Logo
শিরোনাম
প্রেম প্রত্যাখান করায় স্কুল ছাত্রীকে অপহরণ

র‌্যাবের অভিযানে ছাত্রী উদ্ধারসহ অভিযুক্ত আটক

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ এপ্রিল ২০২৩ | ১৩৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:

প্রেম প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় ক্ষিপ্ত হয়ে স্কুল পড়ুয়া এক ছাত্রীকে অপহরণ করলেন যুবক-অভিযোগ পেয়ে দ্রুত অভিযান পরিচালনা করে ভিকটিম ছাত্রীকে উদ্ধার সহ অভিযুক্ত যুবক কে আটক করেছেন র‌্যাব।

সত্যতা নিশ্চিত করে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট কাম্প থেকে প্রতিবেদককে জানানো হয়, বুধবার ১৫ মার্চ পূর্বরাত সোয়া ২টারদিকে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট ক্যাম্পের একটি চৌকস আভিযানিক দল কোম্পানী কমান্ডার মেজর মোঃ মোস্তফা জামান এর নেতৃত্বে জয়পুরহাট জেলার সদর থানাধীন পূর্ব পেচুলিয়া এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ভিকটিম স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধার পূর্বক অপহরণকারী অভিযুক্ত আসামী মোঃ মাহি হোসেন (১৮) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত যুবক মাহী হোসেন জয়পুরহাট জেলা সদর উপজেলার পেচুলিয়া গ্রামের রহিম মোল্লার ছেলে।

র‌্যাব আরো জানান, (ভিকটিম) ১৪ বছর বয়সী ছাত্রী (মোছাঃ--- আক্তার) ও অভিযুক্ত আসামী পাশাপাশি গ্রামের বাসিন্দা।

অভিযুক্ত যুবক মোঃ মাহি হোসেন (১৮) পূর্ব থেকেই ভিকটিমকে পছন্দ করতো এবং এক পর্যায়ে সে ভিকটিমকে প্রেমের প্রস্তাব দিলে ভিকটিম ছাত্রী তা প্রত্যাখান করেন। এরপর মাহী হোসেন ক্ষিপ্ত হয়ে মঙ্গলবার ১৪ মার্চ (ভিকটিম) স্কুল ছাত্রীকে স্কুল হতে বাড়ি ফেরার পথে ইচ্ছার জোরপূর্বক একটি অটোরিক্সাতে করে উঠিয়ে মাহী হোসেন তার নিজ বাড়িতে নিয়ে যায়। ঘটনাটি লোক মারফত ভিকটিমের পরিবার জানতে পেরে তারা

র‌্যাব ক্যাম্প জয়পুরহাটে এসে অভিযোগ করেন। অভিযোগ করার পরই র‌্যাব-৫, জয়পুরহাট এর একটি চৌকস আভিযানিক দল বিষয়টি নিয়ে অতিদ্রুত কাজ করে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে তাদের অবস্থান সনাক্তের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা করে রাতেই অভিযুক্তের বাড়ি থেকে ভিকটিম ছাত্রীকে উদ্ধার সহ অভিযুক্ত অপহরণকারী মোঃ মাহি হোসেনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। এব্যাপারে নিকটস্থ থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব


আরও খবর

জেলেই থাকতে হচ্ছে সাহেদের

মঙ্গলবার ২৮ মার্চ ২০২৩




আগামী সপ্তাহে আঘাত হানতে পারে কালবৈশাখী

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ এপ্রিল ২০২৩ | ৬১জন দেখেছেন

Image

মুন্সি মো: আল ইমরান :বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গে একাধিক জেলায় আগামী সপ্তাহে কালবৈশাখীর আশঙ্কা রয়েছে। আলিপুর আবহাওয়া দপ্তরের কর্মকর্তা গণেশ কুমার দাশ হিন্দুস্তান টাইমসকে জানিয়েছেন, উত্তর প্রদেশ থেকে মহারাষ্ট্র পর্যন্ত একটি গভীর অক্ষরেখা বিস্তৃত রয়েছে। তাই বিহার, ছত্তিশগড়ের দিকে আবহাওয়া সংক্রান্ত কিছু গতিবিধি ধরা পড়ছে, যা ধীরে-ধীরে পশ্চিমবঙ্গের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

