Logo
শিরোনাম
জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে

আত্মহত্যার চেষ্টার ঘটনায় দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ

প্রকাশিত:Sunday ৩০ October ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে বসত ভিটা রক্ষার জন্য জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে নিজের ও সন্তানদের শরীরে কোরোসিন ঢেলে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টার ঘটনায় ভুক্তভুগী শিরিন খান বাদি হয়ে রোববার সোনারগাঁ থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রধান আসামী হান্নান সহ দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রোববার তাদের মদনপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। 

গ্রেফতারকৃতরা হলো, হান্নান সাউদ ও আয়েছ আলী। তাঁরা দুজনেই রূপগঞ্জের তারাব পৌরসভার বরপা এলাকার বাসিন্দা। ভুক্তভোগী শিরিন খান সোনারগাঁ উপজেলার সাদিপুর ইউনিয়নের ভারগাঁও গ্রামের জোনায়েদ আহাম্মেদের স্ত্রী। 

থানায় দায়ের করা মামলার বিবরনীতে বাদি শিরিন খান উল্লেখ করেন, তিনি উপজেলার সাদিপুর ইউনিয়নের ভারগাঁও গ্রামে তার স্বামী ৮ বছর আগে ৬ শতাংশ জমি কিনে একটি দুইতলা পাকা ভবনের বাড়ি তৈয়ারী করে তিন সন্তানকে নিয়ে বসবাস করে আসছেন। গত তিন মাস আগে জানতে পারেন যে ব্যক্তি এ জমি বিক্রি করেছেন তিনি ১৫ বছর আগে জমিটি ব্যাংকে বন্ধকী রেখে ঋন গ্রহন করেছেন। সময় মতো ঋন পরিশোধ না করার কারনে এ সম্পতি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ নিলামে তুলবে। ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের নাম ব্যবহার করে রূপগঞ্জ উপজেলার বরপা গ্রামের আব্দুল হান্নান ও তার লোকজন তাদের বাড়ি ঘর ছেড়ে দেওয়ার জন্য হুমকি দেন। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের কর্মকর্তাদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে কোনো বিচার না পাওয়ার কারনেই আমি সন্তানদের নিয়ে আত্মহত্যা করতে চেয়েছিলাম।  

সোনারগাঁ থানার ওসি মাহাবুব আলম জানান, প্রতারনা করে জমি বিক্রির ঘটনায় ভুক্তভোগী শিরিন খান বাদি হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ অভিযান চালিয়ে হান্নান সাউদ ও আয়েছ আলী নামে দুজনকে গ্রেফতার করেছ । 


আরও খবর



নওগাঁর রাণীনগরে রাস্তা সংস্কার কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ

প্রকাশিত:Saturday ০৪ February ২০২৩ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :

নওগাঁর রাণীনগরে পাকা রাস্তা সংস্কার কাজে ব্যাপক অনিয়ম করার অভিযোগ উঠেছে। গত কয়েক দিন থেকেই অনিয়ম করেই রাস্তা সংস্কারের কাজ চলছে। 

স্থানীয়দের অভিযোগ, নওগাঁর রানীনগর উপজেলা এলজিইডি অফিসের কর্মকর্তাদের সাথে যোগসাজসে ঠিকাদার নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে রাস্তার কারপেটিংয়ের কাজ করছেন।

জানা যায়, রানীনগর উপজেলার বড়গাছা বাজার থেকে দেউলা পর্যন্ত পাকা রাস্তার মাঝে মাঝে কারপেটিং উঠে গিয়ে রাস্তারটির বেহলা দশায় পরিণত হয়। এতে দুর্ভোগে পরেন স্থানীয় লোকজনসহ রাস্তায় চলাচলকারী মানুষ। জনগণকে দুর্ভোগ থেকে রক্ষা করতে বড়গাছা গ্রামের জিরো পয়েন্ট থেকে দেউলা অভিমুখি দুই কিলো ২০০ মিটার পাকা রাস্তা সংস্কার করার জন্য এলজিইডি থেকে টেন্ডার দেওয়া হয়। এতে কাজের ব্যয় ধরা হয় ৭০ লাখ টাকার বেশি। টেন্ডারে মেসার্স দিপু এন্ড ব্রাদার্স নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজটি পান। এরপর রাস্তার পুরাতন কারপেটিং তুলে বেশ কিছুদিন থেকে রাস্তার সংস্কার কাজ শুরু করেন আব্দুর রহমান খান রেন্টু নামে ঠিকাদার।

