Logo
শিরোনাম

সোনারগাঁয়ে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

 নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে তিন হাজার অবৈধ গ্যাসের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে তিতাস কর্তৃপক্ষ। এছাড়া মিষ্টি তৈরির একটি কারখানাকে জরিমানা করা হয়।

মঙ্গলবার উপজেলার দুলালপুর ও মোগড়াপাড়া এলাকায় অভিযান চালায় উপজেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমান আদালত। সোনারগাঁ উপজেলা সহকারি কমিশনার ইব্রাহিম জানান, দুলালপুর এলাকায় একটি চুন কারখানার অবৈধ গ্যাস সংযোগসহ তিন হাজার অবৈধ আবাসিক সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। পরে মোগড়াপাড়ায় দুটি খাবার হোটেলের অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার পাশাপাশি অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার তৈরির কারণে একটি মিষ্টির কারখানাকে পঞ্চাশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। 


আরও খবর



আজ সেই ভয়াল ১২ নভেম্বর

প্রকাশিত:শনিবার ১২ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

আতোয়ার রহমান মনির ,লক্ষ্মীপুর :

আজ ভয়াল ১২ নভেম্বর ১৯৭০ সালের এই দিনে দেশের উপকূলীয় অঞ্চল দিয়ে বয়ে যায় ইতিহাসের সবচেয়ে প্রলয়ঙ্কারী প্রাণঘাতি ঘূর্ণিঝড়প্রাণ হারান প্রায় ১০ লাখ মানুষ কিন্তু ৫২ বছরেও উপকূলে টেকসই বেড়িবাঁধ না হওয়ায় আতঙ্কে লক্ষ্মীপুরের মানুষ রাতে লক্ষ্মীপুর ভোলাসহ উপকূলীয় ১৮ জেলায় আঘাত হানে মহা প্রলয়ংকারী ঘূর্ণিঝড় গোর্কি স্মরণকালের সবচেয়ে ভয়াবহ ওই ঝড়ে প্রায় প্রাণ হারান প্রায় ১০ লাখ মানুষ

২৫ থেকে ৩০ ফুট উচ্চতার জলচ্ছাসে বিলীন হয়ে যায় লক্ষ্মীপুরের রামগতি কমলনগর বেড়িবাধ বিধ্বস্ত হয় ঘরবাড়ি ভেসে যায় গবাদি পশু হাঁস-মুরগী মুহূর্তেই ধ্বংসযজ্ঞে পরিণত হয় লক্ষ্মীপুরের উপকূলীয় জনপদ ক্ষতিগ্রস্ত হয় মাঠের ফসলসহ অসংখ্য গাছপালা সেই দুর্যোগের কথা মনে করে আজও শিউরে ওঠেন উপকূলের মানুষ

ঘূর্ণিঝড়ের গোর্কির ৫২ বছরেও টেকসই বাধ তৈরি হয়নি লক্ষ্মীপুর উপকূলে কারণে সাগরে লঘুচাপ সৃষ্টি হলেই এখনও উপকূলবাসীকে থাকতে হয় আতঙ্কে তবে উপকুলের ভাঙন এলাকা ঘুরে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশ্বাস দিয়েছেন, রামগতি-কমলনগরে টেকসই বেড়িবাধ তৈরিতে নেয়া ৩১শ কোটি টাকা প্রকল্প শিগগিরই দেখবে আলোর মুখ


আরও খবর

কর্মবিরতিতে নৌযান শ্রমিকরা

রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২




নওগাঁয় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে

ডিজিটাল সার্টিফিকেট ও স্মাট আইডি কার্ড বিতরণ

প্রকাশিত:সোমবার ০৭ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রির্পোটারঃ

নওগাঁ জেলা সদর উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ডিজিটাল সার্টিফিকেট ও স্মাট আইডি কার্ড বিতরণ। 

ডিজিটাল সার্টিফিকেট ও স্মাট আইডি কার্ড বিতরণ এর শুরুতেই বঙ্গবন্ধুর পরিবারের সকল সদস্য ও সকল শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনায় এক মিনিট নিরবতা পালন শেষে দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।

রবিবার ৬ নভেম্বর নওগাঁ সদর উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মির্জা ইমাম উদ্দিনের সভাপতিত্বে ভার্চুয়ালীতে যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথি হিসাবে বিতরণ কার্যক্রমের উদ্ধোধন করেন জাতীয় সংসদ, নওগাঁ সদর-৫, আসনের এমপি ব্যারিষ্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ রফিকুল ইসলাম রফিক, ভাইস চেয়ারম্যান ইলিয়াস তুহিন রেজা, সাবেক অধ্যক্ষ শরিফুল ইসলাম খান, সাবেক নওগাঁ জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার হারুন অল-রশিদ ও সাবেক নওগাঁ সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার গোলাম সামদানী প্রমুখ।

