Logo
শিরোনাম

পাংশায় কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ

প্রকাশিত:Thursday ১০ November ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

পাংশা ( রাজবাড়ী) প্রতিনিধি ঃ

রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ চত্তরে ১০ নভেম্বর সকালে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ করা হয়েছে। চলতি অর্থ বছরে রবি মৌসুমে গম,ভুট্টা,সরিষা,সূর্যমূখী, চিনা বাদাম ,পেয়াজ, মুগ মসুর ও খেসারীর উপশী জাতের বীজ ব্যাবহারের মাধ্যেমে আবাদ ও ফসল উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষে উপজেলার প্রান্তিক কৃষকদের মধ্যে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলীর সভাপতিত্বে এই বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফরিদ হাসান ওদুদ, পাংশা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও মাছপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান খন্দকার সাইফুল ইসলাম বুড়ো, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন বিশ্বাস, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রতন কুমার ঘোষ সহ বিভিন্ন ইউপিথেকে আগত কৃষক গণ। 


আরও খবর



নওগাঁয় অটিজম শিশুদের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:Tuesday ১৭ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :

নওগাঁয় অটিজম ও বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের অংশগ্রহণে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাংলাদেশ ক্রীড়া পরিদপ্তরের বার্ষিক ক্রীড়া কর্মসূচী ২০২২-২৩ এর আওতায় নওগাঁ জেলা ক্রীড়া অফিসের ব্যবস্থাপনায় অটিজম ও বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের নিয়ে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার আমবাটি অটিস্টিক ও বুদ্ধি প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। 

সোমবার বিকেলে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় ৭০ জন অটিস্টিক শিশু অংশগ্রহণ করেন। প্রতিযোগিতায় জেলা ক্রীড়া অফিসার আবু জাফর মাহমুদুজ্জামানের সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে পুরুস্কার বিতরন করেন, পত্নীতলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ রুমানা আফরোজ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, নওগাঁ জেলা তথ্য অফিসের উপ-পরিচালক আবু সালেহ মোঃ মাসুদুল ইসলাম, জেলা প্রতিবন্ধী বিষয়ক কর্মকর্তা মোঃ হুমায়ুন কবির, জেলা নিরাপদ খাদ্য কর্মকর্তা চিন্ময় প্রামাণিক, জেলা লাইব্রেরিয়ান এস এম আশিফ, জেলা শিক্ষা অফিসের গবেষণা কর্মকর্তা সবুজ হোসেন। এসময় বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুরা কারো বোঝা নয়। এদেরকে স্নেহ আর ভালোবাসা দিয়ে গড়ে তুলতে পারলে এরাও দেশের সম্পদ হিসেবে নিজেদের তৈরি করতে পারে। তাই এই সব শিশুদের জন্য এই ধরনের আয়োজনের কোন বিকল্প নেই বলে বক্তব্যে বলেন অতিথিরা।


আরও খবর



নওগাঁয় ৪০ গ্রামের হাজারো মানুষের ভরসা খেয়াঘাটের নৌকা

প্রকাশিত:Monday ২৩ January 20২৩ | হালনাগাদ:Thursday ২৬ January ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন :

নওগাঁর রাণীনগর ও বগুড়ার আদমদীঘি এ দুই উপজেলার সীমানায় অবস্থিত শত বছরের ঐতিহাসিক রক্তদহ বিল। এ বিলের আশেপাশে ৪০টি গ্রামে মানুষের বসবাস। এ ৪০ টি গ্রামের মানুষদের চলাচলের একমাত্র ভরসা মেঠোপথের শেষে খেয়াঘাট এর নৌকা। বিলে পানি যতদিন থাকে ততদিন নৌকায় পারাপার আর যখন পানি থাকে না তখন প্রয়োজনীয় কর্ম সমাধান করতে ৪০/ ৫০কিমি রাস্তা ঘুরে নওগাঁ, বগুড়া, রাণীনগর, আদমদীঘিতে যেতে হয়। এতে করে বছরের পর বছর চরম দুর্ভোগের শিকারের মধ্যদিয়ে জীবন-যাপন করে আসছে ঐ এলাকার লক্ষাধিক মানুষ। কৃষকরা নায্যমূল্য পাওয়া থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছে যুগের পর যুগ। খেয়াঘাটে একটি ব্রিজ জোটেনি যার ফলে আধুনিক যোগাযোগ ব্যবস্থার সুফল থেকেও বঞ্চিত এই কৃষি প্রধান অঞ্চলটি।

