Logo
শিরোনাম

সংলাপে বসছে বাংলাদেশ-ভারত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১১ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

প্রতিরক্ষা সংলাপে বসছে বাংলাদেশ ও ভারত। ভারতের নয়াদিল্লিতে আজ অনুষ্ঠেয় চতুর্থ সংলাপে দুই দেশের প্রতিরক্ষা খাতের সম্পর্ক আরও বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা হবে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য বলছে, সংলাপে ঢাকার পক্ষে সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রধান প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার (পিএসও) লে. জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান নেতৃত্ব দেবেন। আর নয়াদিল্লির পক্ষে দেশটির সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রধান প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার নেতৃত্ব দেবেন।

কূটনৈতিক সূত্র বলছে, সংলাপে প্রতিরক্ষা খাতে ভারতের দেওয়া লাইন অব ক্রেডিটের (এলওসি) আংশিক ব্যবহার, দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা, নিরাপত্তা ইস্যু বিশেষ করে জঙ্গিবাদ দমন, প্রশিক্ষণ, যৌথ মহড়া, সফর বিনিময়সহ সামগ্রিক বিষয়ে আলোচনা হবে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (পূর্ব) মাশফি বিনতে শামস বলেন, এটি বাৎসরিক ডিপেন্স ডায়লগ। গত দুই বছর হয়নি। প্রতিরক্ষা নিয়ে ভারতের সঙ্গে আমাদের ভালো একটা সম্পর্ক। রেগুলার আর্মি চিফ, নেভি চিফদের এক্সচেঞ্জ হচ্ছে। এয়ার চিফরাও আসা-যাওয়া করছেন। ওদের শিপ আসে। প্রচুর ট্রেনিং হচ্ছে। সেগুলোর একটা গুচ্ছ করে ডিপেন্স ডায়লগ। আরও কীভাবে সম্পর্ক বাড়ানো যায়, সেটি আলোচনায় থাকবে।


আরও খবর



লন্ডনে পৌঁছেছেন জো বাইডেন

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের শেষকৃত্যে অংশ নিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন লন্ডনে পৌঁছেছেন। স্থানীয় সময় শনিবার রাত ১০টার কিছু আগে বাইডেনকে বহনকারী উড়োজাহাজটি লন্ডন স্ট্যানস্টেড বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

সফরে মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে আছেন ফার্স্ট লেডি জিল বাইডেন। আজ রোববার রানি এলিজাবেথের কফিনে বাইডেন শ্রদ্ধা জানাবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এছাড়া তিনি আজ ব্রিটেনের নতুন রাজা তৃতীয় চার্লসের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। যুক্তরাজ্য সফরকালে দেশটির নতুন প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাসের সঙ্গে বাইডেনের একটি বৈঠক করার কথা ছিল। কিন্তু পরিকল্পিত বৈঠকটি বাতিল করা হয়েছে। জানা গেছে, ট্রাস ও বাইডেন আগামী বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের ফাঁকে একটি দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন। 


আরও খবর

জাতিসংঘে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

জাতিসংঘের ভূমিকায় হতাশ মালয়েশিয়া

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২




প্রেমঘটিত কারণ সবচেয়ে বেশি দায়ী

আট মাসে ৩৬৪ শিক্ষার্থীর আত্মহনন

প্রকাশিত:শনিবার ১০ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

রোকসানা মনোয়ার : দেশে ক্রমেই বাড়ছে আত্মহননের প্রবণতা। বিশেষ করে নানা কারণে শিক্ষার্থীরা বেশি আত্মহননের দিকে ঝুঁকছেন। এ বছর জানুয়ারি থেকে আগস্ট পর্যন্ত স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া ৩৬৪ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন। এর মধ্যে ১৯৪ জনই ছিল স্কুলপড়ুয়া শিক্ষার্থী। আর ৭৬ জন কলেজপড়ুয়া এবং ৫০ জন ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। এছাড়াও মাদরাসার ৪৪ জন শিক্ষার্থী নিজের জীবন নিজেই বিসর্জন দিয়েছেন।

সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আঁচল ফাউন্ডেশনের এক জরিপে এসব তথ্য ওঠে আসে এসব তথ্য। 