১০টি বুথের মাধ্যমে নওগাঁ সদর উপজেলার ৫শ' ৭৮ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে ডিজিটাল সার্টিফিকেট ও স্মাট আইডি কার্ড বিতরন করা হয়। এসময় সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সকল সদস্য ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা বীর মুক্তিযোদ্ধাদের যে সম্মান দিয়েছেন, বিগত কোন সরকারই তা দেয়নি। যতদিন আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আছে ততদিন মুক্তিযোদ্ধাদের এই সম্মান প্রদান অব্যাহত থাকবে। তাই আগামীতেও আওয়ামীলীগ সরকারকে ক্ষমতায় আনতে উন্নয়নের প্রতিক নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান জানান তিনি।


আরও খবর



রাণীনগরে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সপ্তাহের উদ্বোধন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৫ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

কাজী আনিছুর রহমান,রাণীনগর (নওগাঁ) :

নওগাঁর রাণীনগরে তিনদিন ব্যাপী ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সপ্তাহের উদ্বোধন করা হয়েছে। মঙ্গলবার উপজেলা সদরে ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন চত্বরে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে উদ্বোধন করেন স্থানীয় এমপি আলহাজ¦ আনোয়ার হোসেন হেলাল। 

“ দূর্ঘটনা-দূর্যোগ হ্রাস করি’বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ি” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে রাণীনগর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের আয়োজনে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহাদাত হুসেইন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রউফ দুলু। এছাড়া রাণীনগর ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন কর্মকর্তা দেলোযার হোসেন,উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মেহেদি হাসান প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে চলছে ফিটনেসহীন যানবাহন

প্রকাশিত:সোমবার ০৭ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

রুট পারমিট নেই। ফিটনেস নেই। অধিকাংশ চালক শিশু। রয়েছে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা। মানা হচ্ছে না সড়ক পরিবহন ও মোটরযান আইন। তবু ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে হাইওয়ে পুলিশের নাকের ডগা দিয়ে দাপটের সঙ্গে চলছে লেগুনাসহ যাত্রীবাহী বিভিন্ন ফিটনেসবিহীন যানবাহন। হাইকোর্টের নির্দেশনা বাস্তবায়নে কার্যকরী কোনো প্রদক্ষেপ নিচ্ছেন না হাইওয়ে পুলিশের কর্মকর্তারা। এ কারণে মহাসড়কে দেখা দিচ্ছে বিশৃঙ্খলা। প্রতিনিয়তই ঘটছে দুর্ঘটনা। প্রাণ হারাচ্ছে যাত্রী ও পথচারীরা।

জানা গেছে, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ড ও শিমরাইল মোড়ে মহাসড়ক দখল করে গড়ে উঠেছে লেগুনাসহ নিষিদ্ধ যানবাহনের স্ট্যান্ড। ফিটনেস বিহীন লক্কর-ঝক্কর লেগুনা ও ব্যাটারি চালিত তিন চাকার বাহন মহাসড়কে চলছে নির্বিঘ্নে। অথচ মহাসড়কে লেগুনা চলাচলে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। হাইওয়ে পুলিশ হাইকোর্টের নির্দেশনা বাস্তবায়নে উদাসীন। ফলে রুটপারমিট না থাকা সত্তেও চলছে এসব গাড়ি। প্রয়োজনের তাগিতে শিশু চালকদের হাতে জীবন বাজি রেখে এসব বাহনে চড়ছে যাত্রীরা। বাধা না থাকায় লেগুনা ও থ্রি-হুইলার চালকরা হয়ে পড়েছে বেপরোয়া। এতে সড়কে দেখা দিয়েছে বিশৃঙ্খলা।

অভিযোগ জানা গেছে, সঙ্গবদ্ধ চাঁদাবাজ চক্র হাইওয়ে পুলিশকে ম্যানেজ করে সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল মোড় থেকে ঢাকার যাত্রাবাড়ী পর্যন্ত দেড় শতাধিক লেগুনা চালাচ্ছে। শিমরাইল এক্সপ্রেস লিমিটেড (এস,ই,এল) নামক কোম্পানির ব্যানারে গাড়িগুলো চললেও নিয়ন্ত্রন করছেন যাত্রাবাড়ির পলাশ নামে একজন চাঁদাবাজ। পলাশ নিজেই সভাপতি হয়ে লেগুনা মালিক সমিতি নামে মনগড়া একটি কমিটি করে গাড়িপ্রতি দৈনিক ৫৭০ টাকা করে চাঁদা আদায় করছে। চাঁদার টাকার একটি অংশ পাচ্ছেন হাইওয়ে পুলিশ।