এলাকার বোদলা গ্রামের বাসিন্দা সাইদুর রহমান মুহরী জানান, কথিত আছে ব্রিটিশ বাহিনীর সঙ্গে এই অঞ্চলে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ হয় ফকির মজনু শাহর বাহিনীর সঙ্গে। এই বিলের মধ্যদিয়ে যুদ্ধে নিহত উভয় বাহিনীর সৈন্যের রক্ত একদিয়ে আরেক দিকদিয়ে পানি বয়ে যায় তখন থেকে এই বিলটি রক্তদহ বিল হিসেবে পরিচিত হয়ে ওঠে মানুষের কাছে। মাধ্যমিক পর্যায়ের একাধিক পাঠ্যবইয়েও এই বিলের ইতিহাস লিপিবদ্ধ আছে। কয়েক হাজার বিঘা জমি নিয়ে এই বিল অবস্থিত। বিলের পূর্বপাশে নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার কৃষি প্রধান অঞ্চল বোদলা, পালশা, কৃষ্ণপুর, তেবাড়িয়াসহ ৪০টি গ্রাম অবস্থিত। এই মানুষদের সহজেই নওগাঁ, বগুড়া, রাণীনগর, আদমদীঘি, সান্তাহারে চলাচলের সহজ পথ হচ্ছে বিলের মধ্যদিয়ে রাস্তা। বিলের মধ্য একটি ব্রিজ না হওয়ার কারণে মেঠোপথ দিয়েই খেয়াঘাটে পারাপার হতে হয় এলাকার মানুষদের। পারাপারের জন্য খেয়াঘাটে এসে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করতে হয় নৌকার জন্য।

এই অঞ্চলের মানুষ কোথাও যেতে চাইলে বাড়ি বা বাসা থেকে নির্ধারিত সময়ের থেকে দুই থেকে তিন ঘন্টা সময় হাতে বেশি নিয়ে বের হতে হয়। একটি ব্রিজের অভাবে এখনোও এই অঞ্চলের মানুষদের প্রাচীন যুগে বসবাস করতে হচ্ছে। দিনের বেলায় ঘাটে এসে নৌকা পাওয়া গেলেও রাতের বেলায় ৪০/ ৫০কিমি রাস্তা ঘুরে এই অঞ্চলের মানুষদের নিজের বাড়িতে ফিরতে হয়। সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হয় শিক্ষার্থী ও জরুরী রোগীদের। অনেক প্রসুতিদের হাসপাতালে নেয়ার পথে এই খেয়াঘাটে এসেই প্রসব হয়ে যায়। অনেক জটিলতা শেষে ২০১৯ ইং সালে এই ঘাটে একটি ব্রিজ নির্মাণের প্রস্তাব একনেকে অনুমোদন পেলেও পরবর্তিতে সেই কার্যক্রম রহস্যজনক কারণে আর আলোর মুখ দেখেনি। সহজেই নিজেদের উৎপাদিত ফসল বাজারজাত করতে না পারার কারণে নায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছে এই অঞ্চলের হাজারো কৃষক। দ্রুত এই ঘাটে একটি ব্রিজ নির্মাণ বর্তমানে সময়ের দাবী হয়ে দাঁড়িয়েছে।

নওগাঁ এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী তোফায়েল আহমেদ বলেন, আমার জানা মতে ব্রিজ নির্মাণের সকল প্রক্রিয়া প্রায় শেষের দিকে। সকল বিভাগীয় প্রক্রিয়া শেষে অর্থ বরাদ্দ পেলেই ব্রিজ নির্মাণের কাজ শুরু করা হবে। আমি আশাবাদি অতিদ্রুতই এই অঞ্চলের মানুষদের শত বছরের স্বপ্নের ব্রিজ নির্মাণের সুখবর দ্রুতই পাওয়া যাবে।

নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আনোয়ার হোসেন হেলাল বলেন, চীনের হুয়াংহু নদীর মতো এই রক্তদহ বিলও এই অঞ্চলের মানুষের জন্য একটি দুঃখ। এই ঘাটে একটি ব্রিজ এই অঞ্চলটিকে আমুল বদলে দিতে পারে। আমিও সংশ্লিষ্ট বিভাগকে একাধিকবার ব্রিজ নির্মাণের জন্য যাবতীয় পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য তাগাদা দিয়েছি। আমি আশাবাদি জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ছোঁয়া হিসেবে এই ঘাটে দ্রুত একটি আধুনিকমানের ব্রিজ নির্মাণের সুখবর পাওয়া যাবে।


আরও খবর



দশমিনায় গ্রামীন সড়কের বেহাল দশা

প্রকাশিত:Monday ২৩ January 20২৩ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

মোঃ নাঈম হোসাইন ,দশমিনা (পটুয়াখালী):

পটুয়াখালীর দশমিনায় পাতারচর-চরঘূর্নী সংযোগ সড়কের একঅংশ ভেঙ্গে বড় গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় নদী গর্ভে বিলীন হবার সম্ভাবনা রয়েছে।

