Logo
শিরোনাম

রাঙ্গামাটি রিজার্ভ বাজার মহসিন কলোনীর অগ্নিকান্ডে ১২ টি বসতঘর পুড়ে ছাই

প্রকাশিত:Saturday ১৯ November ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

উচিংছা রাখাইন কায়েস, রাঙ্গামাটি ঃ 

রাঙ্গামাটি শহরের রিজার্ভ বাজার মহসিন কলোনী এলাকায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ১২ টি বসতঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আজ দুপুরে সাড়ে ১২ টার দিকে মহসিন কলোনীর মিয়া সদাগরের ভাড়াটিয়ার বাড়ী থেকে অগ্নিকান্ডের সুত্রপাত ঘটে। মুহুর্তের মধ্যে আগুন চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে। প্রথমে স্থানীয়রা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করলেও আগুনের লেলিহান শিখা বেড়ে যায়। পরে ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে ফায়ার সার্ভিস এসে প্রায় ১ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়। আগুনে প্রায় অর্ধ কোটি টাকার বেশি ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্থরা জানায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায় আজ দুুপুর হঠাৎ আগুনের লাগার হইচই শোনা যায়। এ সময় সকলে তাৎক্ষনিক আগুন নিয়ন্ত্রনে আনার চেস্টায় চালায়। পরবর্তীতে আগুন কোন ভাবে নিয়ন্ত্রনে না আসায় ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়া হয়। আগুন লাগার প্রায় ২০ মিনিট পর ফায়ার সার্ভিস ঘটনা স্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রনে কাজ চালায়। ফায়ার সার্ভিসের ৩টি ইউনিট ও সাধারণ জনগন প্রায় ১ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। আগুনের লেলিহান শিখা এতোই বেশী ছিলো যে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে বেগ পেতে হয়েছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদেরকে। 

রাঙ্গামাটি জেলা ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা মোঃ ইকবাল হোসেন জানান, আগুন লাগার খবর পেয়ে সাথে সাথে আমরা ঘটনাস্থলে এসে পৌছায় এবং আগুন নিয়ন্ত্রনে কাজ করি। প্রায় ঘন্টা খানেক ৩ টি ইউনিটি তিন দিক থেকে আগুনের নেভাতে প্রচেষ্টা চালায়। তিনি বলেন, তবে তাৎকক্ষনিক কিভাবে আগুন লেগেছে তা জানা সম্ভব হয়নি। আগুনে ১৫ টি বাড়ী পড়ে ছাই হয়ে গেছে। ক্ষয়ক্ষতি নিরূপন করে পরে তথ্য দেয়া হবে। 

তাৎক্ষনিক রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ সাইফুল ইসলাম, রাঙ্গামাটি পৌরসভার প্যানেল মেয়র মোঃ হেলাল উদ্দিন ঘটনাস্থলে এসে স্থানীয়দের সাথে কথা বলেন এবং ক্ষয়ক্ষতি নিরুপন করে সহযোগিতার কথা উল্লেখ করেন। 


আরও খবর



রাণীনগরে শীতকালীন পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:Monday ০৯ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

কাজী আনিছুর রহমান,রাণীনগর (নওগাঁ)


নওগাঁর রাণীনগরে শীতকালীন পিঠা উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। গ্রাম বাংলার হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্যবাহি পিঠাকে সবার সামনে নতুন করে তুলে ধরতে সোমবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ চত্বরে এই উৎসব অনুষ্ঠিত হয়।

রাণীনগর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে অনুষ্ঠিত পিঠা উৎসবের উদ্বোধন করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রউফ দুলু।এসময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহাদাত হুসেইন,সহকারী কমিশনার(ভূমি) হাফিজুর রজমান জেলা পরিষদ সদস্য জাকির হোসেন জয়,রাণীনগর উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান জারজিস হাসান মিঠু,উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: কেএইচএম ইফতেখার খন্দকার,প্রাণি সম্পদ দপ্তর কর্মকর্তা কামরুননাহার আকতার মুন্নি,কৃষি কর্মকর্তা শহিদুল ইসলামসহ উপজেলা দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক ও গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। উৎসবকে প্রানবন্ত করতে ষ্টল বসিয়ে রাণীনগর শের-এ বাংলা ডিগ্রী মহাবিদ্যালয়,মহিলা অনার্স কলেজ,সরকারী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং উপজেলার বিভিন্ন কার্যালয় অংশগ্রহন করে। স্টলে জামায় পিঠা,নারিকেলি পিঠা,পুলি পিঠা,কুশলি পিঠা,পাকান পিঠা,নকসি জিলাপি পিঠা,গোলাপ পিঠা,সঙ্খ পিঠাসহ নানান ধরনের বিলুপ্ত প্রায় পিঠা তৈরি করে প্রদর্শণ করা হয়। এছাড়া সন্ধায় পরিষদ চত্বরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন সংশ্লিষ্ঠরা। 