রফিকুল ইসলাম নামে একজন লেগুনা চালক জানায়, মহাসড়কে গাড়ি চালাতে চাঁদা দিতে হচ্ছে। গাড়ি প্রতি দৈনিক জিপি চাঁদা ৪৫০ টাকা, দিনে রাতে লাইনম্যান চাঁদা ১২০ টাকা। আগে সিদ্ধিরগঞ্জ ও যাত্রাবাড়ীতে চাঁদা নিতে হত। এখন সিদ্ধিরগঞ্জের চাঁদাও যাত্রাবাড়ীতে তোলা হয়। চাঁদা আদায়ের জন্য হাসিব ও তারেক নামে দুইজন লোক রয়েছে। তাছাড়া স্টিকার লাগানোর জন্য গাড়িপ্রতি মাসে ১ হাজার টাকা চাঁদা দিতে হয়। দৈনিক ৫৭০ টাকা চাঁদা, ১ হাজার টাকা মালিক জমা ও প্রায় দেড় হাজার টাকা তেল খরচ দেওয়ার পর কোনদিন শূন্য পকেটে বাসায় যেতে হয় কলে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

চাঁদা, তেল খরচ ও মালিক জমা দিয়ে যা থাকে সবই চালকদের। তবে পুলিশ গাড়ি আটক করলে ছাড়িয়ে আনার টাকা মালিকদের দিতে হয়। নিয়মিত চাঁদা দিলেও পুলিশ গাড়ি আটক কিংবা রেকার লাগালে চাঁদাবাজরা কোন সহায়তা করেনা। অথচ চাঁদা না দিলে যাত্রাবাড়ীতে গাড়ি আটকিয়ে রাখে।

শিমরাইল এক্সপ্রেস লিমিটেডের এমডি হাসানুজ্জামান পরশ বলেন, সিদ্ধিরগঞ্জে কোনো চাঁদাবাজি হয় না। চাঁদা নেয়া হয় যাত্রাবাড়ীতে। লাইনম্যান সাঈদ বলেন,চাঁদা ছাড়া কোন পরিবহন চলে না। সবাইকে ম্যানেজ করেই পরিবহন লাইন চালাতে হয়। চাঁদা আদায়কারী হাসিব বলেন, আমি বেতনভূক্ত কর্মচারী। কিছু জানতে চাইলে পলাশ ভাইয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।


আরও খবর

কর্মবিরতিতে নৌযান শ্রমিকরা

রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২




জামাত আন্তর্জাতিক ভাবেও স্বীকৃত সন্ত্রাসী দল....কাদের

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৮ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ |
Image

রোকসানা মনোয়ার

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন  বিএনপি -জামাত শুধু বাংলাদেশের নয়,আন্তর্জাতিক ভাবেও স্বীকৃত সন্ত্রাসী রাজনৈতিক শক্তি। 

তিনি আজ এক বিবৃতিতে বিএনপি নেতৃবৃন্দের মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন বক্তব্যের নিন্দা জানিয়ে একথা বলেন। 

দেশের মানুষ বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্বের সরাসরি নির্দেশে পরিচালিত বিভীষিকাময় অগ্নিসন্ত্রাসের কথা ভুলে যায়নি উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের তাঁর বিবৃতিতে বলেন ২০১৩ সালে শীর্ষ যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকার্য চলমান থাকা অবস্থায় ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচন প্রতিরোধ করতে এবং ২০১৫ সালে বেগম খালেদা জিয়া কর্তৃক ঘোষিত তথাকথিত অবরোধ কর্মসূচির নামে জামাত-বিএনপির সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা সারা বাংলাদেশে পেট্রোল বোমা ও অগ্নিসন্ত্রাসের মাধ্যমে নারকীয় হত্যাযজ্ঞ চালায়।

তিনি আরও বলেন সে সময় সারাদেশে বিএনপি জামাত পরিচালিত এই সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে দেড় শতাধিক মানুষ নিহত হয়, যা দেশীয় ও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে বিএনপি জামাতের নজিরবিহীন এই সন্ত্রাসের সংবাদ প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়।

বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াসহ শীর্ষ নেতারা টেলিফোন যোগে তাদের নেতাকর্মীদের নির্বিচারে মানুষ হত্যার নির্দেশনা দিচ্ছে,এমন টেলিফোন আলাপও গণমাধ্যমে প্রচারিত হয়েছিলো বলে দেশবাসীকে স্মরণ করিয়ে দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। 

তিনি বিবৃতিতে বলেন সারাদেশের বিবেকবান মানুষ যখন জামাত-বিএনপির অগ্নিসন্ত্রাসের নারকীয় ঘটনার বিচার দাবি করছে তখন বিএনপি নেতৃবৃন্দ নির্লজ্জভাবে অতীত অপকর্মের দায়ভার অস্বীকার করার হাস্যকর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে।

বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের বলেন নির্বাচন ব্যতিরেকে সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষমতা দখলের কোন সুযোগ আর বাংলাদেশে নাই।

সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের ম্যান্ডেট নিয়েই ক্ষমতায় আসতে হবে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বিবৃতিতে আরও বলেন ক্ষমতায় আসতে এর ব্যত্যয় ঘটিয়ে বিকল্প কোন পন্থা নেই, থাকবেও না।


আরও খবর