শনিবার পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, পশ্চিম বর্ধমান, পশ্চিম মেদিনীপুর, বীরভূম, মুর্শিদাবাদ, মালদা, উত্তর দিনাজপুর এবং দক্ষিণ দিনাজপুরের কয়েকটি জায়গায় বজ্রবৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়া, পুরুলিয়া, পশ্চিম মেদিনীপুর, বাঁকুড়া, পশ্চিম বর্ধমান, বীরভূম এবং মুর্শিদাবাদের কয়েক জায়গায় ঘণ্টায় ৩০ থেকে ৪০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, শনিবার কলকাতাসহ পশ্চিমবঙ্গের উপকূলবর্তী জেলাগুলোতে বৃষ্টির সম্ভাবনা খুবই কম। কারণ যে অক্ষরেখা রয়েছে, তা এত নিচে নামবে না। সেটি পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, বীরভূমের পর বাংলাদেশের দিকে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

ভারতীয় আবহাওয়া দপ্তর বলছে, আগামী সপ্তাহে বুধবার ও বৃহস্পতিবার কালবৈশাখী ঝড় হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। এটি দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলোতে আঘাত হানতে পারে। পরবর্তীতে আরও নিখুঁতভাবে কালবৈশাখীর পূর্বাভাস দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ভারতীয় কর্মকর্তারা।

১) ১৭ ও ১৮ মার্চ কালবৈশাখী ঝড় বাংলাদেশে প্রবেশ করার আশঙ্কা বেশি রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের ওপর দিয়ে, যা পরবর্তীতে দক্ষিণ-পূর্ব দিকে ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগের দিকে অগ্রসর হতে পারে। এই দুদিন ব্যাপক বজ্রপাত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ফলে এই দুই দিনে ২০২৩ কালবৈশাখী মৌসুমে বজ্রপাতের কারণে প্রথম মানুষ মারা যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

এই দুই দিনে সকাল ৯টার পর থেকে দুপুর ১২টার মধ্যে ময়মনসিংহ, কিশোরগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ জেলায় তীব্র বজ্রপাতের আশঙ্কা রয়েছে। রংপুর বিভাগের জেলাগুলোতে এই দুই দিন তীব্র বজ্রপাতের ঝুঁকি, সেই সঙ্গে বজ্রপাতে মানুষের মৃত্যুর প্রবল আশঙ্কা রয়েছে।

২) ১৮ ও ১৯ মার্চ বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের জেলাগুলোতে কালবৈশাখী ঝড়, শিলাবৃষ্টি ও তীব্র বজ্রপাতের আশঙ্কা রয়েছে।

দিনের বেলায় দেশের সব জেলায় বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। রাজশাহী, ময়মনসিংহ, সিলেট ও রংপুর বিভাগের জেলাগুলোতে কালবৈশাখীর তীব্রতা সবচেয়ে বেশি হতে পারে।

 


আরও খবর

বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ মডেল

শনিবার ০১ এপ্রিল ২০২৩




নওগাঁয় নতুন করে ঘর পাচ্ছেন আরো ১ হাজার ২শ' ৯০টি গৃহহীন পরিবার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২১ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ এপ্রিল ২০২৩ | ৯৬জন দেখেছেন

Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন :

সরকারের আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় চতুর্থ পর্যায়ে নওগাঁয় আরো ১ হাজার ২শ' ৯০টি গৃহহীন পরিবার এর মুখে হাঁসি ফুটতে যাচ্ছে। মুজিববর্ষ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় নওগাঁ জেলার ৯টি উপজেলায় বসতহারা পরিবারকে এসব নতুন ঘর করে দেয়া হচ্ছে।

মঙ্গলবার সকাল সারে ১০টায় নওগাঁ জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এসব ঘর হস্তান্তর উপলক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে নওগাঁ জেলা প্রশাসক খালিদ মেহেদী হাসান পিএএ সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।

