Logo
শিরোনাম

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গোলাগুলি, নিহত ২

প্রকাশিত:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

কক্সবাজারের উখিয়ার জামতলী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে হেডমাঝিসহ দুইজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় পুরো ক্যাম্প এলাকায় চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। ক্যাম্পে নিয়োজিত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের ধরতে অভিযান পরিচালনা করছেন। নিহতদের লাশ উদ্ধার করে উখিয়া থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। নিহতরা হলেন ১৫ নম্বর ক্যাম্পের সি ব্লকের হেড মাঝি আবু তালেব ও সাব ব্লকের মাঝি সৈয়দ হোসেন। ক্যাম্পে নিয়োজিত এপিবিএনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কামরান হোসেন জানান, মঙ্গলবার রাত পৌনে বারোটার দিকে আট থেকে নয়জন দুর্বৃত্ত তাদের গুলি করে পালিয়ে যায়। পরে এলাকার লোকজন উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে তাদের মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। ঘটনার পর ক্যাম্পে ব্লক রেইড এবং অভিযান অব্যাহত রেখেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। 


আরও খবর

এক এনআইডিতে ১৫টির বেশি সিম নয়

বুধবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন

বুধবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২




কুমিল্লায় ধর্ষণ মামলায়

স্বামী ও উকিল বাবাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০22 | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

কুমিল্লা ব্যুরো ঃ

কুমিল্লায় ধর্ষণ মামলায় স্বামী মোঃ নূরুল ইসলাম ও উকিল বাবা আব্দুর রহমানকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন কুমিল্লার আদালত। মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে এ রায় দেন কুমিল্লা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক আব্দুল্লাহ আল মামুন।

মামলার বিবরণে জানাযায়- প্রায় ০৪ বছর পূর্বে সাজাপ্রাপ্ত আসামী মোঃ নূরুল ইসলাম এর সাথে ভিকটিম দেলোয়ারা বেগম বিয়ে হয়। এবং দাম্পত্য জীবনে এক কন্যা সন্তান লামিয়া জন্ম গ্রহণ করে। এরপর হতে ভিকটিমের স্বামী নুরুল ইসলাম প্রায়ই তাঁর পরিচিত লোকজনের সাথে খারাপ কাজ করার জন্য তাঁর স্ত্রী দেলোয়ারা বেগমকে পরামর্শ প্রদান করত। ভিকটিম দেলোয়ারা উক্ত প্রস্তাবে রাজী না হলে তাঁকে তাঁর স্বামী মারপিট করত এবং তাকে তালাক দিয়ে পিত্রালয়ে পাঠিয়ে দেয়ার হুমকী প্রদর্শন করত। ২০২০ সালের ০১লা সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় ভিকটিম দেলোয়ারা বেগম মাগরিব এর নামাজ পড়ে তাঁর বাচ্চাকে নিয়ে তসবিহ জপতে থাকাবস্থায় তার স্বামী মোঃ নূরুল ইসলাম উকিল বাবা আব্দুর রহমানকে ঘরে নিয়ে আসে। ঐ সময় আব্দুর রহমানের হাতে একটি নতুন শাড়ি ছিলো। তাঁর স্বামী ভিকটিমের হাতে নতুন শাড়ী দিয়ে উকিল বাবা আব্দুর রহমানের সাথে খারাপ কাজ করার জন্য ভিকটিম দেলোয়ারা বেগমকে প্রস্তাব দেয়। দেলোয়ারা উক্ত প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করলে তাঁর স্বামী মোঃ নূরুল ইসলাম দেলোয়ারার মুখ চেপে ধরে আব্দুর রহমানকে বলে ধর্ষণ করার জন্য। ভিকটিমের স্বামী জোর করে তাঁর সেলোয়ার খুলে ফেলে। মুখ চেপে ধরায় দেলোয়ারা কোন শব্দ করতে পারেননি। তখন উকিল বাবা আব্দুর রহমান দেলোয়ারা ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর করে ধর্ষণ করে। এ ব্যাপারে ২০২০ সালের ০৩ সেপ্টেম্বর কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানাধীন ধনুয়াখোলা নিবাসী জোহর আলীর কন্যা ভিকটিম দেলোয়ারা বেগম (২৫) বাদী হয়ে একই গ্রামের মনু মিয়ার ছেলে ভিকটিমের স্বামী মোঃ নূরুল ইসলাম (৩৩) ও একই থানাধীন সৈয়দপুর নিবাসী মৃত আলী মিয়া গাজীর ছেলে উকিল বাবা মোঃ আব্দুর রহমানকে আসামী করে ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন (সং/০৩) এর ৯(১)/৩০ ধারার বিধানমতে কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। পরবর্তীতে ঘটনা তদন্তপূর্বক আসামীদ্বয়ের সংশ্লিষ্ট ধারায় অপরাধ প্রাথমিক ভাবে সত্য প্রমাণিত হওয়ায় গত বছর ২৬ এপ্রিল উল্লেখিত আসামীগণের বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন তদন্তকরী কর্মকর্তা ফারুক আহমেদ। এরপর মামলাটি বিচারে আসিলে সাক্ষ্যপ্রমাণ শেষে ভিকটিমের স্বামী মোঃ নূরুল ইসলাম নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ এর ধারা ৯(১)/৩০-এ দোষী সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড এবং ১০,০০০/- টাকা অর্থ দণ্ড এবং উকিল বাবা আব্দুর রহমানকে সংশ্লিষ্ট ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং ৫০,০০০/টাকা অর্থ দণ্ডে দণ্ডিত করেন। রায়ে আরও উল্লেখ করেন ধর্ষণের শিকার ভিকটিম দেলোয়ারা বেগম অর্থদন্ডের অর্থ ক্ষতিপূরণ হিসাবে প্রাপ্য হবেন। আসামী নূরুল ইসলাম ও আব্দুর রহমান অর্থ দণ্ডের ৬০,০০০/- টাকা পরিশোধ না করলে উক্ত টাকা আদায়ের নিমিত্তে আসামীদ্বয়ের স্থাবর বা অস্থাবর সম্পত্তি নিলাম বিক্রয় করে বিক্রয়লব্ধ অর্থ ভিকটিম দেলোয়ারা বেগমকে ক্ষতিপূরণ বাবদ পরিশোধ করার জন্য ডিস্ট্রিক্ট কালেক্টারকে নির্দেশ প্রদান করা হয়। রাষ্ট্র পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন- কুমিল্লা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর পিপি এডভোকেট প্রদীপ কুমার দত্ত এবং  আসামী পক্ষে এডভোকেট মোঃ আতিকুল ইসলাম।