জানা যায়, শুক্রবার রাস্তার কারপেটিং করার কাজ চলছে। উপজেলা এলজিইডি অফিসের একজন এসও কাজটি তদারকির দায়িত্বে রয়েছেন। আর তার সামনেই ঠিকাদার রেন্টু তার কাজের শ্রমিক দিয়ে নিম্মমানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে রাস্তার কারপেটিং কাজ করছে।

স্থানীয় ইকবাল হোসেন, এমদাদুল সহ আরো কয়েক জন জানান, কাজের শুরু থেকেই কাজে ব্যাপক অনিয়ম করা হচ্ছে। রাস্তার পুরাতন কারপেটিং তুলে ওর উপরেই রাস্তায় রোলার করেছে। আবার নিম্নমানের পাথর, ডাষ্ট এবং কম পরিমান বিটুমিন দিয়ে কারপেটিংয়ের কাজ চালানো হচ্ছে। এভাবে অনিয়ম করে কাজ চলতে থাকলে রাস্তা বেশি দিন টিকসই হবে না। সঠিকভাবে রাস্তার কাজ করার দাবি জানান স্থানীয়রা।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে কাজের ঠিকাদার আব্দুর রহমান খান রেন্টু বলেন, রাস্তা সংস্কার কাজে কোন অনিয়ম হয়নি। নিয়ম অনুযায়ী কাজ করা হচ্ছে।

রাণীনগর উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) ইসমালই হোসেন বলেন, কাজ দেখভালের জন্য অফিসের লোক সব সময় আছে। আমি নিজেও রাস্তায় গিয়েছি। নিময় অনুযায়ী কাজ করা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে নওগাঁ এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী তোফায়েল আহম্মেদ বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে রাস্তার কাজে অনিয়মের সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


আরও খবর



৫০টি মডেল মসজিদ উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:Monday ১৬ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Monday ০৬ February ২০২৩ |
Image

একযোগে ৫০টি মডেল মসজিদ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শত সেতু- শত সড়ক উদ্বোধনের পর এবার অর্ধশত মসজিদের উদ্বোধন হলো।এ সময় প্রধানমন্ত্রী সবাইকে ইসলামের সঠিক আদর্শে জীবন যাপনের আহবান জানান।

গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি, যুক্ত হয়ে রংপুর সিলেট ও খুলনায় এসব মসজিদের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।নান্দনিক স্থাপত্যে ও ইসলাম চর্চার সুযোগ সুবিধা নিয়ে তৈরি হওয়া মসজিদগুলো একেকটি সংস্কৃতিকেন্দ্র হিসাবেও কাজে লাগবে। যেখানে হজযাত্রীরা প্রশিক্ষণ ও নিবন্ধনসহ প্রস্তুতিমূলক কাজগুলো করতে পারবেন। থাকছে ইমাম প্রশিক্ষণ, নারী- পুরুষের নামাজের ব্যবস্থা, লাইব্রেরি , অটিজম কর্ণার, শিশু ও গণশিক্ষা কেন্দ্রসহ- পূর্ণাঙ্গ ইসলাম চর্চার সবকিছু। 


আরও খবর



নেত্রকোনায় ২৮ লাখ টাকার ইলিশের চালান সহ চোর আটক

প্রকাশিত:Friday ২৭ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Monday ০৬ February ২০২৩ |
Image

মির্জা হৃদয় সাগর, জেলা প্রতিনিধি (নেত্রকোনা) :

নেত্রকোনায় ২৮ লাখ টাকার চোরাই ইলিশসহ এক গাড়ি চালককে আটক করেছে পুলিশ।  বুধবার সকালে জেলার কলমাকান্দার বিষমপুর গ্রামে থেকে ইলিশ মাছের ৫৬ টি ককশিট বক্স জব্দ করে এবং হাসান মিয়া(২৮) নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে সিধলী তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ। 

বুধবার বিকেলে জেলা পুলিশের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজের মাধ্যমে এই তথ্য নিশ্চিত করে জেলা পুলিশ। 

আটককৃত হাসান মিয়া কিশোরগঞ্জ জেলার হোসেনপুর উপজেলার গনমানপুরুরা গ্রামের আব্দুল মোতালেবের ছেলে। 