সংগঠনটি জানায়, ১৫০টি জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকার থেকে নেওয়া তথ্যে এ জরিপ করা হয়েছে। এর আগে ২০২১ সালে সারা দেশে মোট ১০১ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছিল বলে জানিয়েছে সংগঠনটি। জরিপে দেখা গেছে, গত আট মাসে মোট আত্মহননকারী শিক্ষার্থীদের মধ্যে ৫০ জন ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী, যাদের মধ্যে ছেলে শিক্ষার্থী ৬০ শতাংশ এবং মেয়ে শিক্ষার্থী ৪০ শতাংশ। কলেজ পড়ুয়াদের মধ্যে ৭৬ জন আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়, যাদের মধ্যে ৪৬ দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ ছেলে এবং ৫৩ দশমিক ৯৫ শতাংশ মেয়ে শিক্ষার্থী। সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়েছে স্কুল শিক্ষার্থীদের মধ্যে। গত আট মাসে ১৯৪ জন স্কুলগামী শিক্ষার্থীর মধ্যে ৩২ দশমিক ৯৯ শতাংশ ছেলে এবং ৬৭ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ মেয়ে। আর মাদরাসাপড়ুয়া ৪৪ জন শিক্ষার্থীর ৩৯ দশমিক ২৯ শতাংশ ছেলে এবং ৬০ দশমিক ৭১ শতাংশ মেয়ে।

সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল সাইকোলজি বিভাগের অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী, নারায়ণগঞ্জের এডিসি (শিক্ষা ও আইসিটি ডিভিশন) আজিজুল হক মামুন এবং আঁচল ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি তানসেন রোজ উপস্থিত ছিলেন।

সংগঠনের লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, তরুণ প্রজন্মকে যেকোনো প্রতিকূল পরিস্থিতির সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়ার জন্য মানসিকভাবে তৈরি করা দরকার এবং তাদের মানসিক স্বাস্থ্যের প্রতি যত্নশীল করে তোলার একান্ত প্রয়োজন। তাই আঁচল ফাউন্ডেশন শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার হার শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনার লক্ষ্যে কাজ করছে। তারই ধারাবাহিকতায় বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি এটি তরুণ প্রজন্মের ওপর জরিপ পরিচালনা ও আত্মহত্যার তথ্যও সংগ্রহ করছে। যাতে তরুণদের মানসিক স্বাস্থ্যের সার্বিক অবস্থা নিরূপণ করা যায়।

জরিপে ওঠে এসেছে, আত্মহত্যাকারীদের অবস্থান বিবেচনায় সবার শীর্ষে রয়েছে রাজধানী ঢাকা। আত্মহননকারীদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ২৫ দশমিক ২৭ শতাংশ, চট্টগ্রাম বিভাগে ১৬ দশমিক ৪৮ শতাংশ, খুলনা বিভাগে ১৪ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ, রংপুর বিভাগে ৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ, বরিশাল বিভাগে ৯ দশমিক ৬২ শতাংশ, ময়মনসিংহ বিভাগে ৭ দশমিক ৪২ শতাংশ এবং রাজশাহী বিভাগে ১৪ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ শিক্ষার্থী রয়েছেন। অন্যদিকে সিলেট বিভাগে তুলনামূলক কম সংখ্যক শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেন, যা ৪ শতাংশ।

শিক্ষা স্তর বিবেচনায় আত্মহননকারীদের মধ্যে প্রাইমারি থেকে মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীর হাড় ৫৩ দশমিক ৩০ শতাংশ। আত্মহত্যার দিক থেকে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে কলেজ পর্যায়ের শিক্ষার্থীরা, যা ২০ দশমিক ৮৮ শতাংশ। বিশ্ববিদ্যালয়পড়ুয়া শিক্ষার্থী রয়েছে ১৩ দশমিক ৭৪ শতাংশ। এবং মাদরাসার শিক্ষার্থী ১২ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ।

মেয়েরাই বেশি আত্মহননে দিকে যাচ্ছে। আত্মহননের দিকে বেশি ঝুঁকছে মেয়ে শিক্ষার্থীরা, যা মোট আত্মহননকারীদের ৬০ দশমিক ৭১ শতাংশ। অন্যদিকে ছেলে শিক্ষার্থী রয়েছেন ৩৯ দশমিক ২৯ শতাংশ।

বয়সভিত্তিক আত্মহত্যার হার। জরিপের ফল থেকে জানা যায়, ১৩ থেকে ২০ বছর বয়সিদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা বেশি, যা ৭৮ দশমিক ৬ শতাংশ। আত্মহননের ১৩ দশমিক ৪৬ শতাংশ ২১ থেকে ২৬ বছর বয়সি শিক্ষার্থী। আর ১৩ নিচে ৭ দশমিক ৯৭ শতাংশ শিক্ষর্থী এ পথ বেছে নেন।

প্রেমঘটিত কারণ সবচেয়ে বেশি দায়ী : আত্মহত্যার ঘটনা অনুসন্ধানে আঁচল ফাউন্ডেশনের তরুণ গবেষকরা আত্মহননের পেছনের বিভিন্ন কারণ সম্পর্কে জানতে পারেন। বিশেষ করে অভিমান, প্রেমঘটিত, ডিজিটাল ডিভাইস, সেশনজট, পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়া, পড়াশোনার চাপ, পরিবার থেকে কিছু চেয়ে না পাওয়া, পারিবারিক কলহ, ধর্ষণ ও যৌন হয়রানি, চুরি বা মিথ্যা অপবাদ, মানসিক সমস্যা, বিয়েতে প্রত্যাখ্যাত, স্বামী পছন্দ না হওয়া, বাসা থেকে মোটরসাইকেল কিনে না দেওয়া ইত্যাদি। এছাড়াও মানসিক ভারসাম্যহীনতা, বিষণ্নতা, বন্ধুর মৃত্যু, আর্থিক সমস্যার মতো বিষয়ও রয়েছে। তবে প্রাপ্ত তথ্যে প্রেমঘটিত কারণে আত্মহত্যা ঝুঁকি বেশি যাওয়া যায়। অর্থাৎ ২৫ দশমিক ২৭ শতাংশ শিক্ষার্থী প্রেমঘটিত কারণে আত্মহত্যা করেন। এরপর রয়েছে অভিমান করে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন ২৪ দশমিক ৭৩ শতাংশ শিক্ষার্থী। পরিবারের সঙ্গে চাওয়া-পাওয়ার অমিল হওয়ায় ৭ দশমিক ৪২ শতাংশ এবং পারিবারিক কলহের কারণে ৬ দশমিক ৫৯ শতাংশ। ধর্ষণ বা যৌন হয়রানির কারণে ৪ দশমিক ৬৭ শতাংশ শিক্ষার্থী আত্মহত্যার পথ বেছে নেন। মানসিক সমস্যার কারণে ৬ দশমিক ৫৯ শতাংশ। পড়াশোনার চাপে শূন্য দশমিক ৮২ শতাংশ, সেশনজটের হতাশায় নিমজ্জিত হয়ে শূন্য দশমিক ৮২ শতাংশ এবং পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ায় ১ দশমিক ৯২ শতাংশ শিক্ষার্থী আত্মহননের দিকে যান। ১ দশমিক ৬৫ শতাংশ চুরির মিথ্যা অপবাদে, ১ দশমিক ৯২ শতাংশ আর্থিক সমস্যায় এবং বন্ধুর মৃত্যুতে বিষাদগ্রস্ত হয়ে শূন্য দশমিক ৫৫ শতাংশ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন। এছাড়াও বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় এবং স্বামী পছন্দ না হওয়ায় ১ দশমিক ১০ শতাংশ। অন্যদিকে ১৫ দশমিক ৯৩ শতাংশ শিক্ষার্থীর আত্মহননের কারণ জানা যায়নি।

ডিজিটাল ডিভাইস ও সাইবার ক্রাইম অন্যতম : আত্মহননকারী কিছু শিক্ষার্থীর মধ্যে আত্মহত্যার পূর্বে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাদের মানসিক অবসাদ কিংবা বিদায় নেওয়ার কথা জানান দেওয়ার প্রবণতা লক্ষ করা গেছে। তাদের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে আত্মহত্যা করেন আটজন এবং ভিডিও কলে এসে আত্মহত্যা করেন দুজন। আর সেলফি ক্যামেরা নিজের দিকে তাক করে আত্মহত্যা করেন শূন্য দশমিক ২৭ শতাংশ প্রেমিক যুগল। এছাড়া মৃত্যুর আগে চিরকুট বা সুইসাইড নোট লিখে আটজন আত্মহত্যা করেছেন। আপত্তিকর ছবি ও ভিডিও মোবাইলে ধারণের মাধ্যমে ব্ল্যাকমেইলের শিকার শিক্ষার্থীরা আত্মহত্যার পথ নিচ্ছে। এই জরিপে ওঠে আসে এ কারণে চারজন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেন।

আঁচল ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি তানসেন রোজ আবেগ বলেন, আমরা দেখেছি শিক্ষার্থীরা পরিবার থেকে কোনো কিছু না পেয়ে অভিমান করেও আত্মহত্যা করেছেন। মোটরসাইকেল, মোবাইল চেয়ে না পাওয়ার কারণে অনেকেই আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছেন। প্রত্যাশা পূরণ না হলে কীভাবে আবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে হয়, সে বিষয়ে আমাদের শিক্ষার্থীদের মধ্যে অনেক বড় ধরনের অভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে। তিনি বলেন, আমাদের অনেক বড় ধরনের প্রকল্প হাতে নিতে হবে। সাত বছরের একজন বাচ্চা যার আত্মহত্যা বোঝার মতো বয়সও হয়নি, তার আত্মহত্যার পেছনের কারণগুলোও বিশ্লেষণ করে শিশু অবস্থা থেকেই শিক্ষার্থীদের মনোবল শক্ত করতে ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন এসেছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল সাইকোলজি বিভাগের অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী বলেন, আত্মহত্যার ঘটনাগুলো আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। বিশেষ করে কম বয়সি স্কুলগামী থেকে শুরু করে তরুণ প্রজন্মের মধ্যে এই প্রবণতা বেশি। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, স্কুলগামী আত্মহত্যাকারী শিক্ষার্থীদের সংখ্যা ৬০ শতাংশেরও বেশি। এই হার এত উদ্বেগজনক হারে বৃদ্ধি পাওয়ার পেছনে কারণগুলো কী! তা খুঁজে বের করে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া এখন সময়ের দাবি। অন্যথায় শিক্ষার্থীরা এখন যে অবস্থার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে তাতে আত্মহত্যা না করলেও তাদের অন্যান্য মানসিক সমস্যায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হচ্ছে।

শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যা প্রতিরোধ ও মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষায় আঁচল ফাউন্ডেশনের ১০ প্রস্তাবনা :

১. আত্মহত্যা মোকাবিলায় বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে একটি টাস্কফোর্স গঠন।

২. পাঠ্যপুস্তকে মানসিক শিক্ষাকে এবং মনের যত্নের কৌশলগুলোকে শিক্ষার্থীদের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়া।

৩. স্কুল-কলেজে অভিভাবক সমাবেশের আলোচিত সূচিতে শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্য ও আত্মহত্যা সম্পর্কিত এজেন্ডা রাখতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা প্রদান।

৪. মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও আত্মহত্যা প্রতিরোধে সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মনোরোগ বিশেষজ্ঞ নিয়োগ করা।

৫. প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের প্রাথমিক মানসিক স্বাস্থ্য প্রশিক্ষণ প্রদান।

৬. সহশিক্ষা কার্যক্রমে অংশগ্রহণ বৃদ্ধি ও বাস্তবায়ন নিশ্চিত করা।

৭. মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করা প্রতিষ্ঠানগুলো দ্বারা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভ্রাম্যমাণ ক্যাম্পেইন পরিচালনা করা।

৮. হতাশা, আপত্তিকর ছবি, আত্মহত্যার লাইভ স্ট্রিমিং, জীবননাশের পোস্ট ইত্যাদি চিহ্নিত করতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিশেষ টুলস ব্যবহার করা।

৯. আত্মহত্যার ঘটনায় পরিবার ও পরিচিতদের দায় অনুসন্ধানে আইনি বাধ্যবাধকতা থাকা।

১০. মানসিক স্বাস্থ্যসেবা দ্রুত ও সহজলভ্য করতে একটি টোল ফ্রি জাতীয় হট লাইন চালু করা।


আরও খবর

পঞ্চগড়ে নৌকা ডুবে ২৪ জন নিহত

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

এবার ৩২ হাজার মণ্ডপে দুর্গাপূজা

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২




মোংলা বন্দরের জেটিতে ভিড়েছে এমভি ইউনিউইসডম

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর রাশিয়া থেকে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের তৃতীয় চালানের মালামাল নিয়ে সরাসরি মোংলা বন্দর জেটিতে এসে ভিড়েছে এম,ভি ইউনিউইসডম।

সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে এ জাহাজটি বন্দর জেটিতে ভিড়ে। রাত ১০টার পর থেকে এ জাহাজ থেকে এ মালামাল খালাসের কাজ শুরু হয়। মালামাল খালাসের পর আজ সকালে সড়ক পথে যাবে রুপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে। মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ জানায়, সরাসরি রাশিয়া থেকে রুপপুর পারমাণবিক কেন্দ্রের মূল্যবান বৈদ্যুতিক মালামাল নিয়ে বিদেশি জাহাজ এম,ভি ইউনিউইসডম সোমবার সন্ধ্যায় মোংলা বন্দরের ৭ নম্বর জেটিতে এসে পৌঁছায়। এ চালানে রয়েছে ১৪২১ মেট্টিক টনের ২৮০ প্যাকেজ মেশিনারি পণ্য। এর আগে গত পহেলা আগস্ট এম,ভি কামিল্লা ও ৫ আগস্ট এম,ভি ড্রাগনবল রাশিয়া থেকে রুপপুর পারমাণবিক কেন্দ্রের মালামাল নিয়ে মোংলা বন্দরে আসে। 


আরও খবর

পঞ্চগড়ে নৌকা ডুবে ২৪ জন নিহত

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

এবার ৩২ হাজার মণ্ডপে দুর্গাপূজা

রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২




নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপারসহ ৪২ জন পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

বুলবুল আহমেদ সোহেল ঃ

পুলিশ ও বিএনপির নেতাকর্মীদের সংঘর্ষে যুবদল কর্মী শাওন প্রধান নিহতের ঘটনায়, গুলি ও হত্যার অভিযোগ এনে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারসহ ৪২ জন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে, মামলার আবেদন করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এড. রুহুল কবির রিজভী। আজ সকালে নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ইমরান হোসেন মোল্লার আদালতে এই মামলার আবেদন করেন তিনি।

মামলায় হুকুমের আসামি করা হয়েছে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) গোলাম মোস্তফা রাসেলকে। সেইসঙ্গে প্রধান আসামি করা হয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাহফুজুর রহমান কনককে। আদালত শুনানি শেষে পরে আদেশ দিবেন বলে জানান। এরপর সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেন রিজভী। এসময় তার পক্ষে নারায়ণগঞ্জ কোর্টের একাধিক আইনজীবী ছিলেন। বেলা ১১টায় রিজভী আদালত প্রাঙ্গন ত্যাগ করেন।

এ বিষয়ে মামলার আইনজীবী মোঃ মাসুদ আহম্মেদ তালুকদার গণমাধ্যমকে বলেন, নারায়ণগঞ্জ শহরের ২নং রেলগেইট এলাকায় বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত শোভাযাত্রায় পুলিশ অতর্কিতভাবে পেছন থেকে হামলা করে গুলিবর্ষণ করে। এতে যুবদল কর্মী শাওন নিহত হয়েছে। পুলিশের এই সন্ত্রাসীমূলক কার্যক্রমের প্রতিবাদে আমরা মামলার আবেদন করেছি। আশা করি আদালত মামলা গ্রহণ করে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করবেন।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এড. রুহুল কবির রিজভী আদালত থেকে বেরিয়ে গণমাধ্যমে কর্মীদের বলেন-

সংবিধান অনুযায়ী সমাবেশ র‌্যালী করার যে অধিকার রয়েছ তা হরণ করা হচ্ছে। সেটার প্রমান হচ্ছে ১লা সেপ্টেম্বরের ঘটনা। গণতান্ত্রিক যে অধিকার রয়েছে সেটা তারা কোনটাই রাখতে চায়না। সেটা একদলীয় সরকারের যে নমুনা, সেই নমুনারই চুড়ান্ত প্রকাশ হয়েছে সেদিন।

উল্লেখ্য, গত ১ সেপ্টেম্বর নারায়ণগঞ্জ বঙ্গবন্ধু সড়কে বিএনপির নেতাকর্মী ও পুলিশের সাথে সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় শাওন নামে এক যুবক নিহত হয়েছে। ঘটনার দিন রাতে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় নিহত শাওনের বড় ভাই মিলন বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।  পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে ঘটনার পরদিন আরো একটি মামলা দায়ের করেন।


আরও খবর



বাংলাদেশ ডিপ্লোমা মেডিকেল এসোসিয়েশ‌ন

কু‌মিল্লার সভাপতি ডা. আবুল কালাম, সেক্রেটারি ডা. শামীমুল

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ |
Image

কু‌মিল্লা ব্যুরো ঃ

কু‌মিল্লায় বাংলাদেশ ডিপ্লোমা মেডিকেল এসোসিয়েশনের  সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হ‌য়ে‌ছে।

শুক্রবার বাংলাদেশ ডিপ্লোমা মেডিকেল এসোসিয়েশন কুমিল্লা জেলা শাখার আয়োজনে সাধারণ সভা মহানগরীর কান্দির পাড় জাহাঙ্গীর জমজম টাওয়ারের অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে সভাপতিত্ব করেন ডা. মোঃ আবুল কালাম আজাদ ভূইয়া এবং পরিচালনা করেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক  ডা. মোঃ সফিউল আলম চৌধুরী। এরিস্টো ফার্মার আয়োজনে শতাধিক ডিপ্লোমা মেডিকেল এসোসিয়েশন ডাক্তার সংগঠনের সমন্বয়ে সাধারণ সভায় জেলায় কর্মরত অবস্থায় সংগঠনের  মৃত সদস্যদের রুহের মাগফেরাত কামনায় বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়া সভায় ৪ জন মরণোত্তর এবং ২১ জন সদস্য কে অবসরোত্তর সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়।

সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা ডিপ্লোমা মেডিকেল এসোসিয়েশন এর ডা. এ টি এম গোলাম কিবরিয়া, জেলা ডিপ্লোমা মেডিকেল এসোসিয়েশন এর সাবেক সভাপতি ও উপদেষ্টা ডা. সরকার ফারুক আহমেদ, সাবেক সভাপতি ও উপদেষ্টা ডা মোঃ আলী আশ্রাফ, উপদেষ্টা ডা মোঃ ময়নাল হোসেন ভূইয়া, সাধারণ সম্পাদক ডা. মোঃ শামীমুল ইসলাম বাবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. দ্বীন মোহাম্মদ হোসেন, অর্থ বিষয়ক সম্পাদক ডা. মহব্বত আলী, ডা.মোঃ গাজীউল হাসান আজগর।

অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন এরিস্টো ফার্মা লিঃ এর  ঢাকা এরিয়া এজিএম বিশ্বজিৎ কুমার দেবনাথ, কুমিল্লা আর এস এম মোঃ জাকির হোসেন, আর এস এম মোঃ ফারুক আহমেদ, সিনিয়র এরিয়া ম্যানেজার বিকাশ চন্দ্র ধর, সিনিয়র এরিয়া ম্যানেজার মোঃ গোলাম সাদেক চৌধুরী, এরিয়া ম্যানেজার শিমুল দাশ

আর-ও বক্তব্য রাখেন ডা. গোলাম রব্বানী, ডা. জাকির হোসেন, ডা. ফারুক আহমেদ ও, ডা. ফরিদ উদ্দিন  প্রমুখ।

সভা শেষে সংগঠনের সাবেক সভাপতি ও উপদেষ্টা ডা সরকার ফারুক আহমেদ ৪১ সদস্য বিশিষ্ট বাংলাদেশ ডিপ্লোমা মেডিকেল এসোসিয়েশন এর তিন বছর মেয়াদি একটি কার্যকরী কমিটি ঘোষণা করেন। কমিটির সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন ডা.মোঃ আবুল কালাম আজাদ ভূইয়া , সহ-সভাপতি ডা. হুমায়ুন কবির মোল্লা, ডা. ফারুক আহমেদ, ডা. নাছরিন বেগম, ডা. শহীদ উল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক হিসাবে নির্বাচিত হয়েছেন ডা. মোঃ শামীমুল ইসলাম বাবুল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. সফিউল আলম চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. দ্বীন মোহাম্মদ হোসেন, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. ইউনুস মিয়া, অর্থ বিষয়ক সম্পাদক ডা. মোঃ মোহাব্বত আলী, দপ্তর সম্পাদক ডা. মোঃ গোলাম রব্বানী, প্রচার সম্পাদক ডা. মোঃ আবুল হোসেন ।


আরও খবর