আরও খবর



শীর্ষ সন্ত্রাসী সাবেক ছাত্রদলের সভাপতি জাকির খান বিদেশি পিস্তলসহ গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

বুলবুল আহমেদ সোহেল ঃ

পুলিশের তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী সাবেক ছাত্রদলের সভাপতি জাকির খান বিদেশি পিস্তলসহ গ্রেপ্তার

নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ও পুলিশের তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী জাকির খানকে বিদেশী পিস্তলসহ গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-১১। শনিবার দুপুরে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান র‍্যাব- ১১ এর অধিনায়ক লে. কর্ণেল তানভীর মাহমুদ পাশা। 

র‍্যাব জানায়, নারায়ণগঞ্জের একসময়কার শীর্ষ সন্ত্রাসী, একচ্ছত্র, ক্ষমতার অধিকারী আন্ডার ওয়ার্ল্ড এর গডফাদার এবং সাধারণ মানুষের মধ্যে ব্যপক আলোচিত নাম জাকির খান। যার নামে ০৪টি হত্যাসহ অসংখ্য মামলা রয়েছে এবং বিভিন্ন সময়ে তিনি এসকল মামলায় জেল খাটেন। জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর তিনি আরও দুর্ধর্ষ হয়ে ওঠেন। এসময় তিনি নারায়ণগঞ্জ এর দেওভোগ এলাকায় বিশাল সন্ত্রাসী বাহিনী ও মাদকের সাম্রাজ্য গড়ে তোলেন। এক পর্যায়ে দেওভোগ এলাকার অপর শীর্ষ সন্ত্রাসী দয়াল মাসুদকে শহরের সোনার বাংলা মার্কেটের পিছনে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করে শহরের ত্রাস হিসেবে পরিচিত হয়ে ওঠেন। সর্বশেষ ২০০৩ সালে সাব্বির আলম হত্যাকান্ডের পরে তিনি দেশ ছেড়ে থাইল্যান্ডে পাড়ি জমান। এ সময়ে বিভিন্ন মামলায় বিজ্ঞ আদালতে জাকির খান দোষী সাব্যস্থ হলে বিজ্ঞ আদালত তাকে সাজা প্রদান করেন। এর পর থেকেই গ্রেফতার এড়াতে জাকির খান দেশের বাইরে অবস্থান করছিলেন। 

