Logo
শিরোনাম

সরকার মিথ্য বলে জনগণকে ভাউতা দিয়ে ক্ষমতায় টিকে আছে

প্রকাশিত:Friday ১৮ November ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

বুলবুল আহমেদ সোহেল ঃ

সরকার মিথ্য বলে জনগণকে ভাউতা দিয়ে ক্ষমতায় টিকে আছে বলে মন্তব্য করেছেন নাগরিক ঐক্যর সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না। তিনি বলেছেন মানুষ এই সরকারের পরিবর্তন চায়। শুক্রবার বিকেলে নগরীর চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গনতন্ত্র মঞ্চ আয়োজিত এক সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। 

তিনি বলেন, দেশের ১৭ কোটি মানুষ। তার মধ্যে ৮ কোটি মানুষই গরিব, ২ কোটি শিক্ষিত যুবক বেকার। এই সরকারের পরিবর্তন চায় বলে  বিএনপির সামাবেশে মানুষ নানা ভাবে ছুটে গেছে। ঢাকায়ও মানুষকে আটকে রাখা যাবে না। 

রাজনৈতিক সভা-সমাবেশে বাধা, হামলা-মামলা, দমন-পীড়ন, গুলি-হত্যা বন্ধ করার দাবিতে ৭টি দলের রাজনৈতিক জোট ‘গণতন্ত্র মঞ্চ’ এ সমাবেশের আয়োজন করে।

সামবেশে গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি বলেছেন, আমরা সরকারের পদত্যাগ চাই। জনগন যদি চায় তাহলে কারো শক্তি নাই অবৈধ ভাবে নির্বাচন করার। সরকারের নানা সমালোচনা করে তিনি বলেন, বিদেশীরা এখন তাদের সাথে নেই। এ কারনে এখন সরকারের পায়ের তলায় মাটি নেই। এখন তারা ভয়ে আছে। কখন ক্ষমতা ছাড়তে হয়।

সমাবেশে আরও বক্ত্য রাখেন  বিপ্লবী ওয়াকার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, ভাসানী অনুসারী পরিষদের আহবায়ক শেখ রফিকুল ইসলাম, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী, হাসনাত কাউয়ুম। 

বক্তারা বলেন , সরকারি দলের নেতারা বলছেন ‘খেলা হবে’।  এই খেলার কথা বলতে- ক্ষমতাশীনরা মনে করে, গায়ের জোর ছারা ক্ষমতায় থাকার আর কোন পথ নাই।

কারণ এই সরকার ভোটে জিততে পারবে না। কেউ আর তাদের ভোট দিবেনা।


আরও খবর



গণধর্ষণের শিকার কিশোরী থানায় মামলা

প্রকাশিত:Wednesday ১১ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

অনুপ সিংহ,নোয়াখালী প্রতিনিধি :


নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে এক কিশোরীকে (১৫) ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে।  

আসামিরা হলেন,উপজেলার আলাইয়াপুর ইউনিয়নের ৪নম্বর ওয়ার্ডের আপ্তারামপুর গ্রামের মুন্সি বাড়ির মৃত মো.সাহাব উদ্দিনের ছেলে জুয়েল (২৪) এবং একই ইউনিয়নের হীরাপুর গ্রামের পাটোয়ারী বাড়ির মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে ইমন (২৩)।  


মঙ্গলবার (১০ জানুয়ারি) দুপুরে গ্রাম পুলিশ মিজানুর রহমান বাদী হয়ে এই মামলা দায়ের করেন।


মামলা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,ওই কিশোরীর বাবা পাঁচ বছর আগে মারা যায়। মা বিয়ে করে অন্যত্র চলে যায়। এরপর থেকে ভিকটিম ও তার এক প্রতিবন্ধী বোনসহ তাদের ঘরে বসবাস করে আসছে। তার প্রতিবন্ধী বোন অসুস্থতার কারণে খালার বাড়ি চলে যায়। এই সুযোগে আসামি জুয়েল গত ৫ জানুয়ারি ও ৬ জানুয়ারি রাত সাড়ে নয়টা ও ১০টার দিকে কৌশলে বসত ঘরে ঢুকে জোরপূর্বক কিশোরীকে ধর্ষণ করে। গত ৮ জানুয়ারি রাত সাড়ে ১০টার দিকে প্রধান আসামির সহযোগীতায় ইমন কিশোরীকে মুঠোফোনে কল দিয়ে দরজা খুলতে বলে। ভিকটিম ভয়ে দরজা খুললে তাকে মুখ চেপে ধরে বসত ঘর থেকে তুলে নিয়ে রান্না ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করে। বিষয়টি জানাজানি হলে ভিকটিমের নিকটতম কোন আত্মীয় না থাকায় গ্রাম পুলিশ মিজানুর রহমান বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।  

বেগমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর জাহেদুল হক রনি বলেন,এই ঘটনায় নারীও শিশু নির্যাতন দমন আইনে দুজনকে আসামি করে মামলা হয়েছে।  পুলিশ আসামিদের গ্রেফতারে চেষ্টা চালাচ্ছে।


আরও খবর



আমিরাতে শান্তি পুরস্কার পেলেন বাংলাদেশী বংশদ্ভূত

প্রকাশিত:Monday ২৩ January 20২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

মো নূরুল্লাহ খান, আরব আমিরাত থেকে :

সংযুক্ত আরব আমিরাতে শান্তি পুরস্কার পেলেন বাংলাদেশী বংশদ্ভূত ডা. মোহাম্মদ হাসিম। সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে মেরিনায় দ্য ওয়েস্টিন মিনা হোটেলে জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে তাকে এ শান্তি পুরস্কার প্রদান করা হয়। এ সময় আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে ডিগ্রি অব ডক্টর অব বিজনেস এ্যাডমিনিস্ট্রেশনের ওপর ডক্টরেট ডিগ্রিও প্রদান করা হয়। এর আগে ২০০৯ সালে রিয়েল এস্টেট এর ওপর দুবাইয়ের এমআরই একাডেমী থেকে ডিপ্লোমা ডিগ্রি নেন মোহাম্মদ হাসিম।

বরাবরের মতো এবারও আমিরাতে ‘‘১৩তম আন্তর্জাতিক পিস অ্যাওয়ার্ড এবং ইউনাইটেড স্টেট গ্লোবাল এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড ২০২৩’’ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। 

অনুষ্ঠানে মহামান্য শেখ হামদান বিন আহমেদ আল মাকতুম, মহামান্য শেখ সোহাইল বিন হাসের আল মাকতুম, শেখা লামিস বিনত হামাদ বিন আলী আল মুয়াল্লাসহ বিভিন্ন অর্থনীতিবীদগণ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও সংযুক্ত আরব আমিরাতে সফররত ভারত, দক্ষিণ কোরিয়া, চীন, যুক্তরাজ্য, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, শ্রীলংকা ও নেপালের কূটনৈতিকগণ উপস্থিত ছিলেন। 

আমিরাতে বসবাসরত ব্যবসায়ী, শিল্পপতিসহ বিভিন্ন পেশায় খ্যাতি অর্জনকারী বিশ্বের ২৪টি দেশের নাগরিককে এ সম্মাননা পুরস্কার প্রদান করা হয়। 

এদিকে বাংলাদেশের সিআইপি, ব্যবসায়ী ও শিল্পপতি ডা. মোহাম্মদ হাসিম দীর্ঘ প্রায় তিন যুগ ধরে সংযুক্ত আরব আমিরাতে সুনামের সাথে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন। তিনি আমিরাতের ইতিহাসে সৎ ও নিষ্ঠার সাথে ব্যবসা পরিচালনা করে খ্যাতি অর্জন করেন।

এ বিষয়ে ডা. মোহাম্মদ হাসিম বলেন, ‘‘আমি নিষ্ঠার সাথে ব্যবসা পরিচালনা করে সফল হয়েছি। আমার এ সম্মান বাংলাদেশের গর্ব। আমি আমার দেশকে বিশ্ব দরবারে আলোকিত করতে পেরে অত্যান্ত আনন্দিত। আমার এই সাফল্য বাংলাদেশের প্রবাসীদের মধ্যে মাইলফলক হয়ে থাকবে বলে আমি বিশ্বাস করি। আমার সৎ, নিষ্ঠা ও আদর্শ প্রবাসীদের মধ্যে লালন করবে বলেও আমি আশাবাদী।’’