আরও খবর



প্রধানমন্ত্রীর সাথে আইএমএফ ডিএমডি

প্রকাশিত:Monday ১৬ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

আসছে ৩০ জানুয়ারিতে নির্ধারিত সভায় আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল-আইএমএফ এর নির্বাহী পর্ষদ বাংলাদেশের ঋণ প্রস্তাবে চূড়ান্ত অনুমোদন দিতে পারে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাতকালে এমন ইঙ্গিত দিয়েছেন ঢাকা সফররত সংস্থাটির ডিএমডি অ্যান্তইনেত মনসিও সায়েহ। এসময় বেসরকারি বিনিয়োগ, রপ্তানি খাত এবং জলবায়ু ঝুঁকি মোকাবিলায় বাংলাদেশের পরিকল্পনা নিয়েও আলোচনা করেন তিনি ।

গণভবনে এই সাক্ষাত উপলক্ষে এক বিবৃতিতে বলা হয় মূল্যস্ফীতি ও জিডিপি'র তুলনায় ঋণের হার নিয়ন্ত্রণ সহ অর্থনৈতিক নানা ধাক্কা সামলাতে বাংলাদেশের উদ্যোগগুলোর প্রসংশা করছে আইএমএফ। অ্যান্তইনেত বলেন, রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে বাংলাদেশের অর্থনীতিও ঝুঁকিতে আছে তবে সংকট উত্তরণে সরকারের পদক্ষেপগুলো প্রসংশাযোগ্য। রির্জাভ ঘাটতি মেটাতে সহায়তার প্রশ্নে তিনি বলেন, এজন্য সরকারের নেয়া সংস্কার কর্মসূচিগুলো নিরিক্ষা করছে আইএমএফ কারণ আগামী দিনে রাজস্ব আয় আরও বাড়ানো এবং আর্থিক খাতে স্থিশীলতা জরুরি।  


আরও খবর

কমছে আয়, বাড়ছে ব্যয়

Saturday ০৪ February ২০২৩




বিপিএলের নবম আসর শুরু

প্রকাশিত:Friday ০৬ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

ইয়াশফি রহমান : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) নবম আসর শুরু হচ্ছে আজ। সাতটি দলকে নিয়ে শুরু হওয়া এই টুর্নামেন্টের এবারের টাইটেল স্পন্সর ইস্পাহানি ও মিনিস্টার গ্রুপ।

বিপিএলের উদ্বোধনী দিনে রয়েছে দুটি ম্যাচ। প্রথম ম্যাচে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের মুখোমুখি হবে সিলেট সিক্সার্স। দ্বিতীয় ম্যাচে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স লড়বে রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে।

ঢাকা পর্ব

৬ জানুয়ারি- চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স-সিলেট স্ট্রাইকার্স, ভেন্যু- ঢাকা, দুপুর- ২:৩০

৬ জানুয়ারি- কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স-রংপুর রাইডার্স, ভেন্যু- ঢাকা, সন্ধ্যা- ৭:১৫

৭ জানুয়ারি- ঢাকা ডোমিনেটরস-খুলনা টাইগার্স, ভেন্যু -ঢাকা, দুপুর ২:০০

৭ জানুয়ারি- ফরচুন বরিশাল-সিলেট স্ট্রাইকার্স, ভেন্যু -ঢাকা, সন্ধ্যা ৭:০০

৯ জানুয়ারি- কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স-সিলেট স্ট্রাইকার্স, ভেন্যু -ঢাকা, দুপুর ২:০০

৯ জানুয়ারি- চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স- খুলনা টাইগার্স, ভেন্যু -ঢাকা, সন্ধ্যা ৭:০০

১০ জানুয়ারি- ফরচুন বরিশাল-রংপুর রাইডার্স, ভেন্যু -ঢাকা, দুপুর ২:০০

১০ জানুয়ারি- ঢাকা ডোমিনেটরস-সিলেট স্ট্রাইকার্স, ভেন্যু -ঢাকা, সন্ধ্যা ৭:০০

চট্টগ্রাম পর্ব

১৩ জানুয়ারি- চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স- ফরচুন বরিশাল, ভেন্যু - চট্টগ্রাম, দুপুর ২:৩০

