Logo
শিরোনাম

তারেক আতঙ্কে আন্দোলনে দ্বিধা বিএনপির

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ |

Image


সদরুল আইন:


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কদিন আগে জানিয়েছেন যে, তারেককে দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করানোই এখন তার প্রধান কাজ। 


প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণার পর বিএনপির মধ্যে চিন্তার ভাঁজ। বিএনপি নেতারা উদ্বিগ্ন, আতঙ্কিত। শুধু ঢাকায় বিএনপির নেতারাই নয়, লন্ডনে তারেক জিয়াও এই বার্তাকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে নিয়েছে।


বিএনপির একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বলছে যে, তারেক জিয়া লন্ডন থেকে বিএনপির একাধিক নেতার সঙ্গে এ বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন। 


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কদিন আগে জানিয়েছেন যে, তারেককে দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করানোই এখন তার প্রধান কাজ। প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণার পর বিএনপির মধ্যে চিন্তার ভাঁজ। 


বিএনপি নেতারা উদ্বিগ্ন, আতঙ্কিত। শুধু ঢাকায় বিএনপির নেতারাই নয়, লন্ডনে তারেক জিয়াও এই বার্তাকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে নিয়েছে।


বিএনপির একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বলছে যে, তারেক জিয়া লন্ডন থেকে বিএনপির একাধিক নেতার সঙ্গে এ বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন। 



নানা বাস্তবতা প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যকে অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে নিচ্ছে বিএনপি। আর এই কারণেই তারা মনে করছে যে, এ রকম পরিস্থিতি হলে বিএনপির জন্য তা হবে এক কঠিন বার্তা। 


এমনিতেই বেগম খালেদা জিয়া মুচলেকা দিয়ে ফিরোজায় অবস্থান করছেন। এখন তারেক জিয়াকেও যদি দেশে ফিরিয়ে এনে শাস্তির আওতায় আনা হয়, তাহলে বিএনপির জন্য এক কঠিন পরিস্থিতি তৈরি হবে। 


আর এই কারণেই জোরেশোরে আন্দোলনের ব্যাপারে বিএনপির মধ্যে দ্বিধা দ্বন্দ্ব দেখা দিয়েছে। 



দায়িত্বশীল একাধিক সূত্রগুলো বলছে যে, বিএনপির নেতারা জানার চেষ্টা করছেন কেন প্রধানমন্ত্রী হঠাৎ করে তারেক জিয়ার বিষয়টি বললেন এবং এই বিষয়কে বিএনপি নেতারা কেন গুরুত্ব দেবেন। বিএনপির নেতারাই একাধিক কারণে এটিকে গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন।



 প্রথমত, বিএনপির নেতারা বলছেন যে, প্রধানমন্ত্রী যখন যেটা বলেন, সেটা তিনি বাস্তবে করে দেখেন এবং এখানে তিনি সাহসিকতার সাথে কাজ করেন। যেমন, কেউ বিশ্বাস করেনি যে বেগম খালেদা জিয়াকে বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করা হবে।



 কিন্তু বাস্তবে সেটাই ঘটেছে। সকলের কাছে অকল্পনীয় ছিল যে বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে দুই বছরের বেশি সময় আটকে রাখা সম্ভব হবে না। কিন্তু সেটাই করে দেখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।



 কাজেই তারেক জিয়াকে লন্ডন থেকে দেশে ফিরিয়ে আনা হবে, প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণা কেবল কথার কথা নয়। তিনি জেনে বুঝেই কথাটি বলেছেন বলে মনে করছেন বিএনপির অনেক নেতারা। 



দ্বিতীয়ত, যুক্তরাজ্যের পরিবর্তিত রাজনৈতিক পরিস্থিতি একটি অন্যতম বিষয়। যুক্তরাজ্যে আগামী ৪ জুলাই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এবং এই নির্বাচনে কনজারভেটিভ পার্টির পরাজয় সময়ের ব্যাপার বলে মনে করা হচ্ছে। 


যদি শেষ পর্যন্ত এই নির্বাচনে কনজারভেটিভ পার্টি পরাজিত হয় এবং লেবার পার্টি যদি ক্ষমতায় আসে তাহলে তারেক জিয়াকে দেশে ফিরিয়ে আনার পথ সহজ হবে। কারণ ইতোমধ্যেই সরকারের পক্ষ থেকে যুক্তরাজ্যে আবেদন করা হয়েছে যে তারেক জিয়াকে যেন দেশে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। তার বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ রয়েছে। 



তৃতীয়ত, লেবার পার্টি ক্ষমতায় এলে বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ কন্যা শেখ রেহানার মেয়ে টিউলিপ সিদ্দিকী অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হবে এবং তিনি ব্রিটিশ সরকারের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হবেন। ফলে তারেক জিয়াকে দেশে ফিরিয়ে আনাটা অনেক সহজ সাধ্য ব্যাপার হবে। 


চতুর্থত, ব্রিটেনে যে অভিবাসন সংকোচন নীতি গ্রহণ করা হয়েছে, এই নীতির কারণে এখন হয়তো তারেক জিয়ার বেশি দিন লন্ডনে থাকা কঠিন হয়ে যাবে। তাছাড়া বাংলাদেশ এবং যুক্তরাজ্য যে চুক্তি গুলো স্বাক্ষর করেছে তাতে যে কোন দন্ডিত ব্যক্তিকে বাংলাদেশ যেমন যুক্তরাজ্যকে ফেরত দিবে, তেমনি যুক্তরাজ্য বাংলাদেশকে ফেরত দিবে।


এ সমস্ত বাস্তবতায় অনেকে মনে করছেন, প্রধানমন্ত্রী একটি পরিকল্পিত চিন্তার অংশ থেকেই এই ঘোষণাটি দিয়েছেন। আর তাই বিএনপির মধ্যে একটি আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। বিএনপির নেতারা মনে করছেন যে, এখন বড় ধরনের আন্দোলনের চেষ্টা করলে তারেক জিয়ার ওপর চাপ বাড়বে, তারেক জিয়ার যুক্তরাজ্যে থাকা দুর্বিষহ হয়ে পড়বে।


 এ কারণে তারা আন্দোলন করবে না সরকারের সাথে গোপন সমঝোতা করবে এটি নিয়ে দ্বিধা দ্বন্দ্বে রয়েছে।


আরও খবর



কোটা বাতিলের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে অচল শাহবাগ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | হালনাগাদ:শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ |

Image



নিজস্ব প্রতিবেদক:



সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি বাতিল ও মেধাভিত্তিক নিয়োগের পরিপত্র বহাল রাখাসহ চার দফা দাবিতে সড়ক অবরোধ করেছে শিক্ষার্থীরা। 



আজ মঙ্গলবার (২ জুলাই) রাজধানীর শাহবাগে সড়ক অবরোধ করে তারা। চার দফা দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করছেন শিক্ষার্থীরা।



দাবিগুলো হলো— ২০১৮ সালে ঘোষিত সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি বাতিল ও মেধাভিত্তিক নিয়োগের পরিপত্র বহাল রাখা। পরিপত্র বহাল সাপেক্ষে কমিশন গঠনপূর্বক দ্রুত সময়ের মধ্যে সরকারি চাকরির সমস্ত গ্রেডে অযৌক্তিক ও বৈষম্যমূলক কোটা বাদ দেওয়া (সুবিধাবঞ্চিত ও প্রতিবন্ধী ব্যতীত)। সরকারি চাকরির নিয়োগ পরীক্ষায় কোটা সুবিধা একাধিকবার ব্যবহার করা যাবে না এবং কোটায় যোগ্য প্রার্থী না পাওয়া গেলে শূন্যপদগুলোতে মেধা অনুযায়ী নিয়োগ দেওয়া। দুর্নীতিমুক্ত, নিরপেক্ষ ও মেধাভিত্তিক আমলাতন্ত্র নিশ্চিত করতে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা।