জেলা প্রশাসক খালিদ মেহেদী হাসান বলেন, ১ম, ২য় ও ৩য় পর্যায়ের কার্যক্রমের ধারাবাহিকতায় চতুর্থ পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক সারাদেশে ৩৯ হাজার ৩শ' ৬৫ ভৃমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মাঝে খাস জমি ও ঘর প্রদান করা হবে। তারই ধারাবাহিকতায় নওগাঁয় চতুর্থ পর্যায়ে ১ হাজার ২শ' ৯০টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। আগামী ২২ মার্চ বুধবার সকাল ১০ টায় গণভবন থেকে ভিড়িও কনফারেন্সের মাধ্যমে সারা দেশের ন্যায় নওগাঁতে এসব নতুন ঘড় হস্তান্তরের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তারপরে নওগাঁয় এসব ঘর গৃহহীন ও ভূমিহীনদের মাঝে হস্তান্তর করা হবে।

তিনি আরো বলেন, ইতিমধ্যে ১ হাজার ২শ' ৯০টি পরিবারকে ২ শতক খাস জমি বন্দোবস্ত পূবক করা হয়েছে। এসব গৃহ নির্মানের কাজের গুনগত মান নিশ্চিত করে ইতিমধ্যে ৫০ শতাংশ কাজ সমাপ্ত হয়েছে এবং কবুলিয়ত ও নামজারি সম্পন্ন হয়েছে। প্রতিটি গৃহ নির্মাণে বরাদ্দ ধরা হয়েছে ২ লাখ ৮৪ হাজার টাকা। প্রতিটি গৃহে দুইটি কক্ষ, একটি টয়লেট, রান্নাঘর, কমনস্পেস ও একটি বারান্দা আছে। এসব গৃহ প্রত্যেক পরিবারের জন্য আলাদা করে নির্মাণ করা হয়েছে।

এর মধ্যে নওগাঁ সদর উপজেলায় ১শ' ২০টি, বদলগাছীতে ১০০টি, ধামইরহাটে ১শ' ৪০টি, পত্নীতলায় ১শ' ৪৬টি, মান্দায় ১শ' ৭৭টি, মহাদেবপুরে ১শ' ১৬টি, নিয়ামতপুরে ১শ' ৬০টি, পোরশায় ১শ' ৫৪টি, সাপাহারে ১শ' ৭৭টি গৃহহীন ও ভৃমিহীন পরিবার এসব ঘর পাবেন। এর মধ্যে মহাদেবপুর, ধামইরহাট ও পত্নীতলা উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষনা করা হবে বলেও জানান জেলা প্রশাসক।

সংবাদ সম্মেলনে, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল করিম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মিল্টন চন্দ্র রায়, নওগাঁ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মির্জা ইমাম উদ্দিন সহ প্রশাসনের অন্যন্যা কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য এর আগে নওগাঁ জেলায় প্রথম ধাপে ১ হাজার ৫৬টি ও দ্বিতীয় ধাপে ৫শ' ২টি, ৩য় পর্যায়ে ৭শ' ৩৭টি সহ মোট ২ হাজার ২শ' ৯৫ গৃহহীন ও ভৃমিহীন পরিবারকে পুনর্বাসন (নতুন ঘড়) দেওয়া হয়েছে।


আরও খবর

বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ মডেল

শনিবার ০১ এপ্রিল ২০২৩




চলচ্চিত্র দুনিয়ার সবচেয়ে বড় স্বীকৃতি অস্কার :যাদের হাতে গেল

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ এপ্রিল ২০২৩ | ৭৫জন দেখেছেন

Image

৯৫তম একাডেমি অ্যাওয়ার্ডসের আসর বসেছে যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলসে। চলচ্চিত্র দুনিয়ার সবচেয়ে বড় স্বীকৃতি অস্কার পুরস্কার প্রাপ্তদের নাম ঘোষণা শুরু হয়েছে।


