Logo
শিরোনাম

সরকারি কর্মকর্তাদের সিলমোহর ও তিন দেশের স্ট্যাম্পসহ দুই প্রতারক আটক

প্রকাশিত:Sunday ১৩ November ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

মহিনুল ইসলাম সুজন,নীলফামারী জেলা প্রতিনিধি ঃ

নীলফামারীর ডিমলায় বিভিন্ন সরকারি দপ্তর,কর্মকর্তার সিলমোহর,নন জুটিসিয়াল স্ট্যাম্প,জাল দলিল ও প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত মালামালসহ দুই প্রতারককে আটক করেছে ডিমলা থানা পুলিশ।আকটকৃতদের নামে মামলা দায়েরের পর শুক্রবার(১১ নভেম্বর)বিকেলে আদালতে পাঠালে বিচারক তাদের কারাগারে প্রেরণ করেন।তারা হলেন-ডিমলা সদর ইউনিয়নের সরদারহাট গ্রামের মৃত,কছির উদ্দিনের পুত্র মাজেদুল ইসলাম(৫২) উত্তর তিতপাড়া গ্রামের নছিমুদ্দিনের পুত্র রফিকুল ইসলাম ভুট্টু(৫০)।দীর্ঘদিন যাবত তারা জাল দলিল তৈরি ও দলিলের বিশেষ কিছু অংশ পরিবর্তনের মাধ্যমে প্রতারনা করে আসছিলেন।

জানা যায়,বৃহস্পতিবার(১০ নভেম্বর)গভির রাতে শুক্রবার(১১ নভেম্বর ভোরে)গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সহকারী পুলিশ সুপার(ডোমার-ডিমলা সার্কেল)আলী মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ'র দিক নির্দেশনায় ডিমলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি)লাইছুর রহমান ও ওসি(তদন্ত)বিশ্বদেব রায়ের নেতৃত্বে এসআই প্রদীপ কুমার রায়,আখতারুজ্জামান,জহুরুল ইসলাম,জগদীশ রায়,জাহিদ হাসান,পিএসআই জয়ন্ত কুমার রায়সহ সঙ্গীয় ফোর্স অভিযান চালিয়ে প্রথমে মাজেদুলকে তারপর তার দেয়া তথ্য মতে ভুট্টুকে নিজ-বাড়ি থেকে আটক করেন।আটকের সময় তাদের কাছ থেকে সাবরেজিষ্টারসহ বিভিন্ন সরকারি দপ্তর ও দপ্তরের কর্মকর্তাদের ১৬৫টি তৈরি সিল ও বিভিন্ন মূল্যের ফাকা ২৮টি স্ট্যাম্প।২৩টি মুছেফেলা স্ট্যাম্প।২টি দলিলের জাবেদা নকলসহ তিন পাতার অস্পষ্ট ভারতীয় ১টি দলিল।চার আনা সমমান মুল্যের পাকিস্তান সময়ের ১টি স্ট্যাম্প।কালার লিগ্যাল কাগজ ২০ পিচ।দলিল লেখা তরল রাসায়নিক দ্রব্যের ১৮টি বোতল।লাল ও কালো রঙ্গের ২টি স্ট্যাম্প প্যাডসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম পাওয়া যায়।পরে আটককৃতদের বিরুদ্ধে ডিমলা থানার এসআই জাহিদ হাসান বাদি হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন।ডিমলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি)লাইছুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,আটককৃতদের মধ্যে ভুট্টু পুরোনো দলিল সংগ্রহ করে দলিলের লেখা কেমিক্যাল দিয়ে তুলে ফেলার কাজে পারদর্শী ও মাজেদ জাল দলিল তৈরির কাজে পারদর্শী।তাদের কাছে ছিলো বিভিন্ন দপ্তর ও দপ্তরের কর্মকর্তাদের অনেক সিলসহ জাল দলিল তৈরির নানান সরঞ্জাম।আটকের পর তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে শুক্রবার বিকেলে আদালতে সোপর্দ করা হলে বিজ্ঞ বিচারক তাদের কারাগারে প্রেরণ করেন।