২০১৮ সালের অক্টোবরে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে কোটা ব্যবস্থা পুরোপুরি বাতিল করে দেয় সরকার। সেই সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, ছাত্ররা কোটা ব্যবস্থা চায় না। তারা আন্দোলন করেছে।



 ফলে কোটা ব্যবস্থা বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে আর আলোচনা করার বা হা-হুতাশ করার কিছু নেই। তবে ২০২১ সালে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিলের অংশটিকে চ্যালেঞ্জ করে কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হাইকোর্টে রিট করেন। 



সে রিটের শুনানি নিয়ে কেন ওই ৩০ শতাংশ কোটা বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করা হয়। ওই রুলের বিষয়ে শুনানি শেষে গেল ৫ জুন হাইকোর্ট রায় দেন সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ।


এর আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে শিক্ষার্থীরা। মিছিলটি হলে হলে ঘুরে নীলক্ষেতে আসে। পরে নিউমার্কেট এলাকা হয়ে সায়েন্সল্যাব। 



এরপর বাটা সিগনাল হয়ে শাহবাগ যায় মিছিলটি। কোটা বাতিলের দাবি আদায় না হাওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবার ঘোষণা দেন শিক্ষার্থীরা।


গত ৫ জুন প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটাসহ কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ বলে ঘোষণা করেন হাইকোর্ট। এ বিষয়ে জারি করা রুল ‘যথাযথ’ ঘোষণা করে বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন। 



তবে হাইকোর্টের এ রায় প্রত্যাখ্যান করে তাৎক্ষণিকভাবে সে দিন বিকেলে আন্দোলন করেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। পরের দিনও একই দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের সামনে জড়ো হন বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েক হাজার শিক্ষার্থী। 



এরপর গ্রীষ্মকালীন ও ঈদুল আজহার ছুটি শেষ হওয়ার পরের দিন থেকে কোটা পুনর্বহালের প্রতিবাদে পূর্বঘোষিত কর্মসূচি হিসেবে রাজপথে বিক্ষোভ শুরু করেন শিক্ষার্থীরা।


আরও খবর



দুর্নীতির অভিযোগে বদলি-বরখাস্ত ও অবসর যথেষ্ট নয় : টিআইবি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | হালনাগাদ:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ |

Image



সদরুল আইন:


দুর্নীতির অভিযোগে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীদের বদলি, বরখাস্ত, বাধ্যতামূলক অবসর যথেষ্ট নয়।



 ক্ষেত্রবিশেষে তা দুর্নীতিকে উৎসাহ দেয় এবং অজান্তেই বিচারহীনতার সংস্কৃতি লালন করতে পারে বলে মন্তব্য করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।



গতকাল সোমবার (২ জুলাই) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এসব কথা জানায় টিআইবি।



টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘প্রশাসনিক পদক্ষেপের পরিবর্তে দুর্নীতিবাজ সরকারি কর্মকর্তাদের যথাযথ আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে জবাবদিহিতার আওতায় আনতে হবে।



 বদলি বা অবসরের মতো প্রশাসনিক পদক্ষেপ আশাব্যঞ্জক মনে হলেও তাতে দুর্নীতির মূল কারণগুলো যথাযথভাবে তুলে ধরা হয় না।’



সম্প্রতি জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) ও পুলিশের মতো সংস্থায় দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত কর্মকর্তাদের বদলি বা বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানোর ঘটনায় উদ্বেগও প্রকাশ করেন টিআইবি প্রধান।


ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘প্রকৃতপক্ষে এই ধরনের পদক্ষেপ এমন একটি চক্রকে স্থায়ী করতে পারে, যেখানে কঠোর আইনি পরিণতির অভাবে দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণে থাকে না।’


সরকারি চাকরি (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালার সংশোধনীর পরামর্শ দিয়ে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক বলেন, ‘সময়ের সঙ্গে সঙ্গে দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত সরকারি কর্মচারীদের জবাবদিহিতা ব্যবস্থাকে দুর্বল করে তুলেছে। 



এ ধরনের আইনি ফাঁকফোকরগুলো আইনের দৃষ্টিতে সমতার সাংবিধানিক নীতির সঙ্গে সাংঘর্ষিক।’



ড. ইফতেখারুজ্জামান অভিযোগ করে বলেন, ‘দুর্নীতির অভিযোগে ন্যূনতম শাস্তির ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা একটি ক্ষতিকর বার্তা দেয়। এটি ইঙ্গিত দেয় যে, কিছু ব্যক্তি আইনের ঊর্ধ্বে, যা জনগণের আস্থা কমায় এবং নৈতিক শাসনের ভিত্তিকে নষ্ট করে।’


দুর্নীতি দমনে রাজনৈতিক নেতাদের ভূমিকার কথা তুলে ধরে ড. ইফতেখারুজ্জামান ক্ষমতার ঊর্ধ্বে উঠে একটি সামগ্রিক দৃষ্টিভঙ্গি গ্রহণের আহ্বান জানান। একইসঙ্গে রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতা ও প্রাতিষ্ঠানিক আঁতাতসহ দুর্নীতির বিকাশ ঘটায়, এমন পদ্ধতিগত বিষয়গুলোর দায়িত্ব নিতে রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতিও আহ্বান জানান তিনি।


টিআইবি প্রধান বলেন, ‘রাজনৈতিক নেতারা জবাবদিহিতা এড়িয়ে গেলে প্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতি কার্যকরভাবে রোধ করা যাবে না। জনগণের আস্থা পুনঃপ্রতিষ্ঠা এবং নৈতিক মান বজায় রাখতে আমাদের এমন দৃঢ় পদক্ষেপ দরকার, যা স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার প্রতি সত্যিকারের প্রতিশ্রুতিকে তুলে ধরে।’



দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কঠোর তদন্ত ও বিচার নিশ্চিত করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।


আরও খবর



প্রধানমন্ত্রীর চীন সফরের ১৯৬ তালিকায় রয়েছেন যারা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ |

Image

সদরুল আইন:

চারদিনের সফরে চীনের বেইজিংয়ে অবস্থান করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। চীনে সরকারপ্রধানের সফরসঙ্গী হিসাবে রয়েছেন ১৯৬ জন। 

যাদের মধ্যে রয়েছেন মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক ও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার লোকজন। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বিশেষ ফ্লাইট সোমবার (৮ জুলাই) সকালে প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে ঢাকা ত্যাগ করে এবং স্থানীয় সময় বিকেল ৬টায় বেইজিং পৌঁছায়। 

বুধবার (১০ জুলাই) চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিন পিং এবং চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কিয়াংয়ের সঙ্গে বৈঠক হবে প্রধানমন্ত্রীর। গুরুত্বপূর্ণ ওই দুই বৈঠকে বাংলাদেশ ডেলিগেশনের স্বল্প সংখ্যক সদস্য অংশগ্রহণের সুযোগ পাবেন বলে জানা গেছে।  

প্রতিনিধি দলে রয়েছেন-

১. পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ

২. অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী

৩. প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান

৪. ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম

৫. বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ

৬. ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক

৭. বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু

৮. প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মোহাম্মদ তোফাজ্জল হোসেন মিয়া

৯. প্রধানমন্ত্রীর সামরিক সচিব মেজর জেনারেল কবীর আহাম্মদ, এসজিপি এনডিইউ, এএফডব্লিউসি, পিএসসি, 

১০. প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক প্রফেসর ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ

১১. প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব-১ মনিরা বেগম

১২. প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব-২ আল মামুন মুর্শেদ

১৩. প্রধানমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব-১ ড. ইসমাত মাহমুদা

১৪. প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. তৌহিদা নওয়াজেশ রোজী

১৫. প্রধানমন্ত্রীর উপ-সামরিক সচিব কর্নেল জি এম রাজীব আহমেদ

১৬. পরিচালক-১ মোহাম্মদ ফিজনূর রহমান

১৭. প্রধানমন্ত্রীর প্রটোকল অফিসার-১ মোহাম্মদ শামীম মুসফিক

১৮. পরিচালক-৯ মোহাম্মদ নাজমুল হক

১৯. প্রধানমন্ত্রীর এডিসি মেজর উম্মে সালমা দিনা 

২০. স্কোয়াড্রন লিডার হালিমুর রহমান

২১. বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টার সহকারী একান্ত সচিব নাহিয়ান আহমেদ