র‍্যাব আরও জানায়, ৩ সেপ্টেম্বর রাতে র‍্যাব -১১ এর নারায়ণগঞ্জের একটি বিশেষ অভিযানে ডিএমপি ঢাকার ভাটারা থানার বসুন্ধরা এলাকা থেকে ১টি বিদেশী পিস্তলসহ নারায়ণগঞ্জের শীর্ষ সন্ত্রাসী ও সাব্বির হত্যা মামলার অন্যতম আসামি জাকির খানকে গ্রেফতার করা হয়। 

প্রাথমিক অনুসন্ধান ও আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, জাকির খানের বিরুদ্ধে ১৯৯৪ সালে সন্ত্রাসমূলক অপরাধ দমন বিশেষ আইনে মামলা দায়ের করা হয়। উক্ত মামলায় আসামি জাকির খানের ১৭ বছরের সাজা হয়। পরবর্তীতে উচ্চ আদালতে তার সাজা কমে ৮ বছর হলেও তিনি গ্রেফতার এড়াতে দেশে ও বিদেশে প্রায় ২১ বছর পলাতক ছিলেন। মূলত ২০০৩ সালে সাব্বির আলম হত্যা মামলায় আসামি হলে তিনি আত্মগোপনে চলে যান। 

তাকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, তিনি দীর্ঘ দিন থাইল্যান্ডে আত্মগোপনে ছিলেন এবং সম্প্রতি ভারত হয়ে তিনি বাংলাদেশে আসেন। এরপর থেকে তিনি পরিচয় গোপন করে ঢাকার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় স্বপরিবারে বসবাস করছিলেন। গ্রেফতারকৃত জাকির খানের বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন বলে জানায় র‍্যাব।


আরও খবর

ফকিরহাটের জন্য সম্মান বয়ে আনলেন

বুধবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২




জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে মানবাধিকার লঙ্ঘন

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

জলবায়ু পরিবর্তন-স্বাস্থ্যঝুঁকিসহ জীবনযাত্রাকে দুর্বিষহ করে তুলছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে মানবাধিকার লঙ্ঘন, বেকারত্ব, উৎপাদনশীলতা হ্রাস, বাল্যবিবাহ, শিশুশ্রম ও স্বাস্থ্যঝুঁকি দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে দাবি করছেন পরিবেশবিদরা।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক শরীফ জামিল বলেন, প্রকৃতিনির্ভর ব্যবস্থাপনা সঠিকভাবে ব্যবহার না হওয়ায় জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে। এ অধিকার যাদের লঙ্ঘন হচ্ছে তাদের কথাগুলো নীতি-নির্ধারকদের কাছে যাচ্ছে না। আমাদের দেশ পানি দুষ্প্রাপ্যের দেশ। শুকনো মৌসুমে মাত্র ২০ ভাগ পানি আসে।

শরীফ জামিল বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনে যাদের অবদান বেশি তাদের সমস্যা সমাধানে বেশি এগিয়ে আসতে হবে। ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে আমাদের বেশি ক্ষতি হচ্ছে। এজন্য আমাদের সচেতন হতে হবে। দেশ রক্ষা করা মানুষের মানবাধিকার। কিন্তু এটি রক্ষা করা হচ্ছে না।

 দেশের উন্নয়ন কার্যক্রমে স্বচ্ছতা না থাকা এবং ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ পর্যন্ত উন্নয়ন না পৌঁছানোর কারণে এ জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব আরো বেশি ভোগান্তি সৃষ্টি করছে। এ পরিবর্তনের কারণে মানুষের জীবনযাত্রা ও জীবিকার পরিবর্তন আসছে। দুর্যোগে অধিকমাত্রায় বেশি বঞ্চনার শিকার হন নারীরা। দুর্যোগকালে নারীদের প্রাত্যহিক কাজের পাশাপাশি স্বামী বাইরের কাজেও সহায়তা করতে হয়।