১৩ জানুয়ারি- খুলনা টাইগার্স- রংপুর রাইডার্স, ভেন্যু - চট্টগ্রাম, সন্ধ্যা ৭:১৫

১৪ জানুয়ারি- কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স-ফরচুন বরিশাল, ভেন্যু - চট্টগ্রাম, দুপুর ২:০০

১৪ জানুয়ারি- চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স-ঢাকা ডোমিনেটরস, ভেন্যু - চট্টগ্রাম, দুপুর ২:০০

১৬ জানুয়ারি- ঢাকা ডোমিনেটরস-সিলেট স্ট্রাইকার্স, ভেন্যু -চট্টগ্রাম, দুপুর ২:০০

১৬ জানুয়ারি- চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স-কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স, ভেন্যু - চট্টগ্রাম, সন্ধ্যা ৭:০০

১৭ জানুয়ারি- খুলনা টাইগার্স- রংপুর রাইডার্স, ভেন্যু - চট্টগ্রাম, দুপুর ২:০০

১৭ জানুয়ারি- কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স- সিলেট স্ট্রাইকার্স, ভেন্যু - চট্টগ্রাম, সন্ধ্যা ৭:০০

১৯ জানুয়ারি- কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স- ঢাকা ডোমিনেটরস, ভেন্যু - চট্টগ্রাম, দুপুর ২:০০

১৯ জানুয়ারি- ফরচুন বরিশাল- রংপুর রাইডার্স, ভেন্যু - চট্টগ্রাম, সন্ধ্যা ৭:০০

২০ জানুয়ারি- চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স-খুলনা টাইগার্স, ভেন্যু - চট্টগ্রাম, দুপুর ২:৩০

২০ জানুয়ারি- ঢাকা ডোমিনেটরস-ফরচুন বরিশাল, ভেন্যু -চট্টগ্রাম, সন্ধ্যা- ৭:১৫

ঢাকা পর্ব

২৩ জানুয়ারি- চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স-রংপুর রাইডার্স, ভেন্যু- ঢাকা, দুপুর ২:০০

২৩ জানুয়ারি- কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স-ঢাকা ডোমিনেটরস, ভেন্যু-ঢাকা, সন্ধ্যা- ৭:০০

২৪ জানুয়ারি- ফরচুন বরিশাল-সিলেট স্ট্রাইকার্স, ভেন্যু-ঢাকা, দুপুর ২:০০

২৪ জানুয়ারি- খুলনা টাইগার্স-ঢাকা ডোমিনেটরস, ভেন্যু-ঢাকা, সন্ধ্যা- ৭:০০

সিলেট পর্ব

২৭ জানুয়ারি- রংপুর রাইডার্স-সিলেট স্ট্রাইকার্স, ভেন্যু- সিলেট, দুপুর ২:৩০

২৭ জানুয়ারি- চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স-ফরচুন বরিশাল, ভেন্যু- সিলেট, সন্ধ্যা- ৭:১৫

২৮ জানুয়ারি- কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স-খুলনা টাইগার্স, ভেন্যু- সিলেট, দুপুর ২:০০

২৮ জানুয়ারি- চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স- সিলেট স্ট্রাইকার্স, ভেন্যু- সিলেট, সন্ধ্যা- ৭:০০

৩০ জানুয়ারি- রংপুর রাইডার্স- ঢাকা ডোমিনেটরস, ভেন্যু- সিলেট, দুপুর ২:০০

৩০ জানুয়ারি- খুলনা টাইগার্র্স- সিলেট স্ট্রাইকার্স, ভেন্যু- সিলেট, সন্ধ্যা- ৭:০০

৩১ জানুয়ারি- ঢাকা ডোমিনেটরস- ফরচুন বরিশাল, ভেন্যু- সিলেট, দুপুর ২:০০

৩১ জানুয়ারি- কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স- খুলনা টাইগার্স, ভেন্যু- সিলেট, সন্ধ্যা- ৭:০০

ঢাকা পর্ব

৩ ফেব্রুয়ারি- ফরচুন বরিশাল-খুলনা টাইগার্স, ভেন্যু- ঢাকা, দুপুর ২:৩০

৩ ফেব্রুয়ারি- ঢাকা ডোমিনেটরস - রংপুর রাইডার্স, ভেন্যু- ঢাকা, সন্ধ্যা- ৭:১৫

৪ ফেব্রুয়ারি- চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স- কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স, ভেন্যু- ঢাকা, দুপুর ২:০০

৪ ফেব্রুয়ারি- রংপুর রাইডার্স- সিলেট স্ট্রাইকার্স, ভেন্যু- ঢাকা, সন্ধ্যা- ৭:০০

৭ ফেব্রুয়ারি- চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স- ঢাকা ডোমিনেটরস, ভেন্যু- ঢাকা, দুপুর ২:০০

