Logo
শিরোনাম

একাদশে খালি থাকবে ৭ লাখ আসন

প্রকাশিত:Saturday ০৩ December ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

গত বছরের তুলনায় এ বছর পাসের হার সামান্য কমলেও রেকর্ডসংখ্যক শিক্ষার্থী জিপিএ ৫ পেয়েছে। কিন্তু উত্তীর্ণ সব শিক্ষার্থীও যদি একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হয়, এরপরও প্রায় ৭ লাখ আসন খালি থাকবে বলে জানিয়েছে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড। তবে মানসম্পন্ন কলেজে ভর্তির ক্ষেত্রে, বিশেষ করে রাজধানীর নামীদামি কলেজের ভর্তিতে তীব্র প্রতিযোগিতায় অবতীর্ণ হতে হবে শিক্ষার্থীদের। জিপিএ ৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদেরও তাদের পছন্দের কলেজে ভর্তির সুযোগ নেই।

আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সূত্র জানায়, দেশে উচ্চমাধ্যমিক স্তর আছে এমন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা প্রায় ৫ হাজার। আর এতে ভর্তিযোগ্য আসনসংখ্যা প্রায় ২৫ লাখ। কিন্তু এবার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে ১৭ লাখের কিছু বেশি শিক্ষার্থী। ফলে আসন খালি থাকবে প্রায় ৮ লাখ। এ ছাড়া এসএসসি উত্তীর্ণদের মধ্যে প্রায় ১০ শতাংশ শিক্ষার্থী কলেজেই ভর্তি হয় না।

২০২২ সালের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে ১৭ লাখ ৪৩ হাজার ৬১৯ জন শিক্ষার্থী। এর মধ্যে জিপিএ ৫ পেয়েছে ২ লাখ ৬৯ হাজার ৬০২ জন। আর জিপিএ ৪ থেকে ৫-এর নিচে পেয়েছে ৬ লাখ ৫৪ হাজার ৯১৬ জন। এই দুই ক্যাটাগরির ৯ লাখ ২৪ হাজার ৫১৮ জন শিক্ষার্থীই ভালো কলেজে ভর্তি হতে চাইবে।

শিক্ষা বোর্ড সূত্র জানায়, সারা দেশে মানসম্পন্ন কলেজের সংখ্যা প্রায় ২০০। এতে আসনসংখ্যা এক লাখের কাছাকাছি। এসব কলেজেই শিক্ষার্থীদের আগ্রহ বেশি। তবে সারা দেশের মেধাবী শিক্ষার্থীদের আগ্রহ থাকে রাজধানীর দিকে। ঢাকায় মানসম্পন্ন কলেজের সংখ্যা ২৫ থেকে ৩০টি। এসব কলেজের যাদের স্কুল সংযুক্ত রয়েছে, তারা তাদের নিজস্ব শিক্ষার্থী ভর্তির পর বাকি আসনে বাইরের শিক্ষার্থী ভর্তি করবে। ফলে রাজধানীর ভালো কলেজে ৩০ হাজারের বেশি শিক্ষার্থীর ভর্তির সুযোগ নেই। অথচ জিপিএ ৫ পাওয়া প্রায় দুই লাখ শিক্ষার্থীর আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতেই থাকবে রাজধানীর নামীদামি কলেজ।

এদিকে শিক্ষাপঞ্জি অনুসারে প্রতি বছরের ১ জুলাই থেকে একাদশ শ্রেণির ক্লাস শুরু হওয়ার কথা। কিন্তু এবার করোনার প্রাদুর্ভাব ও বন্যার কারণে পরীক্ষাই শুরু হয়েছে গত ১৫ সেপ্টেম্বর। আর ফল প্রকাশ হয়েছে ২৮ নভেম্বর। ফলে শিক্ষার্থীরা ইতিমধ্যেই ৫ মাসের সেশনজটের মধ্যে আছে, যা আরও বাড়বে।

সূত্র জানায়, ইতিমধ্যে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড থেকে একাদশ শ্রেণির ভর্তি নীতিমালা সংক্রান্ত খসড়া প্রস্তাব তৈরি করা হয়েছে। এতে ৮ ডিসেম্বর থেকে অনলাইনে ভর্তির আবেদন গ্রহণের প্রস্তাব রাখা হয়েছে। এবারও জিপিএর ভিত্তিতে শিক্ষার্থী ভর্তি হবে। শিক্ষার্থীদের কোনো ধরনের পরীক্ষায় বসতে হবে না। অনলাইনে ১০টি কলেজ বা মাদ্রাসা পছন্দ করতে পারবে শিক্ষার্থীরা। তাদের আবেদন ফির প্রস্তাব করা হয়েছে ১৫০ টাকা। কলেজ পছন্দের পর ১৩০ টাকা ফি দিয়ে নিশ্চয়ন করতে হবে। মোট আবেদন খাতে প্রতি শিক্ষার্থীর ২৮০ টাকা খরচ হবে।

ভর্তির ক্ষেত্রে ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকার এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি ফি আগের মতোই ৫ হাজার টাকা নির্ধারণের প্রস্তাব করা হয়েছে। এ ছাড়া ঢাকার মধ্যে আংশিক এমপিওভুক্ত ও এমপিওবিহীন প্রতিষ্ঠানের বাংলা মাধ্যম ভর্তির জন্য ৯ হাজার টাকা এবং ইংরেজি মাধ্যমের ভর্তি ফি ১০ হাজার টাকা নির্ধারণের প্রস্তাব করা হয়েছে। সব প্রতিষ্ঠানের জন্য উন্নয়ন ফি ৩ হাজার টাকার বেশি নেওয়া যাবে না।

এ ছাড়া মফস্বল ও পৌর এলাকার জন্য ভর্তি ফি ১ হাজার, পৌর জেলা সদরে ২ হাজার, ঢাকা ব্যতীত অন্যান্য মেট্রোপলিটন এলাকায় ৩ হাজার টাকার বেশি নেওয়া যাবে না বলে খসড়ায় উল্লেখ করা হয়েছে।


আরও খবর



নওগাঁয় চাকুরি দেওয়ার নামে টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের মূলহোতা আটক

প্রকাশিত:Sunday ২৯ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Monday ০৬ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :


নওগাঁয় চাকুরি দেওয়ার নামে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের মূলহোতা কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

শনিবার দুপুরের দিকে নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার নজিপুর বাজার এলাকা হতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভূয়া নিয়োগ পত্র প্রদানের মাধ্যমে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের মূলহোতা মঞ্জুর আলম (৩৯) কে গ্রেফতার করেন র‍্যাব। গ্রেফতারকৃত মঞ্জুর আলম নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার নজিপুর মাদ্রাসা পাড়ার মৃত আলীম উদ্দীনের ছেলে বলে জানিয়েছেন র‌্যাব।

সত্যতা নিশ্চিত করে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট কাম্প থেকে প্রতিবেদক কে জানানো হয়, অভিযুক্ত ও গ্রেফতারকৃত মঞ্জুরুল আলম এবং মোঃ রেজাউল করিম উভয়েই একটি প্রতারক সিন্ডিকেট হিসাবে কাজ করছে এবং ২০১৫ ইং সাল থেকে দরিদ্র লোকদের সাথে প্রতারণা মূলক কর্মকান্ড করছে যেখানে মঞ্জুরুল আলম মূলহোতা। মঞ্জুরুলের স্ত্রী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা। সে সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে চাকরির প্রলোভন ও মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে কখনো বা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চাকরির ভূয়া নিয়োগ পত্র দিয়ে সে প্রার্থীদের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিত। মোঃ রেজাউল করিম তার সহকারী হিসেবে কাজ করতেন এবং ভূয়া কাগজ পত্র তৈরির দায়িত্বে ছিলেন। ২০২০ ইং সালে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকরি দেওয়ার জন্য মঞ্জুরুল লিপি পারভিন নামে এক ভিকটিম এর কাছ থেকে ১০ লাখ  টাকা নেয়। পরে রেজাউল করিমের মাধ্যমে তাকে ভূয়া নিয়োগরপত্র দেয়। সে নিয়োগ পত্র নিয়ে ঢাকায় ওই চাকরিতে যোগ দিতে গেলে সেটা ভুয়া বলে জানতে পারেন ভিকটিম। পরে ভুক্তভোগী (ভিকটিম) বাদী হয়ে জয়পুরহাট র‌্যাব ক্যাম্পে অভিযোগ করলে, র‌্যাব-৫,  সিপিসি-৩, এর অভিযানিক দল তাকে অনেক ভূয়া নথিপত্র সহ আটক করেন।

এব্যাপারে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেছে র‍্যাব।


আরও খবর



প্রধানমন্ত্রীর সাথে আইএমএফ ডিএমডি

প্রকাশিত:Monday ১৬ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Saturday ০৪ February ২০২৩ |
Image

আসছে ৩০ জানুয়ারিতে নির্ধারিত সভায় আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল-আইএমএফ এর নির্বাহী পর্ষদ বাংলাদেশের ঋণ প্রস্তাবে চূড়ান্ত অনুমোদন দিতে পারে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাতকালে এমন ইঙ্গিত দিয়েছেন ঢাকা সফররত সংস্থাটির ডিএমডি অ্যান্তইনেত মনসিও সায়েহ। এসময় বেসরকারি বিনিয়োগ, রপ্তানি খাত এবং জলবায়ু ঝুঁকি মোকাবিলায় বাংলাদেশের পরিকল্পনা নিয়েও আলোচনা করেন তিনি ।

গণভবনে এই সাক্ষাত উপলক্ষে এক বিবৃতিতে বলা হয় মূল্যস্ফীতি ও জিডিপি'র তুলনায় ঋণের হার নিয়ন্ত্রণ সহ অর্থনৈতিক নানা ধাক্কা সামলাতে বাংলাদেশের উদ্যোগগুলোর প্রসংশা করছে আইএমএফ। অ্যান্তইনেত বলেন, রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে বাংলাদেশের অর্থনীতিও ঝুঁকিতে আছে তবে সংকট উত্তরণে সরকারের পদক্ষেপগুলো প্রসংশাযোগ্য। রির্জাভ ঘাটতি মেটাতে সহায়তার প্রশ্নে তিনি বলেন, এজন্য সরকারের নেয়া সংস্কার কর্মসূচিগুলো নিরিক্ষা করছে আইএমএফ কারণ আগামী দিনে রাজস্ব আয় আরও বাড়ানো এবং আর্থিক খাতে স্থিশীলতা জরুরি।  


আরও খবর

কমছে আয়, বাড়ছে ব্যয়

Saturday ০৪ February ২০২৩




নওগাঁয় স্কুলে যাওয়ার একমাত্র পথ ভেঙ্গে পুকুর-গর্ভে

প্রকাশিত:Monday ২৩ January 20২৩ | হালনাগাদ:Monday ০৬ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন :

নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার একটি প্রত্যন্ত অঞ্চল হচ্ছে মিরাট গ্রাম। মিরাট গ্রামে ১৮৯৫ সালে প্রতিষ্ঠিত মিরাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আর এক পাশে ১৯৯০ সালে প্রতিষ্ঠিত মিরাট উচ্চ বিদ্যালয়। এই দুই বিদ্যালয়ের যাতায়াতের জন্য মাঝে রয়েছে একটি রাস্তা। যে রাস্তাদিয়ে দুই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শতাধিক শিক্ষার্থী সহ গ্রামবাসীরা প্রতিনিয়তই চলাচল করেন। কিন্তু দীঘদিন যাবত ঢালাই করা রাস্তাটি ভেঙ্গে পুকুর-গর্ভে বিলীন হলেও তা মেরামত করার প্রতি দৃষ্টি নেই কর্তৃপক্ষের।

স্থানীয় বাসিন্দা সাইফুল ইসলাম বলেন, রাস্তাটি নির্মাণ করার ৪ মাস পর যদি ভেঙ্গে যায় তাহলে কি পরিমাণ নিম্ম মানের কাজ করা হয়েছিলো তা বোঝা যায়। প্রতিদিনই শিক্ষার্থীসহ শত শত গ্রামের বাসিন্দাদের চরম ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। রাস্তাটি ভেঙ্গে যাওয়ার কারণে পায়ে হেটে যাওয়া ছাড়া কোন উপায় নেই। এতে করে প্রতিনিয়তই চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

মিরাট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মমতাজ উদ্দিন বলেন, আনুমানিক দেড়বছর আগে এই রাস্তাটি তৈরি করে উপজেলা এলজিইডি বিভাগ। পুকুরপাড়ে পালাসাইড না দিয়ে শুধুমাত্র কয়েকটি পিলারের সঙ্গে ইটের গাঁথুনির উপর ঢালাই দিয়ে নির্মাণ করা হয় জনগুরুত্বপূর্ন এই রাস্তাটি। নির্মাণের প্রায় ৪মাস পরই ইটের গাঁথুনি আর পিলার পুকুরগর্ভে ভেঙ্গে যাওয়ার কারণে রাস্তাটির ৪ ভাগের ৩ ভাগই ভেঙ্গে পুকুরগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। সামান্য একটু অংশের উপর দিয়ে প্রতিনিয়ত ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। শুষ্ক মৌসুমে কোনমতে চলাচল করা গেলেও বর্ষা মৌসুমে চলাচল করতে গেলেই পা পিছলে পুকুরের মধ্যে পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। ইতিমধ্যেই স্কুলে চলাচল করার সময় শিশুসহ অনেক শিক্ষার্থী মনের অজান্তে পুকুরে পড়ে ঘটেছে দুর্ঘটনা। তাই অতিদ্রুত দীর্ঘস্থায়ীভাবে এই রাস্তাটি মেরামত করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি। 

উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ ইসমাইল হোসেন বলেন, আমি এই উপজেলাতে নতুন। সরেজমিনে পরিদর্শন করে দ্রুত এই রাস্তাটিকে মেরামত কিংবা সংস্কার করার পদক্ষেপ গ্রহণ করবো।


আরও খবর



পাঠান সিনেমায় খলনায়িকা দীপিকা !

প্রকাশিত:Friday ১৩ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

সবাই জানত ‘পাঠান’ ছবিতে নায়িকা চরিত্রে থাকবেন দীপিকা। এখন শোনা যাচ্ছে, নায়িকা নন বরং খলনায়িকা অর্থাৎ ভিলেন রূপে এই ছবিতে ধরা দেবেন তিনি।

স্পাই-থ্রিলার জনরার মুভিগুলোতে দৃশ্যের বাঁকে বাঁকে টুইস্ট থাকে। ‘পাঠান’ নির্মাতা সিদ্ধার্থ আনন্দ তার আগের ছবি ‘ওয়ার’-এও এরকম টুইস্ট রেখেছিলেন। টাইগার শ্রফের ‘খালিদ’ চরিত্রটিকে তিনি পজিটিভ এবং নেগেটিভ দুই শেডেই দেখিয়েছিলেন। তাই ‘পাঠান’-এও এমনটা ঘটার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যায় না। অন্তত এমনটাই দাবি করছে নেটপাড়ার একাংশ। তাদের মতে, ‘টাইগার’ সিরিজে ক্যাটরিনা কাইফের চরিত্রের মতো এখানেও দীপিকাকে পাকিস্তানের এজেন্ট দেখানো হতে পারে।

মূলত দীপিকার নেগেটিভ চরিত্রের কথা উঠে এসেছে ফ্যান থিওরি থেকেই। আর সেটা আসছে ছবির ট্রেলার ও গানের কিছু সংলাপ যোগ করে। ভক্ত তত্ত্ব বলছে, জন আব্রাহাম নন পাঠানের আসল ভিলেন দীপিকা। কেন এমন কথা বলছে সেটার কারণও ব্যাখ্যা করেছে তারা। ‘ঝুমে জো পাঠান’ গানে ‘দুশমন গালে লাগ জায়ে’ দিয়ে শত্রু দীপিকার সঙ্গে বন্ধুত্বের বার্তাই দিচ্ছেন শাহরুখ! এরপর ট্রেলারে এক জায়গায় জনকে বলতে শোনা যায়, ‘পাঠান দ্য হান্টার… হান্টেড?’। তারমানে শিকারি শাহরুখ নিজেই এখন শিকারে পরিণত হয়েছে।

অবশ্য সবটাই ভক্তদের কল্পনাপ্রসূত ধারণা। আসলেই দীপিকার চরিত্র কী সেটা বোঝা যাবে আগামী ২৫ জানুয়ারি। ওইদিন হিন্দি, তামিল, তেলেগু ভাষায় মুক্তি পাবে ‘পাঠান’ ছবিটি। এতে ক্যামিও চরিত্রে দেখা যাবে সালমান খানকে। যশরাজ ফিল্মসের ‘স্পাই ইউনিভার্স’র অংশ হিসেবে থাকতে পারেন কবির চরিত্রে হৃতিক রোশনও।


আরও খবর



নওগাঁয় ২৮ ঘোড়সওয়ারিকে হারিয়ে শীর্ষে দুই বোন তাসমিনা ও হালিমা

প্রকাশিত:Saturday ১৪ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Monday ০৬ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :

নওগাঁয় ২৮ ঘোড়সওয়ারিকে হারিয়ে শীর্ষে দুই বোন তাসমিনা ও হালিমা আক্তার।

শনিবার ১৪ জানুয়ারি বিকেলে নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার ঘোষনগর ইউনিয়নের বরহট্টী মাঠে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। 

ঘোড়দৌড় প্রতিযোগীতায় মোট ৩০ জন ঘোড়সওয়ারি অংশ গ্রহন করেন। প্রতিযোগীতায় হাজারো মানুষের উপস্থিতিতে নওগাঁর ধামইরহাট উপজেলার চকসুবল গ্রামের আপন দুই বোন দেশের অন্যতম ঘোড়সাওরি তাসমিনা ও হালিমা আক্তার বিভিন্ন স্থান থেকে আগত ২৮ ঘোড়সওয়ারি কে পেছনে ফেলে প্রথম ও দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেন।


ঘোড়দৌড় প্রতিযোগীতা চলার সময় মাঠের চারিদিকে নারী, পুরুষ, শিশু, বৃদ্ধ, বৃদ্ধা সহ হাজারো মানুষ আনন্দ-মূখর পরিবেশে ঘোড়দৌড় প্রতিযোগীতা উপভোগ করেন।

এব্যাপারে ঘোড়সওয়ারি তাসমিনা বলেন, আমি নওগাঁর মেয়ে, ইতি মধ্যেই আমি দেশের বিভিন্ন স্থানে ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে প্রথম হয়েছি। আজ নিজের জেলা নওগাঁতেও খেলায় অংশ নিতে পেরে অনেক ভালো লাগছে আমার, তবে আমি ও আমার আপন বোন দু-জনই প্রথম ও দ্বিতীয় স্থান অর্জন করায় আজ আমি অনেক খুশি । তিনি আরো বলেন, আমাদের অসচ্ছল পরিবার, ঘোড়ার খাবার ও পরিবারের ভরন পোষন যোগাড় করতে বাবার খুব কষ্ট হয়, তারপরও আমি আরো সামনে এগিয়ে যেতে চাই, চাই সকলের দোয়া।

ঘোড়দৌড় প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠানে ঘোষনগর ইউপি চেয়ারম্যান আবু বক্কর সিদ্দিক এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন, পত্নীতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুমানা আফরোজ, বিশেষ অতিথি ছিলেন, নওগাঁর মহাদেবপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জয়ব্রত পাল, পত্নীতলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) পলাশ চন্দ্র দেব, নজিপুর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল আলম বেন্টু প্রমূখ। অনুষ্ঠানে অতিথিরা বিজয়ী আপন দুই বোন তাসমিনা ও হালিমা আক্তার এর হাতে বিজয়ীর পুরস্কার তুলে দেন।


আরও খবর