২২. মেডিকেল অফিসার রুবাইয়াৎ ফেরদৌসী

২৩. প্রোগ্রামার আতাউল করিম

২৪. প্রধানমন্ত্রীর নার্সিং অফিসার মেজর আকলিমা

২৫. অফিস সহকারী প্রটোকল শাখা মানিক চন্দ্র শীল

২৬. প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত স্টাফ আবদুর রহমান শেখ

২৭. মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্ট ল্যান্স কর্পোরাল মো. শাহ আলম

২৮. প্যান্ট্রিম্যান মো. হজরত আলী 

২৯. মাসুদ বিন মোমেন, পররাষ্ট্র সচিব (সিনিয়র সচিব)

৩০. তৌফিক হাসান, মহাপরিচালক (পূর্ব এশিয়া ও প্যাসিফিক অনুবিভাগ) 

৩১. নাঈম উদ্দিন আহমেদ, রাষ্ট্রাচার প্রধান

৩২. মো. হাসান আব্দুল্লাহ্ তৌহিদ, রাষ্ট্রাচার উপ-প্রধান (সফর) 

৩৩. মো. জসিম উদ্দিন, এনডিসি, চীনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত 

৩৪. লোকমান হোসেন মিয়া, নির্বাহী চেয়ারম্যান (সিনিয়র সচিব), বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ

৩৫. সত্যজিত কর্মকার, সিনিয়র সচিব, পরিকল্পনা বিভাগ, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়

৩৬. শিবলি রুবাইয়াত উল ইসলাম, চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন

৩৭. মো. কামরুল হাসান, এনডিসি সচিব, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়

৩৮. মো. শাহরিয়ার কাদের ছিদ্দিকী, সচিব, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ

৩৯. নাজমুল আহসান, সচিব, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়

৪০. মো. মোস্তাফিজুর রহমান, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সচিব), পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ কর্তৃপক্ষ

৪১. প্রফেসর ড. মো. গিয়াসউদ্দীন মিয়া, উপাচার্য, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, গাজীপুর

৪২. আবুল কালাম আজাদ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস)

৪৩. ড. মো. জাহাঙ্গীর আলম, মহাপরিচালক, বাংলাদেশ টেলিভিশন

৪৪. মিজ মিরানা মাহরুখ, অতিরিক্ত সচিব, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ

৪৫. মেজর জেনারেল এ কে এম নাজমুল হাসান, বিজিবিএম, বিএএম. এনডিসি, পিএসসি, মহাপরিচালক- এসএসএফ

৪৬. ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ খালেদ কামাল, বিএসপি, এনডিসি, পিএসসি, কমান্ডার- পিজিআর

৪৭. লেফটেন্যান্ট কর্ণেল দেওয়ান মঞ্জুরুল হক, পিএসসি, পরিচালক- এসএসএফ

৪৮. মেজর মো. তাওহীদুল ইমাম, উপ-পরিচালক, এসএসএফ

৪৯. লেফটেন্যান্ট কমান্ডার নাজিবুল হাসান, উপ পরিচালক, এসএসএফ

৫০. এএসপি ইমরানুল ইসলাম, পিপিএম সহকারী পরিচালক, এসএসএফ

৫১. এএসপি পার্থ চক্রবর্তী, সহকারী পরিচালক, এসএসএফ

৫২. ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট সামান্থা সিলভিয়া, সহকারী পরিচালক, এসএসএফ

৫৩. ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট শাবনূর রহমান, সহকারী পরিচালক, এসএসএফ

৫৪. ক্যাপ্টেন রুমায়া ফারিন, সহকারী পরিচালক, এসএসএফ

৫৫. ক্যাপ্টেন আলভি আকিফ বিন সিদ্দিক, পিজিআর, ঢাকা সেনানিবাস

৫৬. মো. নাসির উদ্দিন মন্ডল, সহকারী পুলিশ সুপার, এসবি

৫৭. কর্ণেল মো. শহীদুর রহমান, পিবিজিএম, পিবিজিএমএস, পরিচালক, এসএসএফ

৫৮. মেজর মো. নাজীব হাসান, উপ পরিচালক, এসএসএফ

৫৯. মেজর মো. তাসনিফুজ্জামান উপ পরিচালক, এসএসএফ

৬০. মেজর মো. ইমরান হোসেন, উপ পরিচালক, এসএসএফ

৬১. মেজর ফাহিম তালহা, উপ পরিচালক, এসএসএফ

৬২. মেজর মো. রাকিবুল আলম, উপ পরিচালক, এসএসএফ

৬৩. ক্যাপ্টেন মো. তকি ইয়াছির, সহকারী পরিচালক, এসএসএফ

৬৪. ক্যাপ্টেন মাহবুব হাসান, সহকারী পরিচালক, এসএসএফ

৬৫. ক্যাপ্টেন ফাহিম শাহরিয়ার, সহকারী পরিচালক, এসএসএফ

৬৬. ক্যাপ্টেন মো. তানভীর রহমান, সহকারী পরিচালক, এসএসএফ

৬৭. লেফটেন্যান্ট কর্ণেল মো. আরিফুল ইসলাম হিমেল, এসপিপি, পিএসসি, পিজিআর, ঢাকা সেনানিবাস

৬৮. মেজর মো. নাজমুছ ছাকিব, পিজিআর, ঢাকা সেনানিবাস

৬৯. মেজর ইকবালুর রহমান, পিএসসি, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়

৭০. শামীম, সহকারী পরিচালক, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়

৭১. মো. নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর স্পিচ রাইটার

৭২. মো. নাঈমুল ইসলাম খান, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব

৭৩. এম. এম. ইমরুল কায়েস, প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব

৭৪. মিজ্ গুল শাহানা,  প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব

৭৫. এস এম গোর্কি, প্রধানমন্ত্রীর সিনিয়র ফটোগ্রাফার

৭৬. মো আতাউর রহমান. নির্বাহী প্রযোজক বার্তা, বাংলাদেশ টেলিভিশন

৭৭. আশরাফুল হক, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস)

৭৮. মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ, সিনিয়র করেসপনডেন্ট ইউনাইটেড নিউজ অব বাংলাদেশ

৭৯. মো. রুবাইয়াত হাসান খান, সিনিয়র ক্যামেরাম্যান, বাংলাদেশ টেলিভিশন

৮০. মহিউদ্দিন মাহমুদ, সিনিয়র করেসপনডেন্ট, বাংলা নিউজ ২৪.কম

৮১. মোহাম্মদ ইউসুফ হোসেন, অফিসিয়াল ফিল্ম ক্যামেরাম্যান, ডিএফপি

৮২. মো. আলতাফ হোসেন, অফিসিয়াল ফটোগ্রাফার, তথ্য অধিদপ্তর (পিআইডি)

৮৩. সাইফুল ইসলাম কল্লোল, সিনিয়র ফটোসাংবাদিক, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস)

৮৪. ইয়াসিন কবীর জয়, সিনিয়র ফটোগ্রাফার, ফোকাস বাংলা নিউজ

৮৫.  স্বদেশ রায়, এডিটর এ্যান্ড পাবলিসার (সাবেক নির্বাহী সম্পাদক, দৈনিক জনকণ্ঠ)

৮৬.  কাসেম হুমায়ন, ম্যানেজিং এডিটর, দৈনিক সংবাদ

৮৭.  শেখ নাজমুল হক সৈকত, এডিটর ইন চিফ, কিংস নিউজ (সাবেক বার্তা প্রধান, মাই টিভি)

৮৮.  মোজাম্মেল হক, সভাপতি-এডিটর্স গিল্ড বাংলাদেশ ও প্রধান সম্পাদক-একাত্তর টেলিভিশন