আরও খবর



মালয়েশিয়ায় কর্মসংস্থান আইন সংশোধন

প্রকাশিত:Wednesday ১১ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

রোকসানা মনোয়ার :মালয়েশিয়া এমপ্লয়মেন্ট (কর্মসংস্থান) আইন সংশোধন করেছে। যা ১ জানুয়ারি থেকে কার্যকর করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট আইনের ৬০ ধারা সংশোধন করে লেবারের ডিরেক্টর জেনারেলের কাছ থেকে পূর্বানুমতি নেওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

এজন্য নিয়োগকর্তা বা নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের জন্য কিছু বাধ্যতামূলক শর্ত রয়েছে; যেমন—এমপ্লয়মেন্ট আইনের সঙ্গে সম্পর্কিত কোনো ইস্যু পেন্ডিং থাকা যাবে না; এমপ্লয়মেন্ট আইনের অধীনে প্রদত্ত কোনো সিদ্ধান্ত বা আদেশ বা নির্দেশনা বাস্তবায়ন করা; সকসো, মিনিমাম বেতন এবং মিনিমাম আবাসনের শর্ত প্রতিপালন না করার কারণে নিয়োগ কর্তাকে কোনো দণ্ড আরোপ করলে এবং সে মোতাবেক অবস্থার উন্নয়ন না করলে; মানবপাচার ও জবরদস্তিমূলক শ্রমের জন্য নিয়োগকর্তা শাস্তি পেলে নিয়োগের অনুমতি পাবে না।

বর্তমান আইন অনুযায়ী বিদেশিকর্মী নিয়োগের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে হবে নিয়োগকর্তাদের এবং অবশ্যই কোন পদে বা কোন কাজের জন্য নিয়োগ করবে তা স্পষ্ট উল্লেখ করা; কর্মরত স্থানীয় কর্মীর সংখ্যা; কর্মরত বিদেশি কর্মীর সংখ্যা, কোম্পানির নাম, রেজিস্ট্রেশন নম্বর, কোম্পানির ঠিকানা ও অবস্থান; কোম্পানির যোগাযোগের তথ্যাদি; সেক্টর; কোম্পানি বা ব্যবসা শুরুর তারিখ; কোম্পানির বর্তমান অবস্থা; সকসো নম্বর তথ্য দিতে হবে।

জি-টু-জি প্লাসের নিয়োগের সময় বাংলাদেশ হাইকমিশনের শ্রম উইং ডিমান্ড এটেস্টেশন করার পূর্বে সরেজমিন নিয়োগকর্তা বা কোম্পানির উপযুক্ততা নির্ণয়ের জন্য যেসব বিষয়াদি যাচাই করেছিল ঠিক সে বিষয়গুলো মালয়েশিয়া সংশোধিত এমপ্লয়মেন্ট আইনের অধীনে এনেছে।

হাইকমিশনের শক্ত অবস্থানের কারণে জি-টু-জি প্লাসের সময় তুলনামূলক ভালো এবং শতভাগ কর্মসংস্থান হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে মালয়েশিয়ার সংসদেও ইতিবাচক আলোচনা হয়েছে। সিন্ডিকেট এবং অতিরিক্ত অভিবাসন খরচের ইস্যুর ভিড়ে ভালো কর্মসংস্থানের ইস্যুটি চাপা রয়ে গেছে।

এমন কি কোম্পানির পরিচালকের সাক্ষাৎ এবং লিখিত ঘোষণাও নিয়েছিল যেন বাংলাদেশি কর্মীরা ভালো থাকে। উপযুক্ততা না থাকায় অনেক কোম্পানির এটেস্টেশন করেনি এবং পদ্ধতি অনুসরণ না করায় মালয়েশিয়ার বিমান বন্দরে আগত কর্মীকে নিয়োগকর্তা নিজ খরচে ফেরত পাঠিয়ে এবং পুনরায় যথা নিয়মে মালয়েশিয়ায় আনয়ন করেছিল।