ডা. মোহাম্মদ হাসিম মৌলভীবাজারে একটি তালুকদার পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। শৈশব থেকেই তিনি সফল ব্যবসায়ী হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাওয়ার স্বপ্ন দেখতেন। তার লালিত চিন্তা-চেতনাকে ধারণ করে দীর্ঘ দিন যাবৎ সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করছেন। নিজের দক্ষতা ও মেধাকে কাজে খাটিয়ে ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েন। স্বল্প সময়ে রিয়েল এস্টেট ব্যবসা করে আমিরাতে সুনাম অর্জন করতে সক্ষম হন। ধীরে ধীরে ব্যবসার পরিধি বাড়াতে শুরু করেন ডা. মোহাম্মদ হাসিম। এরপর তাকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। পাশাপাশি দুবাইয়ে দেরা নাখিলে অবস্থিত ফনিক্স হোটেল (আবাসিক) ব্যবসায় ব্যাপক সফলতা লাভ করেন। এভাবে নিজেকে আমিরাতের একজন সার্থক ব্যবসায়ী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। তার স্নেহধন্য ছেলে ফরহাদ হাসিম পড়াশোনা শেষ করে বাবার ব্যবসা দেখাশোনা করছেন। বর্তমানে বাবার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে নিজের জায়গাও তৈরি করে নিয়েছেন ফরহাদ হাসিম। বাবার ব্যবসার সার্থক সহযোগী হিসেবে ফরহাদ হাসিম এইচএমসি ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস পুরস্কার পান।

অপরদিকে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রবাসী  কল্যাণ মন্ত্রনালয় থেকে ২০০৯ সালে রেমিটেন্সের ওপর (এ) ক্যাটাগরির বিশেষ সম্মাননা কার্ড অর্জন করেন। ২০১৮ সালেও রেমিটেন্সের ওপর দেশের এনআরবি সিআইপি হিসেবে সম্মানের চতুর্থ স্থান দখল করেন মোহাম্মদ হাসিম।

দানবীর মোহাম্মদ হাসিম দেশের অসহায়, গরিব ও সাধারণ মানুষের পাশে থেকে মানবতার হাত বাড়িয়েছেন প্রতিনিয়ত। প্রতি বছর প্রায় ৩ থেকে ৪ হাজার দুঃস্থ, অসহায় ও গরিব মানুষকে সহযোগিতা করে আসছেন তিনি। তার এলাকায় আল হাসিম ইন্টারন্যাশনাল মাদ্রাসা, মসজিদ ও এতিমখানা প্রতিষ্ঠা করেন 


আরও খবর



নওগাঁয় ৩৫ কোটি টাকা মূল্যের কষ্টিপাথরের মূর্তি উদ্ধার

প্রকাশিত:Wednesday ০১ February ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন :

নওগাঁয় ৩৫ কোটি টাকা মূল্যের একটি কষ্টি পাথরের নারায়ণ মূর্তি উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। বুধবার পূর্বরাতে নওগাঁর ধামুরহাট থানা পুলিশ ধামুরহাট উপজেলার কুলফৎপুর নামক স্থান থেকে আনুমানিক ৩৫ কোটি টাকা মূল্যের ৪৫ কেজি ৭শ' গ্রাম ওজনের মূর্তিটি উদ্ধার করেন।

সত্যতা নিশ্চিত করে নওগাঁর

ধামইরহাট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোজাম্মেল হক কাজী প্রতিবেদক কে জানান, ধামুরহাট উপজেলার উমার ইউনিয়নের কুলফৎপুর এলাকায় জাহেদুল ইসলাম হেলাল নামে একজন পুকুর খননকালে (মাটির নিচ থেকে বের হওয়া ) পুকুরের মাটিতে একটি মূর্তি জাতীয় কিছু দেখতে পান। 

এমন খবর পেয়ে ধামুরহাট থানার অফিসাার ইনচার্জ (ওসি) মোজাম্মেল হক কাজী সঙ্গীয় অফিসার ও পুলিশ ফোর্সসহ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে মূর্তিটি উদ্ধার পূর্বক থানা হেফাজতে নেয়।