৮৯.  শ্যামল দত্ত, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য-এডিটর্স গিল্ড বাংলাদেশ; সাধারণ সম্পাদক-জাতীয় প্রেস ক্লাব ও সম্পাদক, দৈনিক ভোরের কাগজ

৯০.  এম শামসুর রহমান, কার্যনির্বাহী সদস্য-এডিটর্স গিল্ড বাংলাদেশ ও সিইও এবং প্রধান সম্পাদক, ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশন লিঃ

৯১.  মোল্লাহ এম আমজাদ হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য-এডিটর্স গিল্ড বাংলাদেশ ও সম্পাদক, এনার্জি এন্ড পাওয়ার ম্যাগাজিন বাংলাদেশ সম্পাদক ফোরাম

৯২.  রফিকুল ইসলাম রতন, আহবায়ক, বাংলাদেশ সম্পাদক ফোরাম ও সম্পাদক, বাংলাদেশ বুলেটিন

৯৩.  মাহফুজ রহমান রিমন, সম্পাদক, সংবাদ প্রতিদিন ও যুগ্ম সদস্য সচিব, সম্পাদক ফোরাম এবং সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি (বাচসাস)

৯৪  রাজু আলীম, সভাপতি, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি (বাচসাস) ও সিনিয়র সাংবাদিক, চ্যানেল আই এবং সদস্য, সম্পাদক


৯৫.  মাহবুবুল আলম, সভাপতি, এফবিসিসিআই

৯৬.  এস এম মান্নান (কচি) সভাপতি, বিজিএমইএ

৯৭.  মো. জসিম উদ্দিন

৯৮. মিজ শমী কায়সার, সাবেক সভাপতি, এফবিসিসিআই, সভাপতি সার্ক চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি ভাইস চেয়ারম্যান, বেঙ্গল গ্রুপ ও আরটিভি সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই, সিইও, ধানসিঁড়ি কমিউনিকেশন লিমিটেড

৯৯.  মোহাম্মদ আনোয়ার সাদাত সরকার, সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই, সভাপতি, গাজীপুর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি প্রোপ্রাইটর, গ্লোব ট্রেড

১০০.  রাশেদুল হোসেন চৌধুরী (রনি), সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই, সিইও, মায়া কর্পোরেশন

১০১.  যশোদা জীবন দেব নাথ, সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, টেকনোমিডয়া লিমিটেড

১০২.  খান আহমেদ শুভ, এমপি পরিচালক, এফবিসিসিআই, প্রোপ্রাইটর, দেশবাসী প্রিন্টিং প্রেস, মেসার্স শুভ এন্টারপ্রাইজ

১০৩.  মো. সিদ্দিকুর রহমান, সাবেক সভাপতি, বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স এন্ড এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশন (বিজিএমইএ), সাবেক সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই

১০৪.  মো. হাবিব উল্লাহ ডন, পরিচালক, এফবিসিসিআই, সভাপতি, সিআইএ-বিসিসিআই, সভাপতি, বারতি চেয়ারম্যান, এ এম গ্রুপ

১০৫.  আশরাফ আহমেদ, সভাপতি, ঢাকা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই), চিফ এক্সিকিউটিং অফিসার, রিভারস্টোন ক্যাপিটাল লিমিটেড

১০৬.  মোহাম্মদ আলী খোকন, সভাপতি, বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস, এসোসিয়েশন, পরিচালক, এফবিসিসিআই, চেয়ারম্যান, ম্যাকসনস স্পিনিং মিলস লিমিটো।

১০৭.  ওমর হাজ্জাজ, সভাপতি, চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি, মেসার্স রিলায়েন্স ইন্টারন্যাশনাল

১০৮.  কামরান তানভিরুর রহমান, সভাপতি, মেট্রোপলিটান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি, ঢাকা

১০৯.  মো. সাইফুল ইসলাম, সাবেক সভাপতি, মেট্রোপলিটান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি, ঢাকা, পরিচালক, এফবিসিসিআই, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, পিকার্ড বাংলাদেশ লিমিটেড

১১০.  মো. আমিনুল হক শামীম, সাবেক সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, সি পার্ল বিচ রিসোর্ট এন্ড স্পা লিমিটেড

১১১.  দিলীপ কুমার আগারওয়ালা, পরিচালক, এফবিসিসিআই, জেনারেল সেক্রেটারি, বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতি, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড লিমিটেড

১১২. মিসেস হাসিনা নেওয়াজ, পরিচালক, এফবিসিসিআই, সাবেক সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, অর্কিড প্রিন্টার্স লিমিটেড

১১৩. মিজ নাজ ফারহানা আহমেদ, সভাপতি, ঢাকা উইমেন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি, পরিচালক, এফবিসিসিআই, চেয়ারপার্সন, আলফা ইকুইটিজ লিমিটেড, উইমেন্স এগ্রো ইকনোমিক সোসাইটি, স্টার এভিয়েশন, আলফা এগ্রো, উপদেষ্টা, ইআরবিএ, আলফা এন্ড এসোসিয়েট

১১৪.  মুনতাকিম আশরাফ, পরিচালক, এফবিসিসিআই, সাবেক সিনিয়র, সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ভ্যানটেজ হাই-টেক লিমিটেড

১১৫.  তাবারাকুল তোসাদ্দেক হোসেন খান, পরিচালক, এফবিসিসিআই, চেয়ারম্যান, আহবাব গ্রুপ

১১৬.  মীর নিজাম উদ্দিন আহমেদ, পরিচালক, এফবিসিসিআই, সাবেক সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই, প্রোপ্রাইটর, মেসার্স নিজাম এন্টারপ্রাইজ, হাসিনা ইয়াসিন মার্কেট

১১৭.  মোহাম্মদ বজলুর রহমান, পরিচালক, এফবিসিসিআই

১১৮.  খন্দকার রুহুল আমিন, পরিচালক, এফবিসিসিআই, প্রোপ্রাইটর, মেসার্স খন্দকার ট্রেডার্স

১১৯.  সুজীব রঞ্জন দাস, পরিচালক, এফবিসিসিআই, পরিচালক, ইউরো-পেট্রো প্রোডাক্ট লিমিটেড, নাভানা যানক্লেভ

১২০. নিহাদ কবির, সাবেক সভাপতি, মেট্রোপলিটান চেম্বার কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি-ঢাকা, সিনিয়র পার্টনার, সৈয়দ ইশতিয়াক আহমেদ এন্ড

এসোসিয়েটস, পরিচালক, কেদারপুর টি কোম্পানি লিমিটেড

১২১. ড. মুনাল মাহবুব, সিনিয়র ভাইস সহ-সভাপতি, চট্টগ্রাম উইমেন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি পরিচালক, এফবিসিসিআই, প্রোপ্রাইটর, মেসার্স আনোয়ারা ট্রেডিং, চেয়ারম্যান, মাটিটা রিসোর্ট, আলফা শামস

১২২. হাসিনা রুমি, পরিচালক, ইউরোগ্যাজ এলপিজি, নুর ট্রেডিং

১২৩.  মো. ইকবাল হোসেন চৌধুরী, পরিচালক, এফবিসিসিআই, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, জেসিএক্স ডেভেলপমেন্টস লিমিটেড, জেসিএক্স বিজনেস টাওয়ার

১২৪.  মো. শাহ জালাল, পরিচালক, এফবিসিসিআই, মেসার্স জনতা ট্রেডার্স

১২৫.  মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন, সিআইপি, পরিচালক, এফবিসিসিআই, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, নিজাম গ্রুপ অব কোম্পানি

১২৬.  মোহাম্মদ ফয়জুর রহমান ভুইয়া, সহ-সভাপতি, বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস এসোসিয়েশন, পরিচালক, এফবিসিসিআই

ব্যবস্থাপনা পরিচালক, জাজ ভুইয়া টেক্সটাইল মিলস এন্ড মেসার্স জে বি ইলেকট্রনিক্স

১২৭.  মোহাম্মদ রিয়াদ আলী, পরিচালক, এফবিসিসিআই, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ইন্ট্রাকো গ্রুপ, পরিচালক হোটেল আগ্রাবাদ, সভাপতি, ইন্দোনেশি