জানা যায়, ২০১৭-২০১৮ সালে উপজেলা এলজিইডি ১ কিলোমিটার পাকা সড়ক নির্মান করেন। উপজেলার রণগোপালদী ইউনিয়নের রনগোপালদী বাজার-একমাত্র নদী বেষ্টিত চরবোরহান ইউনিয়নসহ পাতারচর ও চরঘুর্নী এলাকায় যাতায়াতের একমাত্র সড়ক পথ। রণগোপালদী ইউনিয়ন ছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন এলাকার মানুষ কাজের জন্য এ সড়কটি দিয়ে চলাচল করে থাকে। সড়কটি ভেঙ্গে যাওয়ায় যানবাহন চলাচল করতে পারছে না।

উপজেলার রণগোপালদী ইউনিয়নের স্থানীয় বাসিন্দা ও ৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. অধুদ মাতব্বর বলেন, ভেঙ্গে যাওয়া সড়কটিতে গর্তের কারনে কোন যানবাহন চলাচল করতে পারছে না। সড়কের দুই পাশে যানবাহন রেখে যাত্রীদেরকে চলাচল করতে হয়। সড়কটি সংস্কার করা না হলে এপার-ওপার যাওয়া আসা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে। 

রনগোপালদী ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সভাপতি বশির খান বলেন, ভেঙ্গে যাওয়া সড়কটি নিজেদের অর্থায়নে মাটি কেটে ভরাট করে দিয়েছি। কিন্তু বর্তমানে ধীরে ধীরে ভেঙ্গে গিয়ে বড় গর্তের সৃষ্টি হচ্ছে। এতে এলাকাবাসীসহ সাধারন যাত্রীরা ভোগান্তির সম্মুখিন হচ্ছে। বিগত ৩ বছর আগে ঘূর্নীঝড় আম্ফান ও ইজিগেট দিয়ে নেমে যাওয়া পানির চাপে সড়কটিতে বার বার গর্ত সৃষ্টি হয়। 

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী  প্রকৌশলী মো. মকবুল হোসেন জানান, সড়কটিতে গর্তের ব্যাপারে অতি শীর্ঘই খোঁজ খবর নিয়ে চলতি বছরেই সংস্কার করা হবে।


আরও খবর



নওগাঁয় ২২শ' লিটার মদ সহ দু'জনকে আটক

প্রকাশিত:Wednesday ০৪ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :


নওগাঁয় ২২শ' লিটার মদ সহ দু'জন মাদক কারবারিকে আটক করেছে র‌্যাব।

র‌্যাব-৫, জয়পুরহাট ক্যাম্প কর্তৃক পৃথক দুটি অভিযান পরিচালনা করে নওগাঁর ধামইরহাট এলাকা হতে নিজ বসতবাড়ীতে প্রস্তুুতের সময় ২ হাজার ২শ' ২০ লিটার চোলাই মদ সহ দু' জন মাদক কারবারিকে গ্রেফতার করেছে।

সত্যতা নিশ্চিত করে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট কাম্প থেকে প্রতিবেদক কে জানানো হয়, র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট ক্যাম্পের একটি চৌকশ অপারেশনাল দল কোম্পানী অধিনায়ক মেজর মোঃ মোস্তফা জামান এবং সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার মোঃ মাসুদ রানা'র নেতৃত্বে মঙ্গলবার ৩ জানুয়ারি দিনগত রাত পনে ১২ টারদিকে নওগাঁ জেলার ধামইরহাট থানাধীন মুকুন্দপুর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ১ হাজার ১শ' ৭০ লিটার চোলাই মদ সহ মাদক ব্যবসায়ী শ্রী সুদেব (২৫), পিতা-মৃত প্রদিপ, সাং-মুকুন্দপুর কামারপাড়া, থানা-ধামইরহাট, জেলা-নওগাঁকে নিজ বসতবাড়ীতে প্রস্তুুতের সময় হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়। এছাড়া রাত পনে ১ টারদিকে নওগাঁ জেলার ধামইরহাট থানাধীন কামারপাড়া এলাকায় পৃথক অভিযান পরিচালনা করে ১ হাজার ৫০ লিটার চোলাই মদ- সহ মাদক ব্যবসায়ী আসামী শ্রী শ্যামল(৫০),পিতা-মৃত রমেশ, সাং-বেলাম্বা এক মন্দির, থানা ও জেলা- জয়পুরহাটকে নিজ বসতবাড়ীতে প্রস্তুুতের সময় হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, উক্ত ধৃত আসামীদ্বয় দীর্ঘদিন যাবৎ নেশা জাতীয় চোলাই মদ অবৈধভাবে উৎপাদন করে নওগাঁ জেলার বিভিন্ন স্থানে মাদকসেবী ও মাদক কারবারীদের নিকট সরবরাহ করে আসছিল। 

