Logo
শিরোনাম

সাভারে জোড়া কন্যা শিশুকে নিয়ে দ্বাড়ে দ্বাড়ে ঘুরছে দম্পতি

প্রকাশিত:শুক্রবার ১১ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৮ নভেম্বর ২০২২ |
Image

সাভার প্রতিনিধি ঃ

ঢাকার সাভারে জন্ম নেওয়া দুই জোড়া শিশুকে কুলে নিয়ে দ্বাড়ে দ্বাড়ে ঘুরছেন সেলিম-সাথী দম্পতি। শিশু দুটিকে পৃথক জীবনে ফেরানোর জন্য অপারেশন ও চিকিৎসার জন্য অর্থ যোগাতে এ কাজ করছেন তারা।

বৃহস্পতিবার (১০ নভেম্বর) বিকেলে সাভার উপজেলা চত্বরের পাশে শিশু দুটিকে নিয়ে দাড়িয়ে থাকতে দেখা যায় সেলিম দম্পতি কে। 

শিশু দুটির পরিবার ঢাকা জেলার  আশুলিয়ার পলাশবাড়ী এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় থাকেন। তাদের গ্রামের বাড়ি দোহার থানার ওরঙ্গবাজ গ্রামে। সেলিম দোকানে গ্রিলের কাজ করেন। 

এসময় তার সাথে কথা হলে মোঃ সেলিম জানান, গত বছর ১৯ অক্টোবর সাভারের সুপার ক্লিনিকে জন্ম গ্রহণ করে খাদিজা ও সুমাইয়া। নিম্ন আয়ের সেলিম এক বছর ১০ দিন বয়সী দুই শিশু কে জন্মের পর থেকেই পৃথক করার জন্য দ্বাড়ে দ্বাড়ে অর্থের জন্য যাচ্ছেন। দুই জোড়া মেয়েকে নিয়ে পৃথক করতে যে অর্থের প্রয়োজন তার পক্ষে সেটা বহন করা সম্ভব না। ইতোমধ্যে শিশু দুটিকে সুস্থ রাখতে রাজধানীর শিশু হাসপাতালে বিভিন্ন সময়ে চিকিৎসা দিয়েছেন। 

তিনি বলেন, 'আমার বাচ্চা দুটি ঢাকা মেডিকেল শিশু ওয়ার্ডের ৫ নম্বর বেডে ভর্তি আছেন। মুটামুটি আমার মেয়ে দুটি শরীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়েছে। এখন দুইটা পরীক্ষা বাকী আছে। এই দুই পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর তারপর অপারেশনের জন্য প্রস্তুতি নিবে ডাক্তার। এই সার্জারি অপারেশন সম্পুর্ন করতে আমাদের অনেক টাকার প্রয়োজন। কারণ এক বছরে হাসপাতালে থাকতে থাকে জমানো সব টাকা শেষ হয়েও ঋণ করেছি। বর্তমানে টাকা না থাকায় আমরা এখন সাহায্যের জন্য মানুষের দ্বাড়ে দ্বাড়ে যাচ্ছি। দেশের সকল মানুষের কাছে সাহায্য প্রার্থনা করছেন যেন শিশু দুইটি কে অপরেশন করে সুস্থ করে তুলতে পারেন।


আরও খবর

জন্মনিয়ন্ত্রণে আগ্রহ কমছে

শনিবার ২৬ নভেম্বর ২০২২




জন্মনিয়ন্ত্রণে আগ্রহ কমছে

প্রকাশিত:শনিবার ২৬ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৮ নভেম্বর ২০২২ |
Image

সারা দেশে সরকারি জন্মনিয়ন্ত্রণ সেবা নেওয়ার হার কমছে। অনেকে হাতের নাগালের প্রচলিত জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণ করেন। পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের তথ্য বলছে, গত পাঁচ বছরে সাত ধরনের সেবা নেওয়ার হার কমেছে প্রায় ২৪ শতাংশ। আর ছয় বছরের হিসাব করলে এসব সেবা নেওয়ার হার কমে দাঁড়ায় প্রায় ৩৭ শতাংশ। তবে ঢাকার দম্পতিদের মধ্যে দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতি গ্রহণের হার কমছে বেশি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রচারের অভাবে দম্পতিরা দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতিতে আগ্রহ হারাচ্ছেন। এ কারণে তারা গর্ভধারণ রোধে হাতের নাগালে থাকা পদ্ধতিই বেশি গ্রহণ করেন। তবে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, মানুষকে সচেতন করতে প্রচার চলছে।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর জুলাই থেকে জুন পর্যন্ত অর্থবছর ধরে উপাত্তের হিসাব রাখে। ২০১৭–১৮ থেকে ২০২১–২২ অর্থবছরের উপাত্ত পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, আটটি বিভাগেই দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতি গ্রহণের হার কমেছে। পাঁচ বছরে সারা দেশে জন্মনিয়ন্ত্রণে সব ধরনের সরকারি সেবা নেওয়ার হার প্রায় ২৪ শতাংশ কমেছে। আর স্থায়ী পদ্ধতি নেওয়ার হার কমেছে ৩৩ শতাংশ।