১২৮.  রাকিবুল আলম দিপু, পরিচালক, এফবিসিসিআই

১২৯.  মো. শহীদুল হক মোল্লা, পরিচালক, এফবিসিসিআই, চেয়ারম্যান, মোল্লা গ্রুপ, প্রোপ্রাইটর, মোল্লা মেশিনারি এন্ড মটরস

১৩০.  রাসেল টি আহমেদ, সভাপতি, বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার এন্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস পরিচালক, এফবিসিসিআই সিইও, টিম ক্রিয়েটিভ

১৩১.  মোহাম্মদ ফরিদ খান (সিআইপি), পরিচালক, এফবিসিসিআই, ভাইস, প্রেসিডেন্ট, বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি

১৩২.  সালমান খান, পরিচালক, সামিট ওয়েল এন্ড শিপিং লিমিটেড, সাবেক পরিচালক, এফবিসিসিআই, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, জনতা ট্রাভেলস লিমিটেড

১৩৩. গোলাম মো. আলমগীর, চেয়ারম্যান, ম্যাক্স গ্রুপ

১৩৪. হাফেজ হাজী হারুনুর রশিদ, প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি

১৩৫. সৈয়দ মো. বকতিয়ার, পরিচালক, এফবিসিসিআই, চেয়ারম্যান, একটিভ লজিস্টিকস লিমিটেড

১৩৬. মিজ তাসফিয়া জসিম, পরিচালক, এফবিসিসিআই, পরিচালক, বেঙ্গল প্যাকেজিং এন্ড এক্সেসরিজ লিমিটেড

১৩৭. মোহাম্মদ ইছাকুল হোসেন সুইট, পরিচালক, এফবিসিসিআই, প্রোপ্রাইটর এন্ড সিইও, মেসার্স তোহফা এন্টারপ্রাইজ, চেয়ারম্যান, সামিট কমিউনিকেশন্স লিমি 

১৩৮. আমজাদ হোসেন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, জনতা ট্রাভেলস লিমিটেড

১৩৯. এএসএম মাইনুদ্দিন মোনেম, সিইও এন্ড ব্যবস্থাপনা পরিচালক, আব্দুল মোনেম লিমিটেড

১৪০. মো. আমির হোসেন (সোহেল), পরিচালক, পিএইচপি গ্রুপ

১৪১. মো. জামাল উদ্দিন, সাবেক পরিচালক, এফবিসিসিআই ব্যবস্থাপনা পরিচালক, এম জামাল এন্ড কোম্পানি লিমিটেড

১৪২. খন্দকার মশিউজ্জামান (রোমেল), সভাপতি, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম ট্যাংকার ওনার্স এসোসিয়েশন, সাবেক পরিচালক, এফবিসিসিআই, চেয়ারম্যান এন্ড সিইও, পিপুলস গ্রুপ, মেসার্স পিপুলস ফ্যাশন লিমিটেড

১৪৩. মো. হেলাল উদ্দিন, সভাপতি, বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি, প্রোপ্রাইটর, মেসার্স নিলময় ভ্যারাইটিজ স্টোর

১৪৪.  আবু হোসেন ভূঁইয়া (রানু), সাবেক পরিচালক, এফবিসিসিআই

১৪৫. এম.জি.আর নাসির মজুমদার, প্রতিষ্ঠাতা, সেঞ্চুরি গ্রুপ অব কোম্পানিজ, সাবেক পরিচালক, এফবিসিসিআই

১৪৬. নুরুল কাইয়ুম খান, সভাপতি, বাংলাদেশ ইনল্যান্ড কন্টেইনার ডিপোস এসোসিয়েশন, চেয়ারম্যান, কিউএনএস কন্টেইনার সার্ভিসেস লিমিটেড, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, কিউএনএস গ্রুপ

১৪৭. শাহাব উদ্দিন খান, সভাপতি, কোরিয়া-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি

১৪৮. সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রথম সহ-সভাপতি, বিজিএমইএ, ডিরেক্টর, ওয়েল গ্রুপ

১৪৯. খন্দকার রফিকুল ইসলাম, সিনিয়র সহ-সভাপতি, বিজিএমইএ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ডিজাইনটেক্স নিটওয়্যার লিমিটেড

১৫০. মো. আকতার হোসেন, সিআইপি, সহ-সভাপতি, বিকেএমইএ, প্রোপ্রাইটর, বুনবক্স এ্যাপারেলস, গ্রুপ ডিরেক্টর, উইজডম গ্রুপ

১৫১. ফজলে শামীম এহসান, সহ-সভাপতি, বিকেএমইএ, ফতুল্লা এপারেলস

১৫২. আনোয়ার হোসেন (মানিক), পরিচালক, বিজিএমইএ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক; টেক্স টাউন লিমিটেড

১৫৩. শামস মাহমুদ, পরিচালক, বিজিএমইএ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, শাশা গার্মেন্টস লিমিটেড

১৫৪. মো. মিজানুর রহমান, পরিচালক, বাংলাদেশ চেম্বার অব ইন্ডাস্ট্রি (বিসিআই), ব্যবস্থাপনা পরিচালক, টেটা বিজনেস সলিউশন্স লিমিটেড

১৫৫. মো. শামীম, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, মেসার্স ফেইথ লজিস্টিক্স

১৫৬. রাশেক রহমান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বুরাক কমোডিটিস এক্সচেঞ্জ কোম্পানি

১৫৭. মোহাম্মদ ওয়াহিদ রিহান ইফতেখার মাহমুদ, সহ সভাপতি, চট্টগ্রাম মেট্রপলিটন চেম্বার

১৫৮. মোহাম্মদ বাবুল আখতার, সভাপতি, বাংলাদেশ নন প্যাকার ফ্রোজেন ফুডস এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশন

১৫৯. সৈয়দ মোহাম্মদ আরিফ, চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ শিপিং এজেন্টস এসোসিয়েশন

১৬০. মোহাম্মদ মনসুর, মহাসচিব, বাংলাদেশ ফ্রুটস ভেজিট্যাবলস এন্ড এলাইড প্রোডাক্টস এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, মনসুর জেনারেল ট্রেডিং কো

১৬১. মোহাম্মদ খোরশেদ আলম, চেয়ারম্যান, এটুআই গ্রুপ

১৬২. রফিকুর রহমান খান ইউসুফজাই, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ই.বি সলিউশন্স লিমিটেড

১৬৩. আবুল হাসানাত কবির, চেয়ারম্যান, কেআরসি কম্পোসিট টেক্সটাইল ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেড, আরও টেক্সটাইল মিলস (প্রাইভেট) লিমিটেড; ভাইস চেয়ারম্যান, একলিপস গ্রুপ; ব্যবস্থাপনা পার্টনার, ফারাজ ইন্টারন্যাশনাল বিডি, প্রোপাইটর: এইচ.কে কনটেক্সচার

১৬৪. হাসানুর বারি, মহাসচিব, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম ট্যাংক ওনার্স এসোসিয়েশন; চেয়ারম্যান, সী লিয় শিপিং কো. লিমিটেড

১৬৫. যাদব দেবনাথ, চেয়ারম্যান এবং সিইও, যাদ্রু গ্রুপ

১৬৬. মিসেস শামিমা আখতার

১৬৭. খন্দকার আশিকুজ্জামান, পরিচালক, পিপলস শিপিং লিমিটেড

১৬৮. জি এস আকন্দ মাসুম, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, সর্নালি গ্রুপ

১৬৯. মোস্তাফা আল মাহমুদ, চেয়ারম্যান, জি টেক সলিউশন লি.