বাংলাদেশে জলবায়ু পরিবর্তন ও এর প্রভাবে মানবাধিকার লঙ্ঘনের গবেষণার ফলাফল বাংলাদেশে সফররত ইউএনএইচসিআরের জলবায়ু ও মানবাধিকার দূত ড. ইয়ান ফ্রাইকে এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণের আহ্বান জানান। বাংলাদেশে তিনটি অঞ্চল মোংলা, রাজশাহী ও শরীয়তপুর এ জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব নিয়ে গবেষণা করা হয়।

গবেষণায় দেখা গেছে, আকস্মিক দুর্যোগ, লবণাক্ততার কারণে এসব অঞ্চলের ২০০টি পরিবার ৯ কোটি ২৪ লাখ ৯৮ হাজার প্রত্যক্ষ আর্থিক ক্ষতির শিকার হয়েছেন। এছাড়া তারা স্বাস্থ্য সংকট, বাস্তুচ্যুতি, সামাজিক ও যৌন হয়রানি, পানিসংকট, স্কুল থেকে ঝরে পড়া, শিশুশ্রম, বাল্যবিবাহ, সহিংসতা, মানসিক বিপর্যয়সহ নানা সংকটের মুখোমুখি হচ্ছে।


আরও খবর

এক এনআইডিতে ১৫টির বেশি সিম নয়

বুধবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন

বুধবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২




যোগাসনে ব্যায়াম হবে পুরো শরীরের

প্রকাশিত:সোমবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

সূর্য নমস্কার একটি যোগব্যায়াম। সূর্য নমস্কার একটি হাই ইন্টেনসিটি ওয়ার্কআউট। শুধু ওজন কমাতেই নয়, নিয়মিত করলে রক্ত সঞ্চালন ও কোলেস্টেরলের মাত্রাও নিয়ন্ত্রণে থাকে। একইসঙ্গে কমবে স্ট্রোকের আশঙ্কা।

চলুন আসনটি শুরু করি : সূর্য নমস্কার করলে গোটা শরীরের ব্যায়াম হয়। প্রথম প্রথম ৫ বার করবেন। ধীরে ধীরে সংখ্যা বাড়াবেন। প্রথমে এটি করলে পেশি ও নার্ভ ব্যথা হতে পারে। পরে স্বাভাবিক হয়ে যাবে।

পোজ-১ : প্রথমে ইয়োগা ম্যাটে সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে সূর্যকে প্রণামের মতো হাত দুটো তুলে সূর্য নমস্কারের জন্য শরীরকে প্রস্তুত করুন। এটি করলে মন ও শরীর শান্ত হবে।

পোজ-২ : এবার দুই হাত মাথার ওপর তুলে টান টান করুন। ওপরের ছবিতে দেখানো হয়েছে। এটা করলে শরীরে রক্ত চলাচল বাড়িয়ে শরীর চাঙ্গা হবে।

পোজ-৩ : মাথার ওপর হাত দুটো এবার ধীরে ধীরে সামনের দিকে ঝুঁকে পায়ের আঙুল ছোঁয়ার চেষ্টা করুন। এটির ফলে পা ও পেটের পেশির উন্নতি ঘটিয়ে শরীরকে চনমনে করে তুলবে। একইসঙ্গে মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা বাড়বে।

পোজ-৪ : এবার বাম পা ও দুই হাত সামনে রেখে অশ্বারোহী মতোন করুন। ছবির ভঙ্গির মতন। কিছুক্ষণ এভাবে অবস্থানের পর দুই পা পেছনে ঠেলে দিন। হাত দুটো কিন্তু সামনের স্থানেই থাকবে। এভাবে করলে গোটা শরীর সুস্থ হয়ে ওঠবে। শুধু তাই নয়, ভেরিকোস ভেনের মতো রোগ সারাতে সহায়ক এ পোজটি।

পোজ-৫ : পুরো শরীর মাউন্টের মতোন করুন। এই ভঙ্গিটি করলে কাঁধ এবং বুকের ওপরও জোর পড়ে তাই ফিগার সুন্দর হয়।

