Logo
শিরোনাম

লালমনিরহাটে বঙ্গবন্ধু ও ঐতিহাসিক ১০ অক্টোবর উদযাপন

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

লালমনিরহাটে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আগমন এবং ঐতিহাসিক ১০ অক্টোবর  উদযাপন উপলক্ষে সভা 

১৯৬৯ সালে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর শুভাগমনের ১০ অক্টোবরকে বিশেষ দিবস হিসেবে এই প্রথম উদযাপন করতে যাচ্ছে লালমনিরহাট বাসী । এজন্য গঠিত হয়েছে সামাজিক ,সাংস্কৃতিক ,মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিকদের সমন্বয়ে একটি কমিটি । তৎকালীন সময়ে মার্শাল্লা আইনকে উপেক্ষা করে ট্রেনে করে উত্তর বঙ্গ সফরে আসেন শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি ১০ অক্টোবর ১৯৬৯ সালে সকাল সাড়ে ১০টায় উপস্থিত হন কর্মী সমাবেশের জন্য রংপুর ১৪ বর্ত মানে লালমনিরহাট -৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আবুল হোসেন এমপির কুড়িগ্রাম -ফুলবাড়ী মহাসড়কের এই পাটের গুদাম ঘরের মাঠে। অনেক দেরিতে হলেও তারই পুত্র বর্তমান পিএসসির সদস্য বৈভবে একাত্তর বইয়ের লেখক প্রফেসর মোঃ হামিদুল হক তথ্য উপাত্ত সঠিক পাওয়ায় তাঁর আহবানে এই দিবসটিকে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম এবং সেই ইতিহাস জেলা বাসীর কাছে তুলে ধরতে ১১ সদস্যের একটি উপযাপন কমিটিও গঠন করেন। স্বাধীনতার ৫০ বছর পরে হলেও ১০ অক্টোবরকে ঐতিহাসিক দিবস হিসেবে লালমনিরহাটে ব্যাপক কর্ম সূচীর মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপনের আয়োজন করা হয়েছে। 

এসময় নজরুল হক পাটোয়ারি ভোলাকে আহবায়ক,যুগ্ম আহবায়ক ফেরদৌসি বেগম বিউটি,সদস্য সচিব নিশিকান্ত রায়,তপু বণিক,মোকছেদুর রহমান,কিশোর সরকার বাকা,মজিবুর রহমান, ৭১ টিভির লালমনিরহাট প্রতিনিধি উত্তম রায়,প্রথম আলোর লালমনিরহাট প্রতিনিধি আব্দুর রব সুজন প্রমুখ ছাড়াও অনান্য কয়েকজনকে সদস্য করে লালমনিরহাটে বঙ্গবন্ধুর শুভাগমন উদযাপন কমিটি গঠন করা হয়। প্রস্তুতি সভায় আরও উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন, প্রফেসর নজরুল ইসলাম,ঢাকাস্থ লালমনিরহাট জেলা সমিতির সভাপতি, লালমনিরহাট পৌরসভার সাবেক মেয়র রিয়াজুল ইসলাম রিন্টু , র্বতমান মেয়র  রেজাউল করিম স্বপন,সুফি মোহাম্মদ,  প্রমুখ।

 প্রফেসর হামিদুল হক , সদস্য পিএসসি  জানান, দিবসটিকে সাফল্য মন্ডিত করতে জেলার সকল শ্রেণী পেশার মানুষ সহ স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদেরকে ও আমন্ত্রণ জানানো হবে। তাছাড়াও তিনি জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর বিষয়ে অনেক অজানা তথ্য সভায় উপস্থিত সকলের মাঝে তুলে ধরেন।


আরও খবর



কথাসাহিত্যিক ইজাজ আহমেদ মিলনের লেখা

ভাওয়াল বীরের জন্মদিনে ‘জীবনালেখ্য’

প্রকাশিত:বুধবার ০৯ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

শ্রমিক নেতা ও গাজীপুর-টঙ্গী-২ আসনের প্রয়াত সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের ৭২তম জন্মদিনে তার যাপিত জীবন নিয়ে কথা সাহিত্যিক ইজাজ আহাম্মদ মিলনের লেখা ‘জীবনলেখ্য’ বইটি প্রকাশ হয়েছে।

আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে বইটির মোরক উন্মোচন করেন।

৯ নভেম্বর ১৯৫০ সালে জন্ম নেওয়া আহসান উল্লাহ মাস্টার ২০০৪ সালের ৭ মে মাত্র ৫৪ বছর বয়সে ঘাতকের বুলেটে নিভে যায় তার জীবন প্রদ্বীপ। 

শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত ‘ভাওয়াল বীর’ খ্যাত আহসান উল্লাহ মাস্টার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান থেকে মানুষের ভালোবাসাকে পুঁজি করে ১৯৯৬ ও ২০০১ সালের নির্বাচনে দুবার জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। সংসদ সদস্য থাকাকালেই ঘাতকরা তাকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করে।

জাতির পিতার আদর্শ বুকে ধারণ করে ’৬৬-এর ৬ দফা, ’৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান, ১৯৭০-এর নির্বাচনে ভূমিকা রাখা, ’৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণসহ বাংলাদেশের প্রায় প্রতিটি আন্দোলনেই সরাসরি অংশ নিয়েছেন তিনি। বঙ্গবন্ধুর আশীর্বাদ পাওয়া আহসান উল্লাহ মাস্টার শ্রমিকদের অধিকার রক্ষায় আজীবন আন্দোলন করেছেন। তাদের পক্ষে কথা বলেছেন। মাদকের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করেছিলেন ’৯০-এর দশকের গোড়ার দিকেই। তুমুল জনপ্রিয় এক নেতৃত্বে পরিণত হন তিনি।

রাজনীতির মাঠে আহসান উল্লাহ মাস্টারের আলোয় আলোকিত হয়েছিল গাজীপুর। কিন্তু কেমন ছিল আপদমস্তক এ রাজনীতিকের জীবন? গ্রাম থেকে উঠে এসে কীভাবে জাতীয় রাজনীতিতে জায়গা করে নিয়েছিলেন? তার জন্ম, শৈশব, কৈশোর, যুদ্ধের ময়দানে মৃত্যুর খুব কাছ থেকে ফিরে আসা- এমন নানা অজানা অধ্যায় নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক সাংবাদিক ও কথাসাহিত্যিক ইজাজ আহমেদ মিলন লিখেছেন ‘আহসান উল্লাহ মাস্টার : জীবনালেখ্য’। এই বইটি তরুণ প্রজন্মের কাছে আহসান উল্লাহ মাস্টারের আদর্শকে তুলে ধরতে সহায়ক হবে মনে করেন লেখক ও সংশ্লিষ্টরা।


আরও খবর



জি-টোয়েন্টি সম্মেলন শুরু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৫ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

 বৈশ্বিক খাদ্য নিরাপত্তাকে গুরুত্ব দিয়ে শুরু হয়েছে ২০টি বৃহৎ অর্থনীতির দেশের জোট জি-টোয়েন্টি সম্মেলন। মঙ্গলবার, ইন্দোনেশিয়ার বালিতে এ সম্মেলন শুরু হয়েছে।

সম্মেলনের উদ্বোধনী বক্তব্যে ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো যুদ্ধ বন্ধে বিশ্বনেতাদের আহবান জানান। এর আগে, সোমবার রিসোর্ট দ্বীপটিতে উপস্থিত হন বিশ্বনেতারা। যুক্তরাষ্ট্রের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা সাংবাদিকদের বলেন, ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধের ফলে সারাবিশ্বে যে খাদ্য সংকট তৈরি হয়েছে সেটি নিরসনে খাদ্যনিরাপত্তার বিষয়টি প্রাধান্য পাবে এই সম্মেলনে। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এবার সরাসরি জি-টোয়েন্টি সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন না। তবে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ মঙ্গলবার সকালে পৌঁছেছেন বালিতে। 


আরও খবর

স্পেনে ইউক্রেন দূতাবাসে বোমা বিস্ফোরণ

বৃহস্পতিবার ০১ ডিসেম্বর ২০২২




সরকার মিথ্য বলে জনগণকে ভাউতা দিয়ে ক্ষমতায় টিকে আছে

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৮ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

বুলবুল আহমেদ সোহেল ঃ

সরকার মিথ্য বলে জনগণকে ভাউতা দিয়ে ক্ষমতায় টিকে আছে বলে মন্তব্য করেছেন নাগরিক ঐক্যর সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না। তিনি বলেছেন মানুষ এই সরকারের পরিবর্তন চায়। শুক্রবার বিকেলে নগরীর চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গনতন্ত্র মঞ্চ আয়োজিত এক সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। 

তিনি বলেন, দেশের ১৭ কোটি মানুষ। তার মধ্যে ৮ কোটি মানুষই গরিব, ২ কোটি শিক্ষিত যুবক বেকার। এই সরকারের পরিবর্তন চায় বলে  বিএনপির সামাবেশে মানুষ নানা ভাবে ছুটে গেছে। ঢাকায়ও মানুষকে আটকে রাখা যাবে না। 

রাজনৈতিক সভা-সমাবেশে বাধা, হামলা-মামলা, দমন-পীড়ন, গুলি-হত্যা বন্ধ করার দাবিতে ৭টি দলের রাজনৈতিক জোট ‘গণতন্ত্র মঞ্চ’ এ সমাবেশের আয়োজন করে।

সামবেশে গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি বলেছেন, আমরা সরকারের পদত্যাগ চাই। জনগন যদি চায় তাহলে কারো শক্তি নাই অবৈধ ভাবে নির্বাচন করার। সরকারের নানা সমালোচনা করে তিনি বলেন, বিদেশীরা এখন তাদের সাথে নেই। এ কারনে এখন সরকারের পায়ের তলায় মাটি নেই। এখন তারা ভয়ে আছে। কখন ক্ষমতা ছাড়তে হয়।

সমাবেশে আরও বক্ত্য রাখেন  বিপ্লবী ওয়াকার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, ভাসানী অনুসারী পরিষদের আহবায়ক শেখ রফিকুল ইসলাম, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী, হাসনাত কাউয়ুম। 

বক্তারা বলেন , সরকারি দলের নেতারা বলছেন ‘খেলা হবে’।  এই খেলার কথা বলতে- ক্ষমতাশীনরা মনে করে, গায়ের জোর ছারা ক্ষমতায় থাকার আর কোন পথ নাই।

কারণ এই সরকার ভোটে জিততে পারবে না। কেউ আর তাদের ভোট দিবেনা।


আরও খবর



ভয়াবহ আকার ধারণ করছে হুন্ডি

প্রকাশিত:বুধবার ১৬ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

হুন্ডির কারণে কত বিদেশি মুদ্রা থেকে বাংলাদেশ বঞ্চিত হচ্ছে, কাদের মাধ্যমে এই মুদ্রা পাচার হচ্ছে, তার একটি ধারণা পাওয়া গেল এরকম একটি চক্রের ২০ সদস্য পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) হাতে ধরা পরে।

বিকাশ, নগদ, রকেট ও উপায়সহ বিভিন্ন মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসের (এমএফএস) অন্তত পাঁচ হাজার এজেন্ট হুন্ডি চক্রে জড়িত। আর এদের কারণে বছরে আনুমানিক ৭ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার থেকে বাংলাদেশ বঞ্চিত হয়।

দেশে ডলারের দামে অস্থিরতা শুরুর পর বিষয়টি নিয়ে তদন্তে নামে সিআইডি। এর অংশ হিসেবে ঢাকা ও চট্টগ্রামে তিন দফা যৌথ অভিযান চালিয়ে ওই ২০ জনকে গ্রেপ্তার করে সিআইডির ফিন্যান্সিয়াল ক্রাইম এবং সাইবার ক্রাইম ইউনিট।


গত ৪ মাসে ২০ কোটি ৭০ লাখ টাকা তাদের মাধ্যমে পাচার হওয়ার তথ্য পেয়েছেন তারা।

আর সাইবার ইন্টেলিজেন্সের মাধ্যমে সিআইডি ৫ হাজারের বেশি এজেন্টের সন্ধান পেয়েছে,যারা এমএফসের মাধ্যমে হুন্ডির কারবারে জড়িত।

 এই চক্র অবৈধভাবে হুন্ডির মাধমে বিদেশে অর্থপাচার করছে। আবার বিদেশে অবস্থানরত ওয়েজ অর্নাদের কষ্টার্জিত অর্থ বিদেশ বাংলাদেশে না এনে স্থানীয় মুদ্রায় মূল্য পরিশোধ করে মানি লন্ডারিংয়ের অপরাধ করছে।

“প্রাথমিক পর্যায়ে বিকাশ, নগদ, রকেট ও উপায় এর বহু এজেন্ট এই অবৈধ হুন্ডি ব্যবসার সাথে জড়িত বলে চিহ্নিত করা হয়েছে।”

পাঁচ হাজার এমএফএস এজেন্টের মাধ্যমে চার মাসে হুন্ডি হয়েছে আনুমানিক পঁচিশ হাজার কোটি টাকা। অর্থাৎ, বৈধ ব্যাংকিং চ্যানেলে দেশে আনা আসায় ওই পরিমাণ রেমিটেন্স থেকে বাংলাদেশ সরকার বঞ্চিত হয়েছে।


 সিআইডি বলছে, এসব এমএফএস এজেন্টের মাধ্যমে বছরে হুন্ডি হয়ে দেশে আসছে আনুমানিক পঁচাত্তর হাজার কোটি টাকা। অর্থাৎ, সরকার প্রায় ৭ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলারের রেমিটেন্স থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

২০২১-২২ অর্থবছরে প্রবাসীরা ২ হাজার ১০৩ কোটি ডলার দেশে পাঠিয়েছিলেন, যা দেশের মোট জিডিপির ৭ শতাংশের মত।


আরও খবর



আত্রাইয়ে চুলার ধোঁয়াকে কেন্দ্র করে হামলায় যুবক নিহত

প্রকাশিত:বুধবার ২৩ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ |
Image

কাজী আনিছুর রহমান,রাণীনগর (নওগাঁ) :

নওগাঁর আত্রাইেেয় চুলার ধোঁয়াকে কেন্দ্র করে হামলায় আলমগীর হোসেন (৪০) নামে এক যুবক নিহত হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় উপজেলার ব্রজপুর খন্দকার পাড়া গ্রামে এঘটনা ঘটে। নিহত আলমগীর ওই গ্রামের আলতাব হোসেনের ছেলে। এঘটনায় থানাপুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেছে। 

নিহতরে স্ত্রী নাজমা আক্তার বলেন,মাস খানেক আগে প্রতিবেশি আব্দুল জব্বারের ছেলে আক্তার হোসেনের দেয়াল সংলগ্ন স্থানে ভাত রান্নার চুলা নির্মান করে রান্নাবান্না করে আসছিলেন।ওই চুলার ধোঁয়া আক্তারের জানালা দিয়ে ঘরে প্রবেশ করছে এবং চালের টিন নষ্ট হচ্ছে এমন অভিযোগ তুলে গ্রামের কয়েক জনের মাধ্যমে রান্নার চুলা বন্ধ করতে বলে। আমরা অল্প দিনের মধ্যে চুলা অপসারণ করে নিবো বলে তাদেরকে জানিয়েছিলাম। এর পরও মঙ্গলবার সকাল অনুমান সাড়ে ৯টায় আলমগীর হোসেন খাবার খেয়ে বাড়ী থেকে পাশের্^ সিংসাড়া মোড়ে নিজ দোকানে যাচ্ছিলেন। এসময় প্রতিবেশি আক্তার ও তার পরিবারের লোকজনসহ কয়েকজন আলমগীরের রাস্তা অবরোধ করে মারপিট করতে থাকে। এসময় আলমগীরের লোকজন দেখতে পেয়ে ছুটে গেলে আক্তার ও তার লোকজন পালিয়ে যায়। আলমগীরকে উদ্ধার করে আত্রাই সদর হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক আলমগীরকে মৃতু ঘোষনা করেন। ঘটনার পর থেকে আক্তার ও তার লোকজন পলাতক রয়েছে।

আত্রাই থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) লুৎফর রহমান বলেন,নিহত আলমগীরের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এঘটনায় থানায় হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুুতি চলছে বলে জানান এই কর্মকর্তা।


আরও খবর