সে সময়ের লেবার কাউন্সিলর সরকারের অবসরপ্রাপ্ত সচিব মো. সায়েদুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশের কর্মীদের যৌক্তিক এবং নিরাপদ মাইগ্রেশন অর্থাৎ সঠিক কোম্পানিতে কাজ পাওয়া এবং ভালোভাবে থাকার বিষয়টি ছিল চ্যালেঞ্জের এবং অত্যাধিক গুরুত্বারোপ করা হয়েছিল। ফলে অনেক চাপ ও বিরোধিতা এবং নেতিবাচক প্রপাগান্ডা সত্ত্বেও আমরা নিয়োগকর্তার ও কোম্পানির অবস্থা যাচাই না করে এটেস্টেশন করিনি। এতে দীর্ঘদিনের কাজ না পাওয়া, অমানবিক অবস্থার শিকার হওয়ার যে দুর্নাম ছিল সেখান থেকে উত্তরণ ঘটানো সম্ভব হয়েছে।

করোনার আগে মালয়েশিয়ায় আগমনে বিদেশি কর্মীদের উচ্চ অভিবাসন খরচ এবং কর্মীদের মানহীন আবাসনের কারণে আমেরিকা ও ইউরোপ মালয়েশিয়ায় উৎপাদিত পণ্য গ্রহণ না করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।

আন্তর্জাতিকভাবে এ দুটিকে মানবপাচার এবং জবরদস্তিমূলক শ্রম অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এ দুটি অভিযোগ মালয়েশিয়ার উন্নত দেশের স্বীকৃতি লাভের ক্ষেত্রে অন্যতম বাধা। এসব সমস্যা কাটিয়ে ওঠার জন্য মালয়েশিয়া সরকার জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা এবং দেশীয় এনজিওদের সঙ্গে কাজ করছে।

এরই মধ্যে মালয়েশিয়া সরকার আইএলও কনভেনশনে সই করেছে। বর্তমান সরকার বিদেশি কর্মী নিয়োজন প্রক্রিয়া বেশি সহজ ও সংক্ষিপ্ত করার কাজ করছে।


আরও খবর



১২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে এইচএসসি’র ফল

প্রকাশিত:Monday ১৬ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

এইচএসসি-সমমান পরীক্ষার ফল আগামী ১২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে প্রকাশিত হবে। ফল প্রকাশের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্নের লক্ষ্যে তারিখ নির্ধারণের জন্য আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটি থেকে ফাইল পাঠানো হয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে। অন্যদিকে ২০২৩ সালের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা এপ্রিলের শেষ সপ্তাহে শুরু করা হবে। এই সিদ্ধান্তও শিক্ষা বোর্ডগুলো ইতোমধ্যে চূড়ান্ত করেছে।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক তপন কুমার সরকার জানান, এবারের এইচএসসি পরীক্ষার খাতা মূল্যায়ন ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। এখন ফল প্রকাশের পরবর্তী প্রস্তুতি শুরু করা হয়েছে। যেহেতু রীতি অনুযায়ী পরীক্ষা শেষে পরবর্তী ৬০ দিনের মধ্যে ফল প্রকাশ করা হয়ে থাকে। তাই ৮ থেকে ১২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ফল প্রকাশের লক্ষ্যে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। যেহেতু প্রধানমন্ত্রীর হাতে ফলের সারসংক্ষেপ তুলে দেওয়া হয়ে থাকে। তাই তিনি যে সময় দেবেন সেটি ধরেই ফল চূড়ান্ত করা হবে।


আরও খবর



লালমনিরহাটে রোগীর পেটকেটে সেলাই, পরে চিকিৎসা না দিয়ে বিদায়

প্রকাশিত:Sunday ০৮ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

নিজস্ব প্রতিনিধি  :


জেলা সদরে অবস্থিত নিরাময় ক্লিনিকে ছবিতা রাণী নামে এক রোগী দীর্ঘদিন ধরে পেট ব্যথায় ভুগলে রংপুর সহ বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য যান। একাধিক ডাক্তারের চিকিৎসা নিলে  সাময়িক রোগ দমন হলেও তা বার বার দেকা দিলে স্থানীয় নিরাময় ক্লিনিকে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হন। 