দীর্ঘমেয়াদি ও স্থায়ী পদ্ধতির ৯০ শতাংশের বেশি সেবা দিয়ে থাকে সরকারি সেবাকেন্দ্র। বেসরকারি সংস্থা সোশ্যাল মার্কেটিং কোম্পানিও (এসএমসি) কিছু সেবা দিয়ে থাকে।

ঢাকায় কমেছে যে কারণে :  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পপুলেশন সায়েন্সেস বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মোহাম্মদ মঈনুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতির ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যঝুঁকি, যৌন অক্ষমতা, ভবিষ্যতে সন্তান নিতে পারবেন না-অনেকের মধ্যে এমন ভুল ধারণা রয়েছে। এসব ধারণা ভাঙাতে সরকারের যথাযথ উদ্যোগ নেই।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের জন্মনিরোধ সেবা ও সরবরাহ কর্মসূচি (সিসিএসডিপি) ইউনিটের সহকারী পরিচালক মো. রফিকুল ইসলাম তালুকদার বলেন, দীর্ঘমেয়াদি সেবার ক্ষেত্রে সরকারি সুবিধা গ্রামপর্যায়ে বেশি। ঢাকাসহ অন্যান্য সিটি করপোরেশন এলাকায় এ সুবিধা কম। তবে প্রশিক্ষণ, বিলবোর্ড, বিজ্ঞাপন, টক শো ইত্যাদি উপায়ে দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতির বিষয়ে প্রচার চালানো হচ্ছে।

সচেতনতা বাড়াতে হবে : স্ত্রীরোগ ও প্রসূতিবিদ্যায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সংগঠন অবসটেট্রিক্যাল অ্যান্ড গাইনোকোলজিক্যাল সোসাইটি অব বাংলাদেশের (ওজিএসবি) সভাপতি অধ্যাপক ফেরদৌসী বেগম বলেন, কনডমে ৮ শতাংশ অকার্যকারিতা আছে। খাওয়ার বড়িতে ৯৯ শতাংশ কার্যকারিতা থাকলেও বেশির ভাগ নারী নিয়ম মেনে সেবন করেন না।

ফেরদৌসী বেগম বলেন, অপরিকল্পিত গর্ভধারণে নারীর স্বাস্থ্যঝুঁকি থাকে, শিশুটিরও যত্নের ঘাটতি হয়। অস্ত্রোপচারে সন্তান জন্ম দেওয়া (সি সেকশন) নারী বারবার গর্ভধারণ করলে প্লাসেন্টা আক্রিটা সিনড্রোম বা পিএএস দেখা দেয়। এটা একধরনের অস্বাভাবিক গর্ভধারণ। এতে জরায়ুতে নানা জটিলতা দেখা দিতে পারে। তাই দীর্ঘমেয়াদি ব্যবস্থা নিতে সচেতনতা বাড়াতে প্রচার দরকার।


আরও খবর



বাংলাদেশ-ভারত মহারণ আজ

প্রকাশিত:বুধবার ০২ নভেম্বর 2০২2 | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

ইয়াশফি রহমান : টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে আজ মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও ভারত। অ্যাডিলেড ওভালে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টায়। 

ক্রিকেটের পরিসংখ্যানে ভারত অনেক এগিয়ে। তবে বিশ্বকাপের মঞ্চে এই মুহূর্তে বাংলাদেশ-ভারত একই কাতারে। কারণ এখন পর্যন্ত ৩ ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে আছে বাংলাদেশ। সমান তিন ম্যাচে ভারতের পয়েন্টও ৪। দুদলেই সেমিতে যাওয়ার সমান সুযোগ। তাই ম্যাচটি হতে পারে দুদলের ট্রাম্পকার্ড। অ্যাডিলেড ওভালে জয় তুলে সেমিফাইনালের পথে এক পা এগিয়ে যাওয়ার লক্ষ্য দুই দলেরই!