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার রাতে চিটাগাং এর একটি মাছের আড়ত থেকে প্রতিবারের মত বাজার জাত করার জন্য ইলিশ মাছের একটি চালান নিয়ে যাত্রাবাড়ীর উদ্দেশ্যে রওনা দেন হাসান মিয়া। পথে হাসানের সহযোগী শান্ত মিয়া, হক মিয়া ও তাহের মিয়ার সাথে মেবাইলে যোগাযোগ করে মাছের চালান চুরির পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা মাফিক মাছের চালান যাত্রাবাড়ীর পরিবর্তে গাজীপুরে এসে গাড়ি পরিবর্তন করে মাছগুলো নিয়ে চলে আসেন সীমান্তবর্তী উপজেলা কলমাকান্দার বিষমপুর গ্রামে তাহের মিয়ার বাড়িতে। লোক চোখ আড়াল করতে রাতের আঁধারে বাড়ির পাশে মাছের বক্সগুলো লুকিয়ে রাখেন হাসান মিয়া। সকালে খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে সেখান থেকে মাছের বক্সগুলো জব্দ করে। জব্দকৃত মাছের বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় ২৮ লাখ ৭০ হাজার টাকা বলে জানায় পুলিশ। বুধবার সকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কলমাকান্দার বিষমপুর গ্রামে প্লাস্টিক টেপ পেপারে মোড়ানো বেশকিছু ককশিট বক্সের সন্ধান পায় পুলিশ। পরে ওই গ্রামের হক মিয়ার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে পুলিশ বাক্সগুলো জব্দ করে। এ সময় বক্সগুলো খুলে প্রতিটি বক্সেই ইলিশ মাছ পাওয়া যায়। পরে ওই বাড়িতে অবস্থানরত স্থানীয় এক মহিলাকে জিজ্ঞাসাবাদে একপর্যায়ে মাছগুলো হাসান মিয়ার বলে জানান। এদিকে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় ঐগ্রাম অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত হাসান মিয়াকে আটক করে সিধলী তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ। 

সিধলী তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মোঃ এনামুল হক জানান, আমরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিষমপুর গ্রামে তাহের মিয়ার বাড়ির পিছনে কিছু সন্দেহজনক ককশিটে বক্সের সন্ধান পাই। পরে ওই অভিযান চালিয়ে বাক্স গুলো জব্দ করে, তার ভিতরে ইলিশ মাছে দেখতে পাই। তারপর তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় হাসান মিয়া নামে এক গাড়ি চালককে আটক করা সম্ভব হয়। আটককৃতকে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে জানায় মাছগুলো তিনি চট্টগ্রাম থেকে রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে পৌঁছে দেওয়ার কথা থাকলেও মাছের চালান তিনি কলমাকান্দার বিষমপুর গ্রামে নিয়ে আসে। আমরা ইতিমধ্যে মাছের যে প্রকৃত মালিকের সাথে কথা বলেছি। অভিযুক্ত হাসান মিয়া নিয়মিতই মাছের চালান নিয়ে চট্টগ্রাম থেকে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় যাতায়াত করতেন এরই মাঝে তিনি মাছগুলি চুরির পরিকল্পনা করেন। 

তিনি আরো জানান, আটককৃত হাসান মিয়া আমাদের হেফাজতে রয়েছে। মাছের যে প্রকৃত মালিক তিনি গাজীপুরের কালিয়াকৈর থানায় মাছ চুরির বিষয়ে একটি অভিযোগ করেছে। অভিযোগের ভিত্তিতে ব্যবস্তা নেওয়া হচ্ছে। আমরা আসামি এবং আলামত তাদের কাছে হস্তান্তর করব।


আরও খবর



রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে কোকোর মৃত্যু

প্রকাশিত:Tuesday ২৪ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

বিএনপি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার বলে মন্তব্য করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বিএনপির চলমান আন্দোলন সফল হবে জানিয়ে তিনি বলেন, আন্দোলনের মাধ্যমেই সরকারের পতন ঘটানো হবে।

খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুবার্ষিকীতে, বনানীতে তার কবরে শ্রদ্ধা জানিয়ে এসব কথা বলেন ফখরুল। এ সময় বিশেষ দোয়ায় অংশ নেন দলের নেতারা। ফখরুল বলেন, কোকো কোন রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন না, তারপরও প্রতিহিংসার শিকার হয়েছেন। দেশের মানুষ গণতন্ত্র উদ্ধারে আন্দোলন করে যাচ্ছে। আন্দোলনের মাধ্যমেই সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করা হবে বলেও মন্তব্য করেন বিএনপির এই নেতা।  