পরে তার বিভিন্ন প্রকার পরীক্ষা নিরিক্ষা শেষে ক্লিনিকের বেডে নিয়ে রোববার তাঁর শরীরে অস্ত্র পাচার করেন৷ কিন্তু উক্ত অপারেশন করার সময় গটনা বেগতিক হলে তাৎক্ষণিক তড়িঘড়ি করে রোগীর কাটা পেট সেলাই দেন। পরে রোগীর অবিভাবক  দিনমজুর শচীন ঘটনাটি তার নিকটতম লোকজনকে জানান।  কিন্তু গরীব অসহায় হওয়ায় তার এ ঘটনা নিরবে সয়ে যাওয়া ছাড়া আর কোন উপায় না পেয়ে জানান,সাংবাদিকদেরকে জানালে যদি তার কোন ক্ষতি করে সেই ভয়ে কোননঅভিযোগ করেননি।  ছবিতা রাণী বর্তমানে বেড়পাঙ্গার বাড়ীতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে উক্ত শচীনের পরিবার ও এলাকাবাসী নিশ্চিত করেছেন।  

সচেতন মহলের দাবি সঠিক রোগ নির্নয় না করেই এধরণের অস্ত্র পাচার মোটেই কাম্য নয়।


আরও খবর



বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের মতবিনিময় সভা

প্রকাশিত:Wednesday ১১ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Thursday ২৬ January ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন :


নওগাঁয় বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। অ্যাডভোকেট আব্দুল বাকীর সভাপতিত্বে মঙ্গলবার বিকেল ৩ টা থেকে ৪টা পর্যন্ত জেলা অ্যাডভোকেট বার এসোসিয়েশনে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মত বিনিময় সভায় আগামী ৩১ জানুয়ারী ২০২৩ নওগাঁ জেলা অ্যাডভোকেট বার এসোসিয়েশনের কার্যকরী কমিটির নির্বাচনে প্রার্থী মনোনীত বিষয়ে আলোচনা হয়। উক্ত আলোচনায় বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সমর্থিত প্যানেলে অ্যাডভোকেট খোদাদাদ খান পিটু'কে সভাপতি পদে, অ্যাডভোকেট মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান ফিরোজ, সাধারণ সম্পাদক পদে ও সহ-সাধারণ সম্পাদক (প্রশাসন) পদে ১ জন, সহঃ সাধারণ সম্পাদক (লাইব্রেরী) পদে ১ জন, সহ-সম্পাদক (আপ্যায়ন) পদে ১ জন এবং সদস্য পদে ৮ জন প্রার্থীদের মনোনীত করেন।

উক্ত সভায় উপস্থিত ছিলেন, জেলা অ্যাডভোকেট বার অ্যাসোসিয়েশনের বর্তমান সভাপতি অ্যাডভোকেট খোদাদাদ খান পিটু, বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান ফিরোজ, অ্যাডভোকেট মোঃ মোফাজ্জল হোসেন, অ্যাডভোকেট মোঃ ময়েন উদ্দিন, অ্যাডভোকেট কাজী হাসানুজ্জামান হাসান প্রমূখ। 


আরও খবর



মেট্রোরেলে চড়তে যাত্রীদের ভিড়

প্রকাশিত:Saturday ৩১ December ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

তৃতীয় দিনেও সকাল থেকেই মেট্রোরেলে ভ্রমণ করতে আগারগাঁও স্টেশনে হাজির হয়েছেন যাত্রীরা। আগেভাগে টিকেট পেতে অনেকেই সকাল সাতটায় এসেই লাইনে দাঁড়িয়েছেন।

যাত্রীদের ভিড়ে, আগারগাঁস্টেশনের দুই পাশেই তৈরি হয় লম্বা লাইন।। সকাল সাড়ে সাতটার কিছু পর খুলে দেয়া হয় গেট।। লাইনে দাঁড়িয়ে মেশিনের মাধ্যমে টিকেট নেন যাত্রীরা। তবে টিকেট কাটার বিষয়টি এখনও স্পষ্ট নয় যাত্রীদের কাছে। কেউ অটোমেশিনে টিকেট কাটতে না চাইলে তারা কাউন্টারেও টিকেট কাটতে পারছেন।তবে অফিসগামী যাত্রীর চেয়ে মেট্রোরেলে ভ্রমণ করতে আসা যাত্রীর সংখ্যাই বেশি।। তারা বলছেন, পুরোপুরি মেট্রোরেল চালু হলে সময় বাঁচবে, নিশ্চিত হবে স্বস্তির যাত্রা।


আরও খবর