Logo
শিরোনাম

রেমিট্যান্স সংগ্রহ করবে ১০৮ টাকা দরে

প্রকাশিত:সোমবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

রোকসানা মনোয়ার : দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো এখন থেকে প্রতি ডলার সর্বোচ্চ ১০৮ টাকা হিসেবে প্রবাসী আয় সংগ্রহ করবে। রফতানি বিল নগদায়ন হবে প্রতি ডলার ৯৯ টাকায়। অর্থাৎ রেমিট্যান্স আহরণ ও রফতানি বিল নগদায়নে ব্যাংকগুলোর গড় খরচ হবে ১০৩ টাকা ৫০ পয়সা। এর সঙ্গে এক টাকা যোগ করে আমদানিকারকের কাছে ডলার বিক্রি করবে ব্যাংকগুলো। এর ফলে এলসি সেটেলমেন্টের জন্য ডলার বিক্রি হবে ১০৪ টাকা ৫০ পয়সায়। 

সোনালী ব্যাংকের বোর্ড রুমে অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ (এবিবি) এবং বাংলাদেশ ফরেন এক্সচেঞ্জ ডিলারস অ্যাসোসিয়েশনের (বাফেদা) বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত হয়। সোমবার (১২ সেপ্টেম্বর) থেকে এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হবে।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বাফেদার চেয়ারম্যান এবং সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আফজাল করিম, এবিবির চেয়ারম্যান সেলিম আর এফ হোসেনসহ বিভিন্ন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকরা।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আবদুর রউফ তালুকদারের সভাপতিত্বে এক বৈঠকে এ দুটি সংগঠনের হাতে ক্ষমতা দেওয়া হয়।

বর্তমানে ব্যাংকগুলো রফতানি আয় এনক্যাশমেন্ট করছে ৯৯ টাকা থেকে শুরু করে ১০২ টাকায়। এছাড়া ব্যাংকগুলো রেমিট্যান্স সংগ্রহ করছে ১০৮ টাকা থেকে ১১০ টাকায়। এদিকে এক্সচেঞ্জ হাউজগুলো থেকে রেমিট্যান্সের ডলার কিনতে ব্যাংকগুলোকে সর্বোচ্চ ১১৪ টাকা রেট দিতে হয়েছে।


আরও খবর

স্বর্ণের দাম কমেছে

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২




৭ সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারতে চার দিনের সরকারি সফরের দ্বিতীয় দিনে মঙ্গলবার (৬ সেপ্টেম্বর) ঢাকা ও নয়াদিল্লীর মধ্যে সাতটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষরিত হয়েছে। উভয় দেশের প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে  সমঝোতা স্বাক্ষরিত হয়।

এগুলো হলো- অভিন্ন সীমান্ত নদী কুশিয়ারা থেকে ভারত ও বাংলাদেশের পানি প্রত্যাহারের বিষয়ে ভারত সরকারের জল শক্তি মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ সরকারের পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মধ্যে সমঝোতা স্মারক, ভারতে বাংলাদেশের রেলওয়ে কর্মীদের প্রশিক্ষণের বিষয়ে ভারতের রেল মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশের রেলওয়ের মধ্যে সমঝোতা স্মারক, বাংলাদেশ রেলওয়ের জন্য এফওআইএস ও অন্যান্য আইটি এপ্লিকেশনের মতো আইটি সিস্টেমে সহযোগিতার জন্য ভারতের রেল মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশের রেলওয়ের মধ্যে সমঝোতা স্মারক।

অন্যান্য সমঝোতা স্মারকগুলো হচ্ছে- ভারতে বাংলাদেশ জুডিশিয়াল অফিসারদের প্রশিক্ষণ ও দক্ষতা বৃদ্ধি কর্মসূচির বিষয়ে ভারতের ন্যাশনাল জুডিশিয়াল একাডেমি এবং বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের মধ্যে সমঝোতা স্মারক, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সহযোগিতার বিষয়ে ভারতের কাউন্সিল ফর সাইন্টিফিক এন্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিসার্চ (সিএসআইআর) ও বাংলাদেশের কাউন্সিল অব সাইন্টিফিক অ্যান্ড ইন্ডাস্টিয়াল রিসার্চ (বিসিএসআইআর) এর মধ্যে সমঝোতা স্মারক, মহাকাশ প্রযুক্তির ক্ষেত্রগুলোতে সহযোগিতা সংক্রান্ত সমঝোতা স্মারক এবং প্রসার ভারতী ও বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি)’র মধ্যে সম্প্রচার সহযোগিতা সংক্রান্ত স্মারক।

সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের আগে হায়দরাবাদ হাউসে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও ভারতের প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় তাদের মধ্যকার আলোচনায় নিরাপত্তা সহযোগিতা, বিনিয়োগ, বাণিজ্যিক সম্পর্ক জোরদার, বিদ্যুৎ ও জ্বালানী খাতে সহযোগিতা, অভিন্ন নদীগুলোর পানি বন্টন, রোহিঙ্গা, পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনা, সীমান্ত ব্যবস্থাপনা, মাদক ও মানবপাচার মোকাবিলার মতো পারস্পারিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট ইস্যুগুলো প্রাধান্য পায়।

সূত্র : বাসস


আরও খবর

পঞ্চগড়ে নৌকা ডুবে ২৪ জন নিহত

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

এবার ৩২ হাজার মণ্ডপে দুর্গাপূজা

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২




মির্জাগঞ্জে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের মৃত্যু

প্রকাশিত:রবিবার ১১ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

মির্জাগঞ্জ(পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ

পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জের আমড়াগাছিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ সুলতান আহমেদ (৫২) হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।  ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তা কামাল হোসেন জানান, রবিবার বেলা ১২ টার দিকে তিনি নিজ বাসভবনে সেবা গ্রহীতাদের সাথে আলোচনাকালীন সময়ে হঠাৎ বুকে ব্যাথা অনুভব করেন এবং অচেতন হয়ে মেঝেতে পড়ে  যান,এসময় উপস্থিত লোকজন তাকে মির্জাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ তানভীর হাসান তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

ডাঃ তানভীর হাসান জানান, হাসপাতালে নিয়ে আসার পূর্বেই তার মৃত্যু হয়েছে।

সুলতান আহমেদ স্ত্রী ও ৭ মাস বয়সী ১পূত্র সন্তান রেখে গেছেন। মরহুমের  জানাজা নামাজ আগামীকাল সোমবার সকাল ১০ ঘটিকার সময় তার নিজ বাড়ির পশ্চিম পাশে দ্বীনিয়া মাদ্রাসা মাঠে অনুষ্ঠিত হবে।


আরও খবর



প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কুটিক্তির প্রতিবাদে নোয়াখালীতে প্রতিবাদ সভা

প্রকাশিত:শনিবার ১০ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

অনুপ সিংহ,নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ

প্রধান মন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে নিয়ে বিএনপির বিভিন্ন কুটিক্তির প্রতিবাদে নোয়াখালী-৪ আসনের এমপি একরামুল করিম চৌধুরীর উদ্যোগে শনিবার বিকেলে এক বিশাল প্রতিবাদ সভা, বিশাল জনসমাবেশে পরিণত হয়েছে। জেলা শহর মাইজদী পুরাতন বাস স্ট্যান্ড থেকে সিনেমাহল পর্যন্ত লাখে মানুষের ঢল নেমেছে প্রধান সড়কে। মিছিলে মিছিলে ভরে গেছে রাস্তাঘাট, পরিণত হয়েছে জন সমুদ্রে। তাদের প্রিয় নেতা সদর সূবর্ণচরের মাটি ও মানুষের প্রিয় নেতা একরামুল করিম চৌধুরীর আহ্বানে দলে দলে ছুটে এসে যোগ দিয়েছে জনসভায়। বিকেল ৩টা থেকে পাঁচটা পর্যন্ত শত শত মিছিলে ভরে গেলে মহাসড়ক। জনসমুদ্রের কারণে এ সময় সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকে। 

সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ কে এম শামসুদ্দিন জেহানের সভাপতিত্ত্বে জেলা আওয়ামীলীগ কার্যলয়ের সামনে বিশাল জনসমাবেশে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন নোয়াখালী-৪ (সদর-সূবর্ণচর) আসনের এমপি ও জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরী। এসময় আরোও বক্তব্য রাখেন সাবেক স্পীকার ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী মরহুম আব্দুল মালেক উকিলের সুযোগ্য সন্তান বাহা উদ্দিন খেলন, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান নাছের চেয়ারম্যান, জেলা জর্জ কোর্টের পি পি গুলজার আহমেদ জুয়েল, সাবেক পি পি কাজী শাহিন, জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক বাবু ইমন ভট্ট, কমিশনার ফখরুদ্দিন, এডভোকেট এমদাদ হোসেন কৈশর, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ও বিভিন্ন ইউনিয়নের নির্বাচিত চেয়ারম্যানগণসহ বিভিন্ন স্থরের নেতাকমীরা বক্তব্য রাখেন। এছাড়া আওয়ামীলীগ নেতা মাওলা লিটন, চেয়ারম্যান ওমর ফারুক, এডভোকেট আলতাফ হোসেন, এমপি পুত্র সাবাব চৌধুরী ও আওয়ামীলীগ যুবলীগ, ছাত্রলীগ স্বেচ্ছাসেবকলীগ সহ সর্বস্থরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। হাজার হাজার নেতাকর্মীদের মিছিল দেখে এমপি একরাম চৌধুরী এসময় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে স্লোগানে স্লোগানে নেতাকর্মীদের উজ্জিবিত করেন। নিজে স্লোগান দিতে থাকেন।  