নখ কামড়ানো ম্যাচে জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে হারানো আত্মবিশ্বাস ফিরে পেয়েছে বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে বিপর্যস্ত হয়ে ভারত কিছুটা ব্যাকফুটে। চলতি আসরে ৩ ম্যাচ শেষে দুই দলের জয় দুইটি করে, দুই দলই কাটা পড়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে। 

অ্যাডিলেড ওভালে ভারত ও বাংলাদেশ উভয় দলের জয়ের সুখস্মৃতি কেবল একটি। ২০১৬ সালে টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়াকে হারায় ভারত। অন্যদিকে বাংলাদেশের জয় ২০১৫ বিশ্বকাপে, ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে। 

অস্ট্রেলিয়ার মাঠ মানেই আগুনের গোলা। পেসবান্ধব উইকেটের ফায়দা তুলে তাসকিন আহমেদ আছেন দুর্দান্ত ছন্দে। এখন পর্যন্ত শিকার করেছেন আট উইকেট। তাকে যোগ্য সঙ্গ দিচ্ছেন মুস্তাফিজুর রহমান, হাসান মাহমুদরা। ব্যাট হাতে নাজমুল হোসেন শান্ত জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলেছেন ৭১ রানের চমৎকার ইনিংস। সাকিব আল হাসানের নেতৃত্বে চলতি আসরে বাংলাদেশ যেন ফিনিক্স পাখি।

অন্যদিকে বিরাট কোহলিও ফিরেছেন চেনা অবতারে। নেদারল্যান্ডসের সঙ্গে ফিফটি পেয়েছেন রোহিত শর্মা। ব্যাটিং নির্ভর ভারতকে দক্ষিণ আফ্রিকার পেসের সামনে অসহায় দেখালেও সূর্যকুমার যাদব ছিলেন অনঢ়। ভারতীয় দলে দিনেশ কার্তিকের চোট থাকলেও এখনও সিদ্ধান্ত নেয়নি দল। 

২০১৬ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সর্বশেষ মুখোমুখি হয় দুই দল। জিততে জিততেও ভারতের হাতে ম্যাচ তুলে দেয় বাংলাদেশ। মুখোমুখি হওয়ার আগে সেই স্মৃতি ভুলতে চাইবে টাইগাররা। শেষ ওভারে নায়ক বনে যাওয়া হার্দিক পান্ডিয়া নিশ্চয়ই মনে করিয়ে দেবেন একটু হলেও। 


আরও খবর

ডু অর ডাই ম্যাচ মেসিদের

শনিবার ২৬ নভেম্বর ২০২২

আর্জেন্টিনাকে মাটিতে নামাল সৌদি

বুধবার ২৩ নভেম্বর ২০২২




পুলিশ কর্মকর্তার নজরে পড়ায়

মোড়েলগঞ্জে ২০ বছর পর স্বজনদের কাছে ফিরে গেল সাদেক আলী

প্রকাশিত:শনিবার ২৯ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৮ নভেম্বর ২০২২ |
Image

এম.পলাশ শরীফ, নিজস্ব প্রতিবেদক : 

বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে সাদেক আলী বিশ্বাস নামে এক ব্যাক্তিকে ২০ বছর পরে তার পরিবারের সদস্যরা খুজে পয়েছেন। গতকাল শনিবার বেলা ১০টার দিকে মোড়েলগঞ্জ থানা পুলিশের নিকট থেকে তাকে বুঝে নেন ছোট ভাই নুরুল ইসলাম বিশ্বাস। সাদেক আলীর বয়স এখন ৫৪ বছর। সে ঝিনাইদহ জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার খর্দ্দ ধোপাদী গ্রামে মহর আলী বিশ্বাসের ছেলে। মোরেলগঞ্জে কর্মরত কালিগঞ্জের এক পুলিশ কর্মকর্তার নজরে পড়ায় ঠিকানা আবিস্কার হয় সাদেক আলীর। 

জানা গেছে, নিখোঁজের পর থেকেই মোরেলগঞ্জে নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের মাঝিবাড়ি এলাকায় খাদিজা বেগমে(৫৫) নামে এক দরিদ্র বিধবা নারীর বাড়ির পাশে একটি পরিত্যাক্ত ঘরে ওঠেন। খাদিজা বেগম স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বাচ্চু’র সহযোগিতায় সেখানে তার খাওয়া পরার ব্যবস্থা করেন। মস্তিস্ক বিকৃতজনিত কারনে ২০ বছর পূর্বে ৩৪ বছর বয়সে সাদেক আলী পরিবার থেকে হারিয়ে যায়। অনেক খোঁজাখুজি করে কোন সন্ধান পাননি তার মা ও ভাইয়েরা। 