বেস্ট ডকুমেন্টারি শর্ট ফিল্ম


এবারের আসরে ভারতের হয়ে প্রথম অস্কার পেল দ্য এলিফ্যান্ট হুইস্পারার্স। সেরা স্বল্পদৈর্ঘ্যের তথ্যচিত্র বিভাগে মনোয়ন পেয়েছিল গুনিত মোঙ্গা প্রযোজিত তামিল ভাষার এই ছবি।


অস্কারে সেরা অ্যানিমেটেড ছবি


এ বছর অস্কার আসরে সেরা অ্যানিমেটেড ছবির পুরস্কার পেয়েছে মেক্সিকান ছবি নির্মাতা গুইলারমো দেল তোরোর অ্যানিমেশন ছবি পিনোচ্চিও।


সেরা পার্শ্ব অভিনেতা


এ বছর অস্কার আসরে সেরা পার্শ্ব অভিনেতার পুরস্কার জিতেছেন ভিয়েতানিমিজ-আমেরিকান অভিনেতা কে হুই কুয়ান। এবারই প্রথমবারের মতো অস্কারের জন্য মনোনিত হয়েছিলেন তিনি। এভরিথিং এভরিহোয়ার অল এট ওয়ান্স ছবিতে অসাধারণ অভিনয়ের স্বীকৃতি এ পুরস্কার।


সেরা পার্শ্ব অভিনেত্রী


এভরিথিং এভরিহোয়ার অল এট ওয়ান্স ছবিতে দুর্দান্ত অভিনয় করার সুবাদে এ বছর সেরা পার্শ্ব অভিনেত্রীর পুরস্কার জিতেছেন জেমি লি কোর্তোয়া। এ ছবিটির অভিনেতা কে হুই কুয়ান সেরা পার্শ্ব অভিনেতার পুরস্কার জিতে নেন। এর মাধ্যমে সেরা পার্শ্ব অভিনেতা এবং অভিনেত্রী দুটি পুরস্কারই পেলেন একই ছবিতে কাজ করা দুই শিল্পী।


স্বল্প দৈর্ঘ্যের সেরা লাইভ অ্যাকশন


এ ক্যাটাগরিতে এবার পুরস্কার জিতে নিয়েছেন টম ব্রাকলে এবং রস হোয়াইটের স্বল্পদৈর্ঘ্যর ছবি অ্যান আইরিশ গুডবাই


সেরা সিনেমাটোগ্রাফি


সেরা সিনেমাটোগ্রাফির পুরস্কার জিতেছে অল কুয়াইট অন দ্য ওয়েস্টান ফ্রন্ট। ১৯২৯ সালে এরিখ মারিয়া যুদ্ধবিরোধী এ বিখ্যাত উপন্যাসটি লিখেন। এর ওপর সিনেমাটোগ্রাফি তৈরি করেছেন জেমস ফ্রেন্ড। এই উপন্যাস এবং সিনেমোটাগ্রাফিটি প্রথম বিশ্বযুদ্ধের ভয়াবহতার ওপর লেখা ও তৈরি করা হয়েছে।


সেরা মেকাপ আর্টিস্ট


দ্য হোয়াল ছবিতে অসাধারণ কাজ করার সুবাদে সেরা মেকাপ আর্টিস্টের পুরস্কার জিতেছেন আদ্রিয়েন মোরোট, জুডি চিন এবং অ্যান্নিমারি ব্র্যাডলি।


দ্য হোয়াল ছবিতে অভিনেতা ব্র্যান্ডস জেমস ফ্রেসার একজন ইংরেজি শিক্ষকের অভিনয় করেন। তাকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে মেকাপ আর্টিস্টরা কঠোর পরিশ্রম করেন।


সেরা আন্তর্জাতিক ছবি


৯৫তম অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডে দ্বিতীয় পুরস্কার জিতে নিয়েছেন অল কুয়াইট অন দ্য ওয়েস্টান ফ্রন্ট ছবিটি। সেরা সিনেমাটোগ্রাফির পর এটি সেরা আন্তর্জাতিক ছবির খেতাব জিতে নিয়েছে।