বিশাল জনসমাবেশে প্রধান অতিথি নোয়াখালী-৪ (সদর-সূবর্ণচর) আসনের এমপি ও জেলা আওয়ামীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরী বিকেল পোনে পাঁচটায় বক্তব্যে বলেন, যেহেতু আমার প্রিয় নেত্রী মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে বিএনপির লোকজন সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে শোকের মাসে অশ্লীল কুটুক্তি করেছে আমি আর ঘরে বসে থাকতে পারি না। আমি সিঙ্গাপুর থেকে ছুটে এসে এই প্রতিবাদ সমাবেশের ডাক দিয়েছি। সদর সূবর্ণচর নেতাকর্মীদের সাথে দফায় দফায় বৈঠক ও প্রস্তুতি সভা করে এই সভার ডাক দিয়েছি। আজ প্রতিবাদ সভা বিশাল জনসভায় পরিণত হয়েছে। এক লক্ষাধিকের উপরে লোক আমার ডাকে সাড়া দিয়েছে। আমি আপনাদের নিকট কৃতজ্ঞ এবং চিরঋণী হয়ে গেলাম। আপনারা আমার নেত্রীর জন্য এবং আমার জন্য দোয়া করবেন। এই বলে তিনি সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন। এসময় নেতাকর্মীরা দাড়িয়ে স্লোগান দেন “নোয়াখালীর মাটি, একরাম চৌধুরীর ঘাঁটি”। এসময় জানতে চাইলে নেতাকর্মীরা জানান, প্রায় এক লক্ষ লোকের সমাগম হয়েছে, একরাম চৌধুরীর ডাকে মানুষ সবসময় সাড়া দিয়ে থাকে। তিনি মাটি ও মানুষের নেতা। নোয়াখালীতে তার বিকল্প নেই। এই জন্য তাকে মানুষ নগদ চৌধুরী হিসাবে চিনে।

সাবেক স্পীকার ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আব্দুল মালেক উকিলের সুযোগ্য সন্তান বাহা উদ্দিন খেলন বক্তব্যে বলেন, প্রধান মন্ত্রীকে নিয়ে বিএনপি লোকজন কুটুক্তি করেছে কিন্তু জেলা আওয়ামীলীগের লোকজন কোন প্রতিবাদ সভা করতে পারেননি। আপনাদের জনপ্রিয় নেতা একরাম চৌধুরীর ডাকে বিশাল সমাবেশ করে আজ দেখিয়ে দিয়েছেন তিনি। এখানে একরাম চৌধুরীর বিকল্প নেই।

এদিকে নোয়াাখালী পুলিশ সুপার শহিদুল ইসলাম জানান, প্রতিবাদ সমাবেশকে ঘিরে ব্যাপক আইন শৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। পুলিশের পাশাপাশি ডিবিসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরাও মাঠে রয়েছেন বলে তিনি জানান। এদিকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে ব্যাপক জোরদার ছিল। কোথাও কোন ধরণের সহিংসতার খবর পাওয়া যাইনি।


আরও খবর



গবেষণা ও উন্নয়নকে অগ্রাধিকার দিচ্ছি... প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তার সরকার আগামী বছর একটি নতুন জাতীয় পাঠ্যক্রম চালু করবে। বাংলাদেশি শিশুদের চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের জন্য উপযুক্ত বৈশ্বিক নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলাই এই পাঠ্যক্রমের লক্ষ্য।

২০ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে জাতিসংঘ মহাসচিবের শিক্ষা রূপান্তর সম্মেলনে প্রচারিত রেকর্ড বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা আমাদের শিশুদের প্রকৃত বৈশ্বিক নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। আগামী বছর থেকে আমরা নতুন জাতীয় পাঠ্যক্রম প্রবর্তন করছি। নতুন এই পাঠ্যক্রম আমাদের শিক্ষার্থীদের চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের জন্য প্রস্তুত করবে।