৭ ফেব্রুয়ারি- কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স- ফরচুন বরিশাল, ভেন্যু- ঢাকা, সন্ধ্যা- ৭:০০

৮ ফেব্রুয়ারি- খুলনা টাইগার্স- সিলেট স্ট্রাইকার্স, ভেন্যু- ঢাকা, দুপুর ২:০০

৮ ফেব্রুয়ারি- রংপুর রাইডার্স- চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স, ভেন্যু- ঢাকা, সন্ধ্যা- ৭:০০

১০ ফেব্রুয়ারি- কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স- রংপুর রাইডার্স, ভেন্যু- ঢাকা, দুপুর ২:০০

১০ ফেব্রুয়ারি- ফরচুন বরিশাল- খুলনা টাইগার্স, ভেন্যু- ঢাকা, সন্ধ্যা- ৭:০০

১২ ফেব্রুয়ারি- এলিমিনেটর, ভেন্যু- ঢাকা, দুপুর ২:০০

১২ ফেব্রুয়ারি- প্রথম কোয়ালিফাইয়ার, ভেন্যু- ঢাকা, সন্ধ্যা- ৭:০০

১৪ ফেব্রুয়ারি- দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ার, ভেন্যু- ঢাকা, সন্ধ্যা- ৭:১৫

১৬ ফেব্রুয়ারি- ফাইনাল, ভেন্যু- ঢাকা, সন্ধ্যা- ৭:১৫


আরও খবর



জমে উঠেছে লোককারুশিল্প মেলা ও লোকজ উৎসব

প্রকাশিত:Monday ২৩ January 20২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

বুলবুল আহমেদ সোহেল :

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে চলছে বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনে চলছে মাসব্যাপী লোককারুশিল্প মেলা ও লোকজ উৎসব। দেশের ঐহিত্যবাহী লোককারু শিল্পের নিদর্শন সংগ্রহ সংরক্ষন, প্রদর্শন ও পুনরুজ্জীবিত করে নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার জন্যই প্রতি বছর এ মেলার আয়োজন। দর্শনার্থীদের কাছে সব আয়োজন ঠিকঠাক থাকলেও অভিযোগ উঠেছে মূল ভিষণ থেকে সরে যাচ্ছে ফাউন্ডেশন, চারুকারু শিল্পীদের দেয়া হয়নি পর্যাপ্ত স্টল, কনস্ট্রাকশন কাজ বিনষ্ট হচ্ছে প্রাকৃতিক রূপ।

বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের ভেতরে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন কারুশিল্প যাদুঘর এবং লোক ও কারুশিল্প যাদুঘর।  গ্রাম বাংলার ইতিহাস ও ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক এ দুটি যাদুঘরে স্থান পেয়েছে প্রাচীন লোক ও কারুশিল্প।  মাসব্যাপী এ উৎসবেকে কেন্দ্র করে পুরো ফাউন্ডেশন চত্বরকে সাজানো হয়েছে বর্নিল সাজে।  প্রতিদিনই বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা প্রদর্শন করছে লোক জীবন প্রদর্শনী,গ্রাম্য নালিশ,কনে দেখা, বিয়ে,জামাইকেও পিঠা আপ্যায়নের দৃশ্য, গ্রামীন খেলা হা-ডু-ডু ও কানামাছি। 

দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা কারুশিল্পীদের প্রদর্শনী,  পুতুল নাচ, বায়স্কোপ, নাগর দোলা, মুন্সিগঞ্জ ও মৌলভী বাজারের শীতল পাটি, মাগুরা ও ঝিনাইদহের শোলা শিল্প, রাজশাহীর শখের হাড়ি ও মুখোশ, চট্টগ্রামের তালপাতার হাতপাখা, রংপুরের শতরঞ্জি, সোনারগাঁওয়ের জামদানী নিয়ে অংশ গ্রহন করেছেন চারু কারু শিল্পিরা। 

এদিকে দর্শনার্থীদের বিনোদনকে আরো প্রানবন্ত করতে ফাউন্ডেশনের ভেতরের লেকে নৌকায় চড়ে ঘুরে বেড়ানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রতিদিন সন্ধ্যায় লোকজ এই উৎসবে থাকছে পালাগান, বাউল ও জারিসারি গানের।করোনা ভাইরাসের কারনে গত কয়েক বছর মেলা বন্ধ থাকায় এবার অন্তত একলাখ দর্শনার্থী লোকজ এ উৎসবে অংশ নেবেন বলে আশাবাদী আয়োজকরা।