আরও খবর



মোরেলগঞ্জে খালে বাঁধ দেওয়ায় ৬শ’ হেক্টর বোরো ফসলের ক্ষতির সম্ভাবনা

প্রকাশিত:Monday ০৬ February ২০২৩ | হালনাগাদ:Tuesday ০৭ February ২০২৩ |
Image

এম.পলাশ শরীফ, বাগেরহাট প্রতিনিধি :

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে একটি প্রবাহমান খালে বাঁধ দিয়ে পানি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে একটি প্রভাবশালী মহল। শত শত কৃষকের এখন ৬শ হেক্টর বোরো ধানের ক্ষতির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। স্থানীয় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা সোমবার সকালে ওই মাঠে বাঁধটি অপসারনের দাবিতে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ করে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের প্রতি জরুরী ভিত্তিতে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন তারা। সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, রামচন্দ্রপুর ইউনিয়নের ছোট কুমারখালী গ্রামজুড়ে চিংড়াখালী বলেশ্বর নদীর প্রবাহমান তালতলা খালের প্রশাখা কুমারখালী খাল। এ খালটির একদিকে পলিপড়ে ভরাট হয়ে গেছে। অন্যদিকে গত দুই সপ্তাহের পূর্বে ওই গ্রামের মিন্টু হাওলাদার ব্যক্তিসার্থে খালে বাঁধ দিয়ে পানি চলাচল বন্ধ করে রেখেছেন। যে কারনে কুমারখালী, বৌলপুর, কিছমত বৌলপুর এ ৩টি মৌজায় বোরো ধানের প্রায় ১ হাজার বিঘার বড় ফসলের মাঠে পানি প্রবেশে বাঁধা হওয়ায় পুরো মাঠ ফেটে এখন চৌচির হয়ে পড়েছে। এতে ৩ গ্রামের ৮ শতাধিক কৃষক এখন তাদের জমিতে পানি তুলতে না পারায় হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। বোরো ধানের বীজতলা মরে যাওয়ার সম্ভাবনায় আতংকে রয়েছে তারা। মাঠের মধ্যে বিভিন্নস্থানে বোরো বীজ হলুদ রং ধারন করে শুকিয়ে যাচ্ছে বীজতলা। হাজার হাজার টাকা ব্যায় করে কৃষক তাদের বোরো ফসল ঘরে তুলতে পারবে কিনা এ নিয়ে শংশয় রয়েছেন তারা। ওই ফসলী মাঠের জমির মালিক আব্দুর রহিম ফকির, নোমান খন্দকার, শহিদ ফকির, বাবু হাওলাদার, মারুফ শিকদার, ছালাম ফকির, সাইদ ফকির, শহিদুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান সহ একাধিক কৃষকরা বলেন, বছরে শুধুমাত্র বোরো ধানের ফসল ফলায় তারা। যা থেকে চাহিদা মিটিয়ে ৫০ থেকে ৫৫ মন ধান বাজারে ধান বিক্রি করে পুরো বছর পরিবারের সংসার চলে তাদের। কৃষকের বিঘাপ্রতি জমিতে খরচ হয়েছে ২০/২৫ হাজার টাকা। এখন বাঁধের কারনে প্রথম গোনে মাঠে পানি তুলতে পারেনি। এ গোনেও যদি পানি তুলতে না পারে তাহলে আর ফসল হবে না। রেকর্ডীয় খাল কিভাবে বাঁধ দিয়ে এ ভোগান্তি করেছে আমাদের। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যানকে অবহিত করেও কোন সমাধান হয়নি। এ বিষয়ে মিন্টু হাওলাদার বলেন, ৪ বছর ধরে আমার জমি থেকে পানি তুলেছে। রেকর্ডীয় খালটি উত্তর পাসে। এ বছর আর পানি তুলতে দিবো না। এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি অফিসার আকাশ বৈরাগী জানান, বোরো মৌসুমে কৃষক মাঠে পানি দিতে না পারলে বীজতলা সম্পূন্ন ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে ফসল হবে না। ওই গ্রামের বিষয়টি তিনি অবহিত নন। তবে, উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তাকে সরেজমিনে পাঠানো হবে। বৃদ্ধমান সমস্যার বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে কথা বলে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর