউনিয়নের অরণ্যপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বালিকা দল ও পাচথবী ইউনিয়নের মুন্সিরবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বালিকা দল। খেলায় গোলশূন্য ড্র হওয়ায় ট্রাইবেকারে ০৩-০৪ গোলে মুন্সিরবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বালিকা দল বিজয়ী হয়।

দিনের দ্বিতীয় খেলায় অংশগ্রহণ করেন জগন্নাথপুর ইউনিয়নের জোহরুন্নেসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়  বালক দল ও দুর্গাপুর উত্তর গুণায়নন্দী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বালক দল। খেলায় গোলশূন্য ড্র হওয়ায় ট্রাইবেকারে  ০৪-০৫ গোলে দুর্গাপুর উত্তর গুণায়নন্দী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বালক দল বিজয়ী হয়।


আরও খবর

বিশ্বকাপ নিশ্চিত নারী ক্রিকেট দলের

শনিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

মুকুট নিয়ে আজ ফিরছে বাঘিনীরা

বুধবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২




লক্ষ্মীপুরে ব্রিজ ভেঙে ঝুঁকিপূর্ণ দুর্ভোগে এলাকাবাসী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি ঃ

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চর মন্ডলগ্রামের ব্রিজটি দীর্ঘদিন ধরে ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় ব্রিজের দুই পাড়ের প্রায় ৫ হাজার লোকের দুর্ভোগ চরমে পৌঁচেছে। প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে যাত্রীবাহি যানবাহন। 

সরজমিনে দেখা গেছে, সদর উপজেলার চরমন্ডল ও চর লামচী গ্রামের সীমানায় ওহাবদা খালে একটি সাখা খাল রয়েছে। এ খালের দুই পাশে রয়েছে চর লামচী-চর মন্ডল,দালাল বাজার,চররুহিতা বাজারসহ ১০টি গ্রাম। গ্রামের মানুষদের চলাচলের একমাত্র যাতায়াতের রাস্তা এ ঝুঁিকপূর্ণ ব্রিজটি। 

এ ছাড়া ব্রিজ দিয়ে প্রতিদিন চলচল করছে রসূলগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়,মাদ্রসা,প্রাথমিক বিদ্যালয়,দালাল বাজার কলেজ,লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজ,আলীয়া মাদ্রাসা,কাজী ফারুকী স্কুল এন্ড কলেজ এবং লক্ষ্মীপুর ন্যাশানাল স্কুল এন্ড কলেজ এর অসংখ্য শিক্ষার্থী।

এ ব্রিজ দিয়ে যাতায়াতকারী লক্ষ্মীপুর আলীয়া মাদ্রাসার ছাত্র ইয়ামিন হোসাইন বলেন, ব্রিজ ভাঙার আগে লক্ষ্মীপুর ও রায়পুর থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বাস ছাত্র-ছাত্রীদের আনা নেয়ার কাজে এখানে আসতো। ব্রিজ ভাঙার কারনে গাড়ী চলতে না পারায় বাস আসছেনা। 

এলাকার বসবাসরত এলাকাবাসি সিরাজ মিয়া,আবুল কাশেমসহ অনেকেই জানান,অনেক সময় কেউ অসুস্থ হয়ে গেলে রোগীনিতে কোন যানবাহন পাওয়া যাচ্ছে না। অনেক কষ্ট করে চিকিৎসার জন্য রোগী নিতে হচ্ছে। 

স্থানীয় এলাকাবাসি জানান,ব্রিজটির মাঝখানে ভাঙা থাকায় প্রতিনিয়তই গাড়ী চলাচলে দুর্ঘটনার শিকার হয়ে গাড়ী উল্টে যায়। প্রায় দুর্ঘটনায় আহত যাত্রীরা। ব্রিজটি পুন: নির্মাণ করার দাবী তাদের। তবে স্থানীয় চেয়ারম্যান ও মেম্বাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে কাজ হয়নি এমন অভিযোগ স্থানীয়দের।

তবে স্থানীয় ( ওয়ার্ডের  ) মেম্বার নুরে আলম পাটওয়ারী ও অপর ওয়ার্ডের মেম্বার আবুল বাশার জানান,ব্রিজটি ভেঙে যাওয়ায় গত ছয়মাস ধরে এলাকার মানুষ খুব কষ্টে যাতায়াত করছেন। 

এ সড়ক দিয়ে ব্রিজ হয়ে যাতায়াতকারী টিপু পাটোওয়ারী জানান, তিনি ইতিপূর্বে এ ব্রিজটি ব্যাক্তি উদ্যোগে কাঠ দিয়ে মেরামত করেন। ভারি যানবাহন চলাচল করায় সেই মেরামতটিও ভেঙে যায়। এর পর থেকে আর ব্রিজ নির্মাণে কেউ এগিয়ে আসে নাই। ব্রিজটি নির্মাণের ব্যাপারে এলজিইডি কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। 

রসূলগঞ্জ বাজারের সেক্রেটারি মো: নুরল ইসলাম টিপু জানান,আগে চর অঞ্চলের মানুষ রসূলগঞ্জ বাজারে আসতো তখন ব্যাবসা বাণিজ্য ভালো ছিলো। ব্রিজ ভাঙার কারনে অনেকেই এ বাজারে না এসে অন্য বাজারে চলে যাচ্ছে। এতে করে বাজারে ব্যবসায়ীদের দিন দিন বেচাকেনা কমে যাচ্ছে।  

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান কবির হোসেন পাটোওয়ারি জানান,ব্রিজটি ভেঙে যাওয়ায় মানুষ আসা-যাওয়ায় কষ্ট পাচ্ছে। ব্রিজটি নির্মাণের জন্য এলজিইডির নির্বাহি প্রকৌশলীর নিকট আবেদন করা হয়েছে। 

এলজিইডির নির্বাহি প্রকৌশলী মো: শাহ আলম পাটোওয়ারি জানান, বরাদ্ধ আসলে ব্রিজটি নির্মাণের জন্য টেন্ডার আহবান করা হবে। 


আরও খবর



সাংবাদিকদের উপর হামলার প্রতিবাদে ডেমরায় সমাবেশ ও চার থানা কমিটি ঘোষণা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

হাসিবুল ইসলাম: সোমবার বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের রাজধানীর ওয়ারী জোনের আওতাধীন ডেমরা স্টাফ কোয়ার্টার মাঠে আয়োজিত সাংবাদিক নির্যাতন ও সুরক্ষা আইন প্রণয়নের দাবিতে আয়োজিত আলোচনা সভায় আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান আহমেদ আবু জাফর। তিনি সরকারকে সাংবাদিক সুরক্ষা আইন প্রণয়ণসহ ১৪ দফা দাবি বাস্তবায়ন করতে জোড়ালো আহবান জানান। দেশে অহরহ সাংবাদিক নির্যাতন ঘটনা যেন থামছেইনা। সাংবাদিক সুরক্ষা আইন না থাকায় এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন। 

উদ্বোধনী বক্তব্যে রাখেন অনুষ্ঠান উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক মো. শফিকুল ইসলাম সাদ্দাম যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম, কেন্দ্রীয় কমিটি। সদস্য সচিব সেলিম নিজামির সভাপতিত্বে, প্রধান অতিথি ছিলেন এশিয়ান টিভির চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হারুন অর রশিদ (সিআইপি)। বিশেষ অতিথি ছিলেন ডেমরা থানার অফিসার ইনচার্জ মো: শফিকুর রহমান, ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের ৬৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাহমুদুল হাসান পলিন, চিত্রনায়ক যুবরাজ খান, বিএমএসএফের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আবুল খায়ের খান, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ খায়রুল আলম,সদস্য আমির হোসেন, পূর্বাঞ্চল সাংবাদিক ইউনিটির সভাপতি ওমর ফারুক জালাল, স্বাস্থ্য এন্ড পরিবেশ মানবাধিকার সাংবাদিক সোসাইটির চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম খান, শরিফুল ইসলাম বিপ্লব।


অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক মুন্সি মোঃ আল ইমরান, রফিকুল ইসলাম, রেজাউল করিম,  মোঃ সাইফুল ইসলাম পারভেজ, রেভা খান, সুমন খান,  মনির হোসেন, সভায় নেতৃবৃন্দ সারাদেশে সাংবাদিকদের ওপর অব্যাহত হামলা, নির্যাতন, জেল জরিমানার নীল নকশার কালো আইন বাতিল, সাংবাদিক সুরক্ষা আইন প্রণয়নসহ ১৪ দফা দাবি বাস্তবায়নে সরকার এবং গণমাধ্যম মালিকদেরকে আন্তরিক হওয়ার আহবান জানানো হয়। সমাবেশে ওয়ারী জোনের ৪টি থানার কমিটি ঘোষণার মধ্য দিয়ে সাংবাদিকদের মাঝে একটি বৃহৎ ঐক্যের সুচনা করা হয়। যাত্রাবাড়ী থানা কমিটির সর্বসম্মতিক্রমে সভাপতি  মোঃ সাইফুল ইসলাম পারভেজ ও সাধারণ সম্পাদক মুন্সি আল ইমরান নির্বাচিত হন, শ্যামপুর থানার সভাপতি মোঃ সহিদুল ইসলাম জনি সাধারণ মোঃ মনির নির্বাচিত হন। ডেমরা থানার সভাপতি সেলিম নিজামী ও সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, কদমতলী থানার সভাপতি অ্যাডভোকেট মহিউদ্দিন  ও ইঞ্জিনিয়ার হাসান সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

সমাবেশ শেষে বিভিন্ন শিল্পীর অংশগ্রহনে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।


আরও খবর



মাধবদীতে ডাকাতির প্রস্তুতকলে অস্ত্রসহ ৮ ডাকাত আটক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০22 | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

মাধবদী (নরসিংদী) প্রতিনিধি ঃ 

নরসিংদীর মাধবদীতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে নরসিংদীর জেলা গোয়েন্দা শাখা ও মাধবী থানা পুলিশের যৌথ অভিযানে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ৮ জন সদস্যকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়। 

পুলিশ জানায়,  গত সোমবার রাত ১.২৫ মিনিটে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মাধবদী থানা এলাকা মেহের পাড়া ইউনিয়নের চৌয়া গ্রামে একটি কালভার্টের উপর হতে তাদেরকে আটক করা হয় । এ সময় তাদের সাথে থাকা একটি বিদেশি পিস্তল ,একটি ম্যাগজিন ও ২ রাউন্ড গুলি এবং১টি চাপাতি ,১টি রামদা ,১ টি কাটার, লোহার পাইপ সহ ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত একটি পিকআপ ভ্যান উদ্ধার করা হয়।

আটকৃত প্রত্যেক এই আন্ত:জেলা ডাকাত দলের সদস্য বলে জানায় পুলিশ । আটককৃতরা হলেন মাধবদী থানা সাগরদি গ্রামের মতি মিয়ার পুত্র মোঃ ইব্রাহিম, ডৌকাদি গ্রামের জমির আলীর পুত্র ইউনুস ,নরসিংদী থানার বানিয়াছল  এর আবু তাহের পুত্র রুবেল ,মাধবদী থানার বালাপুর এর জাবেদ আলীর পুত্র আইউব, বিরামপুরের আব্দুল হালিমের পুত্র শাহিন, সাগরদী গ্রামের বাসেত পুত্র শফিকুল ইসলাম বাদল ,আড়াইহাজার থানার শালমদী গ্রামের জালালের পুত্র মোঃ শাহিন ,যশোর কোতয়ালী থানা আব্দুল সাত্তার এর পুত্র জাহাঙ্গীর, পুলিশ জানায় তাদের নামে একাধিক মামলা রয়েছে তারা বিদেশি ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ডাকাতি করার জন্য বের হয়েছিল । নরসিংদী জেলা গোয়েন্দা শাখা ইনচার্জ মোঃ আবুল বাশার বিপিএম-বার এর নেতৃত্বে মাধবদী থানা অফিসার ইনচার্জ রোকনুজ্জামান এর সহযোগিতায় এস আই নইমুল ইসলাম মোস্তাক,এস আই মোফাজ্জল হোসেন, সজিব খান ,রাহুল মজুমদার ,ফরহাদ,রুবেল, হামিদুল ,মান্নান, তুষার সহ আরো বেশ কয়েকজন অভিযানে অংশগ্রহণ করেন । উক্ত বিষয়ে আসামীদের বিরুদ্ধে মাধবদী থানায় পেনাল কোড ৩৯৯/৪০২ ধারায় এবং ১৮৭৮ সালের অস্ত্র আইনের ১৯অ/১৯(ঋ) ধারায় পৃথক পৃথক এজাহার দাখিল করা হয়েছে।


আরও খবর