Logo
শিরোনাম

মোরেলগঞ্জে শ্রী গুরুদেবের আর্বিভাব উৎসব উদযাপন

প্রকাশিত:Monday ১৪ November ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

এম.পলাশ শরীফ, নিজস্ব প্রতিবেদক :

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মহাপুরুষ শ্রীশ্রীমদ দুর্গাপ্রসন্ন পরমহংসদেবের ১৩১ তম আবির্ভাব উৎসব উদযাপন করা হচ্ছে। 

দিবসটি উপলক্ষে সোমবার বেলা ৯ টায় শ্রীগুরু মন্দির প্রঙ্গনে সংঘ পতাকা উত্তোলন করেন শ্রীগুরু সংঘ মোরেলগঞ্জ সভাপতি সোমনাথ দে। পরে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা শহরেরর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম, থানার ওসি মো. সাইদুর রহমান, কাউন্সিলর শংকর রায় ও শ্রীগুরু সংঘের সাধারণ সম্পাদক অসীম কর্মকারসহ ভক্তবৃন্দরা অংশ গ্রহন করেন। 


আরও খবর



ধামরাইয়ের কাকরান দাখিল মাদরাসার শুভ উদ্বোধন

প্রকাশিত:Wednesday ১১ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

মাহবুবুল আলম রিপন :


ঢাকার ধামরাই উপজেলা ভাড়ারিয়া ইউনিয়ন এর কাকরানে দাখিল মাদরাসার চতুর্থ তলা ভীত বিশিষ্ট একাডেমিক ভবন এর শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে বুধবার সকাল ১১ টায়। 

এসময় অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন ধামরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হোসাইন মোহাম্মদ হাই জকী।

প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন মাননীয় সংসদ সদস্য ঢাকা ২০ ও সভাপতি ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগ বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব বেনজির আহমদ। 

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন চেয়ারম্যান ধামরাই উপজেলা পরিষদ মোহাদ্দেস হোসেন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগ বীরমুক্তিযোদ্ধা এনামুল হক আইয়ুব, ভাইস চেয়ারম্যান ধামরাই উপজেলা পরিষদ সিরাজ উদ্দিন সিরাজ, চেয়ারম্যান ভাড়ারিয়া ইউনিয়ন পরিষদ মোসলেম উদ্দিন মাসুম,যুবলীগ নেতা জাহিদ হোসেন সহ উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের বিভিন্ন নেতা কর্মীরা। উক্ত অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন কাকরান দাখিল মাদরাসা কর্তৃপক্ষ ও কাকরান এলাকা বাসী।


আরও খবর



মোরেলগঞ্জে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে আওয়ামী লীগের র‌্যালী

প্রকাশিত:Tuesday ১০ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

এম.পলাশ শরীফ, বাগেরহাট প্রতিনিধি :


বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগের র‌্যালী ও পথসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে দলীয় কার্যালয় থেকে আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল শহকারে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে দলীয় কার্যালয় সামনে সংক্ষিপ্ত পথসভায় বক্তৃতা করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএমদাদুল হক, সহ-সভাপতি চেয়ারম্যান মো. সাইদুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. হারুন অর রশীদ, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ভাইস চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক মোজাম, যুগ্ম আহবায়ক এ্যাড. তাজিনুর রহমান পলাশ, কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আবুল হোসেন, শ্রমীক লীগের সাধারণ সম্পাদক জালাল উদ্দিন তালুকদার, ছাত্রলীগের সভাপতি মো. মহিদুজ্জামান মহিদ প্রমুখ। এর পূর্বে দিবসটি উপলক্ষে সকালে দলীয় কার্যালয় জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অপর্ণ করা হয়। 


আরও খবর



ডলারের অস্থিরতা আর কতদিন ?

প্রকাশিত:Saturday ০৭ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

জহিরুল কবীর আমজাদ :আলোচনা টেবিলে বার বার ঘুরে-ফিরে বিষয় এখন একটাই। আর তা হলো ডলার। সরকারের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নানা উদ্যোগের পরও ডলার নিয়ে অস্থিরতা কাটছে না। বরং দিনের পর দিন টাকার মান কমছে, বাড়ছে ডলারের দাম। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বেঁধে দেওয়া দাম থেকে অনেক বেশি দরে বিক্রিও হচ্ছে। সবশেষ খোলাবাজারে ১২১ টাকা ছুঁয়েছে এক ডলারের বিনিময়মূল্য। সামনে আরও বাড়বে এমন গুঞ্জনও আছে বাজারে। তাই কোথায় গিয়ে থামবে ডলারের দাম আর সংকট কবে কমবে তা কারো বলার যেন সাধ্য নেই!