কালিগঞ্জ এলাকার পুলিশের এসআই নুরুল ইসলাম এই ঘটনাটি জানতেন। সম্প্রতি তিনি মোড়েলগঞ্জ থানায় বদলী হয়ে গেলে সেখানে মাঝিবাড়ি এলাকায় সাদেক আলীকে ঘোরাফেরা করতে দেখেন। ওই সময় এসআই নুরুল ইসলাম তার ছবি তুলে কালিগঞ্জের এক সাংবাদিকের মাধ্যমে পরিবারকে জানান। ছবি দেখে সাদেক আলীর ভাই চিনতে পারেন। 

গতকাল শনিবার পুলিশের মাধ্যমে সাদেক আলীকে তার পরিবারের নিকট হস্তান্তরের সময় কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন হতদরিদ্র বিধবা খাদিজা বেগম। সাদেক আলীও যেতে রাজি ছিলেন না। থানা অফিসার ইনচার্জ মো. সাইদুর রহমান, নিশানবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বাচ্চু ও এসআই নুরুল ইসলাম এ সময় উপস্থিত ছিলেন। 


আরও খবর



নওগাঁয় ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা উপলক্ষে প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:রবিবার ১৩ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টারঃ 


নওগাঁর সাপাহারে ১দিন ব্যাপী ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা ও উদ্ভাবনী অলিম্পিয়াড উপলক্ষে প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার সকাল ১১টায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে সাপাহার উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উক্ত প্রেস ব্রিফিং এ স্থানীয় সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে মেলায় বিষয় ভিত্তিক ৪টি প্যাভিলিয়নে উদ্ভাবন ডিজিটাল সেবা, হাতের মুঠোয় সেবা এবং শিক্ষা ও কর্মসংস্থান বিভিন্ন সরকারী/বেসরকারী প্রতিষ্ঠান সমূহে সেবা প্রদান নিশ্চিত সহ মডেল এসডিজি রাষ্ট্র এবং ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ বিষয়ক সেমিনার, বিজ্ঞান বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগীতা ও স্থানীয় শিল্পীদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের উপর প্রেস বিফিং করেন সাপাহার উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মাদ আব্দুল্যাহ আল মামুন। এসময় উক্ত অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মনিরুজ্জামান টকি, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্রকৌশলী খাদিজা আক্তার, উপ-সহকারী জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী সন্তোষ কুমার কুন্ডু এবং স্থানীয় বিভিন্ন গনমাধ্যম কর্মীগন।


আরও খবর



মোরেলগঞ্জে কৃষকদের মাঝে আধুনিক মেশিন বিতরণ

প্রকাশিত:বুধবার ১৬ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

এম.পলাশ শরীফ, নিজস্ব প্রতিবেদক :

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে ভর্তুকি মূল্যে কৃষকদের মাঝে কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন (আধুনিক ধান কাটার যন্ত্র) বিতরণ করা হয়েছে। বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ দপ্তরের উদ্যোগে উপজেলা পরিষদ চত্বরে তিন কৃষকের হাতে তিনটি কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিনের চাবি তুলে দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম। এসময় উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফাহিমা ছাবুল, উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ আকাশ বৈরাগী প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

ভর্তুকি মূল্যে মেশিন পাওয়া ওই তিন কৃষক হলেন, উপজেলার হোগলাবুনিয়া ইউনিয়নের চর হোগলাবুনিয়া গ্রামের মো. সবুজ হাওলাদার, গুয়াবাড়িয়া গ্রামের ইমরান মাতুব্বর ও হাছানুল বান্না। কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন তিনটির মূল্য ৯০ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা। ২০২২-২৩ মৌসুমে সমন্বিত ব্যাবস্থাপনার মাধ্যমে কৃষি যান্ত্রিকীকরণ প্রকল্পের উন্নয়ন সহায়তা কার্যক্রমের আওতায় মেশিন তিনটি ভর্তুকিতে কৃষকদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে। এ মেশিন দিয়ে ধানকাটা, ঝাড়া, মাড়াই ও ধান বস্তায় ভরাও যাবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কৃষকদের জন্য সরকারিভাবে ৭০% ভর্তুকি দিয়ে ধান কাটার এ আধুনিক মেশিন বিতরণ করায় উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন কৃষকরা। 


আরও খবর