পোজ-৬ : মুখের থুঁতনি ইয়োগা ম্যাটের সঙ্গে লাগিয়ে পুশআপের মতো করুন। যেমন ছয় নম্বর ছবির ভঙ্গিটি। এটি করলে বুক, হাত এবং পা চাঙ্গা হয়ে ওঠবে। বুকের পেশির কর্মক্ষমতা ও শিরদাঁড়ারের ফ্লেক্সিবিলিটি (নমনীয়তা) বাড়ে।

পুনরায় একইভাবে আবার করুন। কিন্তু চার নম্বর পোজটি করার সময় ডান পা সামনে রাখবেন। সবশেষে এক মিনিট চোখ বন্ধ করে সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে থাকুন। আর অনুভব করুন আপনার শরীরের কী কী হচ্ছে। বেশি খারাপ লাগলে ম্যাটের ওপর শুয়ে পড়ুন।

-ইন্টারনেট।


আরও খবর

খালি পেটে কাঁচা রসুন কেন খাবেন

শনিবার ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

হাঁটলে আয়ু বাড়বে

মঙ্গলবার ৩০ আগস্ট ২০২২




কমিটি গঠন সভাপতি পারভেজ, সম্পাদক ইমরান"

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম (বিএমএসএফ) যাত্রাবাড়ি থানা শাখার আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে । ১২ ই সেপ্টেম্বর সোমবার বিকেল ৪.০০ ঘটিকায় ডেমরা স্টাফ কোয়ার্টারের মাঠে অনুষ্ঠিত সাধারণ সভায় ১১ সদস্য বিশিষ্ট এ আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এশিয়ান গ্রুপের কর্নধার আলহাজ্ব হারুন অর রশীদ সিআইপি।

সভায় উদ্বোধক ছিলেন বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম এর ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান আহমেদ আবু জাফর সে সময় তিনি সরকারকে সাংবাদিক সুরক্ষা আইন প্রনয়ণসহ ১৪ দফা বাস্তবায়ন করতে জোড়ালো আহবান জানান এবং দেশে অহরহ সাংবাদিক নির্যাতন যেনো থামছেই না সাংবাদিক সুরক্ষা আইন না থাকায় এমন পরিস্থিতির সৃস্টি হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন। উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠান উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক মো. শফিকুল ইসলাম সাদ্দাম যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম, কেন্দ্রীয় কমিটি। সদস্য সচিব সেলিম নিজামির সভাপতিত্বে,

সভায় উপস্থিত সকল সাংবাদিকদের সর্বসম্মতিক্রমে দৈনিক দিন প্রতিদিন এর সহকারী সম্পাদক  মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম পারভেজ সভাপতি,দৈনিক বর্তমান দেশ বাংলার সম্পাদক মোহাম্মদ হেলাল সহ-সভাপতি,  চ্যানেল ২৩ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুন্সি মো: আল ইমরান সাধারণ সম্পাদক, সাপ্তাহিক তথ্য বানী এর সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার মোঃ শরিফুল হক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, দৈনিক আলোর দিগন্ত এর স্টাফ রিপোর্টার মোঃআকাশ সিকদার অর্থ সম্পাদক ,বিডি লাইভ ২৪ এর চেয়ারম্যান মোঘল হোসেন সম্রাট সাংগঠনিক সম্পাদক,দৈনিক দিন প্রতিদিন এর রিপোর্টার মুন্নি আক্তার তিশা দপ্তর সম্পাদক,  এশিয়ান টিভি এর স্টাফ রিপোর্টার অমর রঞ্জন মজুমদার প্রচার সম্পাদক ,রুপান্তর টিভি এর চীফ ক্রাইম রিপোর্টার খাদিজা আক্তার আনিকা নারী বিষয়ক সম্পাদিকা ,চ্যানেল ২৩ এর প্রতিনিধি তানিয়া সুলতানা রিভা সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক,বর্তমান দেশ বাংলা এর মোঃ শিপন নির্বাহী সদস্য।


আরও খবর

ফকিরহাটের জন্য সম্মান বয়ে আনলেন

বুধবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২