১৭০. খান নুরে আলম সিদ্দিকী, যুগ্ম মহাসচিব এফবিসিসিআই 

১৭১. সৈয়দ আমিরুল ইসলাম নাদিম, উপ মহাসচিব (পিএস টু প্রেসিডেন্ট), এফবিসিসিআই মেম্বার, বিকেএমইএ; ব্যবস্থাপনা পরিচালক, কেপস ফ্যাশন লিমিটেড

সচিব, টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগ, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান, টাঙ্গাইল উপজেলা


১৭২.  মো. মুনির হোসেন, সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই

১৭৩. মো. আতাউর রহমান ভুইয়া, পরিচালক, এফবিসিসিআই এন্ড তমা কস্ট্রাকশন কো. লিমিটেড চেয়ারম্যান এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক জি-টেক সলিউশন লিমিটেড

১৭৪. কাউসার আহমেদ, পরিচালক, এফবিসিসিআই, প্রোপাইটর এন্ড সিইও, রুপসা ট্রেডিং কর্পোরেশন

১৭৫. মোহাম্মদ আফতাব জাবেদ, পরিচালক, এফবিসিসিআই, প্রোপাইটর, নাভেদ ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস, ইম্পেরিয়াল

১৭৬. ব্যারিস্টার তাহমিদুর রহমান, পরিচালক, কানাডা বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স, পরিচালক, এম আলাম গ্রুপ, প্রোপাইটর, টিআর ট্রেডিং

১৭৭. মাসুম জামিল খান, ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর, কসমস গ্রুপ

১৭৮. মীর আসাদ হোসেন টিটু, প্রোপাইটর, টুশি এন্টারপ্রাইজ

১৭৯. শাহরিয়ার হাসান, কো-ফাউন্ডার এন্ড সিইও, ই-পোস্ট সফটওয়্যার লিমিটেড, প্রতিষ্ঠাতা এবং উপদেষ্টা, পেপারফ্লাই প্রাইভেট লিমিট।

১৮০. খন্দকার তাসফিন আলম, চিফ অপারেটিং অফিসার, দারাজ বাংলা লিমিটেড

১৮১. মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন জিতু, চেয়ারম্যান, টেলিলিংক গ্রুপ

১৮২. কে এস এম মোস্তাফিজুর রহমান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ন্যাশনাল এ ইম্পোর্ট এন্ড এক্সপোর্ট লিমিটেড, ও ফার্মা লিমিটেড; সভাপতি, বাংলাদেশ এগ্রোকেমিক্যাল ম্যানুফ্যাকচারার্স এসোসিয়েশন

১৮৩. এসফারুল কাইয়ুম খান, পরিচালক, বাংলাদেশ মেরিন ফিশারিজ এসোসিয়েশন

১৮৪. এলথেম বি. কবির, চেয়ারম্যান, ইকে এন্ড এক্সেসরিজ

১৮৫. এস.এম ফারুকী হাসান, সিআইপি চেয়ারম্যান, প্রতিক গ্রুপ

১৮৬. খাইরুল হুদা চপল, সহ-সভাপতি, এফবিসিসিআই, সভাপতি, সুনামগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি

১৮৭. আব্দুস সামাদ লাবু, পরিচালক, এস আলম গ্রুপ

১৮৮. মোহাম্মদ আলামগীর পারভেজ, প্রোপাইটর, মেসার্স ফ্র্যাংক এন্টারপ্রাইজ, পরিচালক, দি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি

১৮৯. এ.কে.এম শামসুদ্দোহা, সভাপতি, দোহাটেক নিউ মিডিয়া

১৯০. এজাজ মোহাম্মদ, মহাসচিব, বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব গালফ মেডিকেল সেন্টার্স (বিএজিএমসি)

১৯১. মো. মাহবুব উর রহমান, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, এইচএসবিসি

১৯২. তানভির এ মিশুক, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, নগদ লিমিটেড

১৯৩. মোহাম্মদ কামাল, সিনিয়র সহ-সভাপতি, বাংলাদেশ ফ্রে ফ্রুটস ইম্পোর্টার্স এসোসিয়েশন

১৯৪. ইমরান করিম, ভাইস চেয়ারম্যান, কনফিডেন্স গ্রুপ

১৯৫. জিয়াউর রহমান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বে গ্রুপ

১৯৬. খন্দকার ফজলে রাব্বি, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, সীরক এ্যাপারেলস।


আরও খবর



সংসদে অর্থ বিল উঠছে আজ, বাজেট পাস রোববার

প্রকাশিত:শনিবার ২৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ |

Image



বিডি টুডেস ডেস্ক:



নানান আলোচনা-সমালোচনার পরও কালো টাকা সাদা করার সিদ্ধান্ত থেকে পিছু হটছে না সরকার।



 কালো টাকা সাদা করার সুযোগ রেখেই রোববার (৩০ জুন) জাতীয় সংসদে পাস হচ্ছে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেট। নতুন এই বাজেট কার্যকর হবে ১ জুলাই থেকে।



বড় কোনো সংশোধনী ছাড়াই জাতীয় সংসদে অর্থ বিল উত্থাপন হচ্ছে আজ শনিবার (২৯ জুন)। এর আগে ৬ জুন দ্বাদশ জাতীয় সংসদের তৃতীয় অধিবেশনে আসন্ন অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেট উত্থাপন করেছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। 


চলতি সংসদ অধিবেশনেই সংসদ সদস্যরা বিধানের তীব্র সমালোচনা করেন।



অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রস্তাবিত বাজেটে ছোটখাটো দু-একটি বিষয় ছাড়া তেমন কোনো বড় সংশোধনীর সম্ভাবনা নেই।


এমপিদের শুল্কমুক্ত গাড়ি আমদানির সুবিধা প্রত্যাহার নিয়েও ছিল আলোচনা-সমালোচনা। নানান জল্পনা কল্পনা শেষে এমপিদের গাড়ি আমদানিতে ৪০ শতাংশ কর বসানোর প্রস্তাব করা হয় ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেটে।



এছাড়া কর অবকাশ সুবিধার পাশাপাশি শর্ত সাপেক্ষে ইকোনমিক জোন ও হাইটেক পার্কের বিনিয়োগকারীদের ক্যাপিটাল মেশিনারি আমদানিতে আগের মতোই জিরো ডিউটি সুবিধা বহাল থাকতে পারে।


প্রস্তাবিত বাজেটে সংসদ সদস্যদের আমদানি করা গাড়ির ওপর শুল্ক আরোপের আহ্বান জানিয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী আবু হাসান মাহমুদ আলী। তবে শেষ পর্যন্ত তা কার্যকর নাও হতে পারে বলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কর্মকর্তাদের সূত্রে জানা গেছে।


সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সংসদ সদস্যদের গাড়ি আমদানিতে বিদ্যমান আদেশ সংশোধনের কোনো উদ্যোগ এখন পর্যন্ত নেওয়া হয়নি। ফলে আগের মতো এবারও এমপিরা শুল্কমুক্ত কর সুবিধা ভোগ করতে পারেন।


এনবিআর সূত্র জানায়, সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এসব বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম। এ সময় প্রধানমন্ত্রী কিছু দিকনির্দেশনা দিয়েছেন।



 পরে মঙ্গলবার (২৬ জুন) বাজেট সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়েছেন এনবিআর চেয়ারম্যান।


সংশ্লিষ্টরা জানান, পর্যায়ক্রমে কর অব্যাহতি কমিয়ে কর জিডিপি অনুপাত বাড়ানোর পরামর্শ দিয়ে আসছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল(আইএমএফ)। পাশাপাশি আর্থিক খাত সংস্কারের পরামর্শ ও দিয়েছে সংস্থাটি।


আন্তর্জাতিক এ সংস্থার পরামর্শ অনুযায়ী, আইন প্রণেতাদের গাড়ি আমদানিতে থাকা কর অব্যাহতি তুলে নেওয়ার মাধ্যমে এ কার্যক্রম জোরদার করতে চেয়েছিল অর্থ মন্ত্রণালয়। কিন্তু আইনি জটিলতার কারণে সংসদ সদস্যদের এ সুবিধা পর্যায়ক্রমে বন্ধ করার প্রস্তাবটি পাস না হওয়ার সম্ভাবনা আছে।


প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপনের আগে আইন প্রণেতাদের গাড়ি আমদানিতে ২৫ শতাংশ শুল্ক ও ১৫ শতাংশ ভ্যাট বসানোর প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছিল আইন মন্ত্রণালয়।