সেরা এনিমেটেড শর্ট ফিল্ম

দ্য বয়, দ্য মোল, দ্য ফক্স এন্ড দ্য হর্স নামের এনিমেশন ছবি জিতেছে সেরা এনিমেটেড শর্ট ফিল্মের পুরস্কার। ছবিটি তৈরি করেছেন চার্লি ম্যাকাসি এবং ম্যাথু ফ্রিউড।


আরও খবর

মা হলেন মাহিয়া মাহি

বুধবার ২৯ মার্চ ২০২৩

শাকিবকে বাঁচাতে মরিয়া অপু-বুবলী

মঙ্গলবার ২৮ মার্চ ২০২৩




বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেবে মালয়েশিয়া

প্রকাশিত:বুধবার ২২ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ এপ্রিল ২০২৩ | ৯৫জন দেখেছেন

Image

বাংলাদেশসহ ১৫টি দেশ থেকে কর্মী নেওয়া স্থগিত করেছে মালয়েশিয়া। সম্প্রতি দেশটির পক্ষ থেকে এমন সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়েছে। তবে এরই মাঝে সুখবর হলো- বাংলাদেশ থেকে পুরুষ নিরাপত্তাকর্মী ও নারী গৃহকর্মী নেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছে দেশটি। এ নিয়ে কথা চলছে। দুই দেশের মধ্যে মিটিংও হয়েছে। শিগগিরই সিদ্ধান্ত আসতে পারে। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের একাধিক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন বলেন, তারা বাংলাদেশ থেকে সিকিউরিটি গার্ড ও গৃহকর্মী নেবে বলে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। আমরা প্রথমটার বিষয়ে খুব উৎসাহী। তবে গৃহকর্মীর বিষয়ে আমরা বলেছি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে সিদ্ধান্ত জানাব।

এর আগে বিভিন্ন খাতে পুরুষ কর্মীরা কাজের জন্য মালয়েশিয়ায় গেছেন। তারা কৃষি থেকে শুরু করে কারখানাতে কাজ করছেন। এখনো কর্মী যাওয়া অব্যাহত আছে বলে জানা গেছে। তবে এই প্রথম নিরাপত্তাকর্মী হিসেবে পুরুষ নেওয়ার আগ্রহ জানিয়েছে মালয়েশিয়া। তারা হবেন প্রশিক্ষিত। এজন্য বাংলাদেশ সেনাকল্যাণ সংস্থার সঙ্গে দেশটির প্রতিনিধিরা দেখাও করেছেন। তবে কতজন পুরুষ নিরাপত্তাকর্মী তারা নেবে এবং কি ধরনের বেতন ও সুবিধা দেওয়া হবে তা তারা জানাননি।

সূত্র জানায়, দেশটির প্রতিনিধিরা সংস্থাটির সংশ্লিষ্টদের সাথে বৈঠকে আগ্রহের কথা প্রকাশ করেছেন। তবে এখনো বিষয়টি চূড়ান্ত হয়নি। এই খাতে যারা যাবেন তারা ভালো বেতন পাবেন বলেও আশা করছে মন্ত্রণালয়।

অন্যদিকে বর্তমানে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদি আরব ও জর্ডানসহ আরও কয়েকটি দেশে বাংলাদেশ থেকে নারী গৃহকর্মী পাঠানো হচ্ছে। তবে প্রতি বছর নির্যাতিত হয়ে নারী গৃহকর্মী ফিরে আসার সংখ্যাও উদ্বেগজনক। সেই পরিপ্রেক্ষিতে মালয়েশিয়ায় নারী গৃহকর্মী গেলে গাইডলাইন কি হবে, তারা কিভাবে থাকবেন, বেতন কত পাবেন এবং কি প্রসেসে দেশটিতে যাবেন- তা নিয়ে ভাবছে বাংলাদেশ সরকার।

মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র জানিয়েছে, দেশটিতে প্রাথমিকভাবে ১ হাজার নারী গৃহকর্মী পাঠানো হবে। এই নারীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা, কাজের দক্ষতা ও ভাষা জ্ঞান কি হবে এবং তাদের যাওয়ার খরচ কারা বহন করবে ও তারা কী কী সুবিধা পাবেন তা নিয়ে একটি গাইডলাইন তৈরিতে শিগগির হাত দেবে মন্ত্রণালয়। এরপর সেই গাইডলাইন অনুযায়ী বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়ায় নারী গৃহকর্মী পাঠানো হবে।

প্রবাসী মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, মালয়েশিয়ায় এর আগে অন্য খাতগুলোতে কর্মী পাঠাতে গিয়ে সিন্ডিকেট হয়েছে। এজেন্সিগুলোর স্বেচ্ছাচারিতা এবং কর্মীদের কাছ থেকে খরচ বাবদ বেশি টাকা আদায়ের অভিযোগ ছিল। এসবের পরিপ্রেক্ষিতে পুরুষ নিরাপত্তাকর্মী ও নারী গৃহকর্মী পাঠানোর ক্ষেত্রে কোনো অনিয়ম ও অস্বচ্ছতা যেন না হয় তা ভাবছেন তারা। এজন্য একটু সময় নিয়ে সুন্দর একটি গাইডলাইন তৈরি করা হবে। এরপর দেশটিকে সিদ্ধান্ত জানাবে বাংলাদেশ সরকার। তবে কবে নাগাদ শুরু হবে তা এখনো কেউ স্পষ্ট করে বলতে পারছেন না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক কর্মকর্তা বলেন, আমরা সৌদিসহ মধ্যপ্রাচ্যে নারী গৃহকর্মী প্রতি বছর পাঠাচ্ছি। কিন্তু সেই দেশগুলোতে আমাদের মা-বোনদের এখনো নিরাপদ করতে পারিনি। তাই মালয়েশিয়ায় নারীদের শক্ত গাইডলাইন তৈরি না করে পাঠালে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মতোই হবে। তখন সুফলের চেয়ে দুর্ভোগ বাড়বে আমাদের মা-বোনদের। আর যেন কোনো নারী বিদেশে কাজ করতে গিয়ে নির্যাতনের শিকার না হন সেই দিকটি খেয়াল রেখেই গাইডলাইন তৈরি করা উচিত হবে।

এ ব্যাপারে জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর মহাপরিচালক শহীদুল আলম বলেন, মালয়েশিয়ায় আমাদের কর্মীরা যে সেক্টরে যাচ্ছিল তার বাইরে নতুন করে নিরাপত্তাকর্মী ও গৃহকর্মী যাওয়া শুরু করবে। এ বাজারটা যদি আমরা পেয়ে যাই তবে মধ্যপ্রাচ্যের চেয়ে বেশি কর্মী যাবে মালয়েশিয়ায়। তবে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। আগে থেকেই টাকা বা পাসপোর্ট জমা না দিয়ে বিষয়টাতে কনফার্ম হতে হবে। আমাদের দেশে প্রচুর মানুষ ভুল বুঝে বিপথগামী হয়। সবার আগে দরকার দক্ষ হওয়া, সে দক্ষতার সার্টিফিকেট নেওয়া এবং জেনে-বুঝে যাওয়া।


আরও খবর

বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ মডেল

শনিবার ০১ এপ্রিল ২০২৩




খালেদা জিয়ার মুক্তি ও ১০ দফা দাবিতে বিএনপির পদযাত্রা

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ এপ্রিল ২০২৩ | ৫৬জন দেখেছেন

Image

ইবাদত হোসেন :

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর  বলেন 

সবকিছুর দাম উর্দ্ধমুখী, সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে, মানুষ হাহাকার করছে। সারাদেশের মানুষ খাদ্যের অভাবে পড়ে গেছে। 

সরকার আবার নির্বাচনের উদ্যোগ নিচ্ছে 

সরকারের মন্ত্রীরা বলছে সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে অথচ মানুষের ভোটের অধিকার নেই। অতীতে দেশের মানুষ কারচুপির নির্বাচনের নমুনা দেখেছে।

সরকার আবার পাতানো, সাজানো নির্বাচনের আয়োজন করতে যাচ্ছে। সরকারের অধীনে, শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচন হলে ভোট নিরপেক্ষ হবে না।

বিদ্যুৎ আনতে ভারতের কোম্পানির সাথে অসম চুক্তি করেছে সরকার। সরকারের জনগনের প্রতি দায়বদ্ধতা, জবাবদিহিতা নেই। সরকার দেশ চালাতে ব্যর্থ হয়েছে, অর্থনীতি চালাতে ব্যর্থ হয়েছে। ইউক্রেন রাশিয়া যুদ্ধ নয় সরকারের দুর্নীতির কারণে দেশের অর্থনৈতিক দুরাবস্থা।

সরকার ক্ষমতায় থেকে নির্বাচন করলে সুষ্ঠু, অবাধ নির্বাচন হবে না। 

সেজন্য বলা হয়েছে সরকারকে পদত্যাগ করে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নতুন কমিশনের মাধ্যমে নির্বাচন আয়োজন করতে হবে।

সালাহউদ্দিন আহমেদকে ভারতের আদালত খালাশ দিলেও সরকার তাঁকে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নেয়নি সরকার।

খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি।

আওয়ামী লীগ গত নির্বাচনের মতো নির্বাচন করতে চাইলে মানুষ এবার আর হতে দেয়া হবে না। তামাশার নির্বাচন এদেশে হতে দেয়া হবে না। শান্তিপূর্ণ আন্দোলন এগিয়ে নিতে হবে।

১৫ বছরে মামলা নির্যাতন করে দমিয়ে রাখা যায়নি।

বাঁধা দিলে জনগনের শক্তি দিয়ে অতিক্রম করা হবে।

১০ দফা দাবি আদায়ে আগামী ১১ই মার্চ সকল মহানগর ও জেলায় মানববন্ধন কর্মসূচি ঘোষণা।

আমান উল্লাহ আমান:

আওয়ামী লীগের অধীনে নির্বাচন হবে না। শেখ হাসিনা নিরপেক্ষ না।  তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে সেই নির্বাচনে বিএনপি যাবে। 

নিজেদের প্রতি জনগণের সমর্থন নেই বলে সরকার নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে ভয় পায়।

সরকারের পদত্যাগের দাবিতে জনগন রাজপথে নেমে এসেছে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

খন্দকার মোশারফ :

জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি, নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে, সারাদেশে পদযাত্রা। কাজিরগা, যাত্রাবাড়ী। যাত্রাবাড়ী থানা বিএনপি।

বিএনপি যেইদিন ই সমাবেশের ডাক দেয়,  সেইদিন ই আওয়ামীলীগ পাল্টা কর্মসূচি দেয়। তারা বিএনপিকে ভয় পায় বলেই কর্মসূচি দেয়।

এই সরকার গায়ের জোরে ক্ষমতায় আছে। জনগণের ভোটে না। 

যে দেশে গনতন্ত্র নেই, সে দেশে মানবাধিকার থাকতে পারে না। মানবাধিকার লংঘন করেছে এই সরকার।

তারা ভয় পায় বলেই মামলা দিয়ে নেতা কর্মীদের দমন করছে।

দ্রব্যমূল্য এমনভাবে বেড়েছে, সব মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়েছে। দেশের গরীব মানুষ আরো গরীব হয়েছে। মধ্যবিত্তরা গরীব হয়ে গেছে। লুটেরাদের হতে ওএমএস এর চাল দেয়ার দায়িত্ব পড়েছে।  আওয়ামী সিন্ডিকেটের হাতে পড়েছে ব্যাবসা। কাজেই দ্রব্যমূল্য আর নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে না। এই সরকারকে বিদায় না করলে, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ হবে না। নির্বাচন ও সুষ্ঠু হবে না। মোশাররফ বলেন, ১০ দফা দাবি মেনে না নিলে, জনগন জানে কিভাবে বিদায় করতে হয়। সব নেতা কর্মীদের আন্দোলন সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানান তিনি।


আরও খবর