বিশেষজ্ঞরাও বলছেন, ডলারের এই অবস্থা দিনে দিনে কেটে যাবে এমনটা মনে করার কারণ নেই। তবে পরিস্থিতি সামাল দিতে আমদানির বিষয়ে নির্দেশনাসহ সরকারের নেওয়া উদ্যোগের সঠিক প্রয়োগ, স্বল্প এবং মধ্যমেয়াদে পদক্ষেপগুলো বাস্তবায়নের কৌশল ঠিক করতে হবে। অন্যথায় পরিস্থিতি আরও বেশি খারাপ হওয়ার আশঙ্কার কথাও বলেছেন বিশেষজ্ঞরা। ইতোমধ্যেই ডলার-সংকট নিরসনে সরকার নানামুখি উদ্যোগও নিয়েছে।


এদিকে আনুষ্ঠানিক দরের বালাই নেই খোলা বাজারে। খোলা বাজারে ১১৫ টাকার বিক্রি হওয়া ডলার মাঝে একদিন আশুরার বন্ধের পর বুধবার এক লাফে সাত টাকা বেড়ে খোলা বাজারে ১২১ টাকায় পৌঁছেছে। যা দেশের ইতিহাসে খোলাবাজারে সর্বোচ্চ দর। গত সোমবারও এই দাম ছিল ১১৫ টাকা ৬০ পয়সা। অন্যদিকে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতেও ১০৮ থেকে ১১০ টাকার ওপরে বিক্রি হচ্ছে ডলার। কিন্তু দামে রেকর্ড হওয়ার পরও ডলার সংকট কাটছে না। এর প্রভাব পড়ছে বিদেশগামী সাধারণ মানুষ, ভোক্তা, ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে সবার ওপর।


আরও খবর



হজের খরচ কমল ৩০ শতাংশ

প্রকাশিত:Tuesday ১৭ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

মহামারি করোনার বিধিনিষেধের কারণে গত তিন বছর নির্দিষ্ট সংখ্যক মানুষ পবিত্র হজ পালনের সুযোগ পেয়েছিলেন। এবার আর থাকছে না কোনো বাধা ও নিয়মকানুন। গত সপ্তাহে সৌদি আরবের হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয় এ তথ্য জানিয়েছিল।

২০২২ সালের তুলনায় ২০২৩ সালে কমানো হয়েছে হজ প্যাকেজের মূল্য। গত বছরের তুলনায় ৩০ শতাংশ কম খরচে এবার হজ পালনের সুযোগ পাবেন মুসল্লিরা।

হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয়ের সহকারী সচিব ড. আমর বিন রেদা আল মাদ্দাহ গত ১৫ জানুয়ারি এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি আরো জানিয়েছেন, ইকোনোমিক হজ প্যাকেজের প্রায় ৯০ ভাগ ইতোমধ্যে বিক্রি হয়ে গেছে।

সহকারী সচিব আল মাদ্দাহ আরো জানিয়েছেন, সৌদির অভ্যন্তরীণ যে হজ প্যাকেজগুলো রয়েছে, সেগুলো কোম্পানির সেবার মানের ওপর ভিত্তি করে কয়েকটি ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছে। হজ ক্যাম্পে সেবার মান দেখে এটি নির্ধারণ করা হবে।

গত সপ্তাহে হজ মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল, সৌদি আরবের স্থানীয় মুসল্লিরা চাইলে তিন ভাগে হজ প্যাকেজের অর্থ পরিশোধ করতে পারবেন। আগে একসঙ্গে পুরো অর্থ পরিশোধের নিয়ম ছিল।


আরও খবর



পঞ্চগড়ে তাপমাত্রা নামলো ৬ ডিগ্রিতে

প্রকাশিত:Saturday ১৪ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Thursday ২৬ January ২০২৩ |
Image

দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে পঞ্চগড়ে। তাপমাত্রা নেমে এসেছে ৬ ডিগ্রিতে। বইছে কনকনে শীত। এর আগে গত ১০ জানুয়ারি রেকর্ড করা হয়েছিল ৬ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। টানা এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে বয়ে যাওয়া শৈত্যপ্রবাহের শীতের দাপটে নাজেহাল হয়ে পড়েছে উত্তরের এ জেলা।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, গত তিনদিন তাপমাত্রা বাড়লেও আজ নেমে এসেছে ৬ দশমিক ১ ডিগ্রিতে। গতকাল শুক্রবার রেকর্ড করা হয়েছিল ৮ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে এ জেলায় স্মরণকালে এ জেলায় ২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিল। সকালে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হওয়ার বিষয়টি জানিয়েছেন জেলার প্রথম শ্রেণির আবহাওয়া অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাসেল শাহ।

সকাল থেকেই দেখা মিলেছে সূর্যের মুখ। তবে অনুভূত হচ্ছে প্রচন্ড শীত। সুর্যের মুখ দেখা গেলেও মিলছে না রোদের উষ্ণতা। শীত দুর্ভোগে পড়েছে নানান শ্রমজীবী-কর্মজীবী গরীব অসহায় মানুষ। পাথর শ্রমিক, চা শ্রমিক, দিনমজুর থেকে শুরু করে ছোটখাটো যানবাহন ভ্যান চালক মানুষগুলো পড়েছেন বিপাকে। তীব্র শীতের কারণে কাজে যেতে পারছেন না অনেকে। তবে জীবিকার তাগিদে কাউকে নদীতে পাথর তুলতে, কাউকে চা-বাগানে আবার কাউকে দিনমজুরের কাজ করতে যেতে দেখা গেছে। শীতের দুর্ভোগ বেড়েছে শিশু ও বয়স্কদের মধ্যে। এসব মানুষের কষ্ট লাঘবের জন্য সরকার যে ত্রাণ দিয়েছে তা একেবারেই অপ্রতুল বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।


আরও খবর