জানা গেছে, কর অবকাশ সুবিধার পাশাপাশি কিছু শর্ত সাপেক্ষে ইকোনমিক জোন ও হাই-টেক পার্কের বিনিয়োগকারীদের ক্যাপিটাল মেশিনারি আমদানিতে আগের মতই জিরো ডিউটি সুবিধা বহাল থাকতে পারে।



 এছাড়া শেয়ারবাজারে ক্যাপিটাল গেইনের উপর নতুন করে আরোপ করা ট্যাক্স অব্যাহত থাকতে পারে।


অর্থনীতিবিদ, রাজনীতিবিদের প্রবল সমালোচনার মুখেও কালো টাকা সাদা করার বিধান থেকে সরছে না সরকার। এ সুযোগ বহাল থাকলে আগামী ১ জুলাই থেকে ১৫ শতাংশ কর প্রদানের মাধ্যমে ব্যক্তি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান যাচাই-বাছাই ছাড়াই কালো টাকা সাদা করতে পারবেন। সরকারি কোনো নিয়ন্ত্রক সংস্থা ওই ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে প্রশ্ন করতে পারবে না।


নতুন বিধান অনুযায়ী, কোনো করদাতা ফ্ল্যাট ও জমির মতো স্থাবর সম্পত্তির জন্য নির্ধারিত হারে কর প্রদান করলে এবং নগদ, সিকিউরিটিজ, ব্যাংক আমানত ও সঞ্চয় স্কিমসহ অন্যান্য সম্পদের ওপর ১৫ শতাংশ কর দিলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তার সম্পত্তি নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারবে না।


আরও খবর



চশমার লেন্স কেনো গুরুত্বপূর্ণ আপনার সুস্থ ও সুন্দর দৃষ্টির জন্য

চশমা ব্যবহারে সতর্কতা অবলম্বন না করলে হতে পারে বিপদ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ |

Image

ডক্টর মোঃ মিজানুর রহমান , পিএইচডি , দৃষ্টি বিজ্ঞান :

চোখ আমাদের শরীরের এক গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। চোখের মাধ্যমে আমরা পৃথিবীকে দেখতে পাই এবং এর সাহায্যে আমাদের দৈনন্দিন কাজগুলি সম্পন্ন করি। কিন্তু যদি দৃষ্টি সমস্যায় ভুগি, তখন আমাদের জীবনে বড় সমস্যা দেখা দেয়। এই দৃষ্টি সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে চশমার লেন্স ব্যবহৃত হয়। বর্তমান যুগে চশমা আমাদের জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠেছে। পড়াশোনা, কম্পিউটার কাজ, মোবাইল ব্যবহার, এমনকি সাধারণ দৈনন্দিন জীবনের কাজেও চশমার প্রয়োজন হয়। কমবেশি অনেকেই দৃষ্টির সমস্যার কারণে কিংবা সুরক্ষার জন্য চশমা ব্যবহার করে থাকেন, , আবার কেউ কেউ সূর্য থেকে রক্ষা পেতে সানগ্লাস ব্যবহার করেন। । কিন্তু আমরা কি জানি, ছোট থেকে বড়, অনেকেই চোখের সমস্যা সমাধানে চশমা ব্যবহার করেন। তবে, চশমা ব্যবহারে সতর্কতা অবলম্বন না করলে হতে পারে মারাত্মক বিপদ।

আসুন, জেনে নেই চশমা ব্যবহারে কিছু গুরুত্বপূর্ণ সতর্কতা।

প্রথমেই, চশমা ব্যবহারের ক্ষেত্রে সঠিক পাওয়ারের চশমা নির্বাচন করা অত্যন্ত জরুরি। অপ্রয়োজনীয় বা ভুল পাওয়ারের চশমা ব্যবহার করলে দৃষ্টিশক্তির সমস্যা আরও বেড়ে যেতে পারে। তাই চক্ষু বিশেষজ্ঞের পরামর্শ অনুযায়ী চশমা নির্বাচন করা উচিত।

দ্বিতীয়ত, চশমা পরিষ্কার রাখা একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। নিয়মিত চশমা পরিষ্কার না করলে ময়লা জমে যায় এবং তা চোখের সংক্রমণের কারণ হতে পারে। পরিষ্কার করার জন্য মৃদু সাবান ও পানি ব্যবহার করা উত্তম। এছাড়া, সফট কাপড় দিয়ে চশমা মুছতে হবে যাতে লেন্সে কোনো দাগ না পড়ে।

তৃতীয়ত, চশমা সঠিকভাবে সংরক্ষণ করাও জরুরি। চশমা ব্যবহারের পর এটি সঠিকভাবে সংরক্ষণ করতে হবে যেন তা ভেঙ্গে না যায় বা ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। চশমার জন্য নির্ধারিত বাক্সে সংরক্ষণ করা উত্তম।

চতুর্থত, চশমার ফ্রেম এবং লেন্স নিয়মিত পরীক্ষা করা উচিত। যদি ফ্রেমে কোনো সমস্যা দেখা দেয় অথবা লেন্সে দাগ পড়ে, তবে তা দ্রুত ঠিক করিয়ে নেওয়া উচিত। নতুবা, দৃষ্টিশক্তির ক্ষতি হতে পারে।

সবশেষে, দীর্ঘ সময় ধরে চশমা ব্যবহার করলে মাঝে মাঝে বিশ্রাম নেওয়া উচিত। বিশেষ করে যারা কম্পিউটার বা মোবাইল স্ক্রিনের সামনে অনেক সময় কাটান, তাদের প্রতি ২০ মিনিট পর পর ২০ সেকেন্ডের জন্য ২০ ফুট দূরের কোনো বস্তু দেখার অভ্যাস গড়ে তোলা উচিত। এই নিয়ম মেনে চললে চোখের ওপর চাপ কমে এবং চোখের ক্লান্তি দূর হয়।

চশমার লেন্স দৃষ্টি সংশোধনের মূল উপাদান। একটি ভালো মানের লেন্স না থাকলে দৃষ্টির স্পষ্টতা কমে যেতে পারে এবং চোখের উপর অতিরিক্ত চাপ পড়তে পারে। নিম্নমানের লেন্স ব্যবহার করলে চোখে খারাপ প্রভাব পড়তে পারে, যেমন:

চোখের ক্লান্তি

মাথাব্যথা

দৃষ্টির অস্বচ্ছতা

চশমার লেন্সের গুরুত্ব

চশমার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো এর লেন্স। লেন্সের গুণগত মান এবং সঠিক ব্যবহারের ওপর নির্ভর করে আপনার দৃষ্টিশক্তি। নিম্নমানের বা ক্ষতিগ্রস্ত লেন্স ব্যবহার করলে দৃষ্টিশক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে, এমনকি স্থায়ীভাবে চোখের ক্ষতি হওয়ার ঝুঁকি থাকে। তাই উচ্চ মানের এবং আপনার চোখের জন্য উপযোগী লেন্স নির্বাচন করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

চশমার লেন্স শুধু আপনার দৃষ্টিশক্তি উন্নত করে না, এটি আপনার চোখকে সুরক্ষাও প্রদান করে। ভালো মানের লেন্স নির্বাচন করলে অনেক সুবিধা পাওয়া যায়:

সঠিক লেন্স নির্বাচন করুন: চশমার লেন্সের ক্ষমতা আপনার চোখের সমস্যার সঙ্গে মিলিয়ে ঠিক করা উচিত। সঠিক ক্ষমতার লেন্স ব্যবহার না করলে দৃষ্টিশক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। এজন্য নিয়মিত চক্ষু বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে চশমার লেন্স পরিবর্তন করা উচিত।

ঠিকমতো ফিটিং করান: চশমার ফ্রেম যদি ঠিকমতো ফিট না হয় তাহলে তা আপনার চোখ এবং কানের ওপর অতিরিক্ত চাপ সৃষ্টি করতে পারে। এটি মাথাব্যথা, চোখের যন্ত্রণা এবং অন্যান্য সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে। তাই চশমা কিনে নেয়ার সময় ফিটিং ভালোভাবে চেক করে নিন।