মেলায় দর্শনার্থীরা গ্রামীন এসব ঐতিহ্যে দেখে ও ছেলে মেয়েদের পরিচয় করিয়ে দিতে পেরে অনেকটাই আবেগ আপ্লুত। 

এদিকে বিভিন্ন জেলা থেকে আগত শিল্পিরা জানালেন প্রতিবছরই এ মেলায় অংশ গ্রহণ করেন তারা। তবে প্লাস্টিক ও বিদেশী পণ্যের দাপটে আজ বিপন্ন হওয়ার পথে এসব গ্রামীন ঐতিহ্য। বংশ পরম্পরায় অংশ গ্রহন কারী এসব শিল্পীরা বললেন সরকারী ভাবে পিষ্ট পোষকতা ছাড়া এ শিল্প ধরে রাখা যাবেনা। তারা বললেন যাদের জন্য এ মেলার আয়োজন তাদেরকেই অবমূল্যায়ন করা হয়েছে এবার। কয়েকটি স্টলেই দুজন করে শিল্পকে দেয়া হয়েছে। 

মেলা পরিদর্শনে আসা কবি শাহেদ কায়েস বলেন, ফাউন্ডেশনের মূল  উদ্দেশ্য থেকে সরে যাচ্ছে। চারু কারুশিল্পীদের প্রমোট করা,আর্থিকভাবে স্বচ্ছল করা ও গবেষণা কেন্দ্র গড়ে তোলার লক্ষেই জয়নুল আবেদিন প্রতিষ্ঠা করেছিল এ ফাউন্ডেশন। প্রতিবছর মেলার আয়োজন ছাড়া তেমন কোন কার্যক্রমই চোখে পড়েনা। আবার যাদের জন্য এ মেলার আয়োজন তাদেরকেও অবহেলা করা হচ্ছে। ১শটি স্টলের মধ্যে ৩২ স্টল বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে শিল্পীদের। কোন কোন স্টলে দুজন শিল্পীকে বরাদ্ধ দেয়া হচ্ছে। এখানেতো অন্তত ৬৪ জেলার জন্য ৬৪টি স্টল বরাদ্ধ দিয়ে দেশের সব প্রান্ত থেকে অন্তত একজন করে শিল্পীকে জড়োকরা সম্ভব। তা না করে বেশীরভাগ স্টল দেয়া হচ্ছে বিভিন্ন ব্যাবসায়ীদের। যারা এখানে প্লাস্টিক ও চায়না প্রডাক্ট বিক্রি করে লাভবান হচ্ছে।  কোটি টাকার বাজেটে বিভিন্ন ভবন তৈরী হচ্ছে। যা এখানকার প্রাকৃতিক পরিবেশ বিনিষ্ট করা হচ্ছে।

এসব ব্যাপারে ফাউন্ডেশনের পরিচালক এস এম রেজাউল করিম বলেন,তিনি মাত্র একমাস হয়েছে দায়িত্বে বসেছেন। অভিযোগ গুলো তদন্ত করে ব্যাবস্থা নেবেন। এ বছর কর্মরত কারুশিল্পীদের প্রদর্শনীর জন্য ৩২টি স্টল সহ ১০০টি স্টল বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। মেলা চলবে আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত।


আরও খবর



নারায়নগঞ্জের শ্রেষ্ঠ ওসি মাহাবুব, শ্রেষ্ঠ তদন্ত আহসান

প্রকাশিত:Tuesday ১৭ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

জহিরুল কবির আমজাদ:  নারায়ণগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার নির্বাচিত হয়েছেন ইনচার্জ মাহাবুব আলম ও শ্রেষ্ঠ তদন্ত ওসি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন আহসান উল্লাহ।

মাসব্যাপী বিভিন্ন মামলার তদন্ত, আইনশৃঙ্খলা বজায় রাখা, ওয়ারেন্ট তামিল, মাদক উদ্ধার সহ বিভিন্ন বিষয়ে পর্যালোচনা করে মঙ্গলবার (১৭ই জানুয়ারি)  দূপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ ও শ্রেষ্ঠ তদন্ত ওসির নাম ঘোষণা করেন জেলা পুলিশ সুপার।

মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় জেলার পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল পিপিএম (বার) শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ হিসেবে সোনারগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ মাহাবুব আলম এবং শ্রেষ্ঠ তদন্ত ওসি হিসেবে একই থানার আহসান উল্লাহ এর নাম ঘোষণা করেন।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জনাব আমির খসরু,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার চাই লাও মারমা সহ অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তাগণ।

 
 

আরও খবর