এব্যাপারে নওগাঁ জেলার ধামইরহাট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ অনুসারে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেছে র‌্যাব।


আরও খবর



নওগাঁয় গৃহবধূর মৃত্যু, মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ

প্রকাশিত:Sunday ০১ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ২৭ January ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :


নওগাঁয় সিমারানী কবিরাজ (২৩) নামে এক গৃহবধূর'র মৃত্যুর ঘটনায় আত্নহত্যা নাকি হত্যা এনিয়ে দু'পক্ষের স্বজনদের মাঝে প্রশ্ন। স্থানিয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে মহাদেবপুর থানা ও নওহাটামোড় ফাঁড়ি পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে প্রাথমিক সুরতহাল রির্পোট অন্তে ময়না তদন্তের জন্য ঘটনাস্থল থেকে রবিবার সন্ধার পর মৃতদেহ টি উদ্ধার করে পুলিশি হেফাজতে নিয়েছে। এমৃত্যুর ঘটনাটি ঘটেছে নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার ভীমপুর ইউপির শিকারপুর গ্রামে। নিহত গৃহবধূ 

সিমারানী কবিরাজ শিকারপুর গ্রামের ভূতনাথ এর স্ত্রী। তাদের মাত্র ৩ বছর বয়সি এক কন্যা সন্তান রয়েছে। 

মেয়েকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়েছে দাবি করে সিমা রানী'র বাবা নিপেন চন্দ্র কবিরাজ জানান, আমি লোকজন মুখে জানতে পারি যে গত ৩ দিন ধরে আমার মেয়েকে জামাই ভূতনাথ মারপিট (নির্যাতন) করছে। এমন পরিস্থিতিতে আমি মেয়ের সংসার ও সুখের কথা চিন্তাকরে চালসহ খাবার সামগ্রী ও নাতনীর জন্য দুধ নিয়ে আজই সকালে মেয়ে জামাইের বাড়িতে এসেছিলাম। তিনি আরো জানান, আমি আসার পর আমাকে মেয়ে জানিয়েছিলো যে, আজ রবিবার সকালেও জামাই তাকে মারপিট (নির্যাতন) করেছে। মেয়ের মুখে মারপিটের কথা শোনার পরও আমি মেয়েকে বুঝিয়ে বলে দুপুরের খাবার খেয়ে বেলা ২ টারদিকে আমি নিজ বাড়িতে ফেরার সময় জামাই ভূতনাথ ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে বলেন আপনি আপনার মেয়েকে এখান থেকে নিয়ে যান। এসময় আমি জামাইকেও শান্ত হওয়ার পরামর্শ দিয়ে নিজ বাড়িতে আসার কিছুক্ষণ পরই খবর পাই যে আমার মেয়ে গলাই দড়ির ফাঁসদিয়ে আত্নহত্যা করেছে জানিয়ে তিনি আরো বলেন, আমার মেয়ে আত্নহত্যা করেনি তাকে হত্যাকরে ঘড়ের ভেতর গলাই দড়ি পেচিয়ে রেখে আত্নহত্যা বলে মিথ্যা প্রচার করা হচ্ছে।

অপরদিকে গৃহবধূ সিমারানী কবিরাজ এর স্বামীর পরিবার সহ প্রতিবেশী ও স্বজনরা জানান, ঘটনার দিন রবিবার ১ জানুয়ারী সকালে সিমারানী ও তার স্বামী ভূতনাথ পারিবারিক বিবাদে লিপ্ত হয় এবং তারই জেরধরে বাড়ির লোকজনের অজান্তে শয়ন ঘরের ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে বাশের তীরের সাথে গলায় দড়ির ফাঁস দেয়। বিকেল পনে ৩ টারদিকে জানাজানি হলে সাথে সাথে ঘরের দরজা ভেঙ্গে দড়ি কেটে তাকে নামানো হয় তবে নামানোর আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।

মৃতদেহ উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করে নওহাটামোড় পুলিশ ফাঁড়ির এস আই জিয়াউর রহমান জানান, গৃহবধূ মৃত্যুর খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছে প্রাথমিক সুরতহাল রির্পোট অন্তে ঘটনাস্থল থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। আগামীকাল সোমবার নওগাঁ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়ে ময়না তদন্ত সম্পূর্ণ করার পর স্বজনদের কাছে মৃতদেহ হস্তান্তর করা হবে। ময়না তদন্তের রির্পোট আসার পর মৃত্যুর কারন জানাযাবে, এব্যাপারে ইউডি মামলা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।


আরও খবর