স্পষ্ট দৃষ্টি: উচ্চমানের লেন্স স্পষ্ট এবং পরিষ্কার দৃষ্টি প্রদান করে, যা আপনার দৈনন্দিন কাজকে সহজ করে।

রশ্মি প্রতিরোধক: অনেক লেন্সে বিশেষ প্রলেপ থাকে যা ক্ষতিকর ইউভি রশ্মি প্রতিরোধ করে। এটি আপনার চোখকে সূর্যের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে রক্ষা করে।

স্ক্র্যাচ প্রতিরোধক: ভালো মানের লেন্স স্ক্র্যাচ প্রতিরোধক হয়, যা লেন্সের স্থায়িত্ব বাড়ায় এবং দীর্ঘমেয়াদে খরচ কমায়।

কম্পিউটার ও মোবাইল ব্যবহারে আরাম: ব্লু লাইট প্রতিরোধক লেন্স কম্পিউটার ও মোবাইল ব্যবহারকালে চোখের চাপ কমায় এবং আরামদায়ক দৃষ্টি প্রদান করে।

চশমার লেন্স নির্বাচন করার সময় কিছু বিষয় খেয়াল রাখা জরুরি:

চোখের পরীক্ষা:নিয়মিত চোখের পরীক্ষা করানো উচিত যাতে আপনার দৃষ্টির পরিবর্তন সম্পর্কে জানা যায় এবং সেই অনুযায়ী লেন্স পরিবর্তন করা যায়।

লেন্সের প্রকার: আপনার দৃষ্টির সমস্যা অনুযায়ী কনকাভ, কনভেক্স, বা সিলিন্ড্রিক্যাল লেন্স বেছে নিন।

লেন্সের প্রলেপ:অ্যান্টি-রিফ্লেকটিভ বা অ্যান্টি-স্ক্র্যাচ প্রলেপযুক্ত লেন্স নির্বাচন করুন যাতে লেন্স দীর্ঘস্থায়ী হয় এবং দৃষ্টির স্বচ্ছতা বজায় থাকে।

বিভিন্ন প্রকারের চশমার লেন্স :

চশমার লেন্স বিভিন্ন প্রকারের হয়ে থাকে। মূলত, দুটি প্রধান প্রকারের লেন্স ব্যবহৃত হয়: একক দৃষ্টি লেন্স এবং বহুমুখী দৃষ্টি লেন্স।

একক দৃষ্টি লেন্স: এই লেন্সগুলো শুধুমাত্র এক ধরনের দৃষ্টিশক্তির সমস্যা সমাধান করতে ব্যবহৃত হয়। উদাহরণস্বরূপ, মায়োপিয়া (দূর দৃষ্টি সমস্যা) বা হাইপারমেট্রোপিয়া (নিকট দৃষ্টি সমস্যা) সমাধানে একক দৃষ্টি লেন্স ব্যবহার করা হয়।

বহুমুখী দৃষ্টি লেন্স: এই লেন্সগুলো বিভিন্ন দূরত্বে দৃষ্টি সমস্যা সমাধান করতে ব্যবহৃত হয়। প্রেসবাইওপিয়া (বয়সজনিত দৃষ্টি সমস্যা) সমাধানে এই লেন্সগুলো অত্যন্ত কার্যকরী।

সঠিক লেন্স নির্বাচন 

চশমার লেন্স নির্বাচন করার সময় কয়েকটি বিষয় খেয়াল রাখা জরুরি:

অপটোমেট্রিস্টের পরামর্শ: আপনার চোখের পরীক্ষা করে একজন বিশেষজ্ঞ অপটোমেট্রিস্টের পরামর্শ অনুযায়ী লেন্স নির্বাচন করুন।

মানসম্মত লেন্স: সর্বদা মানসম্পন্ন লেন্স ব্যবহার করুন যা আপনার দৃষ্টিশক্তি এবং চোখের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো।

ফ্রেমের আরাম: এমন ফ্রেম নির্বাচন করুন যা আরামদায়ক এবং আপনার মুখের সাথে মানানসই।

চশমার লেন্সের আধুনিক প্রযুক্তি :

বর্তমানে চশমার লেন্সে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার বেড়েছে। ব্লু লাইট ফিল্টার লেন্স, ফটো ক্রোমেটিক লেন্স, অ্যান্টি-রিফ্লেকটিভ লেন্স ইত্যাদি প্রযুক্তি ব্যবহার করে দৃষ্টিশক্তি সুরক্ষিত রাখা যায় এবং চোখের স্বাচ্ছন্দ্য নিশ্চিত করা যায়।

ভালো লেন্স নির্বাচন করার কিছু টিপস :

চিকিৎসকের পরামর্শ: চশমার লেন্স কেনার আগে অবশ্যই একজন চক্ষু চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। চিকিৎসক চোখ পরীক্ষা করে সঠিক লেন্সের পরামর্শ দেবেন।

গুণগত মান: লেন্সের মান সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া খুবই জরুরি। ভালো মানের লেন্স চোখের জন্য নিরাপদ এবং আরামদায়ক।

অ্যান্টি-রিফ্লেক্টিভ কোটিং: আজকাল অনেক লেন্সেই অ্যান্টি-রিফ্লেক্টিভ কোটিং থাকে, যা গ্লেয়ার কমায় এবং দৃষ্টি পরিষ্কার করে।

ইউভি প্রোটেকশন: সূর্যের ক্ষতিকর ইউভি রশ্মি থেকে চোখকে রক্ষা করার জন্য লেন্সে ইউভি প্রোটেকশন থাকা উচিত।

যদি চশমার লেন্স ঠিকমতো না হয় তাহলে চোখের কিছু সমস্যা হতে পারে যেমন:

দৃষ্টিশক্তির কমতি: চশমা ঠিকমতো না থাকলে দৃষ্টিশক্তির সমস্যা হতে পারে। এটি বিশেষত দূরদৃষ্টি বা কাছদৃষ্টির ক্ষেত্রে প্রকাশযুক্ত হয়।

অস্বচ্ছ দৃষ্টি: চশমা যদি মধ্যে মধ্যে সাফ না থাকে বা মন্দ হয়ে যায়, তবে দৃষ্টি অস্বচ্ছ হয়ে যেতে পারে।

চোখের অবশ্যতা: অন্ধকার বা মন্দ আলোয় সঠিকভাবে দেখা যাবে না।

চোখের অস্থিরতা: চশমা সঠিকভাবে না হলে চোখের অস্থিরতা অনুভব হতে পারে, যা দৃষ্টিশক্তিতে ভার তুলে দেয়।

পরামর্শ

নিয়মিত চক্ষু পরীক্ষা করান এবং চক্ষু চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী লেন্স পরিবর্তন করুন।

চশমা ব্যবহারে কোনো অসুবিধা হলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

চশমা ব্যবহারের সময় সতর্কতা অবলম্বন করুন এবং শিশুদের ক্ষেত্রেও বিশেষ নজর দিন।

চশমার লেন্স শুধু দৃষ্টিশক্তি উন্নত করে না, বরং চোখের সামগ্রিক স্বাস্থ্য রক্ষায়ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই, সঠিক লেন্স নির্বাচন এবং নিয়মিত চোখ পরীক্ষা করানো আমাদের সকলের জন্যই জরুরি। সুস্থ ও সুন্দর দৃষ্টি উপভোগ করতে ভালো মানের লেন্স ব্যবহার করা উচিত। চশমা আপনার দৃষ্টিশক্তি ঠিক রাখার একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। সঠিকভাবে চশমা ব্যবহার করলে এবং নিয়মিত যত্ন নিলে আপনি দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে পারেন। তাই চশমার সঠিক ব্যবহারে সতর্ক থাকুন এবং আপনার চোখের সুস্থতা নিশ্চিত করুন।

লেখক : অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর, ম্যানেজমেন্ট এন্ড সাইন্স ইউনিভার্সিটি , মালয়শিয়া


আরও খবর