তিনি বলেন, ‘এই পাঠ্যক্রম শিশুদের জলবায়ু সহিষ্ণু হতে সচেতন করবে এবং বাংলাদেশকে উন্নত ও জ্ঞানভিত্তিক অর্থনীতির দেশে পরিণত করতে তার ভিশন-২০৪১-এর প্রকৃত এজেন্টে পরিণত করবে।

উচ্চশিক্ষার বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা গবেষণা ও উন্নয়নকে অগ্রাধিকার দিচ্ছি। কারিগরি শিক্ষার জন্য আমরা ভালো শিল্প সংযুক্তির পরিকল্পনা করছি।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশি শিশুদের দক্ষতা থাকবে, ফলে তারা বিশ্বের যেকোনো স্থানে কাজ করতে পারবে। আমাদের প্রয়োজন যোগ্যতার দ্বিপক্ষীয় স্বীকৃতির ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা মৌলিক এবং আজীবন শিক্ষার প্রাপ্যতা উন্নত করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

বহু ভাষায় শিক্ষাদানের ক্ষেত্রে বাংলাদেশে কয়েকটি নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠীর মাতৃভাষায় পাঠ্যবই প্রণয়ন করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘মিয়ানমারের রাখাইন থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে আমাদের দেশে আশ্রয় নেওয়া কয়েক লাখ শিশুকে তাদের ভাষায় শিক্ষাদান করছি 

শিক্ষা রূপান্তর সম্মেলন আয়োজনের জন্য জাতিসংঘ মহাসচিবকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘এই সম্মেলন কর্মক্ষেত্রে আগামীর পরিবর্তন সম্পর্কে চিন্তাভাবনার নতুন উপায় চিহ্নিত করবে।’

সূত্র : বাসস।


আরও খবর

পঞ্চগড়ে নৌকা ডুবে ২৪ জন নিহত

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

এবার ৩২ হাজার মণ্ডপে দুর্গাপূজা

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২




শেখ রেহানার জন্মদিন আজ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ কন্যা  ও  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহানার ৬৮তম জন্মদিন আজ। ১৯৫৫ সালের এ দিনে (১৩ সেপ্টেম্বর) গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় তিনি জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৭৫ সালের শোকাবহ এই কালোদিবসে সূর্য ওঠার আগে খুব ভোরে সেনাবাহিনীর কিছুসংখ্যক বিপথগামী সদস্য ধানমন্ডির বাসভবনে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে। ঘাতকরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, তাদের হাতে একে একে প্রাণ হারান বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর সন্তান শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শিশু শেখ রাসেলসহ পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজি জামাল। বর্বর এ হত্যাকাণ্ডের সময় শেখ হাসিনার সঙ্গে জার্মানিতে থাকায় বেঁচে যান শেখ রেহানা। সেখান থেকে ভারতে চলে যান দুই বোন। পরে শেখ রেহানা পরিবার নিয়ে যুক্তরাজ্যে চলে যান। সেখানে রাজনৈতিক আশ্রয় পাওয়ার পর থেকে সেখানেই বসবাস করছেন তিনি।

শেখ হাসিনা ১৯৮১ সালে দেশে ফিরে আওয়ামী লীগের হাল ধরেন। তবে দেশের ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হয়েও কখনো সক্রিয় রাজনীতিতে জড়াননি শেখ রেহানা।

২০০৭-০৮ সালে ফখরুদ্দীন আহমদের নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে জরুরি অবস্থা চলাকালে শেখ হাসিনা কারাবন্দি হয়েছিলেন। সে সময়ও শেখ রেহানা তার বোনের মুক্তি আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। পর্দার আড়ালে থেকে দলের ঐক্য বজায় রাখতে লন্ডন থেকেই তিনি ব্যাপক তৎপরতা চালান। ওই দুঃসময়ে দলের নেতাকর্মীদের সাহস জোগান তিনি। রাজনীতিতে না জড়ালেও জনহিতৈষী কাজেও সবসময় ভূমিকা রেখে আসছেন শেখ রেহানা। 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক শফিক আহমেদ সিদ্দিক ও শেখ রেহানা দম্পতির তিন ছেলেমেয়ে। তাদের মধ্যে বড় মেয়ে রেজওয়ানা সিদ্দিক টিউলিপ ব্রিটিশ পার্লামেন্টে লেবার পার্টির একজন সংসদ সদস্য। ছেলে রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক একটি আন্তর্জাতিক সংস্থায় কর্মরত। আর ছোট মেয়ে আজমিনা সিদ্দিক লন্ডনে কন্ট্রোল রিস্কস নামে একটি প্রতিষ্ঠানের গ্লোবাল রিস্ক অ্যানালাইসিস সম্পাদক।


আরও খবর