ওসি আরো জানান, উদ্ধারকৃত মূর্তিটির ওজন ৪৫ কেজি ৭শ' গ্রাম এবং কষ্টিপাথরের নারায়ণ মূর্তিটি'র আনুমানিক মূল্য ৩৫ কোটি টাকা বলেও নিশ্চিত করেন ওসি।


আরও খবর



বাসচাপায় শিক্ষার্থী নাদিয়ার মৃত্যু

প্রকাশিত:Monday ২৩ January 20২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

রাজধানীতে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাদিয়া সুলতানাকে চাপা দেওয়া বাসের চালক ও তার সহকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার সকালে রাজধানীর বাড্ডা এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

 ঢাকা মহানগর পুলিশের গুলশান বিভাগের পুলিশের উপকমিশনার মো. আব্দুল আহাদ জানান, গ্রেপ্তার করা ভিক্টর পরিবহনের ওই বাসের চালক মো. লিটন ও সহকারী আবুল খায়েরের বাড়ি ভোলায়। এর আগে গতকালই এ ঘটনায় বাদী হয়ে ভাটারা থানায় সড়ক পরিবহন আইনে মামলা করেন নাদিয়ার বাবা জাহাঙ্গীর আলম। এই ঘটনায় ভিক্টর পরিবহনের বাসটি জব্দ রয়েছে। রোববার ক্লাস না থাকায় এক বন্ধুর সঙ্গে মোটরসাইকেলে করে বই কিনতে বসুন্ধরা যাচ্ছিলেন নাদিয়া । কুড়িল বিশ্বরোড এলাকায় তাঁদের মোটরসাইকেলটিকে ধাক্কা দেয় ভিক্টর ক্ল্যাসিক পরিবহনের একটি বাস। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় নাদিয়া।  


আরও খবর



কুড়িগ্রামে নাশকতার অভিযোগে ৫ জামায়াত নেতাকর্মী আটক

প্রকাশিত:Monday ২৩ January 20২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

আতাউর রহমান বিপ্লব, কুড়িগ্রাম :

কুড়িগ্রামের সদর উপজেলার ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নের মধ্যকুমরপুর ও ঘোগাদহ ইউনিয়নের ঘোগাদহ এলাকা থেকে নাশকতার অভিযোগে ৫ জামায়াত নেতাকর্মীকে আটক করেছে কুড়িগ্রাম সদর থানা পুলিশ। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে তাদেরকে আটক করা হয়। আটককৃতদের বিরুদ্ধে এর আগেও নাশকতার অভিযোগে মামলা দায়ের করা ছিল।

কুড়িগ্রাম সদর থানার অফিসার ইনচার্জ খান মো. শাহরিয়ার জানান, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে নাশকতার অভিযোগে মামলা রুজু করা হয়েছিল। আবার তারা সংগঠিত হয়ে তৎপরতা শুরু করার খবর পেয়ে সোমবার সন্ধ্যায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে দুটি এলাকা থেকে তাদেরকে আটক করা হয়। 

আটককৃতরা হলেন সদর উপজেলার ঘোগাদহ ইউনিয়নের ঘোগাদহ বাজার জামায়াতের সাধারণ সম্পাদক ও রসুলপুর গ্রামের আব্দুল জব্বার খন্দকারের ছেলে আব্দুল বাতেন (৪৮) ও একই ইউনিয়নের মরাটারী গ্রামের মেহের জামালের ছেলে ও রাজারহাট দাখিল মাদ্রাসার কৃষি বিভাগের শিক্ষক জাহেদুল ইসলাম (৪০), সদর উপজেলার ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নের চরবড়াইবাড়ী গ্রামের ভোলা শেখ’র ছেলে আবুল হোসেন (৪৮), একই ইউনিয়নের বাণির খামার (পরমালী) গ্রামের মৃত: মহর উল্যাহ ব্যাপারীর ছেলে আশরাফুল আলম ওরফে বদিউজ্জামান এবং চর বড়াইবাড়ী গ্রামের মৃত: আবুল হোসেন’র ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান। নাশকতা সৃষ্টির ঘটনায় জড়িত থাকার অপরাধে কুড়িগ্রাম সদর থানায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে মামলা নম্বর-৩৬(১২)২২। 

আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার আল আসাদ মো. মাহফুজুল ইসলাম জানান, নাশকতার অপরাধে ৫ জামায়